মহাকাশের জঞ্জাল

ডঃ সায়ন বসু

বিশ্বের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ, স্পুটনিক-১ যা মহাকাশে পাঠানো হয়েছিল ৪ অক্টোবর, ১৯৫৭| ছবি – নাসা

“আজ মঙ্গলবার | পাড়ার জঙ্গল সাফ করবার দিন |” সহজ পাঠের তৃতীয় পাঠের এই লাইনটি মনে নেই এমন বাঙালীর সংখ্যা বেশ কম। পাড়ার জঙ্গল সাফ করার দিন এবং মানুষজন থাকলেও মহাকাশে যে জঞ্জাল ৬০-এর দশক থেকে জমা হচ্ছে তার কি হবে ? ইউরোপিয় মহাকাশ সংস্থার (ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি বা ESA) দু’বছর আগের একটি হিসেব অনুযায়ী মহাকাশে যে জঞ্জাল জমা আছে তার ওজন প্রায় ৯,৬০০ টন (১ টন = ১,০০০ কেজি)। এখন প্রশ্ন হল কে বা কারা এই জঞ্জাল সাফ করার দায়িত্ব নেবে ?

১৯৫৭ সালে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের পাঠানো স্পুটনিক-১ কৃত্রিম উপগ্রহ দিয়ে আমাদের মহাকাশযাত্রা শুরু কিন্তু কে জানতো এমন একটা দিন আসবে যখন পৃথিবীর কক্ষপথে ২৫,০০০-এরও বেশি জঞ্জাল ভেসে বেড়াবে! ‘স্পেস জাঙ্ক’ বা মহাকাশের আবর্জনা (বা জঞ্জাল) কাকে বলে? এক কথায় বলতে গেলে মানুষের পাঠানো কৃত্রিম উপগ্রহ থেকে শুরু করে রকেটের ধ্বংসাবশেষ সাথে আরও নানান যন্ত্রপাতি যেগুলোর আয়ু ফুরিয়ে যাওয়ার পরেও মহাকাশে ভেসে বেড়াচ্ছে তাদেরই বলা হয় মহাকাশের আবর্জনা।  যেমন ধরা যাক আমাদের সবার প্রিয় হাবল স্পেস টেলিস্কোপ এখন যার বয়স ৩৩ বছর এবং মনে করা হচ্ছে ২০৪০ সাল অব্দি সেটি সক্রিয় থাকবে অর্থাৎ আমাদের নতুন নতুন ছবি তুলে পাঠাবে এবং মহাবিশ্ব সম্বন্ধে আরও তথ্য জানতে সাহায্য করবে। কিন্তু ২০৪০ সালের পরে কি হবে টেলিস্কোপটির? কাজ করা থেমে গেলেও টেলিস্কোপটি কিন্তু মহাকাশেই থেকে যাবে। আজকে যেটি আমাদের কাছে এক অনন্য যন্ত্র আজ থেকে বেশ কিছু বছর পরে সেটিই হয়ে যাবে মহাকাশের আবর্জনা।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ প্রতিনিয়ত মহাকাশে কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাচ্ছে নানান বৈজ্ঞানিক গবেষণা বা মানবজাতির কল্যাণের স্বার্থে। এরই সাথে বেড়ে যাচ্ছে ভবিষ্যতের আবর্জনার সংখ্যাও। জার্মান সংস্থা Statista-এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী মহাকাশে যে পরিমান আবর্জনা আছে তার সিংহভাগ রাশিয়ার দখলে (আবর্জনার সংখ্যা প্রায় ৭,০০০), দ্বিতীয় স্থানে আমেরিকা (আবর্জনার সংখ্যা প্রায় ৫,২০০) এবং তৃতীয় স্থানে চীন (আবর্জনার সংখ্যা প্রায় ৪,০০০)। ভারত এই তালিকায় আছে ষষ্ঠস্থানে (আবর্জনার সংখ্যা মাত্র ১১৫) অর্থাৎ তুলনামূলকভাবে এখনও পর্যন্ত মহাকাশ বেশি অপরিষ্কার করেনি।  

মহাকাশে ছড়িয়ে থাকা পরিতক্ত্য উপগ্রহ এবং রকেটের ধ্বংসাবশেষ |  ছবি – ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি

কার্যকরী সময়কাল শেষ হয়ে যাওয়ার পরে কৃত্রিম উপগ্রহগুলি পরিতক্ত্য হয়ে যায় এবং পৃথিবীর কক্ষপথে ঘুরতেই থাকে যা কিনা এক প্রকার ভয়ঙ্কয় প্রভাব ফেলতে পারে ভবিষ্যতে কৃত্রিম উপগ্রহ বা মহাকাশযান উৎক্ষেপণে। যেমন ধরুন, এই মুহুর্তে প্রায় ২,০০০-এর কাছাকাছি সক্রিয় কৃত্রিম উপগ্রহ ঘুরছে পৃথিবীর কক্ষপথে সাথে ঘুরছে প্রায় ৩,০০০-এর কাছাকাছি পরিত্যক্ত হয়ে যাওয়া কৃত্রিম উপগ্রহ। এইভাবে যদি পরিত্যক্ত হয়ে যাওয়া উপগ্রহের সংখ্যা আমাদের কক্ষপথে বাড়তে থাকে তাহলে একটা সময় পরে যে কোনও উপগ্রহ বা মহাকাশযান উৎক্ষেপণে প্রবল সমস্যা দেখা দিতে বাধ্য কারণ উৎক্ষেপণের পরে মহাকাশে সংঘর্ষ ঘটার সম্ভাবনার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাবে না। এর ফলে হয়ত আমরা কোনও মহাকাশচারীকেও হারাতে পারি। এছাড়াও পরিত্যক্ত হয়ে যাওয়া যন্ত্রাংশের বড় টুকরোগুলো পৃথিবীতেও আছড়ে পড়তে পারে যখন তখন যা কিনা আমাদের জন্যে বেশ চিন্তার বিষয়। যেমন ধরুন ১৯৮৪ সালে পৃথিবীর নিম্নকক্ষপথে পাঠানো নাসার  Earth Radiation Budget Satellite (ERBS)। প্রায় ২,৫০০ কিলোগ্রাম ওজনের এই কৃত্রিম উপগ্রহটি ৩৮ বছর পরে ২০২২ সালের জানুয়ারী মাসে আছড়ে পড়েছে পৃথিবীর বুকে। আবার এর আগের বছরই জুলাই আর নভেম্বর মাসে দু’টো রকেটের (চীনের লং মার্চ ৫-বি) ধ্বংসাবশেষ আছড়ে পড়েছে যার ওজন কিনা প্রায় ২৩ টন! যদিও এই দুটি ঘটনাতেই কেউ আহত হননি কিন্তু কে বলতে পারে যে ভবিষ্যতে কেউ গুরুতর আঘাত পাবেন না ! 

আমেরিকার এয়ার ফোর্সের আধিকারিকরা প্রায় ২২০ কিলোগ্রাম ওজনের একটি রকেটের ধ্বংসাবশেষ সংগ্রহ করছেন যা কিনা মঙ্গোলিয়াতে আছড়ে পড়েছে | ছবি – U.S Air Force

তাহলে কি এই সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়ার কোনও উপায় নেই? ইঞ্জিনিয়ার এবং বিজ্ঞানীরা বেশ কিছু উপায় বা পদ্ধতি বের করেছেন মহাকাশের জঞ্জালের সংখ্যা কমানোর জন্যে। এগুলির মধ্যে অন্যতম হল কোনও একটি বা অনেক পরিতক্ত্য যন্ত্রাংশকে কক্ষচ্যুত করে পৃথিবীতে ফিরিয়ে নিয়ে আসা। এই কাজটি করার জন্যে RemoveDEBRIS নামে একটি মিশন শুরু করা হয়েছে যার তত্ত্বাবধানে আছে ইংল্যান্ডের সারে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত সারে মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র। এই মিশনের অন্তর্গত বেশ কিছু পদ্ধতি ইতিমধ্যেই সফলভাবে পরীক্ষা করা হয়েছে মহাকাশে। এই মিশনের কাজ অনেকটা পুকুরে জাল ফেলে মাছ ধরার মতো। প্রথমে একটি কৃত্রিম উপগ্রহ থেকে বেশ বড় আকারের একটি জাল একটি পরিতক্ত্য উপগ্রহ বা অন্য কোনও যন্ত্রাংশের দিকে তাক করে ছোড়া হবে এবং সেটিকে জালবন্দী করে পৃথিবীতে ফেরত নিয়ে আসা হবে অথবা কক্ষপথ থেকে বের করে দেওয়া হবে এমন ভাবে যাতে করে সেটি পৃথিবীর কোনও মরুভূমি বা সাগরে পরে। এছাড়াও ইউরোপিয় মহাকাশ সংস্থা (ESA) থেকে ClearSpace-1 নামক একটি মিশন শুরু করা হয়েছে যার মাধ্যমেও ভবিষ্যতে মহাকাশ থেকে অকেজো, পরিতক্ত্য রকেটের যন্ত্রাংশ, কৃত্রিম উপগ্রহ ইত্যাদি পৃথিবীতে ফিরিয়ে নিয়ে আসা যায়।

তাই আপাত দৃষ্টিতে আজকের দিনে মহাকাশকে বা বলা ভালো পৃথিবীর কক্ষপথকে জঞ্জাল মনে হলেও ভবিষ্যতে যাতে করে জঞ্জাল সাফ করা যায় সেই চেষ্টাও নিরন্তর করে চলছেন নানান দেশের বিজ্ঞানীরা।

RemoveDEBRIS মিশনের একটি পরীক্ষামূলক পদ্ধতির ছবি | সৌজন্যে – বিবিসি

লেখক University of the Witwatersrand এর Centre for Astrophysics-এ কর্মরত গবেষক।

খবরটি শেয়ার করুণ

1 thought on “মহাকাশের জঞ্জাল”

  1. Pingback: Indian Astronomy: ভারতবর্ষ এবং জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চা (প্রথম কিস্তি) - উত্তরাপথ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


টিউমার নির্মূল এর নতুন থেরাপিউটিক যা স্থায়ীভাবে গ্যাস্ট্রিক ক্যান্সার দূর করে

উত্তরাপথ: একটি বহু-প্রাতিষ্ঠানিক গবেষণা দল একটি অভিনব ক্যান্সার থেরাপিউটিক তৈরি করেছে, অ্যান্টিবডি টুকরোগুলিকে আণবিকভাবে তৈরি করা ন্যানো পার্টিকেলগুলির সাথে একত্রিত করে, যা গ্যাস্ট্রিক ক্যান্সারে আক্রান্ত ইঁদুরের ক্যান্সারকে স্থায়ীভাবে নির্মূল করে। "হিট অ্যান্ড রান" ড্রাগ ডেলিভারি সিস্টেম, কর্নেল প্রাইম ডটস (সি' ডটস) নামে পরিচিত, এটি বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সারের জন্য একটি বহুমুখী এবং অভিযোজনযোগ্য চিকিত্সা হিসাবে সম্ভাব্যতা দেখায়, ন্যূনতম পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া এবং বিষাক্ততার সাথে। গবেষকদের একটি বহু-প্রাতিষ্ঠানিক দল আবিষ্কার করেছে যে একটি নতুন ক্যান্সার থেরাপিউটি .....বিস্তারিত পড়ুন

১ কোটি টাকার মানহানির মামলা প্রাক্তন CJI রঞ্জন গগৈয়ের বিরুদ্ধে

উত্তরাপথ: গুয়াহাটির একটি স্থানীয় আদালতে আসাম পাবলিক ওয়ার্কসের (এপিডব্লিউ) সভাপতি অভিজিৎ শর্মার রাজ্যসভার সাংসদ এবং ভারতের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি (সিজেআই) রঞ্জন গগৈয়ের বিরুদ্ধে ১কোটি টাকার মানহানির মামলা করেছে।  অভিজিৎ শর্মার অভিযোগ রঞ্জন গগৈ তার আত্মজীবনী জাস্টিস ফর এ জাজে  তার বিরুদ্ধে বিভ্রান্তিকর এবং মানহানিকর বিবৃতি প্রকাশ করেছে । তাই তিনি প্রকাশক গগৈ এবং রুপা পাবলিকেশন্সের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেন  এবং কোনও বই প্রকাশ, বিতরণ বা বিক্রি করা থেকে বিরত রাখার জন্য অন্তবর্তী .....বিস্তারিত পড়ুন

কার্বন নিঃসরণ দ্রুত শেষ করার জন্য G7 ঐক্যমত

উত্তরাপথ: বিশ্বের সাতটি ধনী দেশের শক্তি ও পরিবেশ মন্ত্রীরা সম্প্রতি  জ্বালানি এবং পরিবেশগত ইস্যুতে উত্তর জাপানের শহর সাপোরোতে বৈঠক করেন।  G-7 বৈঠকে জড়ো হওয়া বিভিন্ন দেশের আধিকারিকরা তাদের প্রতিশ্রুতির রূপরেখা দিয়ে একটি কমিউনিক জারি করেছে। বৈঠকে বর্তমান সঞ্চিত জ্বালানি সংকট এবং ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নকে সমান গুরুত্ব দিয়ে, আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে নেট-জিরো গ্রিনহাউস গ্যাস (GHG) নির্গমনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। সমস্ত নেতারা দক্ষ, সাশ্রয়ী মূল্যের এবং দূষণ মুক্ত শক্তির উৎস সন্ধানের গুরুত্বকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এর আগেও .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top