পদার্থবিজ্ঞানের গবেষণাপত্রে, ৫,০০০ জনেরও বেশি গবেষক একসাথে

CERN-এ the Large Hadron Collider, সংগৃহীত-ছবি টুইটার

উত্তরাপথঃ পদার্থবিজ্ঞানের উপর একটি গবেষণাপত্র সহযোগিতা এবং বৈজ্ঞানিক প্রচেষ্টার একটি অসাধারণ কৃতিত্ব স্থাপন করেছে।এই পর্যন্ত অতীতের সমবেত ভাবে গবেষণাপত্র প্রকাশের সমস্ত রেকর্ড ভেঙেছে, পদার্থবিজ্ঞানের গবেষণাপত্রে ৫,১৫৪ জন লেখক মিলে একটি যুগান্তকারী  গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছে।

ফিজিক্যাল রিভিউ লেটারস ১-এ ১৪ মে এটি প্রকাশিত হয়েছে। ৩৩-পৃষ্ঠার নিবন্ধের শুধুমাত্র প্রথম নয়টি পৃষ্ঠাতে গবেষণার বিষয় বর্ণনা রয়েছে — রেফারেন্স সহ। বাকি ২৪ পৃষ্ঠায় লেখক এবং তাদের প্রতিষ্ঠানের তালিকা রয়েছে।

নিবন্ধটি দুটি দলের প্রথম যৌথ গবেষণাপত্র যা ATLAS এবং CMS পরিচালনা করে, CERN-এ লার্জ হ্যাড্রন কোলাইডার (LHC) এ দুটি বিশাল ডিটেক্টর, জেনেভা, সুইজারল্যান্ডের কাছে ইউরোপের কণা-পদার্থবিদ্যা ল্যাব।  প্রতিটি দল একটি বিস্তৃত সহযোগিতা যার মধ্যে কয়েক ডজন প্রতিষ্ঠান এবং দেশের গবেষকরা জড়িত।

আলোচনায় থাকা পদার্থবিজ্ঞানের গবেষণাপত্রে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং দেশের বিজ্ঞানীদের একটি বিশ্বব্যাপী দল দ্বারা পরিচালিত একটি বিস্তৃত গবেষণা প্রকল্পকে আমাদের সামনে তুলে ধরা হয়েছে। অধ্যয়নের লক্ষ্য ছিল একটি জটিল বৈজ্ঞানিক ঘটনা অনুসন্ধান করা, যা আমাদের জ্ঞানের সীমানাকে আরও বিস্তৃত করতে সাহায্য করবে।গবেষক দলের সদস্যরা তাদের ডেটা একত্রিত করার মাধ্যমে, হিগস বোসনের ভরের সবচেয়ে সুনির্দিষ্ট অনুমান পেতে সক্ষম হয়েছে।

বিভিন্ন বিজ্ঞানীদের গবেষণার উপর নির্ভর করে তৈরি হওয়া এই গবেষণাপত্রটি একটি মৌলিক কণা এবং তাদের মিথস্ক্রিয়া অন্বেষণ থেকে মহাজাগতিক ঘটনা পরীক্ষা করা বা অভিনব উপাদান এবং তাদের বৈশিষ্ট্যগুলি তদন্ত খুব সূক্ষ্ম ভাবে করেছেন। গবেষণার  জটিলতার জন্য বিপুল সংখ্যক বিজ্ঞানীর জড়িত থাকার প্রয়োজন ছিল।

পদার্থবিজ্ঞানের এই প্রথম কোনও গবেষণাপত্রে লেখকদের রেকর্ড-ব্রেকিং সংখ্যা ও একটি অসাধারণ স্তরের সহযোগিতার বার্তা আমাদের সামনে তুলে ধরা হয়। বিভিন্ন শাখার, প্রতিষ্ঠান এবং দেশের বিজ্ঞানীরা একত্রিত হয়ে এই গবেষণা প্রকল্পে তাদের অবদান রেখেছেন। সম্ভবত প্রতিটি লেখক তথ্য সংগ্রহ, ব্যাখ্যা এবং বিশ্লেষণে তাদের যথাসাধ্য অবদান রেখেছেন।

পদার্থবিজ্ঞানের  যেকোনও গবেষণার জন্য প্রয়োজন অত্যাধুনিক গবেষণাগার, উন্নত সরঞ্জাম এবং বিস্তৃত ডেটা সেট সহ গবেষণায় যুক্ত একাধিক উপকরণ। এই ধরনের সহযোগিতা গবেষকদের রিসোর্স লিভারেজ করতে সক্ষম করে যা পৃথক বিজ্ঞানী বা ছোট গবেষণা গোষ্ঠীর কাছে উপলব্ধ নাও হতে পারে।

৫,০০০ জনেরও বেশি পদার্থবিজ্ঞানের বিজ্ঞানী দ্বারা রচিত রেকর্ড-ব্রেকিং গবেষণাপত্রটি বৈজ্ঞানিক সহযোগিতায় একটি অসাধারণ কৃতিত্বের প্রতিনিধিত্ব করে। এই যুগান্তকারী প্রচেষ্টা টিমওয়ার্ক, সম্মিলিত প্রচেষ্টা সহ সহযোগিতা ভবিষ্যতের  আরও উন্নত বৈজ্ঞানিক প্রচেষ্টার পথ প্রশস্ত করবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ধানের সাধ ভক্ষণ : জিহুড়

ড.  নিমাইকৃষ্ণ মাহাত: আশ্বিন সংক্রান্তিতে কৃষক সমাজের মধ্যে জিহুড় পার্বণ পালিত হয়। কৃষক সাধারণের মধ্যে জিহুড় পার্বণের একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। জিহুড় অর্থাৎ আশ্বিন সংক্রান্তির সময় বহাল জমিতে লাগানো ধান বা বড়ান ধানে থোড় আসতে শুরু করে। সুতরাং ধান গাছ গর্ভাবস্থায় থাকে। মানুষের ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় নানা ধরনের আচার-সংস্কার পালন করা হয়। এই সংস্কারগুলির অন্যতম হলো " ন' মাসি " অর্থাৎ গর্ভাবস্থার নবম মাসে যে আচার -অনুষ্ঠান পালন করা হয়। এর কিছুদিন পরেই সন্তানজন্মগ্রহণ করে। মানব- সমাজের গর্ভাবস্থাজনিত এই ধরনের আচার সংস্কারের সঙ্গে ধান গাছের গর্ভাবস্থার কারণে পালনীয় অনুষ্ঠান জিহুড়ের সাদৃশ্য থাকে দেখা যায়। সেই জন্য অনেকে জিহুড় অনুষ্ঠানকে ধান গাছের 'সাধভক্ষণ'  বলে থাকেন। জিহুড়-এ ধান গাছ .....বিস্তারিত পড়ুন

ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম, প্রভাব রাজ্যেও

উত্তরাপথঃ বাংলাদেশ ও ইলিশ এই দুটি নাম একে অপরের পরিপূরক মনে হলেও বাস্তব কিন্তু বলছে অন্য কথা। সূত্র মাধ্যমে পাওয়া খবরে জানা যাচ্ছে  প্রকৃতির অপার দান হলেও শিকার থেকে শুরু করে বাজারজাত হওয়া পর্যন্ত ব্যয় বৃদ্ধির কারণেই বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম। এর সঙ্গে মধ্যস্বত্বভোগীদের লাভের অঙ্ক যোগ হয়ে তা চলে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।পরিস্থিতি এমন যে গরিব তো দূর থাক মধ্যবিত্তের পাতেও এখন আর জুটছে না ইলিশ। বুধবার বরিশালের পাইকারি বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয় ৬০ হাজার টাকা মন দরে। ৪২ কেজিতে মন হিসাবে প্রতি কেজির দাম পড়ে প্রায় সাড়ে ১৪শ টাকা। খুচরা বাজারে গিয়ে যা বিক্রি হয় ১৬ থেকে ১৮শ টাকা। যে কারণে জাতীয় এই মাছ এখন শুধু বিত্তশালীদের খাদ্যে পরিণত হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

মহারানী পদ্মাবতী এবং জোহরের ঐতিহ্য: সাহস ও আত্মত্যাগের এক গল্প

উত্তরাপথঃ ভারতের ইতিহাসে, এমন অনেক গল্প রয়েছে যা সময়কে অতিক্রম করে আমাদের সম্মিলিত চেতনায় এক অমোঘ চিহ্ন রেখে যায়। তেমনই একটি গল্প মহারানী পদ্মাবতী ও জোহরের ঐতিহ্য। সাহস, সম্মান এবং ত্যাগের এই গল্প প্রজন্মের পর প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করেছে এবং আমাদের কল্পনাকে মুগ্ধ করে চলেছে।ভারতীয় ইতিহাসের পাতায় অত্যন্ত সুন্দরী ও সাহসী মহারানী পদ্মাবতী'র উল্লেখ আছে।  রানী পদ্মাবতী রানী পদ্মিনী নামেও পরিচিত।  রানী পদ্মাবতীর পিতা ছিলেন সিংহল প্রদেশের (শ্রীলঙ্কা) রাজা গন্ধর্বসেন।ইতিহাসে রানী পদ্মিনী তার ব্যতিক্রমী সৌন্দর্য, বুদ্ধিমত্তা এবং বীরত্বের জন্য পরিচিত হলেও, তিনি করুণা এবং শক্তির প্রতীক হিসেবেও পরিচিত ছিলেন। দিল্লির শক্তিশালী শাসক আলাউদ্দিন খিলজি তার অতুলনীয় সৌন্দর্যের কথা শুনে তাকে অধিকার করার সংকল্প করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

টাইপ 2 ডায়াবেটিসে সময়ে খাবার খাওয়া, ক্যালোরি গণনার চেয়ে বেশি কার্যকর

উত্তরাপথঃ টাইপ 2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে একটি সাধারণ লক্ষ্য হল ওজন কমানো , অতিরিক্ত ওজন এবং স্থূলতার সাথে টাইপ 2 ডায়াবেটিসের অবস্থার দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে।এই বিপাকীয় ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য কোন ডায়েটিং কৌশলটি সবচেয়ে ভাল কাজ করে তা স্পষ্ট নয়।েতবে টাইপ 2 ডায়াবেটিস রোগীদের একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে অধ্যয়নের অংশগ্রহণকারীরা যারা দুপুর থেকে রাত ৮ টার মধ্যে খাবার খাওয়া শেষ করেছে তারা, যারা ক্যালোরি গণনা করে তাদের সামগ্রিক ক্যালোরি গ্রহণ কমিয়েছেন তাদের .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top