অত্যাধুনিক বায়োইলেক্ট্রনিক প্রযুক্তি জগদিশ চন্দ্র বসুর কথাকে প্রমান করল

উত্তরাপথ : অত্যাধুনিক বায়োইলেক্ট্রনিক প্রযুক্তি আবিস্কারের পর আজ যে কথাগুলি অনেক পরীক্ষার পর বিজ্ঞানীরা  বলছেন ,সেইএকই কথার আভাস দিয়েছিলেন  ১৯০১ সালে অর্থাৎ ১২২ বছর আগে  আচার্য জগদিশ চন্দ্র বসু। সেই সময় তিনি বলেছিলেন,গাছের প্রান আছে এবং তারাও উত্তেজনায় সারা দেয় ।আবার সেই একই কথা ২০২৩ শে বিজ্ঞানীরা বললেন,  উদ্ভিদ শুধুমাত্র নিষ্ক্রিয় জীব নয়; তাদের কাছে উল্লেখযোগ্য বৈদ্যুতিক সংকেত সিস্টেম রয়েছে যা তাদের পরিবেশগত উদ্দীপনায় সাড়া দিতে এবং তাদের নিজস্ব কাঠামোর মধ্যে যোগাযোগ করতে দেয়। এই বৈদ্যুতিক সংকেত বোঝা এবং উদ্ভিদ শারীরবৃত্তিতে তাদের ভূমিকা কি তা বিশ্লেষণ করা সবসময় বিজ্ঞানীদের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ ছিল।এই অত্যাধুনিক বায়োইলেক্ট্রনিক প্রযুক্তি বিকাশ উদ্ভিদের দ্রুত বৈদ্যুতিক সংকেতের ম্যাপিং সক্ষম করেছে।

উদ্ভিদের বৈদ্যুতিক সংকেত অধ্যয়ন করার জন্য ব্যবহৃত ঐতিহ্যগত পদ্ধতিগুলিতে জটিল বৈদ্যুতিক ঘটনাগুলি ক্যাপচার করার সীমিত ক্ষমতা  ছিল।গবেষকরা এখন একটি অত্যাধুনিক বায়োইলেক্ট্রনিক প্রযুক্তি তৈরি করেছেন যার দ্বারা উদ্ভিদের বৈদ্যুতিক কার্যকলাপের উচ্চ-রেজোলিউশন ম্যাপিং সম্ভব। এই প্রযুক্তির মধ্যে অতি-সংবেদনশীল ইলেক্ট্রোড এবং উন্নত সিগন্যাল প্রসেসিং অ্যালগরিদম ব্যবহার করে রিয়েল-টাইমে বৈদ্যুতিক সংকেত সনাক্ত ও বিশ্লেষণ করা হয়।

উদ্ভিদের মধ্যে দ্রুত বৈদ্যুতিক সংকেত মানচিত্র করার ক্ষমতা তাদের শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া বোঝার জন্য নতুন পথ খুলে দেয়। এই সংকেতগুলি উদ্ভিদের বিভিন্ন প্রতিক্রিয়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, যেমন দ্রুত চলাচল, স্ট্রেস অভিযোজন এবং প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। এই সংকেতগুলি ম্যাপিং এবং বিশ্লেষণ করে, বিজ্ঞানীরা কীভাবে গাছপালা তাদের পরিবেশকে উপলব্ধি করে এবং প্রতিক্রিয়া জানায় সে সম্পর্কে মূল্যবান তথ্য অর্জন করতে পারে।

গাছপালা তাদের নিজস্ব কাঠামোর মধ্যে ক্রিয়াকলাপগুলিকে যোগাযোগ এবং সিঙ্ক্রোনাইজ করতে বৈদ্যুতিক সংকেত ব্যবহার করে। উদাহরণস্বরূপ, বৈদ্যুতিক সংকেতগুলি স্টোমাটা খোলা এবং বন্ধ করা, পাতার নড়াচড়া এবং শিকড়ের বৃদ্ধির সমন্বয় করে। অত্যাধুনিক বায়োইলেক্ট্রনিক প্রযুক্তি সাথে, গবেষকরা এখন এই বৈদ্যুতিক সংকেতগুলির গতিবিদ্যা অধ্যয়ন করতে পারেন এবং উদ্ভিদের বিভিন্ন অংশের মধ্যে যোগাযোগ এবং সিঙ্ক্রোনাইজেশনের পিছনে জটিল প্রক্রিয়াগুলি উন্মোচন করতে পারেন।

অত্যাধুনিক বায়োইলেক্ট্রনিক প্রযুক্তি উদ্ভিদের দ্রুত বৈদ্যুতিক সংকেত ম্যাপ করার ক্ষমতা সহ  বিভিন্ন ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে। কৃষিতে, এই প্রযুক্তিটি ব্যবহার করে আরও দক্ষ সেচ ব্যবস্থা, অপ্টিমাইজ করা উদ্ভিদ বৃদ্ধির কৌশল এবং শস্যে স্ট্রেস বা রোগের প্রাথমিক সনাক্তকরণে সহায়তা করতে পারবে । উদ্ভিদে দ্রুত বৈদ্যুতিক সংকেত ম্যাপ করার জন্য অত্যাধুনিক বায়োইলেক্ট্রনিক প্রযুক্তি বিকাশ এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। যেহেতু গবেষকরা এই প্রযুক্তিকে পরিমার্জিত এবং আরও উন্নত করতে প্রচেষ্টা করে চলেছেন,তাই আশা করা যাচ্ছে এটি থেকে আরও অনেক সম্ভাবনার জন্ম নেবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Roop Kishor Soni: একটি আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য তুলে ধরেছেন

উত্তরাপথঃ রাজস্থান মানেই ওজনদার রূপার গহনা ,আর তার উপর কারুকাজ। প্রচলিত এই ধারনা ভেঙ্গে আজ রূপোর গহনাকে আধুনিকতার সাথে শিল্পের এক অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটিয়েছেন যে ব্যক্তি তিনি হলেন রূপ কিশোরী সোনী(Roop Kishor Soni)।তিনি ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কাছ থেকে তার অসাধারণ শিল্প কর্মের জন্য জাতীয় পুরুস্কার পান। রাজস্থানের জয়সলমেরের শহরের এই শিল্পী ৩.৮ গ্রাম ওজনের ০.৯ সেমি চওড়া রৌপ্য আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য খোদাই করেছেন।এই ছোট রূপার আংটিতে শিল্পী তাজমহল, সিডনি অপেরা হাউস, স্ট্যাচু অফ লিবার্টি, চীনের গ্রেট ওয়াল, আইফেল টাওয়ার, বিগ বেন, পিসার হেলানো টাওয়ার এবং মিশরীয় পিরামিডের চিত্র এক সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন।এছাড়াও তিনি আরও দুটি পৃথক ডিজাইনের অত্যাশ্চর্য আংটি  তৈরি করেছেন।৮.৬ গ্রাম ওজনের একটি রিংয়ে তিনি সূর্যাস্তের সময় ভারতীয় উট সাফারি সহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন ভারতীয় বিশেষত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন,এবং অন্যটিতে বিভিন্ন হিন্দু দেব-দেবী ছবি এবং মন্দির খোদাই করেছিলেন। শিল্পী বলেছেন যে তিনি তার বাবার কাছ থেকে তার শৈল্পিক দক্ষতা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন। সেই সাথে তিনি বলেন "আমার বাবাও একজন জাতীয় পুরুস্কার প্রাপ্ত শিল্পী ছিলেন। তিনি আমাকে শিল্পের এই দক্ষতা শিখিয়েছিলেন কারণ তিনি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের ফর্মটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন।" .....বিস্তারিত পড়ুন

World’s most polluted cities: নয়াদিল্লি, মুম্বাই এবং কলকাতা বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়

উত্তরাপথঃ দিওয়ালি উদযাপনের একদিন পর জাতীয় রাজধানী নয়াদিল্লি, মুম্বাই এবং কলকাতা বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের (World’s most polluted cities) তালিকায় উঠে এসেছে।সোমবার, অর্থাৎ দীপাবলির পরের দিন এই শহরগুলির বায়ুর গুণমান উল্লেখযোগ্য মাত্রায় খারাপ হয়েছে।বায়ুর গুনমান খারাপ হওয়ার পেছনে মাত্রাতিরিক্ত আতশবাজি জ্বালানোকে দায়ী করা হয়েছে। আমাদের বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের (World’s most polluted cities) তালিকায় যথারীতি প্রথম স্থান দখল করেছে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি। দীপাবলির পরের দিন এটির AQI (এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স) পরিসংখ্যান ছিল ৪০৭। নভেম্বরের শুরু থেকে, দিল্লিতে AQI পরিসংখ্যান খারাপ হয়েছে।  সুইস গ্রুপ আইকিউএয়ার শহরের বাতাসকে "বিপজ্জনক" বিভাগে রেখেছে।ভারতের আর্থিক রাজধানী মুম্বাই বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়(World’s most polluted cities), ১৫৭ এর AQI সহ ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে। কলকাতা ১৫৪ এর AQI সহ সপ্তম স্থানে রয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে। আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top