পোল্ট্রি শিল্পে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে চলেছে নতুন জিন প্রযুক্তি

পোল্ট্রি শিল্পে-র ছবি সৌজন্যে- উত্তরাপথ

উত্তরাপথ – পোল্ট্রি শিল্পে পুরুষ ছানা মারার অভ্যাস দীর্ঘকাল ধরে নৈতিক উদ্বেগের বিষয়।পরিসংখ্যানে প্রকাশ প্রতি বছর পোলট্রিগুলিতে ৭ বিলিয়ন পুরুষ ছানাকে হত্যা করা হয়।কারণ পুরুষ ছানারা ডিম দিতে পারে না সেই সাথে তারা  মাংসের জন্যও উপযুক্ত না হওয়ার কারণে,তারা অর্থনৈতিকভাবে অলাভজনক বলে বিবেচিত হয় । সেই কারণে ডিম ফোটার পরপরই তাদের euthanized করা হয়।এবার এই সমস্যা সমাধানে মধ্য ইস্রায়েলের Yuval Cinnamon এর গবেষণাগারে এক নতুন প্রযুক্তি আবিষ্কার করা হয় যার দ্বারা সমস্ত ছানাই মহিলা হবে।এক্ষেত্রে পুরুষ ছানাগুলিকে সম্পূর্ণভাবে ডিম থেকে বেরোনোর আগেই তাদের বাঁধা দেওয়া হবে। এই নতুন প্রযুক্তির আবিষ্কার মুর্গীর পুরুষ ছানাগুলিকে প্রায়শই ম্যাসারেশন বা গ্যাসিং পদ্ধতির মাধ্যমে হত্যা করার মত অমানবিক কাজ বন্ধ করতে সাহায্য করবে।

Cinnamon বলেছেন যে তার দল একটি যৌন-সংযুক্ত জেনেটিক বৈশিষ্ট্য তৈরি করেছে যা ডিম পাড়ার পরপরই পুরুষ ভ্রূণের বিকাশ বন্ধ করে দেবে।এই পদ্ধতিতে  নীল আলো ব্যবহার করে প্রথমে পুরুষ ডিম গুলিকে সনাক্ত করা হয় তারপর পুরুষ ডিমগুলির বিকাশ বন্ধ করে দেওয়া হয়।

 এই নতুন প্রযুক্তির বিকাশ পুরুষ মুরগির ছানা মারার সমস্যা সমাধানের জন্য নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করেছে। এই নতুন জিন প্রযুক্তিতে গবেষকরা সফলভাবে একটি ভ্রূণ বের হওয়ার আগে তার লিঙ্গ শনাক্ত করার জন্য একটি পদ্ধতি তৈরি করেছেন। “ইন-ওভো সেক্সিং” নামে পরিচিত এই কৌশলটি পুরুষ ছানাদের জন্মাতে বাধা দিয়ে একটি মানবিক বিকল্প আমাদের সামনে তুলে ধরেছে।  

ইন-ওভো সেক্সিং পদ্ধতিতে পুরুষ ও মহিলা ভ্রূণের মধ্যে পার্থক্য করার জন্য জেনেটিক মার্কার বা জিন সম্পাদনা কৌশল ব্যবহার করা হয়।এর মাধ্যমে প্রাথমিক পর্যায়ে ভ্রূণের লিঙ্গ শনাক্ত করার মাধ্যমে, শুধুমাত্র মহিলা ভ্রূণগুলিকে আরও ইনকিউব করা হয়, এবং পুরুষ ভ্রূণগুলিকে নির্মূল করা হয়। এই প্রক্রিয়াটিতে কোনও রাসায়নিক বা চিকিৎসার কোনও পদ্ধতির প্রয়োগ হয় না, তাই ভ্রূণের ক্ষতির সম্ভাবনা খুব ন্যূনতম  হয়।

 পুরুষ মুরগির হ্যাচিং রোধে জিন প্রযুক্তির ব্যবহার পুরুষ ছানা মুর্গীর অমানবিক হত্যাকে কেন্দ্র করে তৈরি হওয়া উদ্বেগ দূর করে ।সেইসাথে পুরুষ মুরগির হ্যাচিং বাদ দিয়ে, পোল্ট্রি শিল্প কেন্দ্রগুলিতে কেবলমাত্র স্ত্রী ভ্রূণগুলিকে ইনকিউব করার উপর সংস্থানগুলি ফোকাস করতে পারে, যেগুলি ডিম উৎপাদনের জন্য অর্থনৈতিকভাবে কার্যকর। এই অপ্টিমাইজেশন শিল্পে সামগ্রিক দক্ষতা এবং উৎপাদনীলতা উন্নত করে।

নতুন জন্ম নেওয়া পুরুষ ছানার সংখ্যা হ্রাস করাও ইতিবাচক পরিবেশগত প্রভাব ফেলতে পারে। এটি খাদ্য এবং জলের মতো সম্পদের উপর চাপ কমায় এবং পোল্ট্রি উৎপাদনের সাথে যুক্ত কার্বন পদচিহ্ন হ্রাস করে।

যদিও জিন প্রযুক্তি পুরুষ মুরগি মারার সমস্যার সমাধানের একটি রাস্তা দেখায়, কিছু এই পদ্ধতি গ্রহণের ক্ষেত্রেও কিছু সমস্যা রয়েছে।

পোল্ট্রি শিল্পে ইন-ওভো সেক্সিং কৌশলগুলি ব্যাপকভাবে গ্রহণের জন্য গবেষণা, সরঞ্জাম এবং প্রশিক্ষণে বিনিয়োগের প্রয়োজন। ক্ষুদ্র আকারের কৃষক এবং উন্নয়নশীল দেশগুলির জন্য তা কনেক ক্ষেত্রেই সহজ লভ্য নয় ,তাই এই প্রযুক্তির সুফল পেতে হলে সবার আগে দরকার এই প্রযুক্তির সহজল্ভ্যতা এবং সেই সাথে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা নিশ্চিত করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এই নতুন প্রযুক্তির দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবগুলি অবশ্যই আমাদের পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে অধ্যয়ন এবং নিয়ন্ত্রিত করতে হবে যাতে ভোক্তাদের আস্থা নিশ্চিত করা যায় এবং সম্ভাব্য ঝুঁকিগুলি হ্রাস করা যায়৷

 পোল্ট্রি শিল্পে পুরুষ ছানা উৎপাদন রোধ করতে জিন প্রযুক্তির ব্যবহার পোল্ট্রি শিল্পে একটি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সন্দেহ নাই। এই উদ্ভাবনী পদ্ধতিটি পুরুষ মুরগি মারার দীর্ঘস্থায়ী নৈতিক দ্বিধা-দ্বন্দ্বের একটি মানবিক এবং দীর্ঘস্থায়ী সমাধান প্রদান করে।সেইসাথে পুরুষ ছানাদেরকে অপ্রয়োজনীয় কষ্ট থেকে বাঁচিয়ে পোল্ট্রি শিল্পের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়া জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা রাখে

উত্তরাপথ: লরেন্স বার্কলে ন্যাশনাল ল্যাবরেটরি এবং ইউসি বার্কলে এর সহযোগিতামূলক গবেষণায় গবেষকরা একটি অভিনব ব্যাকটেরিয়া ইঞ্জিনিয়ারড করেছেন যা জ্বালানি, ওষুধ এবং রাসায়নিক উত্পাদনের সময় উত্পন্ন গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে ডিকার্বনাইজশন এর মাধ্যমে। সম্প্রতি Nature জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই আবিষ্কারটি । আর এটি "Carbene Transfer Chemistry in Biosynthesis" নামে পরিচিত । একটি অভিনব প্রতিক্রিয়ার সাথে প্রাকৃতিক এনজাইমেটিক বিক্রিয়াকে সংহত করতে ব্যাকটেরিয়াকে কাজে লাগায়। আর যা সাধারণত জীবাশ্ম .....বিস্তারিত পড়ুন

রাষ্ট্রীয় নৈশভোজে ২২ জুন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাবেন মোদী

উত্তরাপথ: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আগামী মাসের ২২ তারিখে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছেন একটি রাষ্ট্রীয় নৈশভোজে যোগ দিতে।এই নৈশভোজে মোদীকে রাষ্ট্রপতি জো বিডেন এবং ফার্স্ট লেডি জিল বিডেন আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।এই সফরে মূলত দ্বিপাক্ষিক কৌশলগত সম্পর্কের ক্রমবর্ধমান গুরুত্বের উপর জোর দেওয়া হবে এবং একটি মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।   MEA বলেছে যে মোদী এবং বিডেন G20 সহ প্লুরি-পার্শ্বিক এবং বহুপাক্ষিক ফোরামে ভারত-মার্কিন সহযোগিতা জোরদার করার উপায়গুলিও .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top