মশার কামড়ের কারণ আপনার সাবান নয়তো ?

উত্তরাপথ: মশার কামড়ের কারণ আপনার সাবান সম্প্রতি গবেষণাতে এমন চমকপ্রদ তথ্য উঠে এসেছে । মশা এক কুখ্যাত পতঙ্গ সেই বিষয়ে সন্দেহ নাই। সাধারণ ভাবে দেখা গেছে মশা কিছু মানুষকে অন্যদের তুলনায় একটু বেশী কামড় দেয়। ভার্জিনিয়া টেকের একদল বিজ্ঞানী আবিষ্কার করেছেন যে নির্দিষ্ট ধরণের সাবানের ব্যবহার আপনার প্রতি মশার আকর্ষণ বাড়তে পারে।আমাদের প্রতিটি ব্যক্তির শরীরের আলাদা গন্ধ রয়েছে। সাবান ব্যবহারের পর মিথস্ক্রিয়ার কারণে এই সাবানগুলির প্রভাব ব্যক্তিদের মধ্যে পরিবর্তিত হয়।সম্প্রতি আইসায়েন্স (iScience) জার্নালে এই তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।  

যদিও অনেকগুলি কারণ ব্যক্তির প্রতি  মশার আকর্ষণে অবদান রাখে, সাম্প্রতিক গবেষণা পরামর্শ দেয় যে মশার কামড়ের কারণ আপনার সাবান । ভুল সাবানের ব্যবহার আপনাকে সম্ভাব্যভাবে মশা চুম্বকে  পরিণত করতে পারে। এই নিবন্ধটি সাবানের পছন্দ এবং মশার আকর্ষণের মধ্যে সংযোগ অন্বেষণ করে, সেই কষ্টকর কামড় এড়ানোর জন্য মূল্যবান অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করবে।

এটি লক্ষণীয় যে একই ব্যক্তি একটি সাবান ব্যবহার করে মশার কাছে অত্যন্ত আকর্ষণীয় হয়ে উঠতে পারে,আবার অন্য সাবান ব্যবহার করার ফলে মশা তার প্রতি বিদ্বেষী হয়ে উঠতে পারে,” বলেছেন সিনিয়র লেখক এবং নিউরোথোলজিস্ট ক্লেমেন্ট ভিনাগার।

মশারা মূলত কার্বন ডাই অক্সাইড, তাপ এবং ত্বকে উপস্থিত কিছু রাসায়নিকের গন্ধ দ্বারা মানুষের প্রতি আকৃষ্ট হয়। এই রাসায়নিকগুলি, যেমন ল্যাকটিক অ্যাসিড এবং অ্যামোনিয়া,যা আমাদের দেহে প্রাকৃতিকভাবে উৎপাদিত হয় । লন্ডন স্কুল অফ হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিক্যাল মেডিসিন পরিচালিত গবেষণায় দেখা গেছে যে নির্দিষ্ট কিছু সাবান একজন ব্যক্তির প্রতি মশার আকর্ষণকে উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত করতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে মশারা এমন ব্যক্তিদের প্রতি বেশি আকৃষ্ট হয় যারা ফুল বা ফলের সুগন্ধযুক্ত সাবান ব্যবহার করেছে। এই সুগন্ধগুলি শরীরের প্রাকৃতিক গন্ধকে ঢেকে দেয় যা সাধারণত মশা তাড়াতে পারে।সাবান ছাড়াও বিভিন্ন সুগন্ধি, যেমন সুগন্ধযুক্ত সাবান, লোশন এবং পারফিউমও মশা সহ অন্যান্য পোকামাকড়কে আকর্ষণ করতে পারে, সেই সাথে কামড়ের সম্ভাবনা বাড়ায়।

আপনার প্রতি মশার আকর্ষণ কমাতে, কম সুগন্ধি যুক্ত সাবান বেছে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। DEET, picaridin, বা লেবু ইউক্যালিপটাসের তেলের মতো উপাদান রয়েছে এমন সাবানগুলি ব্যবহার করুন, যা প্রমাণিত মশা নিরোধক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই সাবানগুলি মশাকে আকর্ষণ করে এমন রাসায়নিক সংকেত প্রেরন করতে সাহায্য করতে পারে, যা আপনাকে এই বিরক্তিকর পোকামাকড়ের কাছে কম আকর্ষণীয় করে তোলে।

সঠিক সাবান বেছে নেওয়ার পাশাপাশি, মশার আকর্ষণ কমানোর জন্য আপনি অন্যান্য ব্যবস্থা নিতে পারেন। এর মধ্যে রয়েছে:

১. মশারা গাঢ় রঙের প্রতি আকৃষ্ট হয়, তাই হালকা রঙের পোশাক পরলে তা আপনাকে কম দেখাতে পারে।

২. পারফিউম, সুগন্ধি লোশন, এমনকি ফ্যাব্রিক সফটনার মশাকে আকর্ষণ করতে পারে। যখনই সম্ভব গন্ধ বিহীন পণ্যগুলি বেছে নিন।

৩. মশা স্থির জলে বংশবৃদ্ধি করে, তাই নিয়মিতভাবে আপনার আশেপাশের জলের পাত্রগুলি খালি করে পরিষ্কারের করা উচিত,যা মশার  সংখ্যা কমাতে সাহায্য করতে পারে৷

৪.  মশা তাড়ানোর স্প্রে বা লোশন প্রয়োগ করুন ।

যদিও অনেকগুলি কারণ ব্যক্তির প্রতি মশার আকর্ষণে অবদান রাখে, তবে সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে মশার কামড়ের কারণ সাবান যা আপনার প্রতি মশার আকর্ষণ বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। ফুলের বা ফলের সুগন্ধযুক্ত সাবানগুলি শরীরের প্রাকৃতিক  গন্ধকে দূর করে আপনাকে মশার কাছে আরও আকর্ষণীয় করে তোলে।সুতরাং মশা চুম্বক হওয়া এড়াতে, অগন্ধযুক্ত বা পোকামাকড়ের কাছে  বিরক্তিকর গন্ধযুক্ত সাবান বেছে নিন , যা আপনার প্রতি এই বিরক্তিকর পোকামাকড়ের আকর্ষণ কমাতে সাহায্য করবে। উপরন্তু, অন্যান্য মশা প্রতিরোধের ব্যবস্থা অনুসরণ করুন, যেমন হালকা রঙের পোশাক পরা এবং মশা তাড়ানোর ওষুধ ব্যবহার করা, যাতে কামড়ানোর সম্ভাবনা আরও কম করা যায়।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


রাতের ঘামের সমস্যা এবং এ সম্পর্কে আপনি কি করতে পারেন  

উত্তরাপথঃ রাতের ঘামের সমস্যা শরীরের কুলিং সিস্টেমের একটি স্বাভাবিক অংশ, তাপ মুক্তি এবং সর্বোত্তম শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে।তবে রাতের ঘাম একটি সাধারণ সমস্যা যা বিভিন্ন কারণে হতে পারে।এর  অস্বস্তিকর অনুভূতির জন্য ঘুম ব্যাহত হতে পারে, যার ফলে ক্লান্তি এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। আপনি যদি রাতে অতিরিক্ত ঘাম অনুভব করেন, তাহলে তার অন্তর্নিহিত কারণটি চিহ্নিত করা এবং এটি মোকাবেলার জন্য কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এখানে রাতের ঘামের কিছু সম্ভাব্য কারণ নিয়ে আলোচনা করা হল।মেনোপজ: যে কেউ, বয়স বা লিঙ্গ নির্বিশেষে, রাতের ঘাম অনুভব করতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

World’s most polluted cities: নয়াদিল্লি, মুম্বাই এবং কলকাতা বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়

উত্তরাপথঃ দিওয়ালি উদযাপনের একদিন পর জাতীয় রাজধানী নয়াদিল্লি, মুম্বাই এবং কলকাতা বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের (World’s most polluted cities) তালিকায় উঠে এসেছে।সোমবার, অর্থাৎ দীপাবলির পরের দিন এই শহরগুলির বায়ুর গুণমান উল্লেখযোগ্য মাত্রায় খারাপ হয়েছে।বায়ুর গুনমান খারাপ হওয়ার পেছনে মাত্রাতিরিক্ত আতশবাজি জ্বালানোকে দায়ী করা হয়েছে। আমাদের বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের (World’s most polluted cities) তালিকায় যথারীতি প্রথম স্থান দখল করেছে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি। দীপাবলির পরের দিন এটির AQI (এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স) পরিসংখ্যান ছিল ৪০৭। নভেম্বরের শুরু থেকে, দিল্লিতে AQI পরিসংখ্যান খারাপ হয়েছে।  সুইস গ্রুপ আইকিউএয়ার শহরের বাতাসকে "বিপজ্জনক" বিভাগে রেখেছে।ভারতের আর্থিক রাজধানী মুম্বাই বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়(World’s most polluted cities), ১৫৭ এর AQI সহ ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে। কলকাতা ১৫৪ এর AQI সহ সপ্তম স্থানে রয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

সহযাত্রী

দীপা - আর তো এগারো বছর আটমাস বারোদিন চাকরি , তাই না ? অংশু - বাপরে বরাবরই তোমার স্মৃতিশক্তি প্রবল , এতোটা মনে আছে ? দীপা- ঘোরো টো টো করে আর কটা বছর , আফটার রিটায়ার্ড মেন্ট কি করবে ? অংশু - ফার্ম হাউস ,গাছপালা পশুপাখি নিয়ে থাকবো। দীপা- বাঃ উন্নতি হয়েছে। যে অংশুবাবু কখনও একটা ফুলের চারা লাগায়নি সে কিনা ফার্ম হাউস করবে … অংশু - সময়ের সাথে সব বদলায় ম্যাডাম , আচ্ছা তোমার কনুইয়ের নীচে সেই পোড়া দাগটা দেখি তো গেছে কিনা … দীপা- তুমি অনেক রোগা হয়ে গেছো , তা ওজন কত শুনি ? অংশু - সত্তর বাহাত্তর হবে বোধহয় মাপিনি, দীপা - তা কেনো মাপবে ? একটা অগোছালো মানুষ। অংশু - যাক বাবা তাও অপদার্থ শব্দ টা বলোনি। দীপা - ভাবোনা ডিভোর্স হয়েছে বলে সে অধিকার নেই। সমাজ বিজ্ঞানের অধ্যাপক হয়েও আসলে সমাজটাই শেখোনি , আর কি শিখেছো বলো, ঐ ছেলে পড়ানো , সেমিনার আর লেখালেখি। তা ধন্যবাদ তোমার রূপালী ঠৌট উপন্যাস এবছর একাডেমি পেলো , দারুণ লেখো তুমি, আগের চেয়ে অনেক ধার। অংশু- বাঃ তুমি পড়েছো ? দীপা- সব পড়েছি , তোমার রিসেন্ট উপন্যাসের নায়িকা মেঘনা টি কে ? মানে কার আড়ালে কাকে লিখেছো ? অংশু - এও কি বাংলা সাহিত্যের অধ্যাপিকাকে বলে দিতে হবে ? দীপা- বারোটা বছর সময়ের শাসনে অনেক বদলালেও আমি বোধহয় সেই বড্ড সেকেলেই রয়ে গেলাম। অংশু - একা একাই কাটিয়ে দিলে বারো বছর। দীপা- একই প্রশ্ন আমিও করতে পারি। অংশু - আচ্ছা দীপা আজ না হয় শেষবারের মতো বলি, আমার মধ্যে কি ছিলো না বলোতো ? কেনো পারোনি এই বাউন্ডুলে ভবঘুরে মানুষটার সাথে চিরকালের ঘর বাঁধতে ? আমি কি ভালোবাসতে জানি না ? .....বিস্তারিত পড়ুন

Electoral Bond এর গোপনীয়তা সরিয়ে রাজনৈতিক দলগুলিকে, জানাতে হবে প্রাপ্ত অনুদানের পরিমাণ

উত্তরাপথঃ বুধবার, নির্বাচনী বন্ড (Electoral Bond)প্রকল্পের আইনি বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে আবেদনের শুনানি হয়। শীর্ষ আদালত তার মন্তব্যে বলেছে, 'নির্বাচনী বন্ডগুলি রাজনৈতিক দলগুলিকে বেনামী অর্থ প্রদান করে, কারণ তাদের কেনাকাটা সম্পর্কিত রেকর্ডগুলি স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার কাছে উপলব্ধ যা শুধুমাত্র তদন্তকারী সংস্থাগুলি অ্যাক্সেস করতে পারে৷ এর আগে নির্বাচনী বন্ড’ (Electoral Bond) সংক্রান্ত মামলায় সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) কেন্দ্র দাবি করেছিল, রাজনৈতিক দলগুলির আয়ের উৎস জানার অধিকার নেই জনতার।এবার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তৎপর হল নির্বাচন কমিশন (Election Commission of India)।বুধবার বিকেল ৫টার মধ্যে যাবতীয় হিসেব জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে কমিশনের তরফে।নির্বাচনী বন্ডের (Electoral Bond)মামলায় কেন্দ্রের আর্জি সত্বেও সুপ্রিম কোর্ট রাজনৈতিক দলগুলিকে আয়ের উৎস জানাতে বলেছিল। আদলত নির্দেশ দিয়েছিল, গত ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোন রাজনৈতিক দল কত অনুদান মিলেছে, সেই তথ্য বন্ধ খামে জানাতে হবে।এর আগেও নির্বাচনী বন্ডের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে একাধিক মামলা হয়েছে শীর্ষ আদালতে। মামলাকারীরা অভিযোগ করেছিলেন, রাজনৈতিক দলগুলি এই নির্বাচনী বন্ডের মাধ্যমে অবৈধ অর্থ বিদেশ থেকে পেতে পারে এর ফলে গণতন্ত্র ধ্বংস হবে। যদিও কোনও রাজনৈতিক দলই এই দাবি মানতে চায়নি। ৩ অক্টোবর মামলার শুনানিতে প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ নির্দেশ দেয়, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সব তথ্য দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। এই রায়ের পরেই তৎপর হল কমিশন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top