uttarapath_image

।। বাংলার একমাত্র মুখোশের গ্রাম ।।

প্রিয়াঙ্কা দত্তঃ পুরুলিয়ার ছৌ নাচ এখন বিশ্ব বন্দিত। আর যে মুখোশ এই ছৌ নাচকে এনে দিয়েছে এক অনন্য মাত্রা , সেই মুখোশ নির্মাণকারী গ্রামের নাম চড়িদা। বাংলার একমাত্র মুখোশ গ্রাম | এই মুখোশ তৈরীর ইতিহাসও ছৌ নাচের মতই প্রাচীন | অতীতে যদিও ছৌ নাচে কোনও মুখোশ ব্যবহৃত হত না | আদিবাসী জনগোষ্ঠীর লোকেরা দেবদেবীর আরাধনায় ও বৃষ্টির উপাসনায় মুখে ছাই মেখে বিভিন্ন পশু পাখির আচরণ নকল করে  ধামসা মাদলের তালে তালে  নৃত্য প্রদর্শন করত | অনেকে বলেন ছৌ কথাটি এসেছে ছাউনি (সেনা) থেকে | তাই এই নাচে মার্শাল আর্টের প্রভাব দেখা যায় | উনিশ শতকে স্থানীয় রাজাদের পৃষ্ঠপোষকতায় ছৌ নাচ ক্রমে পরিচিতি লাভ করতে থাকে | ছৌ নাচের বিভিন্ন প্রকার ভেদের মধ্যে পুরুলিয়া ছৌ নাচেই মুখোশের বহুল ব্যবহার দেখা যায় | এর পিছনে প্রকৃত কারণ গবেষকরা ভালো বলতে পারবেন | তবে জনশ্রুতি আছে যে, প্রায় দেড়শ বছর আগে বাঘমুন্ডির রাজা মদন মোহন সিংদেও তাঁর রাজবাড়িতে দেবী দেবতার মূর্তি গড়ার কাজে বর্ধমান থেকে আগত কিছু শিল্পীকে নিযুক্ত করেন।তাঁরা জাতিতে ছিলেন সূত্রধর |অযোধ্যা পাহাড়ের কোল ঘেঁষে ছোট্ট গ্রাম চড়িদা। তার পাশ দিয়ে বয়ে চলেছে হিকিমডি নামে শীর্ণ এক নদী। .....বিস্তারিত পড়ুন

uttarapath_image

অ্যাস্ট্রোস্কেল (Astroscale) প্রথম মহাকাশের ধ্বংসাবশেষের ক্লোজ-আপ ছবি সর্বসমক্ষে প্রকাশ করেছে

অ্যাস্ট্রোস্কেল হোল্ডিংস ইনক (Astroscale Holdings Inc), একটি জাপানি স্পেস কোম্পানি, বিশ্বে প্রথম মহাকাশের ধ্বংসাবশেষের ক্লোজ-আপ ছবি সর্বসমক্ষে প্রকাশ করেছে । যা পৃথিবীকে প্রদক্ষিণকারী আবর্জনা দ্বারা সৃষ্ট সমস্যাগুলি বোঝার ক্ষেত্রে একটি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি ৷ চিত্রে এই নির্দিষ্ট ধ্বংসাবশেষটি হল জাপানের H2A রকেটের দ্বিতীয় পর্যায়ের অংশ যা ২০০৯ সালে উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল। এই ধ্বংসাবশেষটি, ৪ মিটার ব্যাস এবং প্রায় ৩ টন ওজনের এবং এর দৈর্ঘ্য প্রায় ১১ মিটার। Astroscale-এর ছবি ADRAS-এর দ্বারা বন্দী করা হয়েছিল প্রায় কয়েকশো মিটার দূরত্ব থেকে। পৃথিবীর প্রায় ৬০০ কিলোমিটার উপরে উচ্চ গতিতে ধ্বংসাবশেষটিকে ভ্রমণ করতে দেখা যাচ্ছে, অংশটিকে বাদামী নিরোধক উপাদানে মোড়ানো। Astroscale, স্যাটেলাইট সার্ভিসিং-এ বিশেষজ্ঞ টোকিও ভিত্তিক একটি কোম্পানি, মহাকাশ ধ্বংসাবশেষ দ্বারা সৃষ্ট সমস্যাগুলিকে সমাধান করার জন্য আমাদের প্রচেষ্টার একটি যুগান্তকারী মাইলফলক হিসাবে চিত্রটিকে বর্ণনা করা হয়েছে।জাপান অ্যারোস্পেস এক্সপ্লোরেশন এজেন্সি নিশ্চিত করেছে যে নিরোধক উপাদানটি, প্রাথমিকভাবে কমলা রঙের ছিল, .....বিস্তারিত পড়ুন

uttarapath_image

kanjar Tribe: কাঞ্জর জনজাতির লোকেরা আজও অপরাধী হওয়ার কলঙ্ক বহন করে আসছে

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতোঃ আজ আমরা কাঞ্জর উপজাতি নিয়ে আলোচনা করব।কাঞ্জর হল সেই উপজাতি যাদের আমরা অনেকেই যাযাবর বা বেদুঈন নামে জানি।রাজস্থানের বেশ কিছু কাঞ্জর উপজাতিদের সাথে আমরা কথা বলি ,তাদের গলায় এক আক্ষেপের সুর তাদের কথায় আমরা আমাদের পূর্বপুরুষদের সময় থেকে  অপরাধী হওয়ার কলঙ্ক বহন করে আসছি। গ্রামে আমাদের জীবিকার উপায় নেই, জমিও নেই, ব্যবসাও নেই। অপরাধ প্রবণ জনজাতি হওয়ার কারণে আমাদের কেউ কোনো কাজ দেয় না বা কোনও গ্রামে আমাদের নতুন করে বসতি করতে দেয় না।আমাদের সমাজের সমাজের মূল ধারা থেকে বিচ্ছিন্ন রাখা হয়েছে ।'কঞ্জর' শব্দটি সংস্কৃত 'কানন-চর' থেকে উদ্ভূত বলে জানা যায়। এদের ভাষা, নাম, সংস্কৃতি ইত্যাদিতে উত্তর ভারতীয় প্রবণতা এতটাই বেশী যে তারা যে দ্রাবিড় বংশোদ্ভূত তা অনেকেই মনে করেন না,বরং কঞ্জরদের অন্যান্য যাযাবর উপজাতি যেমন সানসিয়া, হাবুরা, বেরিয়া, ভাট, নাট এবং বাহেলিয়ার সাথে সাংস্কৃতিক মিল রয়েছে। নিজেদের কোনও স্থায়ী বাসস্থান না থাকার কারণে এটা মূলত একটি যাযাবর উপজাতি, বিভিন্ন জায়গায় জীবিকার সন্ধানে বেশ কিছুকাল আগে পর্যন্ত এরা ঘুরে বেড়াত। .....বিস্তারিত পড়ুন

uttarapath_image

বিশ্বে কার্বন নিঃসরণ বেড়েছে, কোল ইন্ডিয়া এই নির্গমনের জন্য দায়ী শীর্ষ তিনটি কোম্পানির মধ্যে রয়েছে

উত্তরাপথঃ প্যারিস চুক্তির পর থেকে, জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে তৈরি বিশ্বের কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমনের ৮০ শতাংশ বিশ্বের ৫৭টি কোম্পানি এবং শিল্পসংস্থার সাথে যুক্ত। এই বিখ্যাত কোম্পানিগুলো সারা বিশ্বে জীবাশ্ম জ্বালানি সহ সিমেন্ট উৎপাদনে জড়িত। ভারতের কোল ইন্ডিয়াও এই নির্গমনের জন্য দায়ী শীর্ষ তিনটি কোম্পানির মধ্যে রয়েছে, যেটি ২০১৬ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী কার্বন ডাই অক্সাইড (CO2) নির্গমনের তিন শতাংশের জন্য দায়ী ছিল। তথ্য অনুসারে, এই সময়ের মধ্যে কোল ইন্ডিয়া ৮৫০.৯ কোটি টন CO2 এর সমতুল্য নির্গমন করেছিল।লন্ডনভিত্তিক থিঙ্ক ট্যাঙ্ক ইনফ্লুয়েন্স ম্যাপের প্রকাশিত নতুন বিশ্লেষণে এ তথ্য উঠে এসেছে। ইনফ্লুয়েন্স ম্যাপের প্রকাশিত কার্বন মেজর ডাটাবেস অনুসারে, এর মধ্যে শীর্ষ নির্গমনকারী ছিল সৌদি আরবের জাতীয় তেল কোম্পানি সৌদি আরামকো, একটি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পেট্রোলিয়াম এবং প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানি। সৌদি আরামকো ২০১৬ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে মোট বৈশ্বিক CO2 নির্গমনের ৪.৮ শতাংশের জন্য দায়ী ছিল, যা প্রায় ১,৩২৫.৬ মিলিয়ন টন CO2 এর সমতুল্য। .....বিস্তারিত পড়ুন

uttarapath_image

সরকার যতই খরচ করে স্বচ্ছ ভারত বা নির্মল বাংলা অভিযান করুক, স্বচ্ছতা অধরাই থাকবে

প্রীতি গুপ্তাঃ এখনও রাস্তা দিয়ে চলতে চলতে মাঝে মধ্যে স্বচ্ছ ভারত -এর দু-একটা ব্যানার চোখে পড়ে। কিন্তু ব্যাস ঐ পর্যন্ত বাস্তবে মোদীজির স্বচ্ছ ভারত বা নির্মল বাংলা অভিযান কতটা সফল তা নিয়ে বিতর্ক হতেই পারে।সম্প্রতি দেশের এবং পশ্চিমবঙ্গের গর্ব, হুগলি নদীর তলদেশে চলমান পূর্ব-পশ্চিম মেট্রো, হাওড়া ময়দান এবং এসপ্ল্যানেডের মধ্যে ৪.৮ কিলোমিটার রাস্তা উদ্বোধনের কিছু দিনেই মধ্যে যা অবস্থায় এসে দাঁড়িয়েছে তাতে এইসব অভিযানের কার্যকারিতা নিয়েই প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে।আমাদের রাজ্যের এমন বহু মানুষ আছেন যাদের কলকাতায় মেট্রো ভ্রমণের কোনও অভিজ্ঞতা নেই, তাদের জন্য, পূর্ব-পশ্চিম মেট্রো হাওড়া ময়দান থেকে ফুলবাগান প্রায় ১৬ কিলোমিটার পথ, যার মধ্যে একটা বড় অংশ হুগলি নদীর ৩০ মিটার তলদেশ দিয়ে গিয়েছে ভ্রমণের এক দারুন অভিজ্ঞতা হতে পারে ।খবরে প্রকাশ বহুল প্রত্যাশিত এই মেট্রোর উদ্বোধনী দিনে ৭০,০০০ জন যাত্রী প্রথম জলের নিচে মেট্রো প্যাসেজের অভিজ্ঞতা উপভোগ করেছেন। তারপর থেকে, দৈনিক গড়ে ৫০,০০০ যাত্রী এই মেট্রো পথ ব্যবহার করে বলে জানা গেছে।কিন্তু উদ্বোধনের মাত্র এক সপ্তাহ পরে, সংবাদপত্রগুলি মেট্রো স্টেশনগুলির একেবারে নতুন মেঝে এবং দেওয়ালে যাত্রীদের পান এবং গুটকা থুতু ফেলার বিষয়ে ছবি এবং প্রতিবেদনগুলি প্রকাশ করে যা সত্যিই লজ্জাজনক .....বিস্তারিত পড়ুন

uttarapath_image

Rheumatoid Arthritis: প্রাথমিক রোগ নির্ণয়, চিকিৎসার গুরুত্ব এবং চিকিৎসা

উত্তরাপথঃ রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে (Rheumatoid Arthritis) জনসংখ্যার প্রায় ১% আক্রান্ত। এই দীর্ঘস্থায়ী অবস্থা অত্যন্ত বেদনাদায়ক।এতে হাত ও পা এর জয়েন্টের ব্যাথার সাথে একটা জ্বালার অনুভূতি হয়।ধীরে ধীরে প্রায়শই এটি হাত ও পায়ে গুরুতর বিকৃতির দিকে পরিচালিত হয় এবং দৈনন্দিন কাজকর্মে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।সেই সঙ্গে এটি শুষ্ক চোখ, মুখ এমনকি ফুসফুসের সমস্যাগুলির মতো শারীরিক জটিলতার কারণ হতে পারে। আগে রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস সম্পর্কে সচেতনতা এবং বোঝার ক্ষেত্র অনেক সীমিত ছিল, কিন্তু বর্তমানে রোগীদের মধ্যে সচেতনতা এলেও অত্যন্ত দুর্ভাগ্যের বিষয় অধিকাংশ স্থানে আজও এই রোগের সঠিক চিকিৎসা পরিকাঠামো নেই রোগীদের সাধারণত ব্যথানাশক এবং স্টেরয়েড দিয়ে লম্বা সময় রেখে দেন ডাক্তারেরা যা পরে শরীরে নানারকম বিকৃতি, জয়েন্টগুলির ক্ষতি এবং দৈনন্দিন জীবনযাত্রার কাজকর্ম সম্পাদনে অক্ষমতার পর্যায়ে পৌঁছে যায়। এর ফলে জয়েন্ট রিপ্লেসমেন্ট সার্জারি বৃদ্ধি পেয়েছে। রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসের রোগীরা বর্তমানে, অনেক আগে আসে চিকিৎসার প্রয়োজনে, সাধারণত জয়েন্টে ব্যথা এবং অন্যান্য উপসর্গের প্রথম কয়েক মাসের মধ্যে। রোগের প্রথম দিকে হওয়ার কারণে তাদের কোনো বিকৃতি থাকে না, .....বিস্তারিত পড়ুন

12 3 4 5 6 7 8

বিশেষ বিজ্ঞপ্তি : পত্রিকায় বিভিন্ন বিভাগে প্রকাশিত লেখকদের মতামত একান্তই তাদের নিজস্ব। আমরা কোনো লেখা পূর্ব প্রকাশিত কিনা সেটাও যাচাই করিনি। আমরা ব্যাক্তি স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। প্রকাশিত বিষয়ে বিতর্কের দায় উত্তরাপথ কর্তৃপক্ষয়ের নয়।

For any queries contact, Ms. Gargi Agarwala Mahato, Editor-in-Chief, Uttarapath, email info@uttarapath.com or uttarapathpatrika@yahoo.in Copyright © 2023 উত্তরাপথ | Designed & Developed with ❤  by  Geebamore
Scroll to Top