ফ্লিম রিভিউ -ওপেনহাইমার

উত্তরাপথ: বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা ক্রিস্টোফার নোলান দ্বারা পরিচালিত”ওপেনহাইমার” একটি মাস্টারপিস মুভি। ছবিতে জে. রবার্ট ওপেনহেইমার, এক নামকরা পদার্থবিজ্ঞানী, যিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পারমাণবিক বোমার বিকাশে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন।এই সিনেমায় ওপেনহাইমার এর জটিল জীবনকে বর্ণনা করা হয়েছে। সেই হিসেবে ‘ওপেনহাইমার’কে বায়োপিক বলা যেতে পারে।  কারণ এটি একজন মানুষের গল্প।

এই ছবির গল্প তিনটি পর্যায়ে বিভক্ত।ছবির শুরুতে পারমাণবিক বোমা তৈরির আবেগের কথা বলা হয়েছে।  যেখানে নায়ক কিছু না ভেবে নিবেদিতপ্রাণভাবে এমন একটি অস্ত্র তৈরিতে নিয়োজিত থাকে যা বিশ্বকে ধ্বংস করতে পারে।  অস্ত্র তৈরি হওয়ার পর দ্বিতীয় পর্যায়ে নায়ক তার কাজের ফলাফল দেখে অপরাধবোধে পূর্ণ হয়।  এবং তৃতীয় পর্যায়টি হল রাজনীতি  যা ওপেনহাইমারকে মোকাবেলা করতে হয়েছে।  পুরো সিনেমাটি রঙিন হলেও রাজনৈতিক অংশ সাদা-কালো রাখা হয়েছে।  এই তিনটি সময়কালে যা কিছু ঘটছে, তা সবই একে অপরের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত।

‘ওপেনহাইমার’-এর গল্প শুরু হয় ১৯২০ সালে।  যেখানে একজন শিক্ষার্থী কোয়ান্টাম মেকানিক্সের জগতে বিপ্লব ঘটাতে চায়।  এর পরে গল্পটি তার প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে ওঠে, যখন তিনি বার্কলেতে শিক্ষকতা শুরু করেন।  সারা বিশ্ব থেকে অভিজ্ঞ বিজ্ঞানীদের কোম্পানি পায়।  তার সামনে একটি নতুন জগৎ খুলে যায়।  এখানে তিনি সাম্যবাদের মুখোমুখি হন, যা পরবর্তীতে তার যাত্রার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে ওঠে।  এই সব চলছিল যখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়।  বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী বোমা তৈরির রেসিপি খুঁজে পেয়েছে নাৎসিরা।  তারা আগে এই বোমা তৈরি করলে পৃথিবী ধ্বংস হতে সময় লাগবে না।  আমেরিকা নাৎসি জার্মানির আগে সেই বোমা তৈরি করতে চায়।  এমন পরিস্থিতিতে ম্যানহাটন প্রজেক্ট শুরু হয়।  যার কমান্ড হস্তান্তর করা হয় লেফটেন্যান্ট জেনারেল লেসলি গ্রোভসের হাতে।  প্রকল্পের প্রধানের জন্য, গ্রোভস, রবার্ট জে.  ওপেনহাইমার বেছে নেওয়া যাক।  তার নেতৃত্বে সারা বিশ্বের বিজ্ঞানীদের একটি দল একসঙ্গে অ্যাটম তৈরি করে।  তিন বছরের কঠোর পরিশ্রমের পর বিশ্বের প্রথম পারমাণবিক বোমা তৈরি হয়।  জাপানের দুটি শহর হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে ওই বোমা ব্যবহার করে আমেরিকা।  যাতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অবসান হয়।  যেখানে মারা যায় ২ লাখের বেশি মানুষ।

ছবিটি আমাদেরকে ওপেনহাইমারের জীবনের মধ্যে নিয়ে যায়। একজন মেধাবী ছাত্র হিসাবে ওপেনহাইমারকে এই ছবিটিতে দেখান হয়েছে ।দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শুরুর সময়,যেখানে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী বোমা তৈরির সূত্র খুঁজে পেয়েছে নাৎসিরা।  তারা আগে এই বোমা তৈরি করলে পৃথিবী ধ্বংস হতে সময় লাগবে না।  আমেরিকা নাৎসি জার্মানির আগে সেই বোমা তৈরি করতে চায়।  এমন পরিস্থিতিতে ম্যানহাটন প্রজেক্ট শুরু হয়।  যার কমান্ড হস্তান্তর করা হয় লেফটেন্যান্ট জেনারেল লেসলি গ্রোভসের হাতে।  প্রকল্পের প্রধানের জন্য, গ্রোভস, রবার্ট জে.  ওপেনহাইমার বেছে নেওয়াহয়। তার নেতৃত্বে সারা বিশ্বের বিজ্ঞানীদের একটি দল একসঙ্গে অ্যাটম বোমা তৈরি করে।  তিন বছরের কঠোর পরিশ্রমের পর বিশ্বের প্রথম পারমাণবিক বোমা তৈরি হয়।  জাপানের দুটি শহর হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে ওই বোমা ব্যবহার করে আমেরিকা, যাতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অবসান হয়।  সেখানে মারা যায় ২ লাখের বেশি মানুষ।

ছবিটিতে নিপুণ গল্প বলার দক্ষতার সাথে ঐতিহাসিক ঘটনা, ব্যক্তিগত সংগ্রাম এবং নৈতিক দ্বিধাগুলিকে একত্রিত করে একটি সমৃদ্ধ এবং বহু-স্তরীয় গল্প তৈরি করা হয়েছে।ফিল্মটির সবচেয়ে বড় শক্তিগুলির মধ্যে একটি হল এর ভিজ্যুয়াল এবং প্রযুক্তিগত দিক। নোলানের সিগনেচার সিনেমাটোগ্রাফি, পুরো চলচ্চিত্র জুড়ে অস্বস্তি এবং উত্তেজনার অনুভূতি তৈরি করে। প্রোডাকশন ডিজাইন এবং কস্টিউমের প্রতি মনোযোগ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের যুগে দর্শকদের আরও নিমজ্জিত করে।

ওপেনহাইমারের পারফরম্যান্স ব্যতিক্রমী কিছু নয়। মারফি চরিত্রের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব এবং নৈতিক সংগ্রামকে সূক্ষ্মতা এবং তীব্রতার সাথে ক্যাপচার করেছেন, একজন ব্যক্তির অভ্যন্তরীণ অশান্তিকে তার বৈজ্ঞানিক সাধনা এবং তার কাজের বিধ্বংসী পরিণতির মধ্যে ছিন্নভিন্ন করে তুলে ধরেছেন।

বৈজ্ঞানিক অগ্রগতির নৈতিক প্রভাবের ফিল্মটির অনুসন্ধান যেখানে ওপেনহাইমার সত্যই উজ্জ্বল। নোলান বিজ্ঞানীদের দায়িত্ব এবং তাদের আবিষ্কার মানবতার উপর কী প্রভাব ফেলতে পারে সে সম্পর্কে গভীর প্রশ্ন তুলেছেন। ফিল্মটি পারমাণবিক বোমা দ্বারা সৃষ্ট ধ্বংসকে সম্বোধন করতে দ্বিধা করেনি, দর্শকদেরকেও ওপেনহাইমারের ক্রিয়াকলাপকে ঘিরে নৈতিক জটিলতার মুখোমুখি হতে বাধ্য করে।

যাইহোক, ওপেনহাইমার সিনেমাটি কখনও কখনও, অত্যধিক বুদ্ধিবৃত্তিক বোধ করতে পারে এবং কিছু দর্শক নিজেকে বিচ্ছিন্ন মনে করতে ।তবে যারা সিনেমাটি মনোরঞ্জনের জন্য দেখতে যাবেন বলে ভাবছেন তারা হতাশ হবেন ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


AFC এশিয়ান কাপ ২০২৩: সুনীলদের Blue Tiger অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি

উত্তরাপথ: অস্ট্রেলিয়া, উজবেকিস্তান এবং সিরিয়ার পাশাপাশি এএফসি এশিয়ান কাপ ২০২৩-এর বি গ্রুপে সুনীলদের Blue টাইগাররা। Blue টাইগাররা ১৩ জানুয়ারী, ২০২৪-এ আহমেদ বিন আলী স্টেডিয়ামে গ্রুপ পর্বের তাদের প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে।ভারতীয় পুরুষ ফুটবল দল এএফসি এশিয়ান কাপ কাতার ২০২৩-এ ১৩ জানুয়ারি আহমদ বিন আলি স্টেডিয়ামে গ্রুপ বি-তে প্রাক্তন চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করবে। এশিয়ার শীর্ষ ২৪ টি দল দোহার কাটরা অপেরা হাউসে তাদের গ্রুপ পর্বে অংশ গ্রহণ করেছে। এএফসি এশিয়ান কাপ কাতার ১২ জানুয়ারী .....বিস্তারিত পড়ুন

রাহুলের ভারতজোড় সাফল্য পেলেও, অভিষেক কি পারবে ?

উত্তরাপথ: রাহুল গান্ধীর ১৪৬ দিনের প্রায় ৩৮৫০ কিলোমিটার ভারতজোড় যাত্রার সাফল্য কংগ্রেস ঘরে তুলতেই তৃনমূলের নতুন উদ্যোগ জনসংযোগ যাত্রা।এই যাত্রায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ৬০ দিনে ৩,৫০০ কিলোমিটার দীর্ঘ " জনসংযোগ " করবেন। উত্তরবঙ্গের কোচবিহার জেলার দিনহাটা থেকে শুরু হওয়া এই যাত্রা রাজ্যের সবচেয়ে দক্ষিণ প্রান্ত দক্ষিণ ২৪ পরগণার কাকদ্বীপে শেষ হবে। এই পুরো যাত্রায় অভিষেক মোট ২৫০টি সমাবেশে ভাষণ দেবেন। এখন প্রশ্ন তৃণমূল তথা অভিষেকের জনসংযোগ যাত্রার প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে। কংগ্রেস তথা রাহুল গান্ধীর ভারতজোড় যাত্রার উদ্দেশ্য .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top