বসন্তবাতাসে

ছবি সৌজন্য – অসীম পাঠক

অসীম পাঠকঃ মন খারাপের এক অলস বসন্ত সন্ধ্যায় শরীর খারাপের বাহানা দিয়ে অফিস ছুটি করে ফ্ল্যাট বন্দী আমি, মনের গহন গভীরে ফেলে আসা কোন এক নির্জন সন্ধ্যার ছবি। অফিস থেকে একটা কনফারেন্স এটেন্ড করার জন্য আমাকে রূপসার সাথে রাঁচী যেতে হয়েছিলো। ঝাড়খণ্ডের রাঁচী কৃষি বিশ্ব বিদ্যালয়ে কৃষি বিপননের উপর আমাদের প্রোজেক্ট কতটা কার্যকরী সেই আলোচনা শেষ করে ফেরার পথে গাড়িতে বসে রূপসা বললো , ” কিছু সাইড সিন দেখালি না, তুই বড্ডো কাজ পাগলা হয়ে যাচ্ছিস”। গুগল সার্চে পেলাম ফেরার রাস্তায় জোনহা ফলস, আদিবাসী গ্রাম ঘেরা দলমা পাহাড়ের কোল ঘেঁষে প্রকৃতির নিজস্ব ছন্দে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে জোনহা ফলস। এক অপরূপ মৌন প্রশান্তিতে ছেয়ে আছে আরন্যক নির্জনতা। শীত শেষের শেষ বেলার সূর্য যেনো মায়াবী আলোয় ভরিয়ে দিয়েছে সবুজ বনাঞ্চল।

মনের আকাশ জুড়ে রিমঝিম বৃষ্টি আর ভালোবাসার রামধনু। আমার হাতে রূপসার হাত। আমাকে ধরে সিঁড়ি বেয়ে নীচে নামলো, পাথরের চাঁই এর উপর বসে বিদায়ী সূর্যের অস্তরাগের নীচে সেলফি নিলো রূপসা আমাকে জড়িয়ে। সেটা কি বন্ধুত্বর উষ্ণতা মেশানো জড়ানো … আমি যেনো মন্ত্রমুগ্ধের মতো সম্মোহিত। বলতে গিয়েও বলতে পারিণি, এভাবেই কেটে যাক না কত সহস্র বছর। সময়ের দিনলিপিতে আটকে থাক এই না বলা কথার মুহূর্ত। বলতে পারিণি , তোর গায়ের মিষ্টি গন্ধটা ভীষণ ভালো লাগে রূপসা। সেই সুন্দর স্বর্ণালী সন্ধ্যায় বলা হয়ে ওঠেনি , তোকে ভালোবাসি , তোকে ছাড়া আর কাওকেই ভালো লাগে না। হঠাৎই এলোমেলো ভাবনায় ছন্দ পতন। কলিং বেলের শব্দে দরজা খুলে দেখি সহকর্মী শুধু নয় কলেজের বান্ধবী রূপসা। রূপসা প্রায়ই আসে ,আমিও যাই ওদের বাড়ি। বন্ধুত্বটা মন্দ নয়, সেই সাথে একটা অদ্ভুত ভালোলাগা মিশে আছে। সেটা ভালোবাসা কিনা জানিনা। তবে রূপসা র সান্নিধ্য আমাকে ব্যাকুল করে। আর রূপসার ও কি তাই হয় ? অলস মনের ভাবনায় ভাসে কোনো এক নির্জন সন্ধ্যায় অফিস থেকে ফেরার পথে বলি,”ভালো লাগে তোর কথা শুনতে, ভালো লাগে তোর কথা ভাবতে, তোকে দেখতে, ভালোলাগে তোকে ভালোবাসি, কিন্তু বলা আর হয়ে ওঠে না। তো রূপসার আগমনে খুশী হয়ে বলি -“, কি খাবি বল ফুচকা এগরোল মোগলাই চিকেন চাওমিন ” যতগুলো ফাস্ট ফুডের নাম জানি এক নাগাড়ে বলে যাই। রূপসা ধমকে বলে ” কিছু না , ঝালমুড়ি “। আমি একটু খুশী ই হই , আমি নিজে বানাবো। ক্রেডিটটা ওই ফাস্ট ফুড বালা পাবে না। আমার ফ্রিজে টম্যাটো শশা কাঁচালঙ্কা পেঁয়াজ ছোলা ধনেপাতা সব ই রয়েছে। চানাচুরের প্যাকেট টা দেখেনি, ঠিক ই আছে ,হয়ে যাবে। এই রে সবই আছে মুড়ি টাই নেই। রূপসা কে বসতে বলে মুড়ি আনতে বেরোই। “আজ অফিস যাসনি কি হয়েছে রে?” হঠাৎই রূপসার জিজ্ঞাসা । আমি বলি” ঝালমুড়ি খেতে খেতে বলবো”। মুড়ির প্যাকেট আনতে আনতে ভাবি কি গল্প বানাবো, এসে দেখি রূপসা সব কেটে রেডি করেছে। আমি চা বানাতে ব্যাস্ত হয়ে পড়ি। রূপসা বলে তোর চা বানানো আর মিথ্যা গল্প বানানো এক ই ব্যাপার। রূপসা যে কি করে সব বোঝে বুঝি না। মেয়েদের কি পঞ্চেন্দ্রিয় বেশী সজাগ? ছেলেদের যেমন ষড়ঋপু। বসন্ত সন্ধ্যায় মন্দ নয় গরম চা এর সাথে ঝাল মুড়ি আর চোখের সামনে তরতাজা সুন্দরী মেয়ে। হঠাৎই কালো মেঘে ছেয়ে যায় চারদিক। আকাশ ঘিরে অঝোর ধারায় বৃষ্টি নামে। মেঘের গর্জন আর অকাল বর্ষনে নাজেহাল ব্যস্ত জনপদ ।আমরা দুজনেই যেনো ঘসা কাঁচের ভেতরে বৃষ্টি ভেজা পৃথিবী। বৃষ্টি কখন থেমেছিলো মনে নেই। কেননা ইঁট কাঠ কংক্রিটের শহর গলি থেকে রাজপথ সব ভিজেছিলো বসন্তের অকাল বর্ষনে ,আর আমি বসন্ত বাতাসে ভিজেছিলাম রূপসা তে। যখন বৃষ্টি থামে তখন নেই কোন আভরণ , আমরা একজন আর একজনকে গভীর ভাবে জড়িয়ে আদিমতার অন্ধকারে মগ্ন। বসন্ত বাতাসে ভালোবাসার সফেন সমুদ্রে নম্র অবগাহনে ব্যাস্ত মনি মুক্তা কুড়িয়ে নিতে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

Fructose: নতুন গবেষণায় ফ্রুক্টোজকে স্থূলতার কারণ বলা হয়েছে

উত্তরাপথঃ একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় জোরালো প্রমাণ দেওয়া হয়েছে যে ফ্রুক্টোজ (Fructose), সাধারণত প্রক্রিয়াজাত খাবার এবং পানীয়গুলিতে থাকা এক ধরনের চিনি, যা স্থূলতার প্রাথমিক চালক। বছরের পর বছর ধরে, পুষ্টি বিশেষজ্ঞরা , পাশ্চাত্য খাদ্যে, স্থূলতার মূল কারণ নিয়ে বিতর্ক করেছেন, কেউ কেউ অত্যধিক ক্যালোরি গ্রহণের দিকে ইঙ্গিত করেছেন, অন্যরা কার্বোহাইড্রেট বা চর্বি জাতীয় খাবারকে দায়ী করেছেন। Obesity জার্নালে সাম্প্রতিক একটি গবেষণাপত্রে ফ্রুক্টোজকে স্থূলতার প্রকৃত চালক হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে।The University of Colorado Anschutz Medical Campus এর Dr. Richard Johnson এবং তার দলের মতে, ফ্রুক্টোজ হল একটি সাধারণ চিনি যা ফল এবং মধুর প্রাথমিক পুষ্টি। .....বিস্তারিত পড়ুন

সেলফির উচ্চ রেটিং কি আপনাকে আরওপাতলা হতে উৎসাহিত করছে ?

উত্তরাপথঃ সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে সেলফি তোলা এবং নিজেকে পাতলা হিসাবে দেখানোর মধ্যে একটি সম্পর্ক থাকতে পারে। যুক্তরাজ্যের ইয়র্ক সেন্ট জন ইউনিভার্সিটির রুথ নাইট এবং ইউনিভার্সিটি অফ ইয়র্কের ক্যাথরিন প্রেস্টন সম্প্রতি PLOS ONE জার্নালে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছেন।সেখানে সেলফির উচ্চ রেটিং এবং আমাদের শরীরের গঠনের মধ্যে যোগসূত্র খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে।    বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়ায় সেলফি হল এক জনপ্রিয় ছবি দেওয়ার ধরন। যিনি সেলফি তোলেন তিনি ক্যামেরাকে তাদের শরীর থেকে দূরে রেখে নিজেই নিজের ছবি তোলে। আগের গবেষণায় বলা হয়েছে সেলফিগুলি দেখার ফলে ছবির বিষয়গুলি সম্পর্কে দর্শকদের সিদ্ধান্ত প্রভাবিত হতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Bandna Festival: ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল পাঁচ দিন বাঁদনার আমেজে মশগুল থাকে

বলরাম মাহাতোঃ চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী কার্তিক অমাবস্যার আগের দিন থেকে মোট পাঁচ দিন ব্যাপী বাঁদনার(Bandna Festival) আমেজে মশগুল থাকে ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। অবশ্য, পরবের শুভ সূচনা হয় তারও কয়েকদিন আগে। আদিবাসী সম্প্রদায়ের সামাজিক শাসন ব্যবস্থার চূড়ামণি হিসাবে গাঁয়ের মাহাতো, লায়া, দেহরি কিম্বা বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি নির্ধারণ করেন- ৩, ৫, ৭ বা ৯ ক’দিন ধরে গবাদি পশুর শিং-এ তেল মাখাবে গৃহস্বামী! রুখামাটির দেশের লোকেরা কোনোকালেই মাছের তেলে মাছ ভাজা তত্ত্বের অনুসারী নয়। তাই তারা গোরুর শিং-এ অন্য তেলের পরিবর্তে কচড়া তেল মাখানোয় বিশ্বাসী। কারণ কচড়া তেল প্রস্তুত করতে গোধনকে খাটাতে হয় না যে! কচড়া তেলের অপ্রতুলতার কারণে বর্তমানে সরষের তেল ব্যবহৃত হলেও, কচড়া তেলের ধারণাটি যে কৃষিজীবী মানুষের গবাদি পশুর প্রতি প্রেমের দ্যোতক, তা বলাই বাহুল্য! এভাবেই রাঢ বঙ্গে গোবর নিকানো উঠোনে হাজির হয়- ঘাওয়া, অমাবস্যা, গরইয়া, বুঢ়ি বাঁদনা ও গুঁড়ি বাঁদনার উৎসবমুখর দিনগুলি। পঞ্চদিবসে তেল দেওয়া, গঠ পূজা, কাঁচি দুয়ারি, জাগান, গহাইল পূজা, চুমান, চউক পুরা, নিমছান, গোরু খুঁটা, কাঁটা কাঢ়া প্রভৃতি ১১টি প্রধান পর্ব সহ মোট ১৬টি লোকাচারের মাধ্যমে উদযাপিত হয় বাঁদনা পরব(Bandna Festival )। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top