রক্তের সম্পর্ক

অসীম পাঠকঃ নিঃসন্তান মিস্টার এন্ড মিসেস কাঞ্জিলাল দম্পতি প্রচন্ড মনোকষ্টে দিন অতিবাহিত করেন। সব থাকার মধ্যেও একটা অপ্রাপ্তির যন্ত্রনা, একরাশ শূণ্যতা। দিন যাপন আর প্রাণ ধারণের গ্লানি। কতো দিন আর কতোকাল এভাবে মন্দিরে পীরের দরগায় নার্সিং হোমে , চিকিৎসার জন্য বাইরের স্টেটে ছোটাছুটি করবেন, সব তো দেখলেন ডাক্তার , ভগবান কেও পারলো না। অবশেষে তাঁরা হোমে গেলেন মন পরিপূর্ণ সায় না দিলেও নিজেদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে একটা তিন বছরের বাচ্চা দত্তক নিলেন। অফিসিয়ালি কাগজপত্র সব রেডি করে ক্যাশ পেমেন্ট করে বাচ্চাকে বাড়ি আনলেন। নাম রাখলেন অরিজিৎ। খুশী না এলেও কাঞ্জিলাল পরিবারে কিছুটা স্বস্তি এলো। কার না কার রক্ত বইছে এর শরীরে। মাঝে মাঝে একরাশ বিরক্তি ঘৃণা অবজ্ঞা নিয়েই তাঁরা যেনো দায়িত্ব টুকু পালন করতেন ,দুধের সাধ ঘোলে মেটানো আর কি। অরিজিৎকে নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে কলহ শুরু হয়ে গেলো। মাঝখানে করুণ চোখে ফ্যালফ্যাল করে শূণ্যের দিকে তাকিয়ে থাকতো অভাগা অরিজিৎ , এসব কিছুই বুঝতো না নিষ্পাপ অরিজিৎ। এভাবেই দু বছর পেরিয়ে গেলো, অরিজিৎ এখন স্কুল যেতে শুরু করেছে।মি দিলীপ কাঞ্জিলালকে কয়েকদিনের জন্য অফিসের বিশেষ কাজে হেড অফিস মুম্বাই যেতে হয়েছিলো , গৃহ চিকিৎসক মি বিশ্বাসের কাছ থেকে বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতো খবরটা তিনি পান,মিসেস রমা কাঞ্জিলাল এতোদিনে সত্যিই মা হতে চলেছেন। ঈশ্বরের কি বিচিত্র লীলা, কাঞ্জিলাল পরিবারে দেবদূতের আশীর্বাদের মতো স্বর্গ হতে আনন্দ ধারা নেমে আসে যেনো ,দশ মাস দশ দিনের প্রতীক্ষা। এই দশ মাসে অরিজিৎ এর প্রতি বঞ্চনা অবহেলা শতগুণ বেড়েছে। বাড়ির কাজের ছেলেতে পরিণত হয়েছে সে , সবাই যে আসছে তাকে নিয়ে বিভোর। সে যে রক্তের সম্পর্ক ,তার সাথে যে নাড়ির টান। এটাকে এনে কি পাপ যে হলো , এসবে ভাবনাতেই কাঞ্জিলাল দম্পতি বিরক্ত বোধ করতেন। আবার বন্ড করে আনা , ফেলেও দেওয়া যায়না আবর্জনার মতো ডাস্টবিনে। তাহলে তো অনেক হাঙ্গামা সইতে হবে। তাঁরা এটা বুঝতেন না যে অরিজিৎ আসার পরই কাঞ্জিলাল সাহেবের অফিসে পদোন্নতি হয়েছে , নতুন ফ্ল্যাট হয়েছে , মিসেস কাঞ্জিলাল মা হতে চলেছেন।মানুষ দায়ী তার কর্মের জন্য , জন্মের জন্য কেও দায়ী নয়। এই সরল সত্যটা উপলব্ধি করতে মানুষের অনেক দেরী হয় বলেই স্বার্থপরতার প্রাচীর ভেঙে সে বেরিয়ে আসতে পারেনা। মিথ্যা অহংকার আর আভিজাত্যের মোহ মানুষকে তিলে তিলে শেষ করে। পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর জিনিস শিশুর হাসি যাদের চোখে মনে আনন্দের শিহরণ জাগায় না তারা আবার কিসের মানুষ? নীরিহ নিষ্পাপ আরিজিৎ কাঞ্জিলাল দম্পতির ঘৃণা অবজ্ঞা অবহেলায় শুকিয়ে যেতে থাকে। অনিশ্চিত ভবিষ্যতের মুখোমুখি সে।

অবশেষে আসে সেই বহু প্রতীক্ষিত লগ্ন যদিও নির্দিষ্ট সময়ের দু মাস আগেই , ডক্টর ও আশঙ্কা করেছিলেন লেটেস্ট আল্ট্রা সোনাগ্রাফি রিপোর্ট দেখে , ডক্টর বিশ্বাস বলেওছিলেন , বেবী ডিফিকাল্ট সিচুয়েশনে আছে। কমপ্লিটলি বেড রেস্ট, তার উপর রমা দেবীর থাইরয়েড প্রোবলেম। বেশী বয়সে মা হতে চলেছেন। সেই দিনটা এসেই গেলো মি কাঞ্জিলাল অফিসে। পেটে জোর ব্যাথা অনুভব করতেই রমা দেবী ব্যাকুল হয়ে পড়েন। ছ বছরের অরিজিৎ ডক্টর আংকেলকে ফোনে ডাকে , এবং বাচ্চা অরিজিৎ এর তৎপরতায় নার্সিং হোমে আ্যাডমিট করা হয় রমা দেবীকে। মি কাঞ্জিলাল জরুরী মিটিং এ থাকায় মোবাইল সুইচ অফ রেখেছিলেন। ফোন চালু করতেই দেখেন সত্তর টা মিস কল বাড়ির ফোন থেকে। কল ব্যাক করেন ,ফোন বেজে চলে , অরিজিৎ তার মাকে নিয়ে নার্সিং হোমে। মা এর সেবায় ব্যাস্ত সে। ডক্টর বিশ্বাসের ফোনে ফোন করতেই খবর পান কাঞ্জিলাল , রমা নার্সিং হোমে ক্রিটিক্যাল কন্ডিশন। একে অনেক বেশী বয়স তার উপর বেবী মুভ করছে না , সিজার করে বেবীকে বের করতে হবে, প্রি ম্যাচিউর সিজার। মি কাঞ্জিলাল নার্সিং হোমে ছুটে আসেন ,আরিজিৎ তখনো নিঃশব্দে অপারেশন থিয়েটারের বাইরে বসে একমনে ঈশ্বরকে ডেকে চলেছে এই কয়েকমাস সে তার মা এর অসম্ভব খেয়াল রেখেছে , তবুও সম্পর্কের বরফ গলেনি। আজ প্রথম বার অরিজিৎকে নার্সিং হোমে অসহায় দেখে দিলীপ কাঞ্জিলালের মায়া হলো , মনে হলো তাঁরা অবিচার করছেন এর উপর।.
ডক্টর বিশ্বাসের অক্লান্ত চেষ্টাতেও বাচ্চাকে বাঁচানো গেলো না। পৃথিবীর আলো দেখার সৌভাগ্য হলো না নব জাতকের । অরিজিৎ কেঁদে চলেছে। বাচ্চা ছেলেটার চোখের জল কোন বাধা মানছে না , অথচ তার তো দুঃখ পাওয়া উচিৎ নয় ,মি কাঞ্জিলালকে ডক্টর বিশ্বাস বলেন কিছু করার ছিলো না , সুযোগ এসেছিলো কিন্তু ইন ফিউচার রমা দেবী আর মা হতে পারবেন না , আর হ্যাঁ অরিজিৎ ঠিক সময়ে হাসপাতালে না আনলে তাঁকেও বাঁচানো যেতোনা। তবে এরপর খুব সাবধানে না থাকলে রমা দেবীর জীবনই বিপন্ন হবে। এতোদিনে রমা দেবী মনের সব অন্ধকার সরিয়ে অরিজিৎকে কাছে টেনে বলে ওঠেন , এই তো আমার সাত রাজার ধন এক মানিক। অরিজিৎই আমার একমাত্র উত্তরাধিকারী। রক্তের সম্পর্ক নয় মনের টানটাই তো আসল। কোলাহল ময় হাসপাতালে মায়া মমতা জীবন মৃত্যুর খেলাঘরে অরিজিৎ তখনও ডুকরে ডুকরে কেঁদে চলেছে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


জলবায়ু পরিবর্তন আমাজনের রেইনফরেস্টের কিছু অংশকে সাভানাতে রূপান্তরিত করতে পারে

উত্তরাপথঃ আমাজন রেইনফরেস্ট, যাকে "পৃথিবীর ফুসফুস" হিসাবে উল্লেখ করা হয়। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বাস্তুত্তন্ত্র যা বিশ্বব্যাপী জলবায়ু নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।সম্প্রতি প্রসিডিংস অফ দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অফ সায়েন্সেসের বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে একটি নতুন তত্তের বর্ণনা করা হয়েছে ,সেখানে বলা হয়েছে কীভাবে বর্ষার মৌসুমে বিকল্প বন্যা এবং শুষ্ক মৌসুমে খরা, যাকে ডবল-স্ট্রেস বলা হয়, বন প্রতিষ্ঠাকে সীমিত করছে।উদ্বেগজনক গবেষণাতে আরও বলা হচ্ছে যে, জলবায়ু পরিবর্তন-প্ররোচিত খরা আমাজন রেইনফরেস্টের কিছু অংশকে সাভানাতে রূপান্তরিত করতে পারে, যা জীববৈচিত্র্য এবং সামগ্রিকভাবে গ্রহের জন্য সম্ভাব্য ধ্বংসাত্মক পরিণতি আনতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম, প্রভাব রাজ্যেও

উত্তরাপথঃ বাংলাদেশ ও ইলিশ এই দুটি নাম একে অপরের পরিপূরক মনে হলেও বাস্তব কিন্তু বলছে অন্য কথা। সূত্র মাধ্যমে পাওয়া খবরে জানা যাচ্ছে  প্রকৃতির অপার দান হলেও শিকার থেকে শুরু করে বাজারজাত হওয়া পর্যন্ত ব্যয় বৃদ্ধির কারণেই বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম। এর সঙ্গে মধ্যস্বত্বভোগীদের লাভের অঙ্ক যোগ হয়ে তা চলে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।পরিস্থিতি এমন যে গরিব তো দূর থাক মধ্যবিত্তের পাতেও এখন আর জুটছে না ইলিশ। বুধবার বরিশালের পাইকারি বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয় ৬০ হাজার টাকা মন দরে। ৪২ কেজিতে মন হিসাবে প্রতি কেজির দাম পড়ে প্রায় সাড়ে ১৪শ টাকা। খুচরা বাজারে গিয়ে যা বিক্রি হয় ১৬ থেকে ১৮শ টাকা। যে কারণে জাতীয় এই মাছ এখন শুধু বিত্তশালীদের খাদ্যে পরিণত হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

শারদোৎসবের প্রস্তুতি শুরু কলকাতা পুরসভা এবং বন্দর কতৃপক্ষের

উত্তরাপথঃ শারদোৎসবের প্রস্তুতি শুরু প্রশাসনের, প্রতিমা বিসর্জনে এ বার বিশেষ বন্দোবস্ত করছে কলকাতা পুরসভা।এ বছর ২১ অক্টোবর দুর্গা পুজা শুরু এবং ২৪ অক্টোবর বিজয়া দশমী। বিজয়া দশমীর পর আরও দু’দিন প্রতিমা বিসর্জন করা যাবে বলে প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে। তাই সেই প্রতিমা বিসর্জন পর্ব মসৃণ করতে কলকাতা বন্দর এবং পুরসভা কর্তৃপক্ষ বেশ কিছু পদক্ষেপ নিতে চলেছে। সোমবার কলকাতা পুরসভায় প্রাক্‌-পুজোর বৈঠকে পুরসভার বিভিন্ন বিভাগের আধিকারিকদের পাশাপাশি, ছিলেন কলকাতা পুলিশ, সিইএসসি-সহ একাধিক সরকারি দফতরের আধিকারিকেরা। .....বিস্তারিত পড়ুন

সুপার পটেটোর অনুসন্ধান - বিজ্ঞানীরা আলু সুপার প্যানজেনোম তৈরি করেছেন

উত্তরাপথঃ আলু বহু শতাব্দী ধরে রান্নার বহুমুখীতা এবং উচ্চ পুষ্টির মানের জন্য খাদ্যের একটি প্রধান উৎস। আলু আজ বিশ্বের প্রায় প্রতিটি কোণে উৎপাদিত হয়, যা আলুকে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং গুরুত্বপূর্ণ ফসলগুলির মধ্যে একটি করে তুলেছে । বছরের পর বছর ধরে, বিজ্ঞানীরা আলুর ফলন, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং পুষ্টি উপাদান উন্নত করার জন্য এবং আরও ভাল আলুর জাত প্রজননের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছেন। আলুর জিন সম্পাদনা প্রযুক্তি ব্যবহার করে গবেষকরা আলু সুপার প্যানজেনোম তৈরি করেছেন যা আলু গবেষণা এবং প্রজননে একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক চিহ্নিত হবে বলে বিজ্ঞানীদের আশা । .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top