বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন পরিবার এবং প্রিয়জনরা ওজন কমানোর ইছাকে নষ্ট করতে পারে

উত্তরাপথ

আপনার পরিবার আপনার রোগা হওয়ার ইচ্ছা কে কি কম করে দিচ্ছে ? সম্প্রতি ইউনিভার্সিটি অফ সারে থেকে একটি মজার গবেষণা সামনে এসেছে তাতে বলা হয়েছে একজন মানুষের রোগা হওয়ার পথে সবচেয়ে বড় বাঁধা তাঁর পরিবার এবং প্রিয়জনরা। তাঁরা অনিচ্ছাকৃতভাবে বা অসাবধানতাবশত অতিরিক্ত খাবার খায়িয়ে আপনার ওজন কমানোর প্রচেষ্টাকে কম করে দিতে পারে।  এই অধ্যয়নটি ক্রমবর্ধমান প্রমান করে যে প্রিবার-পরিজন বা বন্ধু-বান্ধব  সবসময় স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী নয়। সারের এই গবেষকদলটি দেখিয়েছেন সামাজিকতা সব সময় স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণকে নিরুৎসাহিত করছে, এবং স্বাস্থ্য রক্ষা মূলক গোষ্ঠীতে যোগদানে বাধা সৃষ্টি করেছে, যা প্রায়শই একজন ব্যক্তির আত্মবিশ্বাস এবং আত্মসম্মানকে ক্ষুন্ন করে, ওজন কমানোর প্রচেষ্টাকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করে।

জেন ওগডেন, হেলথ সাইকোলজির অধ্যাপক এবং সারে ইউনিভার্সিটির গবেষণার প্রধান লেখক বলেছেন: ওজন কমানোর ফলে প্রায়ই একজন ব্যক্তির মানসিক পরিবর্তন হয় যার প্রভাব তার সামাজিক সম্পর্কের উপর পড়ে, সেই সময় একজন ব্যক্তির আরও বেশী আত্মবিশ্বাস দরকার হয় ।অনেকে এই ধরনের পরিবর্তনগুলিকে স্বাগত জানায় না এবং সচেতনভাবে বা অবচেতনভাবে, জিনিসগুলিকে একই ভাবে রাখার জন্য ওজন কমানোর জন্য একজন ব্যক্তির প্রচেষ্টাকে সেভাবে উৎসাহিত নাও করতে পারে। বরং অতিরিক্ত সামাজিক যোগাযোগ অস্বাস্থ্যকর খাবারের অভ্যাসকে আরও বাড়াতে পারে। অধ্যাপক ওগডেন আরও বলেন “লোকেরা বিভিন্ন কারণে ওজন কমানোর চেষ্টা করে, তা তাদের সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য হোক বা নিজেদের সম্পর্কে ভাল বোধ করার জন্য হোক।  বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের কাছ থেকে সমর্থন মানুষকে তাদের লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করার জন্য একটি অমূল্য হাতিয়ার হতে পারে তবে কখনও কখনও তাদের সবচেয়ে কাছের লোকেরা তাদের প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে দেয়।

উৎস: “Sabotage, Collusion, and Being a Feeder: Towards a New Model of Negative Social Support and Its Impact on Weight Management” by Jane Ogden and Sophia Quirke-McFarlane; Current Obesity Reports 2023: DOI: 10.1007/s13679-023-00504-5

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ঘোষণা হল ভারতের শীর্ষ বিজ্ঞান পুরস্কার শান্তি স্বরূপ ভাটনগর প্রাপকদের নাম  

উত্তরাপথঃ এটি আশ্চর্যজনকভাবে ২০২২ সালে, প্রথমবারের মতো, বিজ্ঞানে ভারতের শীর্ষ বার্ষিক পুরস্কার ঘোষণা করা হয়নি।এক বছর স্থগিত রাখার পর, সোমবার ২০২২ সালের শান্তি স্বরূপ ভাটনগর পুরস্কার ঘোষণা করা হয়, যেখানে ১২ জন তরুণ বিজ্ঞানীকে ভারতের শীর্ষ বিজ্ঞান পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে।ভাটনগর পুরষ্কার, CSIR-এর প্রথম মহাপরিচালক শান্তি স্বরূপ ভাটনাগরের নামানুসারে, প্রতি বছর সাতটি বৈজ্ঞানিক শাখায় গবেষকদের অসামান্য কৃতিত্বের জন্য দেওয়া হয়। জীববিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত, পদার্থবিদ্যা, চিকিৎসা, প্রকৌশল এবং পৃথিবী, বায়ুমণ্ডল, মহাসাগর এবং গ্রহ বিজ্ঞান - এর অধীনে ৪৫ বছর পর্যন্ত অসামান্য গবেষকদের নির্বাচন করা হয়। পুরস্কারে ৫ লক্ষ টাকা নগদ ও একটি প্রশংসাপত্র দেওয়া হয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়

বিশ্ব উস্নায়ন এবং তাকে কেন্দ্র করে জলবায়ু পরিবর্তন একবিংশ শতাব্দীর অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। এটি  ধীরে ধীরে একাধিক উপায়ে মানব সমাজকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করছে এবং অদূর ভবিষ্যতে এটি প্রায় অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।ইতিমধ্যে এটি আমাদের পরিবেশ, অর্থনীতি এবং আমাদের জীবন যাত্রার উপর ব্যাপক ভাবে প্রভাব দেখাতে শুরু করেছে ।সদ্য হয়ে যাওয়া হিমাচল প্রদেশের বন্যা আমাদের সামনে বেশ কিছু প্রশ্ন তুলে দিল । এবছর হিমাচল প্রদেশে বর্ষাকালে রেকর্ড পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয়েছে ,যা বিগত কয়েক বছরের তুলনায় বহু গুণ বেশী।  ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, হিমাচল প্রদেশে ১ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত গড় বৃষ্টিপাত হয়েছে ২৪৯.৬ মিমি যা স্বাভাবিক গড় ৭৬.৬ মিমি থেকে প্রায় ৭০% বেশী .....বিস্তারিত পড়ুন

রাজা মহম্মদ ও সি সেল মিউজিয়াম

প্রিয়াঙ্কা দত্তঃ রাজা মহম্মদ, এমন একজন মানুষের নাম, যার ব্যাক্তিগত ইচ্ছার কাছে হেরে যায় সব বাধা। ইচ্ছার চেয়ে বলা ভালো নেশা। সামুদ্রিক প্রাণীদের খোল সংগ্রহের নেশা। যা তাঁকে ছোটবেলা থেকেই ছুটিয়ে নিয়ে বেরিয়েছে প্রায় তিরিশ বছর ধরে। আর সেই দীর্ঘ পথের শেষে , তিনি সম্পূর্ন ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন এশিয়ার বৃহত্তম ও পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ব্যাক্তিগত সংগ্রহশালা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত সি সেল মিউজিয়ামটি বর্তমানে চেন্নাইয়ের মহাবলিপূরম মন্দিরের সন্নিকটে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট। রাজা মহম্মদ ছোট্ট বেলা থেকেই  সমুদ্র তট থেকে সংগ্রহ করতেন বিভিন্ন সামুদ্রিক প্রাণীর দেহাংশ। কুড্ডালোর থেকে রামেশ্বরম এর সমুদ্রতট, সেখান থেকে জাপান, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপিন্স প্রভৃতি দেশে গিয়েছেন ব্যাক্তিগত উদ্যোগে। সংগ্রহ করেছেন অসাধারণ সব সামুদ্রিক .....বিস্তারিত পড়ুন

রেলওয়ে ইউনিয়নের নতুন সূচনা, গান গেয়ে মানসিক চাপ দূর করছেন রেলের কর্মচারীরা

উত্তরাপথঃ আপনি যদি সরকারি বা বেসরকারি চাকরি করেন, তাহলে এই খবর আপনাকে স্বস্তি দেবে।কারণ ভারতীয় রেলওয়ের বৃহত্তম শ্রমিক সংগঠন অল ইন্ডিয়া রেলওয়েম্যানস ফেডারেশন (এআইআরএফ) এবং নর্থ ওয়েস্টার্ন রেলওয়ে এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন কর্মক্ষেত্রে কর্মীদের উপর ক্রমবর্ধমান চাপ কমাতে এক অনন্য উদ্যোগ শুরু করেছে।তারা তাদের কর্মীদের গান গেয়ে তাদের মানসিক চাপ দূর করতে পরামর্শ দিচ্ছে।    এআইআরএফ-এর সাধারণ সম্পাদক শিব গোপাল মিশ্র এবং কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মুকেশ মাথুরের নির্দেশে, জয়পুর এবং অন্যান্য শহরের কর্মচারীরা একটি মাঠে জড়ো হয় এবং সেখানে তারা গান গায় এবং আন্তাক্ষিরি খেলে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top