বিলকিস বানো মামলা: সুপ্রিম কোর্ট গুজরাট সরকারকে দোষীদের ক্ষমার ফাইল নিয়ে প্রস্তুত থাকতে বলেছে

উত্তরাপথ

ছবি সৌজন্যে : বি বি সি নিউজ

ভারতের প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়  বলেছেন যে বিলকিস বানো গণধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ১১আসামির অকাল মুক্তিকে চ্যালেঞ্জ করে আবেদনের  শুনানির জন্য তিনি একটি বিশেষ বেঞ্চ গঠন করেন। বিলকিস বানোর পক্ষে উপস্থিত অ্যাডভোকেট শোভা গুপ্তা প্রধান বিচারপতির নজরে বিষয়টি আনার  পরে সিজেআই চন্দ্রচূদ এই কথা বলেছিলেন । বিলকিসকে গণধর্ষণ করা হয়েছিল ৩ মার্চ, ২০০২ এ গুজরাট  দাঙ্গার সময়। অভিযুক্ত ১১ আসামিকে গত বছরের ১৫ আগস্ট মুক্তি দিয়েছিলো গুজরাট সরকার। বিলকিস তার আবেদনে বলেছিলেন, “অপরাধীদের গণহারে অকাল মুক্তি… সমাজের বিবেককে নাড়া দিয়েছে”।  তিনি এটিকে  “এই দেশের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর অপরাধগুলির মধ্যে একটি” হিসাবে অভিহিত করেছেন এবং যোগ করেছেন যে দোষীদের অকাল মুক্তি কেবল তার জন্যই নয়, তার প্রাপ্তবয়স্ক কন্যা, পরিবার এবং বৃহত্তর সমাজের জন্য ভয়ঙ্কর। তিনি বলেন যে তাদের অকাল মুক্তি তার “ট্রমা”কে “পুনরুদ্ধার” করেছে। সুপ্রিম কোর্ট গুজরাট সরকারকে দোষীদের ক্ষমার ফাইল নিয়ে প্রস্তুত থাকতে বলেছেন। পরবর্তী শুনানি ১৮ই এপ্রিল।

বিলকিস বানো মামলা: SC গুজরাট সরকারকে দোষীদের ক্ষমার ফাইল নিয়ে প্রস্তুত থাকতে বলেছে; 18 এপ্রিল শুনানি

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


মণিপুরের সামগ্রিক উন্নয়ন বর্তমান সমস্যার সমাধান হতে পারে

উত্তরাপথ: মণিপুরের মেইতি সম্প্রদায় তফসিলি উপজাতির তালিকায় তাদের অন্তর্ভুক্তির দাবি অব্যাহত রাখবে এবংআন্দোলন তীব্রতর করবে বলে খবর। অন্যদিকে ট্রাইবাল সলিডারিটি মার্চ, কিছু পাহাড়ি উপজাতির একটি তড়িঘড়ি তৈরি করা ছাতা সংগঠন,তারা মেইতি সম্প্রদায়ের দাবির বিরোধিতা করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তাই পরিস্থিতি আরও অস্থির হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।অন্যদিকে আরেকটি সূত্র বলছে মণিপুরের পরিস্থিতি আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে। যদিও এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনাবাহিনীর সহায়তা নিচ্ছে রাজ্য সরকার।  কিন্তু এ ধরনের স্পর্শকাতর বিষয়ে দীর্ঘ .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top