চুরাচাঁদপুরে, রাহুল ত্রাণ শিবিরে বসবাসকারী লোকদের সাথে কথা বলেন

উত্তরাপথ

ছবি সৌজন্যে:টুইটার

মণিপুরের, চুরাচাঁদপুরে ত্রাণ শিবিরে বসবাসকারী ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে দেখা করেন রাহুল গান্ধী ।তিনি নিজেই টুইট করে একথা জানান।সেই সাথে তিনি টুইটে বিজেপি সরকারকে নিশানা করেন। তার টুইটে রাহুল গান্ধী লিখেছেন, এটা দুর্ভাগ্যজনক যে সরকার আমাকে যেতে বাঁধা দিচ্ছে।মণিপুরের সমস্যা সমাধানের সদিচ্ছা দরকার। রাষ্ট্রে শান্তিই একমাত্র অগ্রাধিকার হওয়া উচিত।  তিনি আরও বলেন, আমি মণিপুরে আমার ভাই-বোনদের কথা শুনতে এসেছি।এখানে সবাই আমাকে অনেক ভালবাসা দিয়ে স্বাগত জানাচ্ছে।

প্রসঙ্গত বৃহস্পতিবার মণিপুরে পৌঁছেছেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি ও প্রাক্তন সাংসদ রাহুল গান্ধী। ইম্ফল পৌঁছে তিনি ত্রাণ শিবির পরিদর্শনের জন্য চুরাচাঁদপুরের দিকে যাচ্ছিলেন। ইম্ফলের প্রায় ২০ কিলোমিটার আগে বিষ্ণুপুর জেলায় রাহুলের কনভয় থামানো হয়েছিল। এলাকায় গণ্ডগোল ও অগ্নিসংযোগের ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ তাদের এগিয়ে যেতে দেয়নি বলে খবর।  দীর্ঘ সময় অনুমতি না পেয়ে ইম্ফল ফিরে আসেন রাহুল।  এদিকে বিক্ষুব্ধ কংগ্রেস কর্মীরা ঘটনাস্থলে হট্টগোল শুরু করে।  নেতাকর্মীরা পুলিশের ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা করে বলে জানা গেছে।পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশকে কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করতে হয়েছে। 

 পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন যে পথে গণ্ডগোলের আশঙ্কায় কনভয়টি থামানো হয়েছিল। অন্যদিকে  বিষ্ণুপুর জেলার উটলু গ্রামের কাছে হাইওয়েতে টায়ার জ্বালিয়ে দেওয়া হয় এবং কনভয়কে লক্ষ্য করে কিছু পাথরও ছোড়া হয়। তাই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আমরা কনভয়কে বিষ্ণুপুরে থামতে অনুরোধ করেছিলাম।

সম্প্রতি মণিপুর পরিস্থিতি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সর্বদলীয় বৈঠকে বসার পর রাহুলের মণিপুরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত সামনে আসে। ৩ মে থেকে উত্তর-পূর্বের এই রাজ্য জাতিগত সহিংসতায় জর্জরিত । কংগ্রেস রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য বিজেপি এবং তার “বিভেদমূলক রাজনীতি”কে দায়ী করেছে।এর পাশাপাশি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে অবিলম্বে বরখাস্ত করার দাবি জানিয়েছে এবং মণিপুরে শান্তি ফিরিয়ে আনতে সর্বদলীয় প্রতিনিধি দল পাঠানোর দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস।

 অন্যদিকে, নাগাল্যান্ডের কংগ্রেস (AICC) ইনচার্জ অজয় ​​কুমার বলেছেন যে কেন্দ্রীয় সরকার মণিপুরকে খবর থেকে অদৃশ্য করার চেষ্টা করছে। রাহুল গান্ধী এবং কংগ্রেস মণিপুরে দেশের মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করার চেষ্টা করছে।  মণিপুরে, ২০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে, ১০০০ টিরও বেশি বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, ৭০০ টিরও বেশি উপাসনালয়, গীর্জা ধ্বংস করা হয়েছে।  রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে। 

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


রেলওয়ে ইউনিয়নের নতুন সূচনা, গান গেয়ে মানসিক চাপ দূর করছেন রেলের কর্মচারীরা

উত্তরাপথঃ আপনি যদি সরকারি বা বেসরকারি চাকরি করেন, তাহলে এই খবর আপনাকে স্বস্তি দেবে।কারণ ভারতীয় রেলওয়ের বৃহত্তম শ্রমিক সংগঠন অল ইন্ডিয়া রেলওয়েম্যানস ফেডারেশন (এআইআরএফ) এবং নর্থ ওয়েস্টার্ন রেলওয়ে এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন কর্মক্ষেত্রে কর্মীদের উপর ক্রমবর্ধমান চাপ কমাতে এক অনন্য উদ্যোগ শুরু করেছে।তারা তাদের কর্মীদের গান গেয়ে তাদের মানসিক চাপ দূর করতে পরামর্শ দিচ্ছে।    এআইআরএফ-এর সাধারণ সম্পাদক শিব গোপাল মিশ্র এবং কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মুকেশ মাথুরের নির্দেশে, জয়পুর এবং অন্যান্য শহরের কর্মচারীরা একটি মাঠে জড়ো হয় এবং সেখানে তারা গান গায় এবং আন্তাক্ষিরি খেলে। .....বিস্তারিত পড়ুন

ঘোষণা হল ভারতের শীর্ষ বিজ্ঞান পুরস্কার শান্তি স্বরূপ ভাটনগর প্রাপকদের নাম  

উত্তরাপথঃ এটি আশ্চর্যজনকভাবে ২০২২ সালে, প্রথমবারের মতো, বিজ্ঞানে ভারতের শীর্ষ বার্ষিক পুরস্কার ঘোষণা করা হয়নি।এক বছর স্থগিত রাখার পর, সোমবার ২০২২ সালের শান্তি স্বরূপ ভাটনগর পুরস্কার ঘোষণা করা হয়, যেখানে ১২ জন তরুণ বিজ্ঞানীকে ভারতের শীর্ষ বিজ্ঞান পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে।ভাটনগর পুরষ্কার, CSIR-এর প্রথম মহাপরিচালক শান্তি স্বরূপ ভাটনাগরের নামানুসারে, প্রতি বছর সাতটি বৈজ্ঞানিক শাখায় গবেষকদের অসামান্য কৃতিত্বের জন্য দেওয়া হয়। জীববিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত, পদার্থবিদ্যা, চিকিৎসা, প্রকৌশল এবং পৃথিবী, বায়ুমণ্ডল, মহাসাগর এবং গ্রহ বিজ্ঞান - এর অধীনে ৪৫ বছর পর্যন্ত অসামান্য গবেষকদের নির্বাচন করা হয়। পুরস্কারে ৫ লক্ষ টাকা নগদ ও একটি প্রশংসাপত্র দেওয়া হয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

ধানের সাধ ভক্ষণ : জিহুড়

ড.  নিমাইকৃষ্ণ মাহাত: আশ্বিন সংক্রান্তিতে কৃষক সমাজের মধ্যে জিহুড় পার্বণ পালিত হয়। কৃষক সাধারণের মধ্যে জিহুড় পার্বণের একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। জিহুড় অর্থাৎ আশ্বিন সংক্রান্তির সময় বহাল জমিতে লাগানো ধান বা বড়ান ধানে থোড় আসতে শুরু করে। সুতরাং ধান গাছ গর্ভাবস্থায় থাকে। মানুষের ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় নানা ধরনের আচার-সংস্কার পালন করা হয়। এই সংস্কারগুলির অন্যতম হলো " ন' মাসি " অর্থাৎ গর্ভাবস্থার নবম মাসে যে আচার -অনুষ্ঠান পালন করা হয়। এর কিছুদিন পরেই সন্তানজন্মগ্রহণ করে। মানব- সমাজের গর্ভাবস্থাজনিত এই ধরনের আচার সংস্কারের সঙ্গে ধান গাছের গর্ভাবস্থার কারণে পালনীয় অনুষ্ঠান জিহুড়ের সাদৃশ্য থাকে দেখা যায়। সেই জন্য অনেকে জিহুড় অনুষ্ঠানকে ধান গাছের 'সাধভক্ষণ'  বলে থাকেন। জিহুড়-এ ধান গাছ .....বিস্তারিত পড়ুন

বিজ্ঞানীদের মতে, বিশ্ব উষ্ণায়নের প্রভাবে কিছু মাছের প্রজাতি সঙ্কুচিত হচ্ছে

উত্তরাপথঃ আমাদের গ্রহে বিশ্ব উষ্ণায়নের প্রভাব ক্রমশ স্পষ্ট হয়ে উঠছে, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা আমাদের পরিবেশের বিভিন্ন দিককে প্রভাবিত করছে।সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন যে কিছু মাছের প্রজাতি সঙ্কুচিত হচ্ছে এর প্রভাবে। বিজ্ঞানীদের করা এই গবেষণাটি আমাদের মহাসাগরের উষ্ণায়নের প্রত্যক্ষ পরিণতি বলে মনে করা হচ্ছে। গবেষকদের একটি আন্তর্জাতিক দল দ্বারা পরিচালিা সাম্প্রতিক এই গবেষণায় বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে মাছের জনসংখ্যা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন যে কড এবং হ্যাডকের মতো বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ সহ অসংখ্য প্রজাতির আকার গত কয়েক দশক ধরে হ্রাস পাচ্ছে। আকারের এই হ্রাস সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্র এবং মৎস শিল্প উভয় ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে উদ্বেগের কারণ হতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top