এবার চাঁদের পথে জাপান, অবতরণে সময় লাগতে পারে ছয় মাস

চাঁদের পথে জাপান ছবি – সংগৃহীত

উত্তরাপথঃ এ যেন হঠাৎ করে শুরু হওয়া বিভিন্ন দেশগুলির মধ্যে চাঁদে যাওয়ার প্রতিযোগিতা। ভারতের পর এবার চাঁদের পথে পারি দিল জাপান । চাঁদের জন্য SLIM নামে  তাদের নিজস্ব মুন ল্যান্ডার উৎক্ষেপণ করেছে জাপান।  মহাকাশযানটি ৭ সেপ্টেম্বর জাপানের স্থানীয় সময় সকাল ৮.৪২মিনিটে উৎক্ষেপণ করা হয়।  এটিতে জাপানের নিজস্ব  H2A রকেট ব্যবহার করা হয়েছে। এই মহাকাশ যানটি  তানেগাশিমা স্পেস সেন্টার থেকে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে। প্রসঙ্গত দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে জাপান এটিকে নির্দিষ্ট সময়ের চেয়ে ১০ দিন দেরিতে উৎক্ষেপণ করল। মহাকাশযান SLIM ছাড়াও একটি মহাকাশ টেলিস্কোপও পাঠিয়েছে জাপান।উভয় মহাকাশযান এক ঘন্টার মধ্যে তাদের নির্দিষ্ট পথে পৌঁছেছে।  সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ‘স্মার্ট ল্যান্ডার ফর ইনভেস্টিগেটিং মুন’ (SLIM) প্রায় চার মাস পর চাঁদে অবতরণ করবে।

জাপান সফল হলে চাঁদে যাওয়া পঞ্চম দেশ হবে।জাপান অ্যারোস্পেস এক্সপ্লোরেশন এজেন্সি (JAXA) বলেছে যে SLIM-এর লক্ষ্য হল এমন যন্ত্র তৈরি করা যার ক্ষমতা বেশি হবে, কিন্তু আকার ও ওজনে ছোট হবে। এটি সৌরজগতের অন্যান্য মিশন পরিচালনায় কাজ করবে এর পাশাপাশি চাঁদে যাওয়ার জন্য পিনপয়েন্ট ল্যান্ডিং প্রযুক্তি খুঁজে বের করবে। চাঁদে পৌঁছাতে এর সময় লাগবে চার মাস । এরপর SLIMঅত্যাধুনিক অপটিক্যাল ও ছবি প্রসেস করার প্রযুক্তি আবিষ্কার করবে এছাড়াও চাঁদে পাথরের মধ্যে ধাতব খনিজের সন্ধান করবে। এই SLIM এর সাথে কোনও রোভার থাকছেনা।

SLIM একটি ছোট মহাকাশযান, যার উচ্চতা ২.৪ মিটার, দৈর্ঘ্য ২.৭মিটার এবং প্রস্থ ১.৭ মিটার ।  টেক অফের সময় এর ওজন ছিল ৭০০কেজি ।  কিন্তু এর ওজনের ৭০ শতাংশই ছিল জ্বালানি ।  যেখানে চন্দ্রযান-৩ অভিযানের মোট ওজন ছিল ৩৯০০ কেজি ।  যার মধ্যে রয়েছে ২১৪৮কেজি প্রোপালশন মডিউল, ১৭৫২ল্যান্ডার এবং ২৬ কেজি রোভার ।  SLIM চাঁদে একটি দীর্ঘ লুপিং এবং কম জ্বালানী পথ নেবে, চন্দ্র কক্ষপথে পৌঁছাতে তিন থেকে চার মাস সময় লাগবে।

চাঁদের কক্ষপথে পৌঁছানোর পরও তা অবিলম্বে অবতরণ করবে না ।  এটি এক থেকে দুই মাস চন্দ্র পৃষ্ঠের উপর নজর রাখবে ।  তারপরে এটি শিওলি ক্রেটারের ভিতরে অবতরণ করার চেষ্টা করবে, এটি একটি ৩০০-মিটার গভীর গর্ত যা চাঁদের কাছাকাছি ১৩ ডিগ্রি দক্ষিণ অক্ষাংশে অবস্থিত ।  এই মিশনের সবচেয়ে বড় লক্ষ্য হল নির্দিষ্ট স্থানে অবতরণ করা ।  SLIM ১০০ মিটার এলাকায় অবতরণ করবে, যা পূর্ববর্তী ল্যান্ডারের তুলনায় আরো নির্ভুল হবে ।  এ কারণে একে স্নাইপারও বলা হচ্ছে ।  জাপানের এই সাফল্য নাসার চাঁদ অভিযানে বড় ভূমিকা রাখবে ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Snake Robot : এবার মহাকাশে সাপ রোবট পাঠাবে NASA

উত্তরাপথ: মহাকাশ অনুসন্ধানের সীমানা আরও বিস্তৃত করতে এবং বহির্জাগতিক পরিবেশের দ্বারা সৃষ্ট চ্যালেঞ্জগুলি কাটিয়ে উঠতে NASA ক্রমাগত উদ্ভাবনী প্রযুক্তির সন্ধান করেছে। এর একটি উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ হল Snake robot বা সাপের মতো রোবট তৈরি করা যা মহাকাশে নেমে যাবতীয় অনুসন্ধানের কাজগুলি করবে এবং সেই সাথে মহাকাশে বসবাসের ক্ষেত্রে প্রতিকূল পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণ করবে। এই যুগান্তকারী সৃষ্টিতে মহাকাশ অভিযানে বিপ্লব ঘটানোর সম্ভাবনা রয়েছে, যা দূরবর্তী এবং প্রতিকূল পরিবেশে গবেষণার কাজ নিখুঁত ভাবে সম্পন্ন করতে সাহায্য করবে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top