ফুকুশিমা পারমাণবিক কেন্দ্রঃ জল ছাড়ার এক মাস পরেও ট্রিটিয়াম পাওয়া যায়নি

উত্তরাপথঃ এক মাস আগে ফুকুশিমা দাইচি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে শোধিত বর্জ্য জল সাগরে ছেড়ে দেওয়ার জাপান সরকারের সিদ্ধান্তের পরে, সামুদ্রিক জীবনের উপর সম্ভাব্য প্রভাব সম্পর্কে বিভিন্ন মহল থেকে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছিল।আশঙ্কা করা হয়েছিল  ট্রাইটিয়াম, হাইড্রোজেনের একটি তেজস্ক্রিয় আইসোটোপ, বর্জ্য জলে উপস্থিত উপাদানগুলির মধ্যে রয়েছে। জল ছাড়ার ঠিক ,এক মাস পরে ফুকুশিমা দাইচি পারমাণবিক কেন্দ্রের কাছাকাছি জল থেকে নেওয়া মাছের নমুনাগুলিতে সনাক্তযোগ্য পরিমাণে ট্রিটিয়াম পাওয়া যায়নি, জাপানের ফিশারিজ এজেন্সি তার ওয়েবসাইটে একথা জানিয়েছে।  যা ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চল থেকে সামুদ্রিক খাবার খাওয়ার নিরাপত্তা সম্পর্কে কিছুটা আশ্বাস দেয়।প্রসঙ্গত উল্লেখ্য পরিবেশগত প্রভাব সম্পর্কে দেশীয় এবং আন্তর্জাতিকস্তরে চলতে থাকা গুজব দূর করার জন্য সংস্থাটি জল ছাড়ার শুরু থেকে প্রায় প্রতিদিনের আপডেট সরবরাহ করে আসছে।

একটি স্বনামধন্য বৈজ্ঞানিক প্রতিষ্ঠানের গবেষকরা ফুকুশিমা দাইচি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের আশেপাশে থেকে সংগৃহীত মাছের নমুনায় ট্রিটিয়ামের উপস্থিতি মূল্যায়ন করার জন্য একটি ব্যাপক ভাবে গবেষণা করেছেন। গবেষণায় ৮ আগস্ট থেকে সংগ্রহ করা ৬৪ টি মাছের মধ্যে ফ্লাউন্ডার এবং ছয়টি অন্যান্য প্রজাতির মধ্যে কোনো ট্রিটিয়াম পাওয়া যায়নি।ফলাফলগুলি বর্তমানে জাপানি এবং ইংরেজি উভয় ভাষায় উপলব্ধ।

গবেষণায় বর্জ্য জল ছাড়ার এক মাস পরে সংগৃহীত মাছের নমুনায় ট্রিটিয়ামের কোনও সনাক্তযোগ্য মাত্রা পাওয়া যায়নি।সুতরাং এই গবেষণাগুলি থেকে নিশ্চিত করে বলা যায় যে এই সময়ের মধ্যে মাছের মধ্যে ট্রিটিয়াম উল্লেখযোগ্যভাবে জমেনি। মাছে ট্রিটিয়ামের অনুপস্থিতি নিঃসন্দেহে একটি ভালো খবর যে শোধন করা বর্জ্য জল মুক্তির ফলে সামুদ্রিক জীবন তাৎক্ষণিকভাবে দূষিত হয়নি।

প্রসঙ্গত জাপান সরকার এবং জাপানের ফিশারিজ এজেন্সি সামুদ্রিক জীবনের উপর বর্জ্য জল নির্গমনের প্রভাব নিরীক্ষণ এবং জনস্বাস্থ্য রক্ষার জন্য কঠোর নিরাপত্তা মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে । নির্দিষ্ট এলাকায় সামুদ্রিক মাছের নিরাপত্তার প্রতি জনগণের আস্থা বজায় রাখার জন্য ক্রমাগত পর্যবেক্ষণ এবং কঠোর বিধিনিষেধ প্রয়োগ করছেন যা মানুষের আস্থা বজায় রাখার জন্য অপরিহার্য। সেই সাথে এটি গ্রাহকদের মনে উদ্বেগ উপশম করতে এবং  সঠিক তথ্য ছড়িয়ে দিতে সাহায্য করবে।  

ফুকুশিমা দাইচি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে পরিশোধিত বর্জ্য জল ছাড়ার এক মাস পরে পরিচালিত সাম্প্রতিক গবেষণায় মাছের নমুনায় ট্রিটিয়ামের কোনো সনাক্তযোগ্য মাত্রা দেখা যায়নি। যদিও এই ফলাফলগুলি প্রাথমিক ভাবে একটি ভরসা প্রদান করে,তবে বর্জ্য জল মুক্তির দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব ব্যাপকভাবে মূল্যায়ন করার জন্য অবিরত পর্যবেক্ষণ এবং গবেষণা প্রয়োজন।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


WORLD CUP 2023: আফগানিস্তান  ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করল,অধিনায়কত্ব করবেন হশমতুল্লাহ শাহিদি   

উত্তরাপথঃ আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ২০২৩-এর জন্য একটি শক্তিশালী ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে,এই দলে ফিরেছেন নবীন-উল-হক। ৫ অক্টোবর থেকে ভারতে শুরু হতে চলেছে ক্রিকেট বিশ্বকাপ,চলবে১৯ নভেম্বর পর্যন্ত।  এই বিশ্বকাপে আফগানিস্তানের দলে ফিরেছেন নবীন-উল-হক, যিনি এশিয়া কাপে দলের অংশ ছিলেন না।১৫ সদস্যের আফগান দলের অধিনায়কত্ব করবেন হশমতুল্লাহ শাহিদি ।একই সময়ে, ২৩ বছর বয়সী অলরাউন্ডার আজমতুল্লাহ ওমরজাই, যিনি এশিয়া কাপের দলে ছিলেন না, তিনিও বিশ্বকাপ দলে জায়গা পেয়েছেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

ভোরের শুকতারা

অনসূয়া পাঠকঃ বাস ছাড়তে তখনো কিছুটা সময় বাকি ছিলো, আমি মা বাবার সাথে বাসের ভেতরে জানালার দিকের সিটটায় বসে আছি। এমন সময় দেখি আমাদের পাশের সিটে বসে একজন রবীন্দ্রনাথের সঞ্জয়িতা পড়ছেন, বইটাকে দেখে আমার চোখের সামনে একটা সোনালী ফ্রেমের চশমা পরা মুখ ভেসে উঠলো, চন্দন স্যারের মুখ। বছর পাঁচেক আগের কথা, আমার বাবা তখন জঙ্গলমহল মেদিনীপুরের আমলাশুলির পোষ্টমাষ্টার। দু কিমি দূরেই আমার পিসীমার বাড়ি। ওখানেই আমার হাইস্কুলে পড়াশোনা শুরু। আর যে স্যার আমার মননে সদা জাগরুক , বাংলা সাহিত্যের বটবৃক্ষ বলা যায় যাকে , আমার গল্প যাঁকে নিয়ে সেই চন্দন স্যারকে ওখানেই পাওয়া। ফর্সা গায়ের রঙ, মাথায় ক়াঁচা পাকা চুল , সরু গোঁফ চোখে সোনালী ফ্রেমের চশমা, .....বিস্তারিত পড়ুন

বিক্রম সারাভাই: ভারতীয় মহাকাশ গবেষণার একজন দূরদর্শী পথিকৃৎ

উত্তরাপথঃ ডঃ বিক্রম সারাভাই ছিলেন ভারতের অন্যতম সেরা বিজ্ঞানী। তিনি একজন বিজ্ঞানী, উদ্ভাবক, শিল্পপতি এবং স্বপ্নদর্শীর ভূমিকা সমন্বিত, ভারতীয় মহাকাশ কর্মসূচির জনক হিসাবে বিখ্যাত।তাঁর নিরলস প্রচেষ্টায় ভারত মহাকাশ অনুসন্ধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ISRO) এর প্রতিষ্ঠা ছিল তার অন্যতম সেরা সাফল্য। তিনি রাশিয়ান স্পুটনিক উৎক্ষেপণের পর ভারতের মতো একটি উন্নয়নশীল দেশের জন্য মহাকাশ কর্মসূচির গুরুত্ব সম্পর্কে সরকারকে সফলভাবে বোঝান।এরপর ডঃ হোমি জাহাঙ্গীর ভাভা, যিনি ভারতের পারমাণবিক বিজ্ঞান কর্মসূচির জনক হিসাবে পরিচিত, ভারতে প্রথম রকেট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র স্থাপনে ডঃ সারাভাইকে সমর্থন করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

আগামী ৩ বছরে শূন্য বর্জ্য হওয়ার পথে রাজস্থানের প্রথম গ্রাম

উত্তরাপথঃ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের একটি প্রকল্পের আওতায় আঁধি গ্রামে এই পরিবর্তন করা হচ্ছে।জয়পুর থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত আন্ধি গ্রাম।আগামী তিন বছরে এই গ্রাম শূন্য বর্জ্য হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে ।আন্ধি গ্রামের এই সম্পূর্ণ রূপান্তরটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের একটি প্রকল্পের অধীনে করা হচ্ছে।  এই প্রকল্পটি সবুজ প্রযুক্তির হস্তক্ষেপ ব্যবহার করে আন্ধি গ্রামকে জিরো ওয়েস্ট মডেলে রূপান্তরিত করার কাজ চলছে ।  এই প্রকল্পটি ২১ মার্চ ২০২২ এ শুরু হয়েছে,  প্রকল্প পরিচালক বলেন, এ গ্রামের অবস্থা আগে খুবই খারাপ ছিল।আগে এই গ্রামের লোকেদের কঠিন বর্জ্য আলাদা করার কোনও ধারনা ছিল না । .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top