প্রায়াত এমএস স্বামীনাথন: ভারতে সবুজ বিপ্লবের জনক

উত্তরাপথঃ প্রায়াত প্রখ্যাত কৃষি বিজ্ঞানী তথা “ভারতে সবুজ বিপ্লবের জনক” অধ্যাপক এমএস স্বামীনাথন (Prof. M.S. Swaminathan)। ভারত সরকারের প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টার অফিস জানায় গত ২৮ তারিখে  এমএস স্বামীনাথন শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন।মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর।এম এস স্বামীনাথন রিসার্চ ফাউন্ডেশন সূত্র জানায়, প্রখ্যাত কৃষি বিজ্ঞানী দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত অসুস্থতার জন্য চিকিৎসাধীন ছিলেন।স্বামীনাথন তিন কন্যা রেখে গেছেন।

স্বামীনাথন ভারতের অর্থনৈতিক ও খাদ্য নিরাপত্তায়  বিশেষত দেশে ধান ও গম চাষের উৎপাদন বৃদ্ধিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।উচ্চ ফলনশীল ধানের জাত উদ্ভাবনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেছেন।তার এই উদ্যোগের কারণে পাঞ্জাব, হরিয়ানা ও উত্তরপ্রদেশের কৃষকরা অনেক সাহায্য পেয়েছেন।

এমএস স্বামীনাথন ৭ আগস্ট, ১৯২৫ সালে, তামিলনাড়ুর কুম্বাকোনামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। মানকম্বু সাম্বাসিভান স্বামীনাথন ছোটবেলা থেকেই কৃষি বিজ্ঞানের প্রতি গভীর আগ্রহ দেখিয়েছিলেন। তিনি ত্রিবান্দ্রমের মহারাজা কলেজে প্রাণিবিদ্যা এবং কৃষি বিষয়ে স্নাতক হন।এরপর, তিনি ইংল্যান্ডের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উদ্ভিদ জেনেটিক্স এবং সাইটোজেনেটিক্সে পিএইচডি করেন।

 স্বামীনাথনের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য অবদানগুলির মধ্যে একটি হল গম এবং ধানের উচ্চ-ফলনশীল জাত (HYVs) বিকাশ। রোগ-প্রতিরোধী স্ট্রেইনের সাথে ঐতিহ্যবাহী জাতের ক্রস-প্রজনন করে, তিনি সফলভাবে এমন জাত উদ্ভাবন করেছেন যাতে উচ্চ ফলনের সাথে কীটপতঙ্গ ও রোগের প্রতিরোধ ক্ষমতাও বেশি থাকে।

 স্বামীনাথন উন্নত সেচ ব্যবস্থা,সারের দক্ষ ব্যবহার এবং যান্ত্রিকীকরণ সহ আধুনিক কৃষি কৌশল গ্রহণের উপর জোর দেন। এই উদ্যোগগুলি কৃষি উৎপাদনশীলতা এবং ফসলের ফলন বাড়াতে সাহায্য করে, যার ফলে খাদ্য ঘাটতির একটি দেশের তালিকা থেকে তিনি আমাদের খাদ্য উদ্বৃত্ত দেশে পরিণত করেছিলেন।

 অত্যধিক কীটনাশক ব্যবহারের ক্ষতিকারক প্রভাবগুলি স্বীকার করে, স্বামীনাথন সমন্বিত কীটপতঙ্গ ব্যবস্থাপনা (IPM) গ্রহণের পক্ষে পরামর্শ দেন। আইপিএম ব্যবস্থায় কার্যকরভাবে কীটপতঙ্গ বিনাশ করার সাথে সাথে ক্ষতিকারক কীটনাশকের ব্যবহার কমানোর সহ জৈবিক, সাংস্কৃতিক এবং রাসায়নিক নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার সমন্বয় এর সাথে জড়িত।

 স্বামীনাথন দীর্ঘমেয়াদি এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক কৃষি পদ্ধতি ব্যবহারের মাধ্যমে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের ক্ষমতায়নের দিকে মনোনিবেশ করেছিলেন। তিনি ক্রেডিট, বাজার এবং প্রযুক্তিতে তাদের সক্রিয় অংশগ্রহণ  করানোর জন্য কাজ করেছিলেন, যা তাদের কৃষির উৎপাদনশীলতা এবং উপার্জন বাড়াতে সাহায্য করে।

স্বামীনাথন জিন ব্যাঙ্ক এবং বীজ সংরক্ষণ কৌশল প্রতিষ্ঠা করে ভারতের সমৃদ্ধ জেনেটিক সম্পদ সংরক্ষণের গুরুত্বের উপর জোর দেন। দীর্ঘমেয়াদী খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করে ফসলের বৈচিত্র্য রক্ষা করা ছিল তার অন্যতম প্রচেষ্টা।

ভারতীয় কৃষিতে এমএস স্বামীনাথনের অবদান তাকে বিশ্বব্যাপী অসংখ্য প্রশংসা ও স্বীকৃতি এনে দিয়েছে। তিনি ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ এগ্রিকালচারাল রিসার্চ (ICAR) এর মহাপরিচালক এবং কৃষি গবেষণা ও শিক্ষা বিভাগের সচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ভারতে ন্যাশনাল সিড কর্পোরেশন এবং ন্যাশনাল ডেইরি ডেভেলপমেন্ট বোর্ড প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও স্বামীনাথন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন।তাঁর অসামান্য অবদানের জন্য, তিনি পদ্মশ্রী, পদ্মভূষণ, এবং পদ্মবিভূষণ,সহ ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মানের সব কয়েকটিতে ভূষিত হন।স্বামীনাথনকে ১৯৮৭ সালে প্রথম খাদ্য পুরস্কার দেওয়া হয়।  স্বামীনাথনের কাজ পরবর্তী প্রজন্মের কৃষি বিজ্ঞানীদেরও অনুপ্রাণিত করে চলেছে ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


সহযাত্রী

দীপা - আর তো এগারো বছর আটমাস বারোদিন চাকরি , তাই না ? অংশু - বাপরে বরাবরই তোমার স্মৃতিশক্তি প্রবল , এতোটা মনে আছে ? দীপা- ঘোরো টো টো করে আর কটা বছর , আফটার রিটায়ার্ড মেন্ট কি করবে ? অংশু - ফার্ম হাউস ,গাছপালা পশুপাখি নিয়ে থাকবো। দীপা- বাঃ উন্নতি হয়েছে। যে অংশুবাবু কখনও একটা ফুলের চারা লাগায়নি সে কিনা ফার্ম হাউস করবে … অংশু - সময়ের সাথে সব বদলায় ম্যাডাম , আচ্ছা তোমার কনুইয়ের নীচে সেই পোড়া দাগটা দেখি তো গেছে কিনা … দীপা- তুমি অনেক রোগা হয়ে গেছো , তা ওজন কত শুনি ? অংশু - সত্তর বাহাত্তর হবে বোধহয় মাপিনি, দীপা - তা কেনো মাপবে ? একটা অগোছালো মানুষ। অংশু - যাক বাবা তাও অপদার্থ শব্দ টা বলোনি। দীপা - ভাবোনা ডিভোর্স হয়েছে বলে সে অধিকার নেই। সমাজ বিজ্ঞানের অধ্যাপক হয়েও আসলে সমাজটাই শেখোনি , আর কি শিখেছো বলো, ঐ ছেলে পড়ানো , সেমিনার আর লেখালেখি। তা ধন্যবাদ তোমার রূপালী ঠৌট উপন্যাস এবছর একাডেমি পেলো , দারুণ লেখো তুমি, আগের চেয়ে অনেক ধার। অংশু- বাঃ তুমি পড়েছো ? দীপা- সব পড়েছি , তোমার রিসেন্ট উপন্যাসের নায়িকা মেঘনা টি কে ? মানে কার আড়ালে কাকে লিখেছো ? অংশু - এও কি বাংলা সাহিত্যের অধ্যাপিকাকে বলে দিতে হবে ? দীপা- বারোটা বছর সময়ের শাসনে অনেক বদলালেও আমি বোধহয় সেই বড্ড সেকেলেই রয়ে গেলাম। অংশু - একা একাই কাটিয়ে দিলে বারো বছর। দীপা- একই প্রশ্ন আমিও করতে পারি। অংশু - আচ্ছা দীপা আজ না হয় শেষবারের মতো বলি, আমার মধ্যে কি ছিলো না বলোতো ? কেনো পারোনি এই বাউন্ডুলে ভবঘুরে মানুষটার সাথে চিরকালের ঘর বাঁধতে ? আমি কি ভালোবাসতে জানি না ? .....বিস্তারিত পড়ুন

Side effects of vitamin: ভিটামিনের আধিক্য আপনার জন্য ক্ষতিকর হতে পারে

উত্তরাপথঃ ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা আমরা সবাই নিশ্চয়ই ছোটবেলা থেকে শুনে আসছি যে সুস্থ থাকতে হলে শরীরে প্রয়োজনীয় সব ভিটামিন থাকা খুবই জরুরি।  ভিটামিন আমাদের সুস্থ করার পাশাপাশি আমাদের সমগ্র শরীরের বিকাশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  যাইহোক, এটি অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া আমাদের জন্য ক্ষতিকারকও হতে পারে।  আসুন জেনে নিই অতিরিক্ত ভিটামিন গ্রহণের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া (Side effects of vitamin)সুস্থ থাকার জন্য শরীরে সব ধরনের পুষ্টি থাকা খুবই জরুরি।  এ কারণেই বয়স্ক থেকে শুরু করে চিকিৎসক, সবাই আমাদেরকে সুষম ও পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন।  সমস্ত পুষ্টি উপাদান আমাদের শরীরকে বিভিন্ন উপায়ে সুস্থ করে তোলে।  এর মধ্যে ভিটামিন একটি, যা আমাদের সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Fried rice syndrome: আগের দিনের রান্না করা ভাত খেলে হতে পারে এই বিশেষ অসুখটি

উত্তরাপথঃ আপনার কি বাসী ভাত বা পান্তা খাওয়ার অভ্যেস আছে? সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম (Fried rice syndrome) নিয়ে আমরা প্রায়ই অবশিষ্ট খাবার গরম করে আবার খাই। কিন্তু জানেন কি এই অভ্যাস আপনাকে অসুস্থ করে তুলতে পারে। অনেক সময় পর আগের রান্না করা  ভাত খাওয়ার ফলে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হয়। কেউ কেউ মনে করেন যে খাবার পুনরায় গরম করলে এতে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মারা যায়, কিন্তু তা নয়। যে খাবারেই স্টার্চ থাকে না কেন, এতে উপস্থিত টক্সিন তাপ প্রতিরোধী। অর্থাৎ খাবার গরম করার পরও ব্যাকটেরিয়া নষ্ট হয় না। ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম নামে এই সমস্যা সম্পর্কিত একটি অবস্থা রয়েছে। আজ আমরা এই ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম অবস্থার লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব। ভাত রান্না করার পর, যখন অবশিষ্ট ভাত কয়েক ঘন্টা বা সারারাত ঘরের তাপমাত্রায় রেখে দেওয়া হয় এবং তাতে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে শুরু করে, তখন এই অবস্থার নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম। .....বিস্তারিত পড়ুন

PAN-Aadhar link: কেন্দ্র সরকার ১১.৫ কোটি প্যান কার্ডকে নিষ্ক্রিয় করেছে

উত্তরাপথ : আধারের সাথে প্যান কার্ড লিঙ্ক (PAN-Aadhar link)করার সময়সীমা শেষ হওয়ার পরে কেন্দ্রীয় সরকার ১১.৫ কোটি প্যান কার্ড নিষ্ক্রিয় করেছে৷ আপনি যদি এখনও প্যান কার্ডের সাথে আধার কার্ড লিঙ্ক না করে থাকেন, তাহলে আপনি সরকারের এই কঠোর পদক্ষেপের আওতায় এসেছেন। আপনি যদি আপনার আধার কার্ডকে প্যানের সাথে লিঙ্ক করতে চান তবে আপনি জরিমানা দিয়ে এটি সক্রিয় করতে পারেন। কেন্দ্র সরকার ১১.৫ কোটি প্যান কার্ডকে আধারের সাথে লিঙ্ক না করার কারণে নিষ্ক্রিয় করেছে। একটি আরটিআই-এর জবাবে, সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ডাইরেক্ট ট্যাক্সেস জানিয়েছে যে আধার কার্ডের সাথে প্যান কার্ড লিঙ্ক (PAN-Aadhar link) করার সময়সীমা ৩০ জুন শেষ হয়েছে। যারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আধার কার্ড এবং প্যান কার্ড লিঙ্ক করেননি তাদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। দেশে ৭০ কোটি প্যান কার্ড বর্তমানে ভারতে প্যান কার্ডের সংখ্যা ৭০.২ কোটিতে পৌঁছেছে। এর মধ্যে প্রায় ৫৭.২৫ কোটি মানুষ আধারের সাথে প্যান কার্ড লিঙ্ক করেছেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top