ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো ও বিশ্ব মঞ্চে ভারতের লোকনৃত্য

পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো ও ছৌনৃত্য দল

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতোঃ আমাদের চারিদিকে বিশ্ব দ্রুত বিকশিত হচ্ছে,পরিবর্তিত হচ্ছে শিল্প সাধনার প্রকৃতি। এই পরিবর্তিত শিল্প সাধনার যুগে আমাদের সেই সমস্ত ব্যক্তিদের স্বীকৃতি দেওয়া এবং সম্মান করা অপরিহার্য যারা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও প্রচারে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। এমনই একজন উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব হলেন ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো নেপাল মাহাতো, যার ছৌনৃত্যের জগতে  দেশে ও বিদেশে অতুলনীয় অবদান তাকে ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান ‘পদ্মশ্রী´এনে দিয়েছে।

পদ্মশ্রী নেপাল মাহতোর জন্ম ১৭ জুন ১৯৫৪ সালে পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলার বরাবাজার থানার আদাবনা নামে একটি ছোট গ্রামে। তার পিতা স্বর্গীয় নগেন্দ্রনাথ মাহাতো ও মাতা তুষ্ট মাহাতো। তিনি তাদের পঞ্চম সন্তান ছিলেন । জমিদার পরিবারে জন্ম গ্রহণ করলেও তিনি তাঁর পারিবারিক পেশার বাইরে সঙ্গীত চর্চাতে বেশী আগ্রহী ছিলেন।তিনি অল্প বয়সে তার কাকার থেকে সঙ্গীত চর্চার প্রথম অনুপ্রেরনা পান সেই সময় তিনি ঝুমুর গান করতেন।এরপর তিনি ছৌ সম্রাট পদ্মশ্রী গম্ভীর সিংমুড়ার কাছ থেকে ছৌনৃত্যের প্রশিক্ষণ নেন।

পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো

নেপাল মাহাতো প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন আদাবনা গ্রামে,এরপর তিনি কাণ্টাডি উচ্চবিদ্যালয়ে পঞ্চম থেকে দশম শ্রেণী পড়াশুনা করেন।এর মাঝে মাত্র দশ বছর বয়সে তাঁর ছৌনাচে প্রথম হাতে খড়ি হয় ছৌওস্তাদ অনিল মাহাতোর তত্বাবধানে।এরপর তিনি ধীরে ধীরে ছৌ, নাচনী,ঝুমুর এবং বাই নাচের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ান। ছৌনৃত্য অনুশীলনের সময় তিনি  ছৌওস্তাদ অনিল মাহাতোর দলের সাথে বেশ কিছু অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেন এবং একাডেমী পুরস্কার প্রাপ্ত নাচনি শিল্পী সিন্ধুবালা দেবীর সাথে ঝুমুরের বিভিন্ন অনুষ্ঠান করেন।   

পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো

তিনি পড়াশুনার পাশাপাশি যথেষ্ট যত্ন সহকারে ছৌনাচের অনুশীলন করতেন ।১৯৭১-৭২ সালে কান্টাডি উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রিড়া প্রতিযোগিতায় তিনি ঝুমুর পরিবেশন করেন।সেখানে তিনি তাঁর প্রাণবন্ত কন্ঠস্বর এবং হৃদয়গ্রাহী পরিবেশনার মাধ্যমে, শ্রোতাদের বিমোহিত করেন।এরপর বিদ্যালয়ের সম্পাদক অজিত মিত্র, যিনি ছৌ, ঝুমুর ইত্যাদির পৃষ্ঠপোষক ছিলেন, তিনি সেই সময় নেপাল মাহাতোকে প্রশ্ন করেন যে সে আর কি করে? নেপাল মাহাতো অজিত মিত্রকে জানায় সে ছৌনাচও করে। এরপর অজিত মিত্র নেপাল মাহাতোকে তাঁর নিজের ছৌনাচের দল গঠনের জন্য উৎসাহিত করেন।নেপাল মাহাতো সেই সময় নবম শ্রেনীর ছাত্র, তিনি গ্রামের কিছু যুবকদের সঙ্গে নিয়ে তাঁর প্রথম ছৌনাচের দল গঠন করেন এবং শিক্ষা গুরু হিসেবে নিয়ে আসেন চডিদা থেকে পদ্মশ্রী গম্ভীর সিংমুড়াকে। সেখানে একমাস থেকে পুরো দলটিকে গম্ভীর সিংমুড়া প্রশিক্ষণ দেন।

পদ্মশ্রী নেপাল মাহতোর ছৌনাচের দল

সেই সময় থেকেই নেপাল মাহাতোর শৈল্পিক যাত্রা ধীরে ধীরে শুরু হয় বিভিন্ন গ্রামে বিভিন্ন ছোট- বড় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে।১৯৮০ সাল নাগাদ অজিত মিত্রের সহযোগিতায় পূজার সময় কলকাতার ডাইমণ্ড হারবারে একটি অনুষ্ঠান করেন এবং বিপুল জনপ্রিয়তা লাভ করেন। সেই সময় Indian Council for Coultural Relation থেকে কে এস মাথুর নেপাল মাহাতোকে প্রথম ১৯৮২ সালে লন্ডন-এ রয়্যাল ক্লাবে রানী Elizabeth এর সামনে অনুষ্ঠান করার সুযোগ করা দেন। সেখানে রানী Elizabeth তাঁর নৃত্য দক্ষতায় খুশী হয়ে ভারত সরকারকে বলেন তাঁকে ভারতের কোনও বড় সাংস্কৃতিক পুরস্কার দেওয়ার জন্য । রানী Elizabeth এর সুপারিশে ১৯৮৩ সালে তিনি ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান ‘পদ্মশ্রী´পান।

পদ্মশ্রী পুরষ্কার

১৯৮৫ সালে ছোটনাগপুর নৃত্য অনুষ্ঠানে তিনি প্রথম পুরস্কার পান।সেই সময় তিনি দেশের বাইরে বিভিন্ন স্থানে যান অনুষ্ঠান করতে। ১৯৮৬ সালে তিনি ৯০ দিনের জন্য আমেরিকা যান। ১৯৮৭ সালে ৬০ দিনের জন্য সুইডেন যান ,১৯৮৯ সালে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠান করেন। এরপর থাইল্যান্ড ,কানাড়া,লন্ডন এবং ২০১৫ সালে শেষবারের জন্য রাশিয়া যান। ১৯৯৪ সালে তিনি আম্বেদকর স্কলারশিপ পান।

নেপাল মাহাতোকে যা আলাদা করে তা কেবল একজন লোকশিল্পী হিসেবে তার প্রতিভা নয়, ছৌনৃত্য শিক্ষার প্রতি তার আন্তরিকতা বিশেষ উল্লেখযোগ্য।তিনি ২০১৪ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত CCRT এর কোর কমিটির সদস্য ছিলেন। এই কমিটির কাজ ছৌশিল্পের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের স্কলারশিপ প্রদান করা। এছাড়াও তিনি ছৌনাচের একটি স্বীকৃত সার্টিফিকেট কোর্স যা সিধু কানু বিরসা মুন্ডা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হয় তাঁর সিলেবাস তিনি তৈরি করেন।

২০১৯ সালে নেপাল মাহাতোর মৃত্যুর পর তাঁর তৈরি ছৌনৃত্যের দল আদাবনা তরুণ সঙ্ঘ ছৌ ডান্স একাডেমীকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তাঁর দুই পুত্র সুব্রত মাহাতো ও সৌগত মাহাতো।নেপাল মাহাতোর পাশে থেকে যে মানুষটি তাঁকে সারা জীবন সব কাজে উৎসাহ এবং সহযোগিতা করলেন তিনি তাঁর স্ত্রী রানী মাহাতো ।

ছৌনাচের বিশেষ মুহূর্ত

আগামীদিনে ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো’র অবদানগুলি একটি অনুস্মারক হিসাবে কাজ করবে, যে আমাদের ঐতিহ্য এবং রীতিনীতিগুলি অতীতের ধ্বংসাবশেষ নয় বরং জীবন্ত ধন যা লালন এবং উদযাপনের যোগ্য।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


কতো অজানা রে

মৈত্রেয়ী চৌধুরী: ইতিহাস বিষয়ে আলোচনা করতে গেলেই আমাদের মনে যে সব সৌধের প্রসঙ্গ মনে আসে তারমধ্যে পার্লামেন্ট ভবন একটা অবশ্য দ্রষ্টব্য স্থান। বহু পর্যটক এই ভবন দেখতে যান. কিন্তু জানেন কি, এই পার্লামেন্ট ভবনের ডিজাইন কে বানিয়েছিলেন ? 10 জনকে জিজ্ঞেস করলে 9 জনই বলতে পারবেন না। যাঁরা খুব ইতিহাস নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করেন অথবা গুগুল সার্চ করে থাকেন, তাঁরা হয়তো উত্তরটা দিতে পারবেন। পার্লামেন্ট ভবনের ডিজাইন বানিয়েছিলেন বিখ্যাত ব্রিটিশ স্থপতি এডুইন লুটিয়েন। তাঁর সহকারী ছিলেন আরেক ব্রিটিশ স্থপতি হার্বার্ট বেকার। 1927 খ্রিস্টাব্দে এই ভবনটির নির্মাণ সম্পূর্ণ হয় এবং ব্রিটিশ .....বিস্তারিত পড়ুন

মতুয়া আন্দোলনের এক মনোগ্রাহী ভাষ্য

অরবিন্দ পুরকাইত: আপাত বা গভীর কোনও স্তরেই তেমন কিছু তফাৎ পরিলক্ষিত না হলেও, বর্ণবাদী সমাজে একই পাড়ায় একেবারে প্রায় পাশাপাশি কেবল বিশেষ বিশেষ ঘরে জন্মানোর নিমিত্ত - শিক্ষাদীক্ষা পরের কথা – ভূমিষ্ঠ হওয়া থেকেই আজীবন একজন শ্রদ্ধা-ভক্তি-প্রণাম পাওয়ার অদৃশ্য শংসাপত্রের অধিকারী আর অন্যজনের সেবা-শ্রদ্ধা-ভক্তির অদৃশ্য দাসখতের দায়বদ্ধতা! কেন-না সৃষ্টিলগ্নেই একজন প্রজাপতি ব্রহ্মার মুখনিসৃত আর অন্যজন পদজ যে! সুতরাং মুখ থাকবে সবার উপরে, সবার নিচে পা – এতে অস্বাভাবিকতা বা আশ্চর্যের তো কিছু নেই! কিন্তু কেবল সেবা-শ্রদ্ধাতেই সব মিটে .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top