চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট বায়ুদূষণে প্রায় ১২ বছর আয়ু কমছে দিল্লির বাসিন্দাদের

উত্তরাপথঃ বহুদিন ধরেই বায়ুদূষণে জেরবার ভারতের রাজধানী শহর দিল্লি। গত কয়েক দশকে বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরগুলির তালিকায় উপরের দিকেই স্থান হয়েছে তার। একটি সাম্প্রতিক গবেষণার দাবি, দিল্লি বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহর গুলির মধ্যে একটি। দূষণের কারণে রাজধানীর বাসিন্দাদের গড় আয়ু কমছে  প্রায় ১২ বছর!

বর্তমান এই গবেষণাটি করেছে আমেরিকার শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের (University of Chicago) একদল গবেষক। তাঁদের দাবি, ভারতের ১৩০ কোটি মানুষ হু নির্ধারিত বায়ুর গুণমান সূচক এর নীচে দূষিত এলাকায় বাস করেন। এছাড়াও দেশের ৬৭.৪ শতাংশ মানুষ যে এলাকায় বাস করেন, সেখানে ভারত সরকারের নির্ধারিত বায়ুর গুণমান সুচকের নীচে, গবেষকদের মতে এই পরিস্থিতি বিপজ্জনক।

শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা মনে করছেন, ভয়ংকর দূষণের কারণে দিল্লির দু’কোটি বাসিন্দার আয়ু কমে যাচ্ছে। হু-র গাইডলাইন অনুযায়ী তা গড়ে কমতে পারে প্রায় ১১ বছর ৯ মাস। ভারত সরকারের গাইডলাইন অনুযায়ী তা কমে যেতে পারে গড়ে ৮ বছর ৫ মাস। গবেষকরা জানিয়েছেন, এই দূষণের জন্য দায়ী দিল্লির বাসিন্দারাই। যানবাহনের দূষিত ধোয়া থেকে নির্মাণকাজ এর ফলেই বিষাক্ত হয়ে উঠেছে দিল্লি শহর। এছাড়া  শিল্প দূষণ, খোলা বর্জ্য পোড়ানো এবং প্রতিবেশী রাজ্যগুলিতে ফসলের অবশিষ্টাংশ পোড়ানো দিল্লীর  বায়ু দূষণকে আরও খারাপ পরিস্থিতির দিকে নিয়ে গেছে।

দিল্লির বায়ুদূষণে বায়ুর মানের অবনতি এখানকার বাসিন্দাদের গড় আয়ু কম করার সাথে সাথে শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা যেমন হাঁপানি, ব্রঙ্কাইটিস এবং ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ (COPD) সংক্রান্ত সমস্যার সৃষ্টি করছে। গবেষণায় বায়ু দূষণের দীর্ঘমেয়াদী এক্সপোজার হিসেবে হৃদরোগ, স্ট্রোক এবং ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি সংক্রান্ত সমস্যাকে যুক্ত করা হয়েছে।

বায়ু দূষণ সংকটের তীব্রতা স্বীকার করে, দিল্লি সরকার এই সমস্যাটি মোকাবেলায় বেশ কয়েকটি উদ্যোগ বাস্তবায়ন করেছে। এর মধ্যে রয়েছে বিজোড়-ইভেন যানবাহনের রেশনিং স্কিমের প্রবর্তন, ডিজেল জেনারেটর ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা, দূষণকারী শিল্পগুলি বন্ধ করা এবং ক্লিন এনার্জির বিকল্পের প্রযোগ।এর সাথে প্রতিবেশী রাজ্যগুলিতে ফসলের অবশিষ্টাংশ পোড়ানো নিয়ন্ত্রণ এবং বৃক্ষরোপণ অভিযানের মাধ্যমে শহরের সবুজ আবরণ বাড়ানোর জন্য পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

বায়ুদূষণের ক্ষতিকারক প্রভাব সম্পর্কে জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা বায়ুর গুণমান উন্নত করার জন্য প্রচেষ্টা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পাবলিক ট্রান্সপোর্ট ব্যবহার, কারপুলিং এবং বর্জ্য কমানোর মতো  অভ্যাসগুলি গ্রহণ করতে নাগরিকদের উৎসাহিত করার জন্য বিভিন্ন সচেতনতামূলক প্রচারণা, শিক্ষামূলক কর্মসূচির উদ্যোগ চালু করা হয়েছে। বায়ু দূষণে তাদের অবদানের জন্য ব্যক্তি এবং শিল্প উভয়কেই দায়বদ্ধ রাখার জন্য জনগণের অংশগ্রহণ অপরিহার্য।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


AFC এশিয়ান কাপ ২০২৩: সুনীলদের Blue Tiger অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি

উত্তরাপথ: অস্ট্রেলিয়া, উজবেকিস্তান এবং সিরিয়ার পাশাপাশি এএফসি এশিয়ান কাপ ২০২৩-এর বি গ্রুপে সুনীলদের Blue টাইগাররা। Blue টাইগাররা ১৩ জানুয়ারী, ২০২৪-এ আহমেদ বিন আলী স্টেডিয়ামে গ্রুপ পর্বের তাদের প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে।ভারতীয় পুরুষ ফুটবল দল এএফসি এশিয়ান কাপ কাতার ২০২৩-এ ১৩ জানুয়ারি আহমদ বিন আলি স্টেডিয়ামে গ্রুপ বি-তে প্রাক্তন চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করবে। এশিয়ার শীর্ষ ২৪ টি দল দোহার কাটরা অপেরা হাউসে তাদের গ্রুপ পর্বে অংশ গ্রহণ করেছে। এএফসি এশিয়ান কাপ কাতার ১২ জানুয়ারী .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়

এ যেন বহুদিন পর বিজেপির চেনা ছন্দের পতন। হিমাচল প্রদেশের পর কর্ণাটক কংগ্রেস নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে বিজেপির বিজয়রথকে থামিয়ে দিল ।২০১৮ পর থেকে লাগাতার হারতে থাকা একটি দল আবার ২০২৪ সাধারণ নির্বাচনে প্রাসঙ্গিক হয়ে গেল । ২২৪ সদস্যের কর্ণাটক বিধানসভায় সরকার গঠন করতে গেলে প্রয়োজন ১১৩টি আসন সেখানে কংগ্রেস একাই পেয়েছে ১৩৬টি আসন, বিজেপি পেয়েছে ৬৫ টি এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেবগৌড়ার জেডিএস পেয়েছে ১৯টি এবং অন্যান্য ৪ টি আসন পেয়েছে। যা গতবারের তুলনায় বিজেপির ৩৯ টি আসন কমেছে এবং কংগ্রেসের বেড়েছে ৫৭টি আসন এবং জেডিএসের কমেছে ১৮ টি আসন।   কর্ণাটকে কংগ্রেসের এই সাফল্য কি রাজ্যে কংগ্রেসের শক্তিশালী সংগঠনের ফল না কি কর্ণাটকের আগের ক্ষমতাশীল বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভ । কর্ণাটকে কংগ্রেসে অনেক বড় নেতা রয়েছে।  প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শিবকুমার দক্ষ সংগঠক। আগের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধারামাইয়ার ব্যাপক জনভিত্তি রয়েছে।  ভোটের আগে বিজেপির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জগদীশ শেট্টার এবং উপমুখ্যমন্ত্রী সাভাড়ি কংগ্রেসে যোগ দিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। অন্যদিকে বিজেপির প্রচারের সবচেয়ে বড় মুখ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। বিজেপির প্রচারে সব নেতারাই মোদীর নাম করেই ভোট চেয়েছিলেন কিন্তু শেষ রক্ষা হল না ।কর্ণাটকের বিজেপি সরকারের ব্যাপক দুর্নীতি সেই সাথে কংগ্রেসের লাগাতার প্রচার যা প্রতিষ্ঠান বিরোধিতার সুরকে আরও তীব্র করেছে। তাই শুধুমাত্র মোদী ম্যাজিকের উপর ভর করে নির্বাচন জেতা যে  আর বিজেপির পক্ষে সম্ভব নয় কর্ণাটকের জনগণ চোখে হাত দিয়ে তাই দেখিয়ে দিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

মানুষে মানুষে ঐক্য কীভাবে সম্ভব

দিলীপ গায়েন: হিন্দু,মুসলমান,ব্রাহ্মণ,তফসিলি।সকলেই মানুষ।কিন্তু এদের মধ্যে যে ব্যবধান তা হলো ধর্ম ও সাংস্কৃতিক। এই ব্যবধান মুছতে পারলে একাকার হওয়া সম্ভব। যারা বলছে আর্থিক সমতা প্রতিষ্ঠা হলে ব্যবধান মুছে যাবে, তাদের কথাটি বোধ হয় সঠিক নয়।তার প্রমাণ গরিব ও শ্রমিক শ্রেণীর মধ্যে আর্থিক ব্যবধান নেই। অথচ জাতিভেদ রয়ে গেছে। তেমনি কিছু ব্যতিক্রমী ঘটনা ব্যতীত ধনী ও শিক্ষিত সমাজে আর্থিক সচ্ছলতা থাকলেও জাতিভেদ রয়ে গেছে। একমাত্র হাসপাতালে বা চিকিৎসা ব্যবস্থায় জাতিভেদ নেই।কারণ সেখানে তো প্রচলিত ধর্মজাত প্রভেদ বা পরিচয় নেই। আছে মেডিসিন, যা সম্পূর্ণ বিজ্ঞান। কারোর ধর্ম বা জাত দেখে প্রেসক্রিপশন হয় কি? এখানে মানুষের একমাত্র এবং শেষ পরিচয় সে মানুষ। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top