জাপান রকেট জ্বালানীতে বায়োমিথেন তৈরিতে গরুর বর্জ্য ব্যবহারের জন্য কাজ করছে

উত্তরাপথঃ একটি জাপানি রাসায়নিক উৎপাদনকারী কোম্পানি তরল বায়োমিথেন তৈরি করতে গরুর বর্জ্য ব্যবহার করার জন্য কাজ করছে যা পরে রকেট জ্বালানী (Rocket Fuel) হিসাবে ব্যবহার করা হবে।রকেট জ্বালানীতে গরুর বর্জ্য ব্যবহার ডায়েরি শিল্পের সাথে যুক্ত বর্জ্য নিষ্পত্তির সমস্যার সমাধান করতে সাহায্য করবে, টোকিওভিত্তিক কিয়োডো নিউজ জানিয়েছে।

এয়ার ওয়াটার ইনকরপোরেটেড (Air Water Inc)সোমবার বলেছে, তারা আসন্ন শরতের মৌসুমে পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরুর পরিকল্পনা করছে। এতে যে তরল বায়োমিথেন তৈরি হবে, তা জাপানি মহাকাশ স্টার্টআপ সংস্থা ইন্টারস্টেলার টেকনোলজিসের (Interstellar Technologies Inc.) নির্মিত একটি রকেটে জ্বালানী হিসাবে ব্যবহার করা হবে। সংস্থাটির সদর দপ্তর জাপানের উত্তর দ্বীপ হোক্কাইডোতে অবস্থিত।

এয়ার ওয়াটার ২০২১ সাল থেকে হোক্কাইডো দ্বীপে তরল বায়োমিথেন উৎপাদনে সক্রিয়ভাবে নিযুক্ত রয়েছে। কিয়োডো নিউজ অনুসারে এই উদ্ভাবনী প্রক্রিয়ায় গোবর ও মূত্রের গাঁজন জড়িত, যা তাইকি শহরের একটি দুগ্ধ খামারে অবস্থিত একটি বিশেষ প্লান্টে করা হবে। পরে প্লান্টে উৎপন্ন বায়োগ্যাস ওবিহিরোতে অবস্থিত একটি কারখানায় পরিবহন করা হবে। কারখানায় পণ্য থেকে মিথেনকে আলাদা করার জন্য সূক্ষ্ম পদ্ধতিগুলো ব্যবহার করা হবে। তারপর এটিকে তরল বায়োমিথেনে রূপান্তরের জন্য একটি শীতল প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে। রকেট মহাকাশে বিস্ফোরিত করার জন্য, শক্তি উৎপন্ন করার জন্য তরল জ্বালানী প্রয়োজন।  যদিও উচ্চ-বিশুদ্ধ মিথেন সাধারণত তরল প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহার করে তৈরি করা হয়, কোম্পানিটি বর্জ্য-উৎসৃত বায়োগ্যাসের মাধ্যমে একই মানের মিথেন তৈরির জন্য কাজ করছে।

গরুর বর্জ্য(Cow waste) থেকে তৈরি জ্বালানি তার ডিভাইসের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে কিনা তা নিশ্চিত করতে ইন্টারস্টেলার টেকনোলজিস দ্বারা পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।কোম্পানির লক্ষ্য একটি ছোট স্যাটেলাইট পেলোড সহ “জিরো” (Zero) রকেটের জন্য এটি ব্যবহার করা।

 কিয়োডো নিউজ অনুসারে এয়ার ওয়াটারের একজন প্রতিনিধি বলেছেন “আমরা কার্বন-নিরপেক্ষ শক্তি ব্যবহার করে রকেটটি উপরে পাঠাতে চাই”।

জাপানের এই সাম্প্রতিক উদ্যোগটি যদি সফল হয় তাহলে দুগ্ধ চাষিদের জন্য বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও মহাকাশ খাতে নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার—উভয় ক্ষেত্রেই বিপ্লব ঘটানোর সম্ভাবনা তৈরি হবে।

রকেট জ্বালানীতে গরুর বর্জ্য ব্যবহার মহাকাশ গবেষণায় একটি আসাধারণ আবিষ্কার ,সেইসাথে এটি পরিবেশগতভাবে একটি সচেতন পদক্ষেপ। গরুর বর্জ্যের সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে, মহাকাশ স্টার্টআপগুলি কেবল নবায়নযোগ্য শক্তির উৎসগুলিই অন্বেষণ করছে না ,সেই সাথে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস এবং একটি দীর্ঘস্থায়ী বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সমস্যার সমাধান করছে। প্রযুক্তির অগ্রগতি এবং গবেষণার অগ্রগতির সাথে সাথে, আমরা এমন এক ভবিষ্যতের সাক্ষী হতে পারি যেখানে গরুর বর্জ্য রকেটকে চালিত করবে এবং একটি দীর্ঘস্থায়ী মহাকাশ গবেষণার জন্য নতুন সম্ভাবনার সূচনা করবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


সম্পাদকীয়

এ যেন বহুদিন পর বিজেপির চেনা ছন্দের পতন। হিমাচল প্রদেশের পর কর্ণাটক কংগ্রেস নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে বিজেপির বিজয়রথকে থামিয়ে দিল ।২০১৮ পর থেকে লাগাতার হারতে থাকা একটি দল আবার ২০২৪ সাধারণ নির্বাচনে প্রাসঙ্গিক হয়ে গেল । ২২৪ সদস্যের কর্ণাটক বিধানসভায় সরকার গঠন করতে গেলে প্রয়োজন ১১৩টি আসন সেখানে কংগ্রেস একাই পেয়েছে ১৩৬টি আসন, বিজেপি পেয়েছে ৬৫ টি এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেবগৌড়ার জেডিএস পেয়েছে ১৯টি এবং অন্যান্য ৪ টি আসন পেয়েছে। যা গতবারের তুলনায় বিজেপির ৩৯ টি আসন কমেছে এবং কংগ্রেসের বেড়েছে ৫৭টি আসন এবং জেডিএসের কমেছে ১৮ টি আসন।   কর্ণাটকে কংগ্রেসের এই সাফল্য কি রাজ্যে কংগ্রেসের শক্তিশালী সংগঠনের ফল না কি কর্ণাটকের আগের ক্ষমতাশীল বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভ । কর্ণাটকে কংগ্রেসে অনেক বড় নেতা রয়েছে।  প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শিবকুমার দক্ষ সংগঠক। আগের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধারামাইয়ার ব্যাপক জনভিত্তি রয়েছে।  ভোটের আগে বিজেপির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জগদীশ শেট্টার এবং উপমুখ্যমন্ত্রী সাভাড়ি কংগ্রেসে যোগ দিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। অন্যদিকে বিজেপির প্রচারের সবচেয়ে বড় মুখ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। বিজেপির প্রচারে সব নেতারাই মোদীর নাম করেই ভোট চেয়েছিলেন কিন্তু শেষ রক্ষা হল না ।কর্ণাটকের বিজেপি সরকারের ব্যাপক দুর্নীতি সেই সাথে কংগ্রেসের লাগাতার প্রচার যা প্রতিষ্ঠান বিরোধিতার সুরকে আরও তীব্র করেছে। তাই শুধুমাত্র মোদী ম্যাজিকের উপর ভর করে নির্বাচন জেতা যে  আর বিজেপির পক্ষে সম্ভব নয় কর্ণাটকের জনগণ চোখে হাত দিয়ে তাই দেখিয়ে দিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

আগামী ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে কি সলমন খানকেও দেখা যাবে কলকাতায় ?

উত্তরাপথ: একেই বলে রথ দেখা কলা বেচা। এলেন ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবের শতবর্ষ উদযাপনের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে,আর বাড়তি পাওনা হিসেবে পেয়ে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে একান্ত সাক্ষাতের সুযোগ।  কালো টয়োটা এসইউভি ডব্লিউবি০২এএন৬৬৪৯ গাড়িতে করে বিকেল ৪টে ২০ মিনিটে পৌঁছেযান মুখ্যমন্ত্রীর কালীঘাটের বাড়িতে। অবশ্য রাস্তায় উপচে পড়া ভিড়ের জন্য দু'বার দাঁড়াতে হয়েছিল গাড়িতে থাকা সুপারস্টারকে। পুলিশি নিরাপত্তার ঘেরাটোপে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে ঢোকে সলমন খান। আগেই নিজের টালির চালার বাড়ির সামনে আটপৌড়ে শাড়িতে অপেক্ষায় .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top