মতুয়া ইস্যুতে তৃনমুল-বিজেপি দন্ধ প্রকাশ্যে

উত্তরাপথ

গত কয়েকদিন আগে তৃণমূল কংগ্রেসের জাতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক ব্যানার্জি তাঁর নবজোয়ার যাত্রার অংশ হিসাবে মতুয়া সম্প্রদায়ের দুর্গ ঠাকুরনগরে পৌঁছন। সেখানে  অভিষেককে কালো পতাকা দেখানো হয় সেই সাথে তাঁকে ঠাকুর ঠাকুরবাড়ির মন্দিরে প্রবেশে বাঁধা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।অবশেষে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় মন্দিরে ঢুকতে না পেরে মন্দিরের বাইরে পুজো করেন। সেদিনের সেই ঘটনা নিয়ে নিয়ে তৃণমূল ও বিজেপির বাকযুদ্ধ অব্যাহত। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শান্তনু ঠাকুরকে  চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন।  তিনি বলেন, ‘আমি প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর এখানে আসব।  পারলে আমাকে থামাও। তিনি বলেন, এই বিশৃঙ্খলার জন্য শান্তনু ঠাকুর এবং তার বিজেপির সহযোগীরা দায়ী।  আমি এখানে কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচিতে আসিনি।  আমি শুধু প্রার্থনা করতে মন্দিরে এসেছি।  কিন্তু তারা মন্দিরের দরজা ভিতর থেকে তালা দিয়ে আমাকে পূজা করতে দেয়নি।

অন্যদিকে শান্তনু ঠাকুর অভিযোগ করেছেন যে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের আগমনের কয়েক ঘন্টা আগে, পুরো মন্দির কমপ্লেক্স রাজ্য পুলিশের নিয়ন্ত্রণে ছিল। অভিষেক ব্যানার্জির সহযোগী সেখানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করেছিল।সম্প্রদায়ের লোকেরা নিজেরাই প্রতিরোধ করেছিল। এই পারস্পরিক বাকযুদ্ধের মধ্যে বিজেপির রাজ্য সভাপতি ডাঃ সুকান্ত মজুমদার একটি টুইট করেন তিনি বলেন কয়েক মাস আগে, সিএম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর অফিসিয়াল টুইট অ্যাকাউন্ট থেকে মতুয়াদের সবচেয়ে সম্মানিত আধ্যাত্মিক নেতাদের নাম ভুল উচ্চারণ করে সমগ্র মতুয়া সম্প্রদায়কে অপমান করেছিলেন।আর এখন তৃণমূলের গুন্ডা ভক্তদের ওপর হামলা চালাচ্ছে।আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। এটা দেখায় দিদি মতুয়াদের ঘৃণা করে। বিজেপির টুইটের জবাবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন,  শান্তনু ঠাকুর, বিজেপি ও CISF-এক সাথে যেভাবে ঠাকুরবাড়ি মন্দিরে  জুতা পরে প্রবেশ করেছে তাতে ঠাকুরবাড়ির জায়গার অসম্মান করা হয়েছে এবং মহিলা ভক্তদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার নিন্দা জানাই।তারা রাজনীতির নামে ঠাকুরবাড়ির পবিত্রতা ক্ষুন্ন করেছে।

এদিকে রাজনৈতিক মহল মনে করছে ঠাকুরবাড়ির মান সম্মান নিয়ে দুই দলের লড়াই মূলত মতুয়া ভোট ব্যাঙ্কের লড়াই। সামনে যেহেতু পঞ্চায়েত নির্বাচন তাঁর আগে সব দল চায় মতুয়া ভোট বাঙ্ককে নিজেদের অনুকূলে রাখতে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


রবি কিরণে “আদিত্য”

ড. সায়ন বসুঃ বীর "বিক্রমে" চাঁদের মাটিতে পা রাখার পর এবার ভারতীয় মহাকাশ গবেষণাকেন্দ্র (ISRO)-এর লক্ষ্য সূর্য | আমাদের ৮টি গ্রহ (প্লুটো এখন বামন গ্রহের তালিকায়) যাকে কেন্দ্র করে ঘুরছে সেই সূর্যের দিকে পাড়ি দিয়েছে "আদিত্য" ২রা সেপ্টেম্বর| চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণের ১০ দিনের মাথায় আদিত্যকে সূর্যের উদ্দেশ্যে পাঠিয়ে দিয়ে ISRO বাকি বিশ্বের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রগুলির কাছে যে একটি শক্তিশালী বার্তা পৌঁছে দিতে পেরেছে তা বলাই বাহুল্য| আদিত্য মিশনের সূচনা ২০০৮ সালের জানুয়ারী মাসে মহাকাশ বিজ্ঞান সম্পর্কিত একটি উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে|প্রাথমিকভাবে ঠিক করা হয় যে একটি ছোট এবং কম ওজনের (৪০০ কেজি) কৃত্রিম উপগ্রহকে low Earth orbit (LEO ;লিও) যে কক্ষপথের উচ্চতা ১,২০০ কিলোমিটারের থেকে কম সেখানে পাঠানো হবে এবং তার কাজ হবে সূর্যের একদম যে বাইরের স্তর যাকে আমরা সৌর-করোনা বলি তার সম্বন্ধে তথ্য পাঠানো। .....বিস্তারিত পড়ুন

এবার চাঁদের পথে জাপান, অবতরণে সময় লাগতে পারে ছয় মাস

উত্তরাপথঃ এ যেন হঠাৎ করে শুরু হওয়া বিভিন্ন দেশগুলির মধ্যে চাঁদে যাওয়ার প্রতিযোগিতা।ভারতের পর এবার চাঁদের পথে পারি দিল জাপান । চাঁদের জন্য SLIM নামে  তাদের নিজস্ব মুন ল্যান্ডার উৎক্ষেপণ করেছে জাপান।  মহাকাশযানটি ৭ সেপ্টেম্বর জাপানের স্থানীয় সময় সকাল ৮.৪২মিনিটে উৎক্ষেপণ করা হয়।  এটিতে জাপানের নিজস্ব  H2A রকেট ব্যবহার করা হয়েছে। এই মহাকাশ যানটি  তানেগাশিমা স্পেস সেন্টার থেকে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে।প্রসঙ্গত দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে জাপান এটিকে নির্দিষ্ট সময়ের চেয়ে ১০ দিন দেরিতে উৎক্ষেপণ করল।মহাকাশযান SLIM ছাড়াও একটি মহাকাশ টেলিস্কোপও পাঠিয়েছে জাপান।উভয় মহাকাশযান এক ঘন্টার মধ্যে তাদের নির্দিষ্ট পথে পৌঁছেছে।  সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে 'স্মার্ট ল্যান্ডার ফর ইনভেস্টিগেটিং মুন' (SLIM) প্রায় চার মাস পর চাঁদে অবতরণ করবে। .....বিস্তারিত পড়ুন

ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো ও বিশ্ব মঞ্চে ভারতের লোকনৃত্য

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতোঃ আমাদের চারিদিকে বিশ্ব দ্রুত বিকশিত হচ্ছে,পরিবর্তিত হচ্ছে শিল্প সাধনার প্রকৃতি। এই পরিবর্তিত শিল্প সাধনার যুগে আমাদের সেই সমস্ত ব্যক্তিদের স্বীকৃতি দেওয়া এবং সম্মান করা অপরিহার্য যারা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও প্রচারে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। এমনই একজন উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব হলেন ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো। নেপাল মাহাতো, যার ছৌনৃত্যের জগতে  দেশে ও বিদেশে অতুলনীয় অবদান তাকে ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান ‘পদ্মশ্রী´এনে দিয়েছে। নেপাল মাহতোর জন্ম ১৭ জুন ১৯৫৪ সালে পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলার বরাবাজার থানার আদাবনা নামে একটি ছোট গ্রামে। তার পিতা স্বর্গীয় নগেন্দ্রনাথ মাহাতো ও মাতা তুষ্ট মাহাতো। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়

বিশ্ব উস্নায়ন এবং তাকে কেন্দ্র করে জলবায়ু পরিবর্তন একবিংশ শতাব্দীর অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। এটি  ধীরে ধীরে একাধিক উপায়ে মানব সমাজকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করছে এবং অদূর ভবিষ্যতে এটি প্রায় অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।ইতিমধ্যে এটি আমাদের পরিবেশ, অর্থনীতি এবং আমাদের জীবন যাত্রার উপর ব্যাপক ভাবে প্রভাব দেখাতে শুরু করেছে ।সদ্য হয়ে যাওয়া হিমাচল প্রদেশের বন্যা আমাদের সামনে বেশ কিছু প্রশ্ন তুলে দিল । এবছর হিমাচল প্রদেশে বর্ষাকালে রেকর্ড পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয়েছে ,যা বিগত কয়েক বছরের তুলনায় বহু গুণ বেশী।  ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, হিমাচল প্রদেশে ১ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত গড় বৃষ্টিপাত হয়েছে ২৪৯.৬ মিমি যা স্বাভাবিক গড় ৭৬.৬ মিমি থেকে প্রায় ৭০% বেশী .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top