ভারতসেরা মোহনবাগান: ট্রফি ফিরলো বাংলার বাগানে

ফাল্গুনী ব্যানার্জী (স্ট্রাইকার)

স্বপ্নপূরণ, দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান, সাফল্য। হ্যাঁ, বলা যেতেই পারে, একটা টিমের দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টা, কঠিন পরিশ্রম, আত্মবিশ্বাস-এর ফল। এক কথাই অনবদ্য ফুটবল খেলে বেঙ্গালুরু এফ সি কে হারিয়ে আই এস এল (২০২২-২৩) মরসুমের ট্রফি নিজের ঘরে তুলে নিয়ে এলো এ টি কে মোহনবাগান। গত মরসুমের বেশ কয়েক জন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় (রয়কৃষ্ণ, ডেভিড উইলিয়াম, প্রবীর দাস) দল ছেড়ে চলে যাওয়া এবং কোনো ইতিবাচক No 9 দলে না নেয়ার জন্য অনেক প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছিল জুয়ান ফার্নান্ডোকে। কিন্তু সমস্ত প্রতিকূলতা কে হারিয়ে ক্রমাগত বিপক্ষের রণনীতি কে হারিয়ে ম্যাচ বের করে আনে। কুর্নিশ জুয়ান। অভিনন্দন মহানবাগান। ভারতসেরা বাংলা।

প্রথমার্ধে মোহনবাগান কিছু এলোমেলো ফুটবল খেলছিল। মিডফিল্ড ও ফরওয়ার্ড লাইনের বল ডিস্ট্রিবিউশন ছিল খারাপ। সেটার সুযোগ নিচ্ছিলো বেঙ্গালুরু। ম্যাচের ১৩ মিনিটে পেনাল্টি বক্সে রয়কৃষ্ণর হাতে বল লাগাই পেনাল্টি পাই বাগান। গোল করতে ভুল করেননি দিমিত্রী। সঠিক পেনাল্টি , ৬’ ৬” গুরপ্রীত সিংহের কিছু করার ছিল না। ঠান্ডা মাথায় গুরপ্রীত ডান দিক দিয়ে বল সোজা সাইড নেটে। বাগান ১-০ এগিয়ে। ক্রমাগত উইং দিয়ে আক্রমণ মিডফিলডে বল দখল ব্যাঙ্গালুরু কে নাজেহাল করে দেয় বাগান। ফুটবলে এক গোলের লিড কখনো সেফ নয়। তাই হলো, শুভাশিস পেনাল্টি বক্সে রয়কৃষ্ণকে পিছন থেকে লাথি মেরে ফেলে দেয়। রেফারির পেনাল্টির সিদ্ধান্ত। ভারত অধিনায়ক এক স্টেপে বিশালকে অন্য পোস্টে ফেলে ডানদিক দিয়ে বল জালে গড়ালো। দারুন পেনাল্টি। ম্যাচের ফল ১-১। দ্বিতীয়ার্ধের বাগান ক্রমাগত আক্রমণ বাড়াতে থাকে কিন্তু ৭৭ মিনিটে কর্নার থেকে দূরের পোস্টে প্রায় ফাঁকাই হেডে গোল করে বেঙ্গালুরু কে এগিয়ে দেয় রয়কৃষ্ণ। ৮০ মিনিটে বাগান কে ম্যাচে ফেরাই কিয়ান। তার ক্ষিপ্র গতি বক্সে তাকে ফাউল করতে বাধ্য করে। আবার পেনাল্টি। এবারও সেই দিমিত্রি। একই দিক, একই একুরেশি, ফলাফল ২-২. এরপর ৯০ মিনিট আক্রমণ প্রতিআক্রমণ চলতে থাকে। কিন্তু কোনো দলেই লক্ষ্যভেদ করতে পারেনি।

অতিরিক্ত সময় এ কোনো গোল না হওয়ায় ম্যাচ চলে যাই পেনাল্টি সুট আউট এ। বিশাল, গুরপ্রীত দুজনেই ভারত সেরা গোলকিপার। এরপর ছিল স্নায়ুর যুদ্ধ। পেনাল্টির প্রথম শটে অ্যালান কোষ্টা গোল করে এগিয়ে দেয় বেঙ্গালুরু এফসি । ব্রুনো সিলভা শট ডানদিকে ঝাঁপিয়ে বাঁচায় বিশাল ।এরপর থেকেই জয়ের আশা আলো দেখতে থাকে মোহনবাগান।কলকাতায় ততক্ষনে বাগান ফ্যানদের উৎসব শুরু হওয়ার মুখে। পরের পেনাল্টি কিয়ান নাসরি সুন্দর গোল করে এগিয়ে দেয় বাগানকে। শেষ শট ক্রস বার্ডের উপর উড়িয়ে দেন ব্যাঙ্গালুরু এফসি র পাবলো পেরেজ। আইএসএল ২০২২-২৩ ট্রফি তখন মোহনবাগানের হাতের মুঠোয়। চারি দিকে উৎসব আনন্দে ভরা চ্যাম্পিয়ন মোহনবাগান। একটা বড টুর্নামেন্ট জিততে গেলে পুরো দল কে একসুতোই বাঁধতে হয়। অনেক লড়াই, অনেক উত্থান পতন ভালো খারাপ সময় পার করতে হয়। সেটাই করে দেখিয়েছেন কোচ জুয়ান, কৃতিত্ব তার।পুরো বাগান টিমের। শুভেচ্ছা। জয় মহান বাগান! জয় ফুটবল!

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ওজন হ্রাস (weight loss) মস্তিষ্কের বার্ধক্যের লক্ষণগুলিকে ধীর করে

উত্তরাপথঃ এপ্রিলে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, শাকসবজি, সামুদ্রিক খাবার এবং গোটা শস্য সমৃদ্ধ একটি ভূমধ্যসাগরীয় খাদ্য খাওয়া - এমনকি শুধুমাত্র খাদ্যের নির্দেশিকা অনুসরণ করে   ওজন হ্রাস (weight loss)মস্তিষ্কের বার্ধক্যের লক্ষণগুলিকে ধীর করে বলে মনে করা হয়।সাম্প্রতি ডিউক ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিনের বিজ্ঞানীদের দ্বারা পরিচালিত, একটি  গবেষণায় দেখা গেছে যে ওজন হ্রাস মস্তিষ্কে বার্ধক্য প্রক্রিয়াকে ৯ মাস পর্যন্ত ধীর করে (aging process) দিতে পারে। গবেষণায় ৬০ থেকে ৭৮ বছর বয়সের মধ্যে ৪৭ জন অংশগ্রহণকারীকে জড়িত করা হয়েছিল, যাদের প্রত্যেকেরই ওজন বেশি বা স্থূল ছিল এবং তাদের অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যগ্রহণ  ছিল। তাদের এলোমেলোভাবে একটি ক্যালোরি-সীমাবদ্ধ গ্রুপ বা একটি নিয়ন্ত্রণ গ্রুপে বরাদ্দ করা হয়েছিল।ক্যালোরি-সীমাবদ্ধতা গোষ্ঠীর সদস্যদের একটি খাদ্য পরিকল্পনা অনুসরণ করে, যার লক্ষ্য ছিল তাদের আনুমানিক প্রয়োজনের চেয়ে ১০ – ১৫% কম ক্যালোরি গ্রহণ করা। অন্যদিকে, নিয়ন্ত্রণ গ্রুপ তাদের খাদ্য পরিবর্তন করেনি .....বিস্তারিত পড়ুন

Roop Kishor Soni: একটি আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য তুলে ধরেছেন

উত্তরাপথঃ রাজস্থান মানেই ওজনদার রূপার গহনা ,আর তার উপর কারুকাজ। প্রচলিত এই ধারনা ভেঙ্গে আজ রূপোর গহনাকে আধুনিকতার সাথে শিল্পের এক অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটিয়েছেন যে ব্যক্তি তিনি হলেন রূপ কিশোরী সোনী(Roop Kishor Soni)।তিনি ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কাছ থেকে তার অসাধারণ শিল্প কর্মের জন্য জাতীয় পুরুস্কার পান। রাজস্থানের জয়সলমেরের শহরের এই শিল্পী ৩.৮ গ্রাম ওজনের ০.৯ সেমি চওড়া রৌপ্য আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য খোদাই করেছেন।এই ছোট রূপার আংটিতে শিল্পী তাজমহল, সিডনি অপেরা হাউস, স্ট্যাচু অফ লিবার্টি, চীনের গ্রেট ওয়াল, আইফেল টাওয়ার, বিগ বেন, পিসার হেলানো টাওয়ার এবং মিশরীয় পিরামিডের চিত্র এক সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন।এছাড়াও তিনি আরও দুটি পৃথক ডিজাইনের অত্যাশ্চর্য আংটি  তৈরি করেছেন।৮.৬ গ্রাম ওজনের একটি রিংয়ে তিনি সূর্যাস্তের সময় ভারতীয় উট সাফারি সহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন ভারতীয় বিশেষত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন,এবং অন্যটিতে বিভিন্ন হিন্দু দেব-দেবী ছবি এবং মন্দির খোদাই করেছিলেন। শিল্পী বলেছেন যে তিনি তার বাবার কাছ থেকে তার শৈল্পিক দক্ষতা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন। সেই সাথে তিনি বলেন "আমার বাবাও একজন জাতীয় পুরুস্কার প্রাপ্ত শিল্পী ছিলেন। তিনি আমাকে শিল্পের এই দক্ষতা শিখিয়েছিলেন কারণ তিনি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের ফর্মটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন।" .....বিস্তারিত পড়ুন

World’s most polluted cities: নয়াদিল্লি, মুম্বাই এবং কলকাতা বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়

উত্তরাপথঃ দিওয়ালি উদযাপনের একদিন পর জাতীয় রাজধানী নয়াদিল্লি, মুম্বাই এবং কলকাতা বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের (World’s most polluted cities) তালিকায় উঠে এসেছে।সোমবার, অর্থাৎ দীপাবলির পরের দিন এই শহরগুলির বায়ুর গুণমান উল্লেখযোগ্য মাত্রায় খারাপ হয়েছে।বায়ুর গুনমান খারাপ হওয়ার পেছনে মাত্রাতিরিক্ত আতশবাজি জ্বালানোকে দায়ী করা হয়েছে। আমাদের বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের (World’s most polluted cities) তালিকায় যথারীতি প্রথম স্থান দখল করেছে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি। দীপাবলির পরের দিন এটির AQI (এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স) পরিসংখ্যান ছিল ৪০৭। নভেম্বরের শুরু থেকে, দিল্লিতে AQI পরিসংখ্যান খারাপ হয়েছে।  সুইস গ্রুপ আইকিউএয়ার শহরের বাতাসকে "বিপজ্জনক" বিভাগে রেখেছে।ভারতের আর্থিক রাজধানী মুম্বাই বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়(World’s most polluted cities), ১৫৭ এর AQI সহ ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে। কলকাতা ১৫৪ এর AQI সহ সপ্তম স্থানে রয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Fried rice syndrome: আগের দিনের রান্না করা ভাত খেলে হতে পারে এই বিশেষ অসুখটি

উত্তরাপথঃ আপনার কি বাসী ভাত বা পান্তা খাওয়ার অভ্যেস আছে? সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম (Fried rice syndrome) নিয়ে আমরা প্রায়ই অবশিষ্ট খাবার গরম করে আবার খাই। কিন্তু জানেন কি এই অভ্যাস আপনাকে অসুস্থ করে তুলতে পারে। অনেক সময় পর আগের রান্না করা  ভাত খাওয়ার ফলে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হয়। কেউ কেউ মনে করেন যে খাবার পুনরায় গরম করলে এতে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মারা যায়, কিন্তু তা নয়। যে খাবারেই স্টার্চ থাকে না কেন, এতে উপস্থিত টক্সিন তাপ প্রতিরোধী। অর্থাৎ খাবার গরম করার পরও ব্যাকটেরিয়া নষ্ট হয় না। ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম নামে এই সমস্যা সম্পর্কিত একটি অবস্থা রয়েছে। আজ আমরা এই ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম অবস্থার লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব। ভাত রান্না করার পর, যখন অবশিষ্ট ভাত কয়েক ঘন্টা বা সারারাত ঘরের তাপমাত্রায় রেখে দেওয়া হয় এবং তাতে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে শুরু করে, তখন এই অবস্থার নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top