মহারানী পদ্মাবতী এবং জোহরের ঐতিহ্য: সাহস ও আত্মত্যাগের এক গল্প

মহারানী পদ্মাবতী উদয়পুরে এই দুর্গে থাকতেন ছবি সৌজন্য -উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃ ভারতের ইতিহাসে, এমন অনেক গল্প রয়েছে যা সময়কে অতিক্রম করে আমাদের সম্মিলিত চেতনায় এক অমোঘ চিহ্ন রেখে যায়। তেমনই একটি গল্প মহারানী পদ্মাবতী ও জোহরের ঐতিহ্য। সাহস, সম্মান এবং ত্যাগের এই গল্প প্রজন্মের পর প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করেছে এবং আমাদের কল্পনাকে মুগ্ধ করে চলেছে।

ভারতীয় ইতিহাসের পাতায় অত্যন্ত সুন্দরী ও সাহসী মহারানী পদ্মাবতী’র উল্লেখ আছে।  রানী পদ্মাবতী রানী পদ্মিনী নামেও পরিচিত।  রানী পদ্মাবতীর পিতা ছিলেন সিংহল প্রদেশের (শ্রীলঙ্কা) রাজা গন্ধর্বসেন।ইতিহাসে রানী পদ্মিনী তার ব্যতিক্রমী সৌন্দর্য, বুদ্ধিমত্তা এবং বীরত্বের জন্য পরিচিত হলেও, তিনি করুণা এবং শক্তির প্রতীক হিসেবেও পরিচিত ছিলেন। দিল্লির শক্তিশালী শাসক আলাউদ্দিন খিলজি তার অতুলনীয় সৌন্দর্যের কথা শুনে তাকে অধিকার করার সংকল্প করেছিলেন।

মহারানী পদ্মাবতী উদয়পুরে এই স্থানে গ্রীস্মকালে থাকতেন ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

এর অঙ্গ হিসাবে খিলজি চিতোরগড় দুর্গ অবরোধ করেন এবং রাজা রতন সিংকে বার্তা পাঠান যে তিনি রাণী পদ্মাবতীর সঙ্গে দেখা করতে চান।  তাদের সঙ্গে দেখা করে তিনি সেখান থেকে চলে যাবেন। রতন সিং-এর প্রাসাদে পৌঁছেও খিলজি রানীর মুখ দেখতে পাননি।  কারণ রাজপুত প্রথা অনুযায়ী সেইসময় রানীরা অপরিচিত কাউকে মুখ দেখাতেননা পর্দানশীন থাকতেন।এটি জেনেও খিলজি রতন সিংকে অনুরোধ করেন যে তিনি রানীকে দেখতে চান কিন্তু রানী তা প্রত্যাখ্যান করেন।  রতন সিং রানীকে বুঝিয়ে দিলেন যে খিলজি অনেক বড় সাম্রাজ্যের সুলতান।  তাকে অস্বীকার করা ঠিক হবে না।  সব জেনে রানী রাজি হলেন কিন্তু রানী শর্ত দিলেন যে খিলজি তাকে আয়নায় দেখতে পাবে এবং তাও রতন সিং ও কিছু দাসীর সামনে।খিলজি এই শর্ত মেনে নেন।

মহারানী পদ্মাবতীর জহরের প্রতিকী ছবি।

আয়নায় মহারানী পদ্মাবতীকে দেখার সাথে সাথে খিলজি রানীর প্রেমে পড়েন এবং তার সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে যান, এরপর একই দিনে তিনি তার সৈন্যদের সহায়তায় রাজা রতন সিংকে প্রতারণার মাধ্যমে বন্দী করেন।রাজার বিনিময়ে রানী পদ্মিনীর দাবি জানাতে থাকে।এরপর মহারানী পদ্মাবতী শর্ত দেন সুলতানকে সেই মত পরের দিন, ভোরবেলা, ১৫০টি পালকি দুর্গ থেকে খিলজির শিবিরের দিকে রওনা হয়।  রতন সিংকে যেখানে বন্দী করে রাখা হয়েছিল সেখানে পালকি থামল।  পালকিগুলো দেখে রতন সিং ভাবলেন, ওই পালকিগুলো দুর্গ থেকে এসেছে এবং রাণীও নিশ্চয়ই তাদের সঙ্গে এখানে এসেছেন। তখন রাজা নিজেকে খুব অপমানিত বোধ করতে থাকে। এরপর রাজা দেখেন পালকিতে রাণী বা দাসী কেউই নেই। সশস্ত্র সৈন্যরা পালকির মধ্য থেকে বেরিয়ে এসে রতন সিংকে মুক্ত করে । এরপর আলাউদ্দিনের সৈন্যদের সাথে লড়াই করতে গিয়ে রতন সিং নিহত হন।  এই তথ্য পাওয়ার পর রানী পদ্মাবতী ভাবলেন যে এখন সুলতানের বাহিনী চিতোরের সমস্ত পুরুষকে হত্যা করবে, তখন চিতোরের মহিলাদের কাছে দুটিই পথ থাকবে, হয় জওহরের প্রতি অঙ্গীকার করা অথবা বিজয়ী বাহিনীর সামনে তাদের অপমান সহ্য করা।

কথিত আছে মহারাণী পদ্মাবতী এই শিব মন্দিরে পূজা করতেন । ছবি সৌজন্যে – উত্তরাপথ

রানী প্রথম পথটি গ্রহণ করেন । জওহর হল একটি রাজপুত প্রথা যেখানে মহিলারা, শত্রু বাহিনীর দ্বারা বন্দী এবং অসম্মানের সম্ভাবনার মুখোমুখি হলে, আত্মসমর্পণ করার পরিবর্তে একটি চিতায় আত্মাহুতি দেবার পথ বেছে নেয়। এটি চূড়ান্ত আত্মত্যাগের একটি কাজ, যা গভীর সম্মানের অনুভূতি এবং তাদের সতীত্ব ও মর্যাদা রক্ষার আকাঙ্ক্ষা দ্বারা চালিত হয়।

মহারাণী পদ্মাবতী রাজ্যের অন্যান্য মহিলাদের সাথে জোহর করার বেদনাদায়ক সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।কথিত আছে সেই সময় তিনি ২৫০০০ দাসী সহ মহলের অন্যান্য স্ত্রীলোকদের সঙ্গে নিয়ে   জওহর পালন করেছিলেন।এই কাজটি পরাজয়ের একটি কাজ ছিল না, বরং তাদের নিপীড়ন করতে চাওয়া শক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধের একটি প্রতিবাদী বক্তব্য ছিল। এটি ছিল অটুট সাহসের প্রদর্শন করে, তাদের সম্মান রক্ষা করা এবং তাদের রাজ্যের উত্তরাধিকার রক্ষা করা।

মহারানী পদ্মাবতীর গল্প এবং জোওহরের ঐতিহ্য আমাদের সাথে অনুরণিত হয় কারণ এটি নীতি ও মূল্যবোধের গুরুত্ব তুলে ধরে যা ব্যক্তিজীবনকে অতিক্রম করে। এটি ত্যাগের শক্তি এবং চরিত্রের শক্তির কথা বলে যা প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করতে পারে।তবে গল্পটির সূক্ষ্মতা এবং সংবেদনশীলতার সাথে বিবেচনা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যদিও জোহরের কাজটিকে রাজপুত সংস্কৃতির প্রেক্ষাপটে সাহসিকতা এবং আত্মত্যাগের একটি কাজ হিসাবে দেখা হয়, তবে এটি মনে রাখা অপরিহার্য যে এটি একটি ঐতিহাসিক অনুশীলন যা মহিলাদের স্বায়ত্তশাসন এবং আধুনিক দৃষ্টিভঙ্গির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে। লিঙ্গ সমতা এবং ব্যক্তি পছন্দ প্রচার করার পাশাপাশি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে সম্মান করা গুরুত্বপূর্ণ।আজ, মহারাণী পদ্মাবতীর গল্প এবং জোহরের ঐতিহ্য ইতিহাস জুড়ে নারীদের সম্মান এবং দৃঢ়তার অনুস্মারক হিসাবে কাজ করে।

ভারতীয় পুরাতত্ত্ব বিভাগের দ্বারা চিহ্নিত এতিহাসিক জওহর স্থল। ছবি সৌজন্যে- উত্তরাপথ

মহারাণী পদ্মাবতীর গল্প এবং জওহরের ঐতিহ্য প্রতিকূলতার মুখে নারীদের দ্বারা প্রদর্শিত শক্তি, সাহস এবং ত্যাগের প্রমাণ। এটি মূল্যবোধ এবং নীতির গুরুত্ব তুলে ধরে যা সময়কে অতিক্রম করে  প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করে। যদিও সংবেদনশীলতা এবং বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের প্রতি শ্রদ্ধার সাথে এই গল্পটি বিবেচনা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।এত বছর পরও এটি আমাদের প্রত্যেকের মধ্যে থাকা অদম্য চেতনার অনুস্মারক হিসাবে কাজ করে।

আজও রাজস্থানের চিতর দুর্গে গেলে আমরা সেই স্থানটি দেখতে পাব যেখানে মহারানী পদ্মাবতী জোওহরের ঐতিহ্য পালন করেছিলেন । সেই স্থানটি ভারতীয় পুরাতত্ত্ব বিভাগের দ্বারা চিহ্নিত করে রাখা হয়েছে।  

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Fried rice syndrome: আগের দিনের রান্না করা ভাত খেলে হতে পারে এই বিশেষ অসুখটি

উত্তরাপথঃ আপনার কি বাসী ভাত বা পান্তা খাওয়ার অভ্যেস আছে? সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম (Fried rice syndrome) নিয়ে আমরা প্রায়ই অবশিষ্ট খাবার গরম করে আবার খাই। কিন্তু জানেন কি এই অভ্যাস আপনাকে অসুস্থ করে তুলতে পারে। অনেক সময় পর আগের রান্না করা  ভাত খাওয়ার ফলে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হয়। কেউ কেউ মনে করেন যে খাবার পুনরায় গরম করলে এতে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মারা যায়, কিন্তু তা নয়। যে খাবারেই স্টার্চ থাকে না কেন, এতে উপস্থিত টক্সিন তাপ প্রতিরোধী। অর্থাৎ খাবার গরম করার পরও ব্যাকটেরিয়া নষ্ট হয় না। ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম নামে এই সমস্যা সম্পর্কিত একটি অবস্থা রয়েছে। আজ আমরা এই ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম অবস্থার লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব। ভাত রান্না করার পর, যখন অবশিষ্ট ভাত কয়েক ঘন্টা বা সারারাত ঘরের তাপমাত্রায় রেখে দেওয়া হয় এবং তাতে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে শুরু করে, তখন এই অবস্থার নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম। .....বিস্তারিত পড়ুন

World’s most polluted cities: নয়াদিল্লি, মুম্বাই এবং কলকাতা বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়

উত্তরাপথঃ দিওয়ালি উদযাপনের একদিন পর জাতীয় রাজধানী নয়াদিল্লি, মুম্বাই এবং কলকাতা বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের (World’s most polluted cities) তালিকায় উঠে এসেছে।সোমবার, অর্থাৎ দীপাবলির পরের দিন এই শহরগুলির বায়ুর গুণমান উল্লেখযোগ্য মাত্রায় খারাপ হয়েছে।বায়ুর গুনমান খারাপ হওয়ার পেছনে মাত্রাতিরিক্ত আতশবাজি জ্বালানোকে দায়ী করা হয়েছে। আমাদের বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের (World’s most polluted cities) তালিকায় যথারীতি প্রথম স্থান দখল করেছে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি। দীপাবলির পরের দিন এটির AQI (এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স) পরিসংখ্যান ছিল ৪০৭। নভেম্বরের শুরু থেকে, দিল্লিতে AQI পরিসংখ্যান খারাপ হয়েছে।  সুইস গ্রুপ আইকিউএয়ার শহরের বাতাসকে "বিপজ্জনক" বিভাগে রেখেছে।ভারতের আর্থিক রাজধানী মুম্বাই বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়(World’s most polluted cities), ১৫৭ এর AQI সহ ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে। কলকাতা ১৫৪ এর AQI সহ সপ্তম স্থানে রয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

প্রাপ্তবয়স্কদের স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস সমস্যার সমাধানের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিক

উত্তরাপথঃ সারা বিশ্বের জনসংখ্যার বয়স বৃদ্ধির সাথে স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস এবং ডিমেনশিয়ার মতো নিউরোডিজেনারেটিভ রোগের প্রকোপ বাড়ছে৷ তাদের এই  সমস্যাগুলি যে কেবল তাদের একার সমস্যা তা নয় ,এটি ধীরে ধীরে পুরো পারিবারিক সমস্যার আকার নেয়।সম্প্রতি বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে পুনরুদ্ধার করার জন্য গবেষকদের মধ্যে কার্যকর কৌশল খোঁজার আগ্রহ বাড়ছে।বর্তমানে বেশীরভাগ গবেষক মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের সম্ভাব্য ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । এখন খুব স্বাভাবিকভাবেই একটি প্রশ্ন আসে প্রোবায়োটিক কি? কেনই বা গবেষকরা মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top