নতুন DA র হার ঘোষণা কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের জন্য

উত্তরাপথ

এখন প্রশ্ন হল ডিএ কী:

ডিএ হল ডিয়ারনেস অ্যালাওয়েন্স বা মহার্ঘ্য ভাতা। মূল্যস্ফীতির কারণে কর্মচারীদের অর্থনৈতিক অবস্থার ভারসাম্য বজায় রাখতে বা সামঞ্জস্য করতে অতিরিক্ত আর্থিক সাহায্যের আকারে ডিএ দেয় সরকার। এটি কর্মচারীর মূল বেতনের একটি নির্দিষ্ট শতাংশ বেতনের সঙ্গে যোগ করে দেওয়া হয়। সাধারণত, সরকার প্রতি ছয় মাসে (জানুয়ারি ও জুলাই মাসে) কর্মচারীদের মহার্ঘ ভাতা বৃদ্ধির ঘোষণা করে। কোন বছরে মহার্ঘ ভাতা কত শতাংশ বাড়বে তা নির্ধারণ করতে সর্বভারতীয় উপভোক্তা মূল্য সূচকের সাহায্য নেওয়া হয়।

ডিএ গণনা:

কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের জন্য ডিএ গণনা করা হয় – {(সর্বভারতীয় গ্রাহক মূল্য সূচকের গড় (বেস ইয়ার -২০০১ = ১০০) গত ১২ মাসের জন্য -১১৫.৭৬)/১১৫.৭৬} x ১০০

আবার কেন্দ্রীয় পাবলিক সেক্টরের কর্মচারীদের জন্য, ডিএ গণনা করা হয় – {(সর্বভারতীয় গ্রাহক মূল্য সূচকের গড় (বেস ইয়ার -২০০১ = ১০০) গত ৩ মাসের জন্য -১২৬.৩৩)/১২৬.৩৩} x ১০০৷

এবার আসা যাক কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের জন্য নতুন, DA র হার কত হল ।

ডিপার্টমেন্ট অফ পাবলিক এন্টারপ্রাইজেসের একজিকিউটিভ এবং সুপারভাইজারদের জন্য মহার্ঘ্য ভাতার হার(DA) সংশোধন করেছে কেন্দ্র। একটি বিবৃতিতে এই খবর জানানো হয়েছে।

* মাসিক ৩,৫০০ টাকা বেসিক পে-তে ডিএ-র হার হবে ৭০১.৯ শতাংশ, বেতনের সাপেক্ষে সর্বনিম্ন ১৫,৪২৮ টাকা। মাসিক ৩,৫০১ থেকে ৬,৫০০ টাকার বেসিক পে-তে ডিএ-র হার হবে ৫২৬.৪ শতাংশ, বেতনের সাপেক্ষে সর্বনিম্ন ২৩,৫৬৭ টাকা।

*আবার ৬,৫০০-র বেশি এবং ৯,৫০০ পর্যন্ত বেসিক পে-তে ডিএ হার হবে ৪২১.১ শতাংশ, বেতনের সাপেক্ষে সর্বনিম্ন ৩৪,২১৬ টাকা। ১ জুলাই ২০২৩ থেকে এই হার কার্যকর হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট দপ্তরের তরফে জানানো হয়েছে, মহার্ঘ্য ভাতার অ্যাকাউন্টে ৫০ পয়সা বা তার বেশি ভগ্নাংশ থাকলে পরেরবার ‘রাউন্ড ফিগারে’ তা জুড়ে দেওয়া হবে। ৫০ পয়সার কম ভগ্নাংশ উপেক্ষা করা যেতে পারে’।

 সঙ্গে বলা হয়েছে, ‘১ জুলাই থেকে পুরনো সিস্টেমে ২ টাকা থেকে প্রদেয় আইডিএ-র পরিমাণ ৯৬ পয়েন্ট বৃদ্ধির জন্য প্রতি পয়েন্ট শিফটে ১৯২ টাকা এবং এআইসিপিআই ৮৮১৩-এ প্রদেয় ডিএ হতে পারে ১৬২১৫.৭৫ টাকা।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


১ কোটি টাকার মানহানির মামলা প্রাক্তন CJI রঞ্জন গগৈয়ের বিরুদ্ধে

উত্তরাপথ: গুয়াহাটির একটি স্থানীয় আদালতে আসাম পাবলিক ওয়ার্কসের (এপিডব্লিউ) সভাপতি অভিজিৎ শর্মার রাজ্যসভার সাংসদ এবং ভারতের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি (সিজেআই) রঞ্জন গগৈয়ের বিরুদ্ধে ১কোটি টাকার মানহানির মামলা করেছে।  অভিজিৎ শর্মার অভিযোগ রঞ্জন গগৈ তার আত্মজীবনী জাস্টিস ফর এ জাজে  তার বিরুদ্ধে বিভ্রান্তিকর এবং মানহানিকর বিবৃতি প্রকাশ করেছে । তাই তিনি প্রকাশক গগৈ এবং রুপা পাবলিকেশন্সের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেন  এবং কোনও বই প্রকাশ, বিতরণ বা বিক্রি করা থেকে বিরত রাখার জন্য অন্তবর্তী .....বিস্তারিত পড়ুন

ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়া জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা রাখে

উত্তরাপথ: লরেন্স বার্কলে ন্যাশনাল ল্যাবরেটরি এবং ইউসি বার্কলে এর সহযোগিতামূলক গবেষণায় গবেষকরা একটি অভিনব ব্যাকটেরিয়া ইঞ্জিনিয়ারড করেছেন যা জ্বালানি, ওষুধ এবং রাসায়নিক উত্পাদনের সময় উত্পন্ন গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে ডিকার্বনাইজশন এর মাধ্যমে। সম্প্রতি Nature জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই আবিষ্কারটি । আর এটি "Carbene Transfer Chemistry in Biosynthesis" নামে পরিচিত । একটি অভিনব প্রতিক্রিয়ার সাথে প্রাকৃতিক এনজাইমেটিক বিক্রিয়াকে সংহত করতে ব্যাকটেরিয়াকে কাজে লাগায়। আর যা সাধারণত জীবাশ্ম .....বিস্তারিত পড়ুন

মানুষে মানুষে ঐক্য কীভাবে সম্ভব

দিলীপ গায়েন: হিন্দু,মুসলমান,ব্রাহ্মণ,তফসিলি।সকলেই মানুষ।কিন্তু এদের মধ্যে যে ব্যবধান তা হলো ধর্ম ও সাংস্কৃতিক। এই ব্যবধান মুছতে পারলে একাকার হওয়া সম্ভব। যারা বলছে আর্থিক সমতা প্রতিষ্ঠা হলে ব্যবধান মুছে যাবে, তাদের কথাটি বোধ হয় সঠিক নয়।তার প্রমাণ গরিব ও শ্রমিক শ্রেণীর মধ্যে আর্থিক ব্যবধান নেই। অথচ জাতিভেদ রয়ে গেছে। তেমনি কিছু ব্যতিক্রমী ঘটনা ব্যতীত ধনী ও শিক্ষিত সমাজে আর্থিক সচ্ছলতা থাকলেও জাতিভেদ রয়ে গেছে। একমাত্র হাসপাতালে বা চিকিৎসা ব্যবস্থায় জাতিভেদ নেই।কারণ সেখানে তো প্রচলিত ধর্মজাত প্রভেদ বা পরিচয় নেই। আছে মেডিসিন, যা সম্পূর্ণ বিজ্ঞান। কারোর ধর্ম বা জাত দেখে প্রেসক্রিপশন হয় কি? এখানে মানুষের একমাত্র এবং শেষ পরিচয় সে মানুষ। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top