কার্বন নিঃসরণ দ্রুত শেষ করার জন্য G7 ঐক্যমত

উত্তরাপথ

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বের সাতটি ধনী দেশের শক্তি ও পরিবেশ মন্ত্রীরা সম্প্রতি  জ্বালানি এবং পরিবেশগত ইস্যুতে উত্তর জাপানের শহর সাপোরোতে বৈঠক করেন।  G-7 বৈঠকে জড়ো হওয়া বিভিন্ন দেশের আধিকারিকরা তাদের প্রতিশ্রুতির রূপরেখা দিয়ে একটি কমিউনিক জারি করেছে। বৈঠকে বর্তমান সঞ্চিত জ্বালানি সংকট এবং ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নকে সমান গুরুত্ব দিয়ে, আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে নেট-জিরো গ্রিনহাউস গ্যাস (GHG) নির্গমনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। সমস্ত নেতারা দক্ষ, সাশ্রয়ী মূল্যের এবং দূষণ মুক্ত শক্তির উৎস সন্ধানের গুরুত্বকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এর আগেও কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো পর্যায়ক্রমে বন্ধ করার সময়সীমা নির্ধারণের বিষয়টি দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে।  জাপান তার বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রায় এক-তৃতীয়াংশের জন্য কয়লার উপর নির্ভর করে ।বৈঠকে  কয়লার উপর নির্ভরতা কমানোর উপর জোর দেওয়া হয়েছে। কার্বন নিঃসরণ হ্রাস করার এবং ২০৩৫ সালের মধ্যে “প্রধানত ডিকার্বনাইজড পাওয়ার সেক্টর” অর্জনের প্রয়োজনীয়তার কথা বলা হয়েছে ।

বিশ্বের উন্নত দেশগুলির অর্থনৈতিক কার্যকলাপ এই বৈশ্বিক কার্বন নির্গমন অনুন্নত দেশগুলির তুলনায় অনেকটাই বেশী। বৈশ্বিক কার্বন নির্গমনের এক চতুর্থাংশের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একাই দায়ী। G7 বৈঠকে উন্নত দেশগুলিকে উন্নয়নশীল দেশগুলির জলবায়ুর সংরক্ষণের জন্য আর্থিক তহবিল বাড়ানোর উপর জোর দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট লিউজ ইনাসিও লুলা দা সিলভ একটি যৌথ বিবৃতি জারি করে বলেছেন, “আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন যে উন্নত দেশগুলি দ্বারা প্রদত্ত তহবিল প্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যার্থ”। ভারতের পরিবেশমন্ত্রী ভূপেন্দর যাদব এক টুইটে বলেছেন,”২০৫০সালের মধ্যে নেট শূন্যে পৌঁছানোর বৈশ্বিক লক্ষ্যের জন্য উন্নত দেশগুলির দ্বারা বর্ধিত নির্গমন হ্রাসের প্রয়োজন ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Sustainable Energy: সূর্যের আলো এবং বায়ু,থেকে বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড-ব্রেকিং বৃদ্ধি

উত্তরাপথ: সম্প্রতি একটি রিপোর্ট সামনে এসেছে তাতে সূর্যের আলো এবং বায়ু,থেকে সারা বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড-ব্রেকিং বৃদ্ধি ১২% উৎপাদন করা সম্ভব হয়েছে। এই পুনর্নবীকরণযোগ‍্য সম্পদের ব্যবহার আমাদের অ নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহারের বিকল্পের দিকে ক্রমবর্ধমান বিশ্বব্যাপী পরিবর্তনকে প্রতিফলিত করছে। সৌর এবং বায়ু শক্তির ব্যবহারের দ্রুত বৃদ্ধি বিভিন্ন কারণ দ্বারা চালিত হয়েছে। প্রথমত, প্রযুক্তির অগ্রগতি পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি ব্যবস্থাকে আরও দক্ষ এবং সাশ্রয়ী করে তুলেছে। সৌর প্যানেল এবং বায়ু টারবাইনগুলি এখন আগের চেয়ে আরও দক্ষতার সাথে সূর্য এবং বায়ু থেকে শক্তি উৎপাদন করতে সক্ষম, যার ফলে বিশ্বব্যাপী পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির উৎপাদন বৃদ্ধি .....বিস্তারিত পড়ুন

রাতে ভালো ঘুমের পিছনে বিজ্ঞানের রহস্য

উত্তরাপথ: ঘুম আমাদের স্বাস্থ্যকর জীবনধারার একটি অপরিহার্য উপাদান। রাতের ভালো ঘুম হওয়া বর্তমান সময়ের একটা বড় সমস্যা। অনেকে আবার ভালো রাতের ঘুমের জন্য চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ঘুম নিয়ে গবেষণার ক্ষেত্রে বিজ্ঞান উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে।এক নতুন গবেষণায়, জাপানের সুকুবা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা  বলেছেন ঘুমের দীর্ঘস্থায়ী ও গভীরতা নির্ভর করে মস্তিস্কের কোষগুলির মধ্যে পাঠানো সংকেতের উপর। রাতে ঘুমের সময় শরীরে ঘটে যাওয়া জটিল প্রক্রিয়াগুলি সহ  রাতের বিশ্রামের কি গুরুত্ব আমাদের শরীরের উপর তা নিয়ে .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top