টাইপ 2 ডায়াবেটিসে সময়ে খাবার খাওয়া, ক্যালোরি গণনার চেয়ে বেশি কার্যকর

টাইপ 2 ডায়াবেটিসে লক্ষ্য হল ওজন কমানো ছবি – উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃ টাইপ 2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে একটি সাধারণ লক্ষ্য হল ওজন কমানো , অতিরিক্ত ওজন এবং স্থূলতার সাথে টাইপ 2 ডায়াবেটিসের অবস্থার দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে।এই বিপাকীয় ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য কোন ডায়েটিং কৌশলটি সবচেয়ে ভাল কাজ করে তা স্পষ্ট নয়।

তবে টাইপ 2 ডায়াবেটিস রোগীদের একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে অধ্যয়নের অংশগ্রহণকারীরা যারা দুপুর থেকে রাত ৮ টার মধ্যে খাবার খাওয়া শেষ করেছে তারা, যারা ক্যালোরি গণনা করে তাদের সামগ্রিক ক্যালোরি গ্রহণ কমিয়েছেন তাদের তুলনায় দৈনিক বেশি ওজন কমিয়েছেন। তবে মজার বিষয় হল, উভয় পদ্ধতিই ক্ষেত্রে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রনে একই রকম উন্নতি হয়েছে।

সম্প্রতি পাভলো আমেরিকান সোসাইটি ফর নিউট্রিশনের বার্ষিক ফ্ল্যাগশিপ মিটিং NUTRITION 2023-এ ,বিজ্ঞানীরা টাইপ 2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের রক্তে শর্করার মাত্রা কার্যকরভাবে কম রাখা সেই সাথে ওজন কমানোর জন্য সর্বোত্তম ডায়েটিং পদ্ধতি প্রকাশ করেছেন। গবেষকদের মতে অনেকের ক্ষেত্রে দীর্ঘদিন ধরে ক্যালোরি গণনা করে খাবার খাওয়া খুব কঠিন বলে মনে করেন, কিন্তু আমাদের গবেষণা দেখায়  যে ঘড়ির কাঁটা ধরে খাওয়াও ক্যালোরি কমাতে এবং ওজন কমানোর একটি সহজ উপায় হতে পারে ।

গবেষণায় যুক্ত এক গবেষকের মতে, আমাদের গবেষণা দেখায় যে ৮ ঘণ্টার একটি নির্দিষ্ট সময় ব্যবধানে সীমাবদ্ধ খাওয়া টাইপ 2 ডায়াবেটিস আক্রান্তদের ওজন কমাতে এবং তাদের রক্তে শর্করার উন্নতি করতে চায় তাদের জন্য একটি ভাল বিকল্প হতে পারে।তবে, টাইপ 2 ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য একাধিক ধরণের ওষুধ রয়েছে, যা রক্তে শর্করার মাত্রা কম করতে কার্যকর হতে পারে ,যা কিছু খাবারের সাথে গ্রহণ করা প্রয়োজন। তবে, এই ডায়েটিং পদ্ধতির প্রয়োগ করার সময় একজন ডায়েটিশিয়ান বা ডাক্তারের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে যোগাযোগ করা গুরুত্বপূর্ণ।

ছয় মাসের তদন্তের পরে, গবেষকদলটি আবিষ্কার করেছে ,যে অংশগ্রহণকারীরা একটি নির্দিষ্ট সময় অন্তর একটি সীমাবদ্ধ  ডায়েট অনুসরণ করেছেন  তাদের শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণ অন্য  গ্রুপের তুলনায় ৩.৫৫% হ্রাস পেয়েছে।আবার অন্য গ্রুপটি যারা শুধুমাত্র সীমিত ক্যালোরি গ্রহণের উপর জোর দিয়েছিল তাদের আপেক্ষিক কোনও ওজন কমেনি । তবে উভয় ক্ষেত্রেই রক্তে শর্করার (HbA1C) মাত্রা হ্রাস পেয়েছে।

টাইপ 2 ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের জন্য কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ কমানো একটি সাধারণ পদ্ধতি, সাম্প্রতিক গবেষণা পরামর্শ দেয় যে একটি নির্দিষ্ট সময়ে খাবার গ্রহণ এই ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সুবিধা দিতে পারে। এই পদ্ধতিটি শরীরের প্রাকৃতিক ছন্দের সাথে খাওয়ার ধরণকে সারিবদ্ধ করে এবং ইনসুলিন সংবেদনশীলতা, ওজন ব্যবস্থাপনা এবং সামগ্রিক বিপাকীয় স্বাস্থ্যের উন্নতিতে প্রতিশ্রুতি দেখিয়েছে।

বি.দ্রঃ-পেশাদার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করা এবং ব্যক্তিগত প্রয়োজনের ভিত্তিতে পদ্ধতিকে ব্যক্তিগতকৃত করা গুরুত্বপূর্ণ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো ও বিশ্ব মঞ্চে ভারতের লোকনৃত্য

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতোঃ আমাদের চারিদিকে বিশ্ব দ্রুত বিকশিত হচ্ছে,পরিবর্তিত হচ্ছে শিল্প সাধনার প্রকৃতি। এই পরিবর্তিত শিল্প সাধনার যুগে আমাদের সেই সমস্ত ব্যক্তিদের স্বীকৃতি দেওয়া এবং সম্মান করা অপরিহার্য যারা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও প্রচারে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। এমনই একজন উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব হলেন ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো। নেপাল মাহাতো, যার ছৌনৃত্যের জগতে  দেশে ও বিদেশে অতুলনীয় অবদান তাকে ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান ‘পদ্মশ্রী´এনে দিয়েছে। নেপাল মাহতোর জন্ম ১৭ জুন ১৯৫৪ সালে পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলার বরাবাজার থানার আদাবনা নামে একটি ছোট গ্রামে। তার পিতা স্বর্গীয় নগেন্দ্রনাথ মাহাতো ও মাতা তুষ্ট মাহাতো। .....বিস্তারিত পড়ুন

রাজা মহম্মদ ও সি সেল মিউজিয়াম

প্রিয়াঙ্কা দত্তঃ রাজা মহম্মদ, এমন একজন মানুষের নাম, যার ব্যাক্তিগত ইচ্ছার কাছে হেরে যায় সব বাধা। ইচ্ছার চেয়ে বলা ভালো নেশা। সামুদ্রিক প্রাণীদের খোল সংগ্রহের নেশা। যা তাঁকে ছোটবেলা থেকেই ছুটিয়ে নিয়ে বেরিয়েছে প্রায় তিরিশ বছর ধরে। আর সেই দীর্ঘ পথের শেষে , তিনি সম্পূর্ন ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন এশিয়ার বৃহত্তম ও পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ব্যাক্তিগত সংগ্রহশালা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত সি সেল মিউজিয়ামটি বর্তমানে চেন্নাইয়ের মহাবলিপূরম মন্দিরের সন্নিকটে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট। রাজা মহম্মদ ছোট্ট বেলা থেকেই  সমুদ্র তট থেকে সংগ্রহ করতেন বিভিন্ন সামুদ্রিক প্রাণীর দেহাংশ। কুড্ডালোর থেকে রামেশ্বরম এর সমুদ্রতট, সেখান থেকে জাপান, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপিন্স প্রভৃতি দেশে গিয়েছেন ব্যাক্তিগত উদ্যোগে। সংগ্রহ করেছেন অসাধারণ সব সামুদ্রিক .....বিস্তারিত পড়ুন

শূন্য বর্জ্য নীতি গ্রহনে জাপান আজ বিশ্বগুরু

উত্তরাপথঃ পূর্ব এশিয়ার দ্বীপ শহর জাপান । সম্প্রতি তার শূন্য বর্জ্য নীতি-এর কারণে খবরের শিরোনামে । Zero Waste বা শূন্য বর্জ্য হল- অযথা খরচকে ন্যূনতম রেখে উৎপাদিত আবর্জনা কমানোর প্রচেষ্টা। ১৯৯৬ সালে , অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী শহর ক্যানবেরা বিশ্বের প্রথম শূন্য-বর্জ্য শহরের শিরোপা অর্জন করে।এরপর Zero Waste ধারণাটি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে, উদাহরণস্বরূপ কানাডার টরন্টো এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো নিজেদের শূন্য-বর্জ্য শহর হিসাবে ঘোষণা করে । পরিবেশ সচেতনতার ক্ষেত্রে নিউজিল্যান্ডের প্রায় ৭০% পৌরসভা নিজেদের শূন্য-বর্জ্য পৌরসভা হিসাবে ঘোষণা করেছে।এদিকে ২০২২ সালের জানুয়ারী পর্যন্ত, জাপানের পাঁচটি শহর নিজেদের শূন্য বর্জ্য শহর হিসেবে ঘোষণা করেছে।জাপানের তোকুশিমা প্রিফেকচারের কামিকাতসু টাউন প্রথম নিজেদের শূন্য বর্জ্য  শহর হিসেবে ঘোষণা করার পর, ধারণাটি পুরো জাপানে ছড়িয়ে পড়ে। .....বিস্তারিত পড়ুন

এবার থেকে সংসদের কর্মীরা নতুন ইউনিফর্ম সহ ভারতীয় ঐতিহ্য প্রদর্শন করবে

উত্তরাপথঃ আগামী ১৮ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সংসদের বিশেষ অধিবেশনের ঘোষণা ৩১ আগস্ট সংসদীয় বিষয়ক মন্ত্রী প্রহলাদ যোশী করেছিলেন। অধিবেশন চলাকালীন কেন্দ্রের দ্বারা ভারতের নাম পরিবর্তন করে ভারত রাখার প্রস্তাবও আনা হতে পারে।সংসদের বিশেষ অধিবেশন এগিয়ে আসার সাথে সাথে, কর্মীদের পরের সপ্তাহে নতুন ভবনে যাওয়ার সময় সংসদ কর্মীদের নতুন ইউনিফর্ম পরতে হবে।এই ইউনিফর্মগুলিতে ভারতীয় সংস্কৃতির উপাদানগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে । নেহেরু জ্যাকেট' এবং খাকি রঙের প্যান্ট অন্তর্ভুক্ত থাকবে। নতুন ড্রেস কোড সংসদের উভয় কক্ষে কার্যকর করা হবে।ইউনিফর্মটি তৈরি করেছে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ফ্যাশন টেকনোলজি (NIFT)। তবে নতুন সংসদ ভবনে আনুষ্ঠানিক প্রবেশের জন্য ১৯ সেপ্টেম্বর নির্ধারিত হয়েছে,সেদিন গণেশ চতুর্থীর একটি ছোট 'পূজা' অনুষ্ঠান হবে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top