আশাজী (বাস্তব ঘটনা কেন্দ্রীক)

মৈত্রেয়ী আগরওয়ালা, মালদা

কিছু দিন আগে কালিম্পং বেড়াতে গিয়ে পরিচয় হয় শিলারিগাও নামে একটি পাহাড়ের কোলে গড়ে ওঠা গ্রাম্য মহিলা আশাজীর সাথে। নেপালী ভাষা ছাড়া সাবলীল ভাবে কোনো ভাষা বলতে না পারলেও ভাঙা ভাঙা হিন্দি তে কথা বলতে পারেন তিনি। প্রচন্ড বৃষ্টিপাতের জন্য ঘরের বাইরে যাওয়া যাচ্ছিলোনা। তাই আশাজীর সাথে একটা সারাদিন আড্ডা মেরে কাটালাম, আর জানতে পারলাম এমন কিছু অজানা তথ্য……

গোর্খাদের মহিলা কেন্দ্রীয় সমাজে মেয়েদের অনেক সন্মান পরিবারের মধ্যে। মেয়েরা কি পরাশোনা করতে পারে? প্রাথমিক পর্যায়ে পড়াশোনা করলেও খুব সাধারণ পরিবারে মেয়েদের পড়াশোনা হয় না। এইভাবে অনেক মেধাবী ছাত্রী হারিয়ে যায় নিয়ম নীতির বেড়াজালে। মেয়ে মানে চুলা চাক্কি, বাবার সংসারে পরে শ্বশুরবাড়িতে। মেয়েদের স্বামী সন্তান মানুষ আর ঘরবাড়ি সামলানোর বাইরে কাজ বলতে সবজি চাষ, গরু, মুরগি পালন করা ইত্যাদি। মেয়েদের সরকারী কাজ, বা বেসরকারী কাজকর্মের ব্যাপারে পরিবার কতোটা উদ্যোগী?

একগাল হেসে বললেন স্মরণ কে তো এই কারণেই মরতে হয়েছিলো। নিয়মের বাইরে গিয়ে সে পড়াশোনা দশম ক্লাস পর্যন্ত করে তার চাচার বাড়ি কেরলে চলে যায়। সেখানে আরো পড়াশোনা করে একটি বাচ্চাদের স্কুলে পড়ায়। এই গ্রামের মেয়ে স্মরণ। বাবা মা জানতে পেরে বুঝিয়ে দিন কয়েকের কথা বলে এখানে ফিরিয়ে আনে, তারপর আগে থেকেই যে ছেলের সাথে বিয়ে দেবে বলে ঠিক করে রেখেছিল তার সাথেই  বিয়ের দিন স্থির করেন।

স্মরণ তার ভাবী স্বামী কে জিজ্ঞেস করেছিল কয়েকটি প্রশ্ন? বিয়ের পর সে কি আবার কেরলে যেতে পারবে? উত্তর আসে কখনোই না। আপনি তো সেইভাবে কিছু ই করেন না, তাহলে আমার দায়িত্ব কিভাবে নেবেন? উত্তর আসে বাড়িতে গরু ও মুরগী অনেক আছে, তেমনভাবেই তুমি থাকবে।

স্মরণ আবার বলেন মুরগি ,গরু আর একটি মেয়ে কি একরকম? উত্তর আসে ওরা তো মেয়েমানুষের মতোই সন্তান দেয়, পালন করে তবে এক হবে না কেন? স্মরণ এই কথা শুনে বিয়ে করবে না জানিয়ে দেয় বাড়িতে। ওর মা ওকে টেনে নিয়ে যায় ভাবী শ্বশুরবাড়ি তে। সেখানে ঐ বাড়ির সবার সামনে বলতে বলে সে কি বলছে বিয়ে নিয়ে?

স্মরণ বলেছিল যে সে বিয়ে করবে না। গরু ও মেয়ে কি এক হলো? উত্তরে সেই বাড়ির মেয়েরা  হাতের কাছে যা পেলো তাই দিয়ে স্মরণের উপর চড়াও হলো যে সে মেয়েমানুষ হয়ে কেন প্রশ্ন করছে, কেন সে তার বাড়ির ছেলের রোজগার নিয়ে কথা বলেছে?

মেয়েরা অকপটে স্বীকার করছে  গরু কে মা মনে করা হয়, গরুর সন্মান আছে সেখানে  মেয়েকে গরু মনে করা হলে কি অন্যায় হলো। এই মেয়ে বাইরে থেকে নষ্ট মেয়ে হয়ে গেছে, আমাদের অন্য মেয়েরাও এর সাথে থাকলে সমাজ খারাপ হয়ে যাবে গ্রামের মানুষেরা এইসব কথা আলোচনা করার পর আর স্মরণকে দেখা যায় নি। শোনা যায় রাতের আঁধারে গাছে বেঁধে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে নাকি তাকে, তবে সঠিক ভাবে কেউ বলতে পারে না। এইরকম আরো অনেক অজানা তথ্য নিয়ে আবারও আমি আপনাদের জানাবো। কথাগুলো বলেছেন আশাজী। তাই এই গল্পগুলোর শিরোনামে থাকবেন আশাজী।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


World Children's Day: সত্যিই কি ‘বিশ্ব শিশু দিবস´পালনের কোনও যৌক্তিকতা আছে ?

প্রীতি গুপ্তাঃ হাতে গোনা আর মাত্র কয়েকটি দিন তারপর ১৪ নভেম্বর আমাদের দেশ সহ সারা বিশ্বজুড়ে  পালন করা হবে ‘বিশ্ব শিশু দিবস´(World Children's Day)।এই দিনটি শিশুদের মঙ্গলের জন্য, তাদের ভবিষ্যতের জন্য একটি অনুকূল বিশ্ব তৈরি করার প্রচেষ্টার একটি দিন।কিন্তু প্রশ্ন,সত্যি কি হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ করে সারা বিশ্ব জুড়ে শিশু দিবস পালন করার কোনও যৌক্তিকতা আছে? আদৌ কি এর কোনও লাভ আমরা আমাদের প্রান্তিক স্তরের শিশুদের কাছে পৌঁছে দিতে পেরেছি ? সম্প্রতি কাজের প্রয়োজনে রাজস্থানের উদয়পুর শহরে আসা। আমরা সবাই জানি উদয়পুর বিখ্যাত তার হ্রদের কারণে । এখানকার স্থানীয় থেকে পর্যটক সকলেই এই সুন্দর হ্রদগুলির আকর্ষণে বারবার ছুঁটে যায়। ‘ফতে সাহেব লেক’ রাজস্থানের উদয়পুরের এক বিখ্যাত পর্যটক স্থল।এখানে বহু মানুষ সকাল- বিকেল এই লেকের চার ধারে হাঁটাহাঁটি করতে বেরিয়ে পড়ে। সেভাবেই দুই দিন আগে বিকেলে হঠাৎ করে বেরিয়ে পড়লাম ‘ফতে সাহেব লেকের ধারে হাঁটার উদ্দেশ্য নিয়ে। হাঁটার মাঝখানে হঠাৎ করে একটি বাচ্চাছেলে আওয়াজ করে ডাকছে ,বললাম কিছু বলবি? সে বলল একটু দাঁড়াতে। ও ছুটে গিয়ে হাতে করে কয়েকটি বেলুন নিয়ে এসে হাজির । সে বারবার বেলুন কেনার অনুরোধ জানাতে লাগল। হাতে অন্য কাজের চাপ নেই অনেকটা অবসর সময় তাই আমি অনেকটা সাংবাদিক সুলভ মন নিয়ে বললাম ঠিক আছে আমি তোর বেলুন নেব ,কিন্তু তার আগে আমি  তোকে যা বলব তার তার ঠিক ঠিক উত্তর দিতে হবে। সে খুশী খুশী রাজি হয়ে গেল । .....বিস্তারিত পড়ুন

বিশ্বকাপ ২০২৩: পাকিস্তানকে হারিয়ে Afghanistan এ ঈদের মতো পরিস্থিতি

আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০২৩-এর ২২ তম ম্যাচে আফগানিস্তান পাকিস্তানকে বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করেছে। সেই ম্যাচে পাকিস্তানকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করে আফগানিস্তান। এই প্রথম ওয়ানডেতে পাকিস্তানকে হারাল আফগানিস্তান আর এই পাকিস্তানকে হারিয়ে আফগানিস্থানে(Afghanistan)এখন ঈদের মতো পরিস্থিতি।এক আফগানিস্থানি সমর্থকের মতে এটি ছিল আমাদের ইতিহাসের একটি বিরল মুহূর্ত যখন পুরো জাতি খুশি ছিল এবং নিজেদের মত করে তারা তাদের এই খুশী উদযাপন করেছেন। এক্স হ্যান্ডেলে এক সমর্থকের মতে, সেদিন উদযাপন ছিল, পার্টি ছিল। এটি ছিল আমাদের ইতিহাসের একটি বিরল মুহূর্ত যখন পুরো জাতি খুশি ছিল এছাড়াও, এটি ছিল ২০২৩ বিশ্বকাপের তৃতীয় বড় আপসেট । টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাবর আজমের দল। প্রথমে ব্যাট করে পাকিস্তান দল ২৮২ রান করে। জবাবে আফগানিস্তান দল ২৮৩ রান তাড়া করে ৪৯ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্য অর্জন করে। এই ম্যাচে হারের পর বেশ ক্ষুব্ধ দেখাচ্ছিল অধিনায়ক বাবর আজমকে। ম্যাচ-পরবর্তী উপস্থাপনার সময়, তিনি দলের ত্রুটিগুলি তালিকাভুক্ত করেছিলেন এবং পরাজয়ের জন্য নিজেদের দায়ী করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Bandna Festival: ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল পাঁচ দিন বাঁদনার আমেজে মশগুল থাকে

বলরাম মাহাতোঃ চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী কার্তিক অমাবস্যার আগের দিন থেকে মোট পাঁচ দিন ব্যাপী বাঁদনার(Bandna Festival) আমেজে মশগুল থাকে ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। অবশ্য, পরবের শুভ সূচনা হয় তারও কয়েকদিন আগে। আদিবাসী সম্প্রদায়ের সামাজিক শাসন ব্যবস্থার চূড়ামণি হিসাবে গাঁয়ের মাহাতো, লায়া, দেহরি কিম্বা বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি নির্ধারণ করেন- ৩, ৫, ৭ বা ৯ ক’দিন ধরে গবাদি পশুর শিং-এ তেল মাখাবে গৃহস্বামী! রুখামাটির দেশের লোকেরা কোনোকালেই মাছের তেলে মাছ ভাজা তত্ত্বের অনুসারী নয়। তাই তারা গোরুর শিং-এ অন্য তেলের পরিবর্তে কচড়া তেল মাখানোয় বিশ্বাসী। কারণ কচড়া তেল প্রস্তুত করতে গোধনকে খাটাতে হয় না যে! কচড়া তেলের অপ্রতুলতার কারণে বর্তমানে সরষের তেল ব্যবহৃত হলেও, কচড়া তেলের ধারণাটি যে কৃষিজীবী মানুষের গবাদি পশুর প্রতি প্রেমের দ্যোতক, তা বলাই বাহুল্য! এভাবেই রাঢ বঙ্গে গোবর নিকানো উঠোনে হাজির হয়- ঘাওয়া, অমাবস্যা, গরইয়া, বুঢ়ি বাঁদনা ও গুঁড়ি বাঁদনার উৎসবমুখর দিনগুলি। পঞ্চদিবসে তেল দেওয়া, গঠ পূজা, কাঁচি দুয়ারি, জাগান, গহাইল পূজা, চুমান, চউক পুরা, নিমছান, গোরু খুঁটা, কাঁটা কাঢ়া প্রভৃতি ১১টি প্রধান পর্ব সহ মোট ১৬টি লোকাচারের মাধ্যমে উদযাপিত হয় বাঁদনা পরব(Bandna Festival )। .....বিস্তারিত পড়ুন

Vijay Stambh : চিতোরগড় দুর্গে বিজয় স্তম্ভ হিন্দু – মুসলিম সহাবস্থানের প্রতীক

উত্তরাপথঃ খ্রিস্টীয় ৭ম শতাব্দীতে মৌর্য রাজবংশ কর্তৃক স্থাপিত চিতোরগড় দুর্গ সাহস ও আত্মত্যাগের প্রতীক হিসেবে আজও দাঁড়িয়ে আছে। এই দুর্গ তার বিশাল কাঠামো, রাজপ্রাসাদ, একাধিক  সুদৃশ্য মন্দির সহ সুন্দর জলাশয়ের জন্য বিখ্যাত।৭০০-একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত, এই দুর্গটিতে প্রায় ৬৫টি ঐতিহাসিক স্থাপত্য নিদর্শন রয়েছে যা রাজপুত এবং ইসলামিক স্থাপত্য শৈলীর সূক্ষ্মতার প্রমান দেয়। বিজয় স্তম্ভ (Vijay Stambh)) হল এই দুর্গে অবস্থিত,সবচেয়ে মনোমুগ্ধকর কাঠামো।এই আশ্চর্য-অনুপ্রেরণামূলক স্তম্ভটি কেবল তার উচ্চতার জন্য বিখ্যাত নয়,এটি রাজপুতদের অদম্য সাহস এবং অধ্যবসায়ের গল্পও বলে যা চিতোরগড় দুর্গেরই সমার্থক হয়ে উঠেছে।বিজয় স্তম্ভ (Vijay Stambh), নাম থেকে বোঝা যায়, বিজয়ের প্রতীক।  প্রাচীনকালে যে কোনো যুদ্ধ অভিযানের সাফল্যের পর সেই বিজয়কে স্মরণীয় করে রাখতে রাজারা মন্দির, স্তূপ, স্মৃতিস্তম্ভ ও স্তম্ভ নির্মাণ করতেন।  ৯ তলা এই বিজয় স্তম্ভটি ১৯৪০ থেকে ১৪৪৮ সালের মধ্যে মহারানা কুম্ভ দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top