সম্পাদকীয়- খবরের সত্যতা নিয়ে মানুষ আজ বিভ্রান্ত

যুদ্ধের মাঝে খবরের সত্যতা নিয়ে মানুষ সত্যতা শান্তির খোঁজে ছবি – উত্তরাপথ

‘বিভ্রান্তি’ আজকাল একটি আকর্ষণীয় শব্দ। সদ্য শুরু হওয়া ইজরায়েল ও গাজার মধ্যে যুদ্ধকে নিয়ে খবর সময়ের সাথে সাথে, এটি একটি সাধারণ ইভেন্টের পর্যায়ে চলে গেছে। বিভিন্ন প্রতিবেদনে কেবলমাত্র শব্দ ব্যবহার করে একটি সম্পূর্ণ ভিন্ন দৃশ্যকল্পকে তুলে ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে বিভিন্ন মাধ্যমে। খবর তুলে ধরার এই প্রতিযোগিতায়  যে ঘটনা দেখান হচ্ছে ,তা ঘটতেও পারে আবার নাও। ঘটনাগুলিকে  এমন একটি বিন্দুতে চিত্রিত করার জন্য বিভিন্ন উপায়ে হেরফের করা হচ্ছে।কোনও কোনও ক্ষেত্রে ভিডিও গেমের ছবিকে যুদ্ধের ছবি বলে সোশ্যাল মিডিয়াতে চালানো হচ্ছে।খবরের সত্যতা নিয়ে মানুষ আজ বিভ্রান্ত।

রাজনৈতিকভাবে পক্ষপাতদুষ্ট সংবাদপত্রের মাধ্যমে সরকারগুলি নিয়মিতভাবে “সংবাদে” কারসাজি করে চলেছে।তাঁর থেকে আরও উদ্বেগজনক হল, ভিজ্যুয়াল মিডিয়াতে দেখানো ইভেন্টগুলির ব্যাখ্যা – যা এখন তথাকথিত “ডিপ ফেক” প্রযুক্তি ব্যবহার করে ম্যানিপুলেট করা হচ্ছে । বিভিন্ন সোশ্যাল সাইটে ‘এক্স’ এবং ‘ইন্সট্রাতে’ মানুষ যে কোনও পুরাতন ভিডিওকে যুদ্ধের বলে শেয়ার করে চলেছে।এই পরিস্থিতিতে কে ঠিক করবে কোনটা বাস্তব, আর কোনটা নয়?

দ্বন্দ্বের সময় সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে ভুল তথ্য এবং মিথ্যা ছড়ানোর বিষয়টি সহ প্রযুক্তি সংস্থাগুলির কাছে একটি উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জ। সংঘর্ষের সময় এই ভুল তথ্যের প্রচার উত্তেজনা বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং শান্তি ও বোঝাপড়ার প্রচেষ্টা বাধাগ্রস্ত হতে পারে। প্রযুক্তি সংস্থাগুলি মিথ্যা তথ্যের বিস্তার রোধ করার দায়িত্বের সাথে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ভারসাম্য রক্ষার কাজ নিয়ে লড়াই করছে। এই সমস্যাটি মোকাবেলা করার জন্য, প্রযুক্তি সংস্থাগুলি বিভ্রান্তিকর বা ক্ষতিকারক বিষয়বস্তু সনাক্ত এবং অপসারণ করতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা অ্যালগরিদম এবং মানব মডারেটর নিয়োগের মতো বিভিন্ন ব্যবস্থা প্রয়োগ করেছে। তথ্যের যথার্থতা যাচাই করার জন্য তারা সত্য-পরীক্ষাকারী সংস্থাগুলির সাথে অংশীদারিত্ব করেছে।

তবে, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে মিথ্যা যে মাত্রায় এবং গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে তাতে প্রযুক্তিবিদদের পক্ষে  সমস্যাটিকে সম্পূর্ণরূপে নির্মূল করা কঠিন হয়ে পড়ছে। ভুল তথ্য কৌশলের বিকশিত প্রকৃতির দ্বারা সমস্যাটি আরও জটিল হয়ে উঠছে।এই ভুল তথ্যের পরিবেশন দুই পক্ষকে উৎসাহিত করছে আর বেশি সহিংসতায় , যা স্থানীয় সাধারণ মানুষের জীবন অসহনীয় করে তুলেছে।গত কয়েক দিন ধরে চলতে থাকা সহিংসতায় কয়েক হাজার মানুষ প্রান হারিয়েছেন।দ্রুত যদি এই সহিংসতা থামানো না যায় তাহলে এই সংখ্যাটা লাখ ছুঁয়ে যাবে ।

বাড়তে থাকা ভুল তথ্যের বিরুদ্ধে লড়াই করার প্রচেষ্টার জন্য একটি মাল্টি-স্টেকহোল্ডার পদ্ধতির প্রয়োজন, যাতে প্রযুক্তি কোম্পানি, সরকার, নাগরিক সমাজ সংস্থা এবং ব্যবহারকারীদের নিজেদের মধ্যে সহযোগিতা জড়িত থাকতে হবে। মিডিয়াগুলিকে যথেষ্ট সতর্কতা ও দক্ষতার সাথে খবর পরিবেশন করতে হবে, যাতে জনগণ  সহজেই সঠিক এবং মিথ্যা তথ্যের মধ্যে ভালভাবে পার্থক্য বুঝতে পারে। সংঘাতের সময় মিথ্যার বিরুদ্ধে লড়াই করাটাও একটি চলমান যুদ্ধ, এবং প্রযুক্তি সংস্থাগুলি এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য তাদের সিস্টেম এবং নীতিগুলিকে উন্নত করার জন্য ক্রমাগত কাজ করছে।আর এই সবের মধ্যে খবরের সত্যতা নিয়ে মানুষ আজ বিভ্রান্ত ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


World Children's Day: সত্যিই কি ‘বিশ্ব শিশু দিবস´পালনের কোনও যৌক্তিকতা আছে ?

প্রীতি গুপ্তাঃ হাতে গোনা আর মাত্র কয়েকটি দিন তারপর ১৪ নভেম্বর আমাদের দেশ সহ সারা বিশ্বজুড়ে  পালন করা হবে ‘বিশ্ব শিশু দিবস´(World Children's Day)।এই দিনটি শিশুদের মঙ্গলের জন্য, তাদের ভবিষ্যতের জন্য একটি অনুকূল বিশ্ব তৈরি করার প্রচেষ্টার একটি দিন।কিন্তু প্রশ্ন,সত্যি কি হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ করে সারা বিশ্ব জুড়ে শিশু দিবস পালন করার কোনও যৌক্তিকতা আছে? আদৌ কি এর কোনও লাভ আমরা আমাদের প্রান্তিক স্তরের শিশুদের কাছে পৌঁছে দিতে পেরেছি ? সম্প্রতি কাজের প্রয়োজনে রাজস্থানের উদয়পুর শহরে আসা। আমরা সবাই জানি উদয়পুর বিখ্যাত তার হ্রদের কারণে । এখানকার স্থানীয় থেকে পর্যটক সকলেই এই সুন্দর হ্রদগুলির আকর্ষণে বারবার ছুঁটে যায়। ‘ফতে সাহেব লেক’ রাজস্থানের উদয়পুরের এক বিখ্যাত পর্যটক স্থল।এখানে বহু মানুষ সকাল- বিকেল এই লেকের চার ধারে হাঁটাহাঁটি করতে বেরিয়ে পড়ে। সেভাবেই দুই দিন আগে বিকেলে হঠাৎ করে বেরিয়ে পড়লাম ‘ফতে সাহেব লেকের ধারে হাঁটার উদ্দেশ্য নিয়ে। হাঁটার মাঝখানে হঠাৎ করে একটি বাচ্চাছেলে আওয়াজ করে ডাকছে ,বললাম কিছু বলবি? সে বলল একটু দাঁড়াতে। ও ছুটে গিয়ে হাতে করে কয়েকটি বেলুন নিয়ে এসে হাজির । সে বারবার বেলুন কেনার অনুরোধ জানাতে লাগল। হাতে অন্য কাজের চাপ নেই অনেকটা অবসর সময় তাই আমি অনেকটা সাংবাদিক সুলভ মন নিয়ে বললাম ঠিক আছে আমি তোর বেলুন নেব ,কিন্তু তার আগে আমি  তোকে যা বলব তার তার ঠিক ঠিক উত্তর দিতে হবে। সে খুশী খুশী রাজি হয়ে গেল । .....বিস্তারিত পড়ুন

দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

Fructose: নতুন গবেষণায় ফ্রুক্টোজকে স্থূলতার কারণ বলা হয়েছে

উত্তরাপথঃ একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় জোরালো প্রমাণ দেওয়া হয়েছে যে ফ্রুক্টোজ (Fructose), সাধারণত প্রক্রিয়াজাত খাবার এবং পানীয়গুলিতে থাকা এক ধরনের চিনি, যা স্থূলতার প্রাথমিক চালক। বছরের পর বছর ধরে, পুষ্টি বিশেষজ্ঞরা , পাশ্চাত্য খাদ্যে, স্থূলতার মূল কারণ নিয়ে বিতর্ক করেছেন, কেউ কেউ অত্যধিক ক্যালোরি গ্রহণের দিকে ইঙ্গিত করেছেন, অন্যরা কার্বোহাইড্রেট বা চর্বি জাতীয় খাবারকে দায়ী করেছেন। Obesity জার্নালে সাম্প্রতিক একটি গবেষণাপত্রে ফ্রুক্টোজকে স্থূলতার প্রকৃত চালক হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে।The University of Colorado Anschutz Medical Campus এর Dr. Richard Johnson এবং তার দলের মতে, ফ্রুক্টোজ হল একটি সাধারণ চিনি যা ফল এবং মধুর প্রাথমিক পুষ্টি। .....বিস্তারিত পড়ুন

Karar Oi Lauh Kapat: কাজী নজরুলের এই গানকে ঘিরে  বিতর্কে এ আর রহমান

উত্তরাপথঃ বিতর্কে 'পিপ্পা' ছবির সঙ্গীত পরিচালক অস্কারজয়ী সুরকার এ আর রহমান।সম্প্রতি কবি কাজী নজরুল ইসলামের পরিবার একটি হিন্দি ছবিতে কবির জনপ্রিয় গান 'করার ঐ লৌহ কাপাত...' (Karar Oi Lauh Kapat )।কিন্তু এ আর রহমানের সঙ্গীত পরিচালনায় ওই গানটি যেভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে তাতে আপত্তি জানিয়েছে নজরুল পরিবার।বিতর্কের পর যে চুক্তির আওতায় ওই গানটি ছবিতে ব্যবহার করা হয়েছে তা প্রকাশ্যে আনার দাবি তুলেছে কবির পরিবার।'পিপ্পা' শিরোনামের হিন্দি চলচ্চিত্রটি যেখানে (Karar Oi Lauh Kapat )গানটি ব্যবহার করা হয়েছে তা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেওয়া একজন ভারতীয় সেনা সৈনিককে কেন্দ্র করে একটি সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত। ছবির সঙ্গীত পরিচালক অস্কারজয়ী সুরকার এ আর রহমান। গানের কথা ঠিক রেখেও সুর পাল্টানোর অভিযোগে ভারত ও বাংলাদেশে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।কবির পরিবারের অভিযোগ, গানটি ব্যবহারের অনুমতি দিলেও সুর পরিবর্তনের অনুমতি দেওয়া হয়নি।পরিবারের সদস্যরাও ছবিটি থেকে গানটি বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top