উটের শরীরের গঠন সম্পর্কে কিছু আকর্ষণীয় তথ্য

উত্তরাপথ: মরুভূমির জাহাজ নামে পরিচিত উটের কিছু আকর্ষণীয় শরীরের গঠন বৈশিষ্ট্য রয়েছে । উটের শরীরের গঠন এর মধ্যে একটি হল তাদের কুঁজ। বেশীরভাগ লোক বিশ্বাস করে যে উটের , কুঁজটি জলে পরিপূর্ণ থাকে,কিন্তু বাস্তবে, কুঁজটি জলে নয়, চর্বি দিয়ে ভরা থাকে। উটগুলি তাদের কুঁজে প্রচুর পরিমাণে চর্বি সঞ্চয় করতে পারে, যা শুষ্ক পরিবেশের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ভ্রমণের সময় যখন খাদ্য এবং জলের অভাব হয় তখন শক্তির রিজার্ভ হিসাবে কাজ করে।

উটের শক্ত, পুরু চামড়া সহ বড়, প্যাডযুক্ত পা থাকে। এই পায়ের গঠন তাদের সহজে বালুকাময় এবং পাথুরে ভূখণ্ডের মধ্য দিয়ে চলাচল করতে সাহায্য করে। চওড়া, ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা পায়ের আঙ্গুলগুলি তাদের বালিতে ডুবতে বাধা দেয়, উটের পুরু ত্বক তাদের পাক, চরম তাপমাত্রা এবং রুক্ষ পৃষ্ঠ থেকে রক্ষা করে।

উটের লম্বা, সরু পা থাকে যা দীর্ঘ দূরত্ব অতিক্রম করার জন্য পুরোপুরি উপযুক্ত। তাদের প্রসারিত অঙ্গগুলি তাদের একটি দীর্ঘ পদক্ষেপের সহায়ক। এই অভিযোজন তাদের কঠিন যাত্রার সময় শক্তি সংরক্ষণ করতে সাহায্য করে।

উটের শরীরের গঠন এর মধ্যে একটি হল এদের প্রশস্ত বক্ষ যা তাদের দীর্ঘ সময় মধ্যে জল ছাড়া বাতাস থেকে শুধুমাত্র অক্সিজেন গ্রহণ করে বেঁচে থাকতে সহায়তা করে, নিশ্চিত করে যে তারা তাদের মরুভূমির আবাসস্থলগুলির চ্যালেঞ্জগুলি সহ্য করতে পারে।

উটগুলির একটি অনন্য পাচনতন্ত্র রয়েছে যা তাদের বিরল গাছপালা থেকে সর্বাধিক পুষ্টি আহরণ করতে দেয়। রুমেন, রেটিকুলাম এবং ওমাসাম সহ তাদের তিনটি বগির পাকস্থলী রয়েছে, যা খাদ্য ভাঙ্গতে এবং পাঁচনে সহায়তা করে। এই অভিযোজন তাদের খাদ্য থেকে আর্দ্রতা বের করতে এবং আরও দক্ষতার সাথে জল সংরক্ষণ করতে দেয়।

উটের লম্বা, পুরু চোখের দোররাগুলির একটি ডবল সারি থাকে যা তাদের চোখকে মরুভূমির তীব্র বাতাস এবং প্রবাহিত বালি থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। এই চোখের দোররা প্রাকৃতিক বাধা হিসাবে কাজ করে, যা তাদের চোখে পৌঁছায় এমন বালি এবং ধুলোর পরিমাণ হ্রাস করে।

বালি এবং ধূলিকণা তাদের শ্বাসযন্ত্রে প্রবেশ করতে বাধা দেওয়ার জন্য, উটের তাদের নাসারন্ধ্র সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করার ক্ষমতা রয়েছে। এই অভিযোজন ধ্বংসাবশেষের শ্বাস-প্রশ্বাস কমিয়ে ধুলোময় মরুভূমির পরিবেশে বেঁচে থাকতে সাহায্য করে।

উটের শরীরে জল সংরক্ষণ করার অবিশ্বাস্য ক্ষমতা রয়েছে। তাদের কিডনি তাদের প্রস্রাব থেকে জল পুনরায় শোষণে অত্যন্ত দক্ষ, এবং তারা জলশূন্য না হয়ে উল্লেখযোগ্য জলের ক্ষতি সহ্য করতে পারে। এই অভিযোজন তাদের জল ছাড়াই দীর্ঘ সময়ের জন্য বেঁচে থাকতে দেয়।

উটের শরীরের গঠনের এই অনন্য বৈশিষ্ট্যগুলি তাদের কঠোর মরুভূমির পরিস্থিতিতে উন্নতি করতে সক্ষম করে এবং শুষ্ক পরিবেশে দীর্ঘ দূরত্ব ভ্রমণের জন্য উপযুক্ত করে তোলে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ওজন হ্রাস (weight loss) মস্তিষ্কের বার্ধক্যের লক্ষণগুলিকে ধীর করে

উত্তরাপথঃ এপ্রিলে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, শাকসবজি, সামুদ্রিক খাবার এবং গোটা শস্য সমৃদ্ধ একটি ভূমধ্যসাগরীয় খাদ্য খাওয়া - এমনকি শুধুমাত্র খাদ্যের নির্দেশিকা অনুসরণ করে   ওজন হ্রাস (weight loss)মস্তিষ্কের বার্ধক্যের লক্ষণগুলিকে ধীর করে বলে মনে করা হয়।সাম্প্রতি ডিউক ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিনের বিজ্ঞানীদের দ্বারা পরিচালিত, একটি  গবেষণায় দেখা গেছে যে ওজন হ্রাস মস্তিষ্কে বার্ধক্য প্রক্রিয়াকে ৯ মাস পর্যন্ত ধীর করে (aging process) দিতে পারে। গবেষণায় ৬০ থেকে ৭৮ বছর বয়সের মধ্যে ৪৭ জন অংশগ্রহণকারীকে জড়িত করা হয়েছিল, যাদের প্রত্যেকেরই ওজন বেশি বা স্থূল ছিল এবং তাদের অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যগ্রহণ  ছিল। তাদের এলোমেলোভাবে একটি ক্যালোরি-সীমাবদ্ধ গ্রুপ বা একটি নিয়ন্ত্রণ গ্রুপে বরাদ্দ করা হয়েছিল।ক্যালোরি-সীমাবদ্ধতা গোষ্ঠীর সদস্যদের একটি খাদ্য পরিকল্পনা অনুসরণ করে, যার লক্ষ্য ছিল তাদের আনুমানিক প্রয়োজনের চেয়ে ১০ – ১৫% কম ক্যালোরি গ্রহণ করা। অন্যদিকে, নিয়ন্ত্রণ গ্রুপ তাদের খাদ্য পরিবর্তন করেনি .....বিস্তারিত পড়ুন

ফ্লিম রিভিউ -ওপেনহাইমার

উত্তরাপথ: বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা ক্রিস্টোফার নোলান দ্বারা পরিচালিত”ওপেনহাইমার” একটি মাস্টারপিস মুভি। ছবিতে জে. রবার্ট ওপেনহেইমার, এক নামকরা পদার্থবিজ্ঞানী, যিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পারমাণবিক বোমার বিকাশে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন।এই সিনেমায় ওপেনহাইমার এর জটিল জীবনকে বর্ণনা করা হয়েছে। সেই হিসেবে 'ওপেনহাইমার'কে বায়োপিক বলা যেতে পারে।  কারণ এটি একজন মানুষের গল্প। এই ছবির গল্প তিনটি পর্যায়ে বিভক্ত।ছবির শুরুতে পারমাণবিক বোমা তৈরির আবেগের কথা বলা হয়েছে।  যেখানে নায়ক কিছু না ভেবে নিবেদিতপ্রাণভাবে এমন একটি অস্ত্র তৈরিতে নিয়োজিত থাকে যা বিশ্বকে ধ্বংস করতে পারে।  অস্ত্র তৈরি হওয়ার পর দ্বিতীয় পর্যায়ে নায়ক তার কাজের ফলাফল দেখে অপরাধবোধে পূর্ণ হয়।  এবং তৃতীয় পর্যায়টি হল রাজনীতি  যা ওপেনহাইমারকে মোকাবেলা করতে হয়েছে।  পুরো সিনেমাটি রঙিন হলেও রাজনৈতিক অংশ সাদা-কালো রাখা হয়েছে।  এই তিনটি সময়কালে যা কিছু ঘটছে, তা সবই একে অপরের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত। .....বিস্তারিত পড়ুন

প্রাপ্তবয়স্কদের স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস সমস্যার সমাধানের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিক

উত্তরাপথঃ সারা বিশ্বের জনসংখ্যার বয়স বৃদ্ধির সাথে স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস এবং ডিমেনশিয়ার মতো নিউরোডিজেনারেটিভ রোগের প্রকোপ বাড়ছে৷ তাদের এই  সমস্যাগুলি যে কেবল তাদের একার সমস্যা তা নয় ,এটি ধীরে ধীরে পুরো পারিবারিক সমস্যার আকার নেয়।সম্প্রতি বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে পুনরুদ্ধার করার জন্য গবেষকদের মধ্যে কার্যকর কৌশল খোঁজার আগ্রহ বাড়ছে।বর্তমানে বেশীরভাগ গবেষক মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের সম্ভাব্য ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । এখন খুব স্বাভাবিকভাবেই একটি প্রশ্ন আসে প্রোবায়োটিক কি? কেনই বা গবেষকরা মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । .....বিস্তারিত পড়ুন

Bandna Festival: ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল পাঁচ দিন বাঁদনার আমেজে মশগুল থাকে

বলরাম মাহাতোঃ চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী কার্তিক অমাবস্যার আগের দিন থেকে মোট পাঁচ দিন ব্যাপী বাঁদনার(Bandna Festival) আমেজে মশগুল থাকে ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। অবশ্য, পরবের শুভ সূচনা হয় তারও কয়েকদিন আগে। আদিবাসী সম্প্রদায়ের সামাজিক শাসন ব্যবস্থার চূড়ামণি হিসাবে গাঁয়ের মাহাতো, লায়া, দেহরি কিম্বা বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি নির্ধারণ করেন- ৩, ৫, ৭ বা ৯ ক’দিন ধরে গবাদি পশুর শিং-এ তেল মাখাবে গৃহস্বামী! রুখামাটির দেশের লোকেরা কোনোকালেই মাছের তেলে মাছ ভাজা তত্ত্বের অনুসারী নয়। তাই তারা গোরুর শিং-এ অন্য তেলের পরিবর্তে কচড়া তেল মাখানোয় বিশ্বাসী। কারণ কচড়া তেল প্রস্তুত করতে গোধনকে খাটাতে হয় না যে! কচড়া তেলের অপ্রতুলতার কারণে বর্তমানে সরষের তেল ব্যবহৃত হলেও, কচড়া তেলের ধারণাটি যে কৃষিজীবী মানুষের গবাদি পশুর প্রতি প্রেমের দ্যোতক, তা বলাই বাহুল্য! এভাবেই রাঢ বঙ্গে গোবর নিকানো উঠোনে হাজির হয়- ঘাওয়া, অমাবস্যা, গরইয়া, বুঢ়ি বাঁদনা ও গুঁড়ি বাঁদনার উৎসবমুখর দিনগুলি। পঞ্চদিবসে তেল দেওয়া, গঠ পূজা, কাঁচি দুয়ারি, জাগান, গহাইল পূজা, চুমান, চউক পুরা, নিমছান, গোরু খুঁটা, কাঁটা কাঢ়া প্রভৃতি ১১টি প্রধান পর্ব সহ মোট ১৬টি লোকাচারের মাধ্যমে উদযাপিত হয় বাঁদনা পরব(Bandna Festival )। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top