আমন্ত্রণপত্রে, বর ও কনের নামের সাথে আইআইটি লেখায় বিতর্ক সোশ্যাল মাধ্যমে  

উত্তরাপথঃ বিবাহের সময়, অভিনব এবং ডিজাইনার আমন্ত্রণ কার্ডগুলি সর্বদা সকলের আলোচনায় পরিণত হয়। কিছু আমন্ত্রণ পত্র বিলাসবহুল চকোলেটের সাথে কাস্টমাইজ করে বানানো হয়,আবার কোনও কোনও ক্ষেত্রে পরিবেশের কথা মাথায় রেখে বায়োডিগ্রেডেবল কার্ডের সাথে  উপহার হিসাবে গাছ দেওয়া হয়।  সম্প্রতি, একটি পুরাতন বিবাহের আমন্ত্রণপত্র ইন্টারনেটে ভাইরাল হচ্ছে যা বর এবং কনের শিক্ষাগত যোগ্যতা গুলিকে হাইলাইট করে বানানো হয়েছে । অর্থাৎ কার্ডে বর ও কনের নামের সাথে তাদের পড়াশোনার ডিগ্রিকেও যুক্ত করা হয়েছে।

 ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা আমন্ত্রণপত্রে, বরের নাম এর পাশে আইআইটি বোম্বে-এর নাম যুক্ত দেখানো হয়েছে, অন্যদিকে কনের নামের সাথে আইআইটি দিল্লির নাম যুক্ত দেখানো হয়েছে।

 বিয়ের আমন্ত্রণটি মহেশ নামে এক ব্যক্তি শেয়ার করেছেন। তিনি পোস্টটির ক্যাপশন দিয়েছেন, “বিয়ে করার জন্য আপনার যা দরকার তা হল প্রেম।” শেয়ার করার পর থেকে, কার্ডটি ৫৩ হাজার বার দেখা হয়েছে এবং ৪০০ টিরও বেশি লাইক পেয়েছে।

 একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, “আমন্ত্রণে তার পজিশন, বেতন, লিঙ্কডিন প্রোফাইল উল্লেখ না করায় তিনি হতাশ”।

আর একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, কয়েক দশক আগে, যখন ডিগ্রি পাওয়া কঠিন ছিল, তখন কার্ডে বিএসসি, বিকম-এর মতো ডিগ্রির উল্লেখ করা একটি বড় বিষয় বলে মনে করা হত।

 অন্য একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, “আমি সেখানে ছিলাম, এটিতে কাজু কাটলি, বিয়ের পিঠা এমনকি চাট সম্পর্কেও লেখা ছিল।“

তবে এই মজার প্রতিক্রিয়াগুলি সম্পর্কে লোকেদের একটি জিনিস মনে রাখা উচিত যে এই বর ও কনের নামের সাথে তাদের ডিগ্রি যোগকরার এই প্রবণতাগুলি প্রায়শই একটি বিবাহকে স্মরণীয় করে তোলা এবং লোকেদের মনে হাসি ফোটাতে বোঝানো হয়৷ আনন্দ এবং উত্তেজনার একটি উপলক্ষ হল বিয়েএই কার্ড শিক্ষা সম্পর্কে সচেতনতা তৈরির এক চেষ্টা বলেও কারও কারওমত ।তাদের মতে এই কার্ডটি চিরাচরিত জাতিগত ও বর্ণগত কাঠামো যা ভারতের মত এতিহ্যবাহী দেশে প্রধান ভূমিকা পালন করত বর্তমানে এই কার্ডটি জাতি ও ধর্মের উপরে উঠে শুধুমাত্র যোগ্যতার ভিত্তিতে এক নতুন সমাজ গঠনের ইঙ্গিত বাহী।  

আবার এক বড় অংশের লোক বলছেন,জীবনসঙ্গী বাছাই করার সময় শিক্ষা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিবেচনা করা হলেও, এটি একমাত্র প্যারামিটার হওয়া উচিত নয়। যদিও শিক্ষা একজন ব্যক্তির বুদ্ধিবৃত্তিক ক্ষমতা নির্দেশ করতে পারে । তবে এটি তাদের চরিত্র, মূল্যবোধ বা মানসিক মিলন তৈরি করতে পারে না।

বিবাহ একটি আজীবন এক সাথে চলার প্রতিশ্রুতি যা মানসিক, সামাজিক এবং ব্যক্তিগত সামঞ্জস্যের সাথে জড়িত। এর জন্য প্রয়োজন মূল্যবোধ, লক্ষ্য এবং পারস্পরিক শ্রদ্ধা। যদিও শিক্ষা এই কারণগুলিতে অবদান রাখতে পারে, তবে এটি জীবনসঙ্গী হিসাবে একজন ব্যক্তির উপযুক্ততার একমাত্র পরিমাপ নয়। তবে আশা করা যায় এই একটি বিয়ের কার্ড নিয়ে বিতর্ক সামাজিক মাধ্যম আরও দীর্ঘ চলবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Side effects of vitamin: ভিটামিনের আধিক্য আপনার জন্য ক্ষতিকর হতে পারে

উত্তরাপথঃ ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা আমরা সবাই নিশ্চয়ই ছোটবেলা থেকে শুনে আসছি যে সুস্থ থাকতে হলে শরীরে প্রয়োজনীয় সব ভিটামিন থাকা খুবই জরুরি।  ভিটামিন আমাদের সুস্থ করার পাশাপাশি আমাদের সমগ্র শরীরের বিকাশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  যাইহোক, এটি অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া আমাদের জন্য ক্ষতিকারকও হতে পারে।  আসুন জেনে নিই অতিরিক্ত ভিটামিন গ্রহণের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া (Side effects of vitamin)সুস্থ থাকার জন্য শরীরে সব ধরনের পুষ্টি থাকা খুবই জরুরি।  এ কারণেই বয়স্ক থেকে শুরু করে চিকিৎসক, সবাই আমাদেরকে সুষম ও পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন।  সমস্ত পুষ্টি উপাদান আমাদের শরীরকে বিভিন্ন উপায়ে সুস্থ করে তোলে।  এর মধ্যে ভিটামিন একটি, যা আমাদের সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। .....বিস্তারিত পড়ুন

দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

রাতের ঘামের সমস্যা এবং এ সম্পর্কে আপনি কি করতে পারেন  

উত্তরাপথঃ রাতের ঘামের সমস্যা শরীরের কুলিং সিস্টেমের একটি স্বাভাবিক অংশ, তাপ মুক্তি এবং সর্বোত্তম শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে।তবে রাতের ঘাম একটি সাধারণ সমস্যা যা বিভিন্ন কারণে হতে পারে।এর  অস্বস্তিকর অনুভূতির জন্য ঘুম ব্যাহত হতে পারে, যার ফলে ক্লান্তি এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। আপনি যদি রাতে অতিরিক্ত ঘাম অনুভব করেন, তাহলে তার অন্তর্নিহিত কারণটি চিহ্নিত করা এবং এটি মোকাবেলার জন্য কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এখানে রাতের ঘামের কিছু সম্ভাব্য কারণ নিয়ে আলোচনা করা হল।মেনোপজ: যে কেউ, বয়স বা লিঙ্গ নির্বিশেষে, রাতের ঘাম অনুভব করতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

প্রাপ্তবয়স্কদের স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস সমস্যার সমাধানের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিক

উত্তরাপথঃ সারা বিশ্বের জনসংখ্যার বয়স বৃদ্ধির সাথে স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস এবং ডিমেনশিয়ার মতো নিউরোডিজেনারেটিভ রোগের প্রকোপ বাড়ছে৷ তাদের এই  সমস্যাগুলি যে কেবল তাদের একার সমস্যা তা নয় ,এটি ধীরে ধীরে পুরো পারিবারিক সমস্যার আকার নেয়।সম্প্রতি বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে পুনরুদ্ধার করার জন্য গবেষকদের মধ্যে কার্যকর কৌশল খোঁজার আগ্রহ বাড়ছে।বর্তমানে বেশীরভাগ গবেষক মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের সম্ভাব্য ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । এখন খুব স্বাভাবিকভাবেই একটি প্রশ্ন আসে প্রোবায়োটিক কি? কেনই বা গবেষকরা মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top