কার্বন নিঃসরণ দ্রুত শেষ করার জন্য G7 ঐক্যমত

উত্তরাপথ

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বের সাতটি ধনী দেশের শক্তি ও পরিবেশ মন্ত্রীরা সম্প্রতি  জ্বালানি এবং পরিবেশগত ইস্যুতে উত্তর জাপানের শহর সাপোরোতে বৈঠক করেন।  G-7 বৈঠকে জড়ো হওয়া বিভিন্ন দেশের আধিকারিকরা তাদের প্রতিশ্রুতির রূপরেখা দিয়ে একটি কমিউনিক জারি করেছে। বৈঠকে বর্তমান সঞ্চিত জ্বালানি সংকট এবং ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নকে সমান গুরুত্ব দিয়ে, আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে নেট-জিরো গ্রিনহাউস গ্যাস (GHG) নির্গমনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। সমস্ত নেতারা দক্ষ, সাশ্রয়ী মূল্যের এবং দূষণ মুক্ত শক্তির উৎস সন্ধানের গুরুত্বকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এর আগেও কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো পর্যায়ক্রমে বন্ধ করার সময়সীমা নির্ধারণের বিষয়টি দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে।  জাপান তার বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রায় এক-তৃতীয়াংশের জন্য কয়লার উপর নির্ভর করে ।বৈঠকে  কয়লার উপর নির্ভরতা কমানোর উপর জোর দেওয়া হয়েছে। কার্বন নিঃসরণ হ্রাস করার এবং ২০৩৫ সালের মধ্যে “প্রধানত ডিকার্বনাইজড পাওয়ার সেক্টর” অর্জনের প্রয়োজনীয়তার কথা বলা হয়েছে ।

বিশ্বের উন্নত দেশগুলির অর্থনৈতিক কার্যকলাপ এই বৈশ্বিক কার্বন নির্গমন অনুন্নত দেশগুলির তুলনায় অনেকটাই বেশী। বৈশ্বিক কার্বন নির্গমনের এক চতুর্থাংশের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একাই দায়ী। G7 বৈঠকে উন্নত দেশগুলিকে উন্নয়নশীল দেশগুলির জলবায়ুর সংরক্ষণের জন্য আর্থিক তহবিল বাড়ানোর উপর জোর দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট লিউজ ইনাসিও লুলা দা সিলভ একটি যৌথ বিবৃতি জারি করে বলেছেন, “আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন যে উন্নত দেশগুলি দ্বারা প্রদত্ত তহবিল প্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যার্থ”। ভারতের পরিবেশমন্ত্রী ভূপেন্দর যাদব এক টুইটে বলেছেন,”২০৫০সালের মধ্যে নেট শূন্যে পৌঁছানোর বৈশ্বিক লক্ষ্যের জন্য উন্নত দেশগুলির দ্বারা বর্ধিত নির্গমন হ্রাসের প্রয়োজন ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


শতাধিক কনে বর ছাড়াই বিয়ে করেছে, মেয়েদের নিজেদের মালা পরাতে দেখা গেছে

উত্তরাপথঃ সম্প্রতি , একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, সেখানে উত্তরপ্রদেশের বালিয়ায় মুখ্যমন্ত্রীর গণবিবাহ প্রকল্পে জালিয়াতির ঘটনা সামনে এসেছে।  এখানে ২৫ জানুয়ারি ৫৬৮ দম্পতির বিয়ে হয়।  কিন্তু এতে বর ছাড়াই বিপুল সংখ্যক কনের বিয়ে হয়েছে।বিয়ের ভিডিওও সামনে এসেছে।  যাতে দেখা যাচ্ছে কিছু কনে নিজেরাই মালা পরছেন।  বর্তমানে এই বিষয়ে এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়েছে এবং তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী গণবিবাহ প্রকল্পের অধীনে সরকার ৫১ হাজার টাকা দেয়।  প্রতিটি জেলায় এর আয়োজন করা হয়।  এরই ধারাবাহিকতায় বালিয়া জেলায় ৫৬৮ দম্পতির বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে।  কিন্তু এখন প্রকাশ্যে এসেছে এটি একটি প্রতারণা।  শতাধিক কনেকে বর ছাড়াই বিয়ে দেওয়া হয়।  অনেক কনে নিজ হাতে গলায় মালা পরে নেন।  বোরকা পরা অনেক মুসলিম বধূরাও নিজেদের হাতে মালা পরেন। অনুসন্ধানে জানা যায়, এই মেয়েগুলোর মধ্যে অনেক মেয়েই ঘুরে বেড়াতে এসেছিল তারা টাকার বিনিময়ে গণবিবাহের প্রতারণার পরিকল্পনায় অংশ নেওয়া নেয়।  যাতে কাগজে কলমে গণনা করা হয় এবং সরকারি কোষাগার থেকে টাকা নেওয়া যায়। .....বিস্তারিত পড়ুন

প্ল্যাস্টিকের জলের বোতল আপনার শরীরে মাইক্রোপ্লাস্টিক প্রবেশের সবচেয়ে বড় উৎস

উত্তরাপথঃআপনি কি জানেন প্ল্যাস্টিকের জলের বোতল আপনার শরীরে মাইক্রোপ্লাস্টিক প্রবেশের সবচেয়ে বড় উৎস হতে পারে।আমরা যখন প্ল্যাস্টিকের বোতল থেকে জল পান করি তখন মাইক্রোপ্লাস্টিক নামে পরিচিত ক্ষুদ্র, সম্ভাব্য ক্ষতিকারক প্লাস্টিকের কণাগুলি বোতলের জলের সাথে মিশে যায়। Journal of Water and Health এ প্রকাশিত একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে,বোতল থেকে জল পান করার সময় যখন বোতলের ঢাকাটি খোলা বা বন্ধ করা হয় তখন প্ল্যাস্টিকের বোতল ও ঢাকার মধ্যে বারবার ঘর্ষণ তৈরি হয় যা উল্লেখযোগ্য পরিমাণে মাইক্রোপ্লাস্টিক তৈরি করে, এবং পরে বোতলের জলে মিশে যায়। প্রতিবার বোতল খোলা বা বন্ধ করার সময় ঘর্ষণে প্রায় ৫০০ মাইক্রোপ্লাস্টিক কণা তৈরি হতে পারে,বলে গবেষণায় দাবী করা হয়েছে। সেই সাথে বিজ্ঞানীদের অনুমান , আমরা এক বছরে প্রায় ১৬,০০০ মাইক্রোপ্লাস্টিক কণা গ্রহণ করি - যাকে কঠিন পলিমার কণাও বলা হয় -এটি শুধুমাত্র বোতলজাত জল থেকে আমাদের শরীরে আসে। নতুন গবেষণায় দেখা গেছে বোতল থেকে জল পান করার সময় বোতল খোলা বা বন্ধ করার সময় কেবল .....বিস্তারিত পড়ুন

ভারত - ফ্রান্স বন্ধুত্ব নতুন বৈশ্বিক সমীকরণের জন্ম দেবে

উত্তরাপথঃ গত বছর ভারত - ফ্রান্স উভয় দেশ পারস্পরিক সহযোগিতার পঁচিশ বছর উদযাপন করেছে।  এবার  প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ শুধু প্রধান অতিথিই ছিলেন না , পারস্প্রিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে তাঁর আগমন দুই দেশের সম্পর্ককে আরও মজবুত করবে।  যদিও ফ্রান্সের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক সবসময়ই ভালো, কিন্তু এমন সময়ে যখন বিশ্বের রাজনৈতিক সমীকরণ বদলে যাচ্ছে, তখন তাদের সম্পর্কের শক্তি অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহায়ক প্রমাণিত হবে।  প্রধানমন্ত্রী জয়পুরে ম্যাক্রোঁকে স্বাগত জানান, দুজনেই একসঙ্গে ভিড়ের শুভেচ্ছা গ্রহণ করেন এবং তারপর দীর্ঘ কথোপকথন করেন।এমনকি আন্তর্জাতিক ফোরামেও ফ্রান্স সবসময় ভারতকে সমর্থন করেছে।  তিনি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ভারতের স্থায়ী সদস্যপদ এবং পরমাণু সরবরাহকারী গ্রুপে প্রবেশের সমর্থক ছিলেন।  পোখরান পারমাণবিক পরীক্ষার পর ভারত যখন বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে তখন ফ্রান্স সমর্থন করেছিল।  গত পঁচিশ বছরে, ভারতে সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগকারী দেশের তালিকায় ফ্রান্সের বিনিয়োগ দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

বিশ্বের সবচেয়ে প্রিয় অ্যালকোহল-বিহীন পানীয়ের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে ভারতের মাসালা চা

উত্তরাপথঃ চা ভারতের অন্যতম  প্রিয় পানীয়।ভারতের একটা বড় অংশের মানুষ এটি ছাড়া তাদের দিন শুরুর কল্পনাও করতে পারেন না। সকালে ঘুম থেকে ওঠা থেকে শুরু করে দিনের যেকোনো সময় শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা যে কোনও ঋতুতে ভারতীয়দের চা-এ না নেই কখনও। ভারতে চা মানুষকে একত্রিত করে তা সে কর্মক্ষেত্র, রাস্তার ধারের প্রিয় স্টলে বা বাড়িতে বন্ধু/পরিবারের সাথে সর্বত্র চা কে কেন্দ্র করে চলে বিশাল আসর।  সম্প্রতি, জনপ্রিয় খাদ্য ও ভ্রমণ নির্দেশিকা TasteAtlas ২০২৩- ২৪-এর জন্য তার বছরের শেষ পুরস্কারের অংশ হিসাবে পুরষ্কার প্রাপকের  একটি তালিকা প্রকাশ করেছে। ভারতীয় রন্ধনপ্রণালী, রেস্তোরাঁর পাশাপাশি রান্নার বইগুলিও বিশ্বতালিকায় স্থান পেয়েছে।TasteAtlas বিশ্বের সবচেয়ে প্রিয় অ্যালকোহল-বিহীন পানীয়ের তালিকা প্রকাশ করেছে। তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভারতের মাসালা চা।  একটি ইনস্টাগ্রাম পোস্টে খবরটি প্রকাশ করে, TasteAtlas লিখেছে,মসলা চা একটি সুগন্ধযুক্ত পানীয় যা ভারতে পাওয়া যায়। এটি কালো চায়ের দানা এবং দুধের সংমিশ্রণে তৈরি করা হয়। এতে একটি মসলার মিশ্রণও দেওয়া হয়, যার মধ্যে সাধারণত এলাচ, আদা, লবঙ্গ, দারুচিনি এবং কালো গোলমরিচ থাকে।যদিও মশলার পছন্দ এবং সঠিক অনুপাত প্রায়শই পরিবর্তিত হয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top