পৌরাণিক গল্প: দর্শন মাত্রই উপেক্ষা করা উচিত নয় ………

মৈত্রেয়ী চৌধুরী

প্রাচীন কালে গাধি নামে এক রাজা ছিলেন। তাঁর একমাত্র কন্যা ছিলেন সত্যবতী।  সত্যবতীর সৌন্দর্যের চর্চা সর্বত্র প্রচলিত ছিল।সত্যবতী নিষ্ঠা সহকারে দেবতাদের পুজা করতেন। প্রত্যেকদিন ফুল তোলার জন্য সখীদের সঙ্গে অরণ্যে গমন করতেন। একদিন সখীদের সাথে অরণ্যে সত্যবতীকে ঋচিক নামে কোনোএক ভৃগু কুলের মুনি প্রথম তাকে দেখলেন। তাঁর সৌন্দর্য মুনিকে এতোটাই আকৃষ্ট করলো যে ঋচিক মুনি স্বয়ং রাজা গাধির নিকট  রাজকন্যা সত্যবতীর সঙ্গে পরিণয় বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন। মুনির এই  কথায় রাজা বিস্মিত । মুনিকে কন্যা দানে রাজা অনিচ্ছুক।

 তিনি চিন্তা করলেন— ইনি মুনি, অরণ্যবাসী। রাজকন্যা আমার সন্তান, সে কিভাবে অরণ্যে এই মুনির সাথে জীবন অতিবাহিত করবে? কিন্তু মুনির এই প্রার্থনা সরাসরি তিরস্কার করাও সম্ভব নয়।  বাইরে থেকে দেখে মুনিকে অত্যন্ত সাধারণ বলেই মনে হচ্ছে। অতএব এমন এক কার্য করার কথা বলা যাক,যা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়।

এইভাবে রাজা মুনিকে বললেন—- আমাদের কুশ বংশে একটি বিশিষ্ট বরপরীক্ষা রীতি প্রচলিত আছে। যে একসাথে কৃষ্ণকর্ণ বিশিষ্ট এক হাজার ঘোরা এনে দিতে পারবে ন, একমাত্র তাঁর সাথে ই আমি কন্যার বিয়ে দিতে পারবো।

মুনি রাজার ইচ্ছে বুঝতে পারলেন। তিনি বরুণদেবকে প্রসন্ন করার  জন্য কঠোর তপস্যায় রত হলেন। তপস্যায় সন্তুষ্ট বরুণদেব ঋচীকের সম্মুখীন হলেন।

ঋচীক মুনি পুরুস্কার স্বরূপ এক হাজার কৃষ্ণকর্ণ বিশিষ্ট ঘোড়া প্রার্থনা করলেন।বরুণদেব তাই দান করলেন।  মুনি অশ্বগুলো সহ রাজার নিকট উপস্থিত হলেন। রাজা নিজ বচনে আবদ্ধ হয়ে বাধ্য হলেন  মুনির সাথে নিজ পুত্রীর যথাযোগ্য নিয়ম পূর্বক বিবাহ কার্য সম্পন্ন করতে।

রাজপ্রাসাদে পালিতা কন্যা আশ্রমে কিভাবে থাকবে? রাজা সে কথা ভেবে ব্যাকুল হলে মুনি বলেন, স্বামীর স্থান কন্যার শ্রেষ্ঠ স্থান। রাজা আপনি চিন্তা করবেন না, আপনার সন্তানের কোনো অসুবিধা হবে না।ল খুলছে বৃহস্পতিবার, পঞ্চায়েত ভোটে সহযোগিতার জন্য প্রধানশিক্ষকদের চিঠি

গরমের ছুটি শেষ। বৃহস্পতিবার খুলে যাচ্ছে রাজ্যের সব সরকারি স্কুল। স্কুল খোলার আগে জেলা শিক্ষা আধিকারিক (ডিআই)-দের পাঠানো বিজ্ঞপ্তির একটি অংশ নিয়ে আপত্তি তুলেছে বিভিন্ন তৃণমূল বিরোধী শিক্ষক সংগঠন। বিজ্ঞপ্তির ওই অংশে প্রধানশিক্ষকদের অনুরোধ করা হয়েছে পঞ্চায়েত ভোটে সহযোগিতা করার জন্য। সরকারপন্থী শিক্ষক সংগঠন অবশ্য এতে আপত্তির কিছু দেখছে না।

২ মে থেকে শুরু হয়েছিল গরমের ছুটি। গত সপ্তাহে স্কুল খোলার বিজ্ঞপ্তি জারি করে রাজ্য শিক্ষা দফতর। খোলার আগে স্কুলকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে রাখা, মিড ডে মিল পরিষেবা চালুর প্রস্তুতি-সহ বিভিন্ন নির্দেশ বা পরামর্শ ছিল সেই বিজ্ঞপ্তিতে। সেই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর পরই রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোট ঘোষণা হয়। তার পর, জেলা শিক্ষা আধিকারিকদের দফতর থেকে আর একটি নির্দেশমালা পাঠানো হয় স্কুলের প্রধানশিক্ষকদের। সেখানে স্কুল খোলা সংক্রান্ত একগুচ্ছ নির্দেশের শেষে, প্রধানশিক্ষকদের অনুরোধ করা হয়েছে ২০২৩ সালের পঞ্চায়েত ভোটের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সহযোগিতা করতে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


বেতন, মাসে ৩০,০০০ আর সম্পত্তির মালিকানা ৭ কোটির বেশী

উত্তরাপথ: এ এক দুর্নীতির অনন্য নজির যা পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিবিদদের দুর্নীতি কে লজ্জায় ফেলবে । দুর্নীতির এই অভিযোগটি উঠেছে মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ হেমা মীনার বিরুদ্ধে।মধ্যপ্রদেশের সরকারি কর্মকর্তা দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের পর হেমা মীনা প্রচার মাধ্যমের নজরে আসে । এখন প্রশ্ন কে এই হেমা মীনা ? মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের চুক্তির ভিত্তিতে নিয়োজিত সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ যিনি মাসে ৩০,০০০ টাকা আয় করেন । দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে তার বাড়ি থেকে সাতটি বিলাসবহুল গাড়ি, ২০,০০০ বর্গফুট .....বিস্তারিত পড়ুন

পশ্চিমবঙ্গে 'দ্য কেরালা স্টোরি'সিনেমাটির ভাগ্য সুপ্রিম কোর্টের হাতে

উত্তরাপথ: 'দ্য কেরালা স্টোরি' সিনেমাটি পশ্চিমবঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ায় সিনেমাটির সিনেমার নির্মাতারা বাংলার নিষেধাজ্ঞাকে সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন। তাদের দাবী ছিল নিষেধাজ্ঞার ফলে প্রতিদিন তাদের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে । নির্মাতাদের আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্ট আজ 'দ্য কেরালা স্টোরি' সিনেমাটি পশ্চিমবঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ার পিছনে যুক্তি জানতে চেয়েছে । প্রধান বিচারপতির একটি বেঞ্চ পর্যবেক্ষণ করেছে, যখন এটি কোনও সমস্যা ছাড়াই সারা দেশে চলছে।পশ্চিমবঙ্গের সিনেমাটি কেন নিষিদ্ধ করা উচিত? এটি একই রকম জনসংখ্যার সংমিশ্রণ রয়েছে এম .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top