সম্পাদকীয়

নির্বাচন যেখানে মূল লক্ষ্য …

এবারের লোকসভা কোনও রকম আলাপ আলোচনা ছাড়াই প্রায় ৪৫ লক্ষ কোটি টাকার কেন্দ্রীয় বাজেট অনুমোদন করেছে। শাসক ও বিরোধী পক্ষের বাদানুবাদে প্রত্যাশিতভাবেই সংসদের দ্বিতীয় পর্বের বাজেট অধিবেশন তেমন কোনও কাজ ছাড়াই শেষ হয়েছে।  সংসদে লাগাতার হট্টগোল দেখে এই অধিবেশন নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ হলে, আর কিছু না হউক সরকারি কোষাগার থেকে দেশের জনগণের দেওয়া ট্যাক্সের কিছু টাকা বাঁচানো যেত।  সংসদ চলতে না দিয়ে ক্ষমতাসীন দল ও বিরোধী দলের একে অপরকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর কোনো যৌক্তিকতা নেই, কারণ কোথাও না কোথাও উভয় দলই এর জন্য দায়ী।

আদানি মামলায় জয়েন্ট পার্লামেন্টারি কমিটি (জেপিসি) তদন্তের দাবিতে বিরোধীরা তাণ্ডব চালালে, শাসকদলও রাহুল গান্ধীকে লন্ডনে দেওয়া বিবৃতির জন্য ক্ষমা চাওয়ার দাবিতে অনড় থাকল।  পক্ষ ও বিরোধী দলের এসব দাবির কোনো বিশেষ গুরুত্ব ছিল না।  আদানি মামলায় জেপিসি তদন্তের ন্যায্যতা শেষ হয়ে গিয়েছিল কারণ সুপ্রিম কোর্ট একটি ছয় সদস্যের কমিটি গঠন করেছে।  উল্লেখ্য, এ কমিটি গঠনে সরকারের কোনো ভূমিকা নেই।  সুপ্রিম কোর্ট নিজেই কমিটির সদস্য বাছাই করেছে।  এর পরেও বিরোধীরা সন্তুষ্ট হয়নি, কারণ এটি হওয়ার ছিল না। সংসদে হট্টগোল করার জন্য বিরোধীদের একটি অজুহাত দরকার ছিল।

 আশ্চর্যের বিষয় হল এই সময় শাসক দলও সংসদে তোলপাড় সৃষ্টি করে এবং লন্ডনে দেওয়া রাহুল গান্ধীর বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাওয়া উচিত বলে জোর দেয়। রাহুল গান্ধীর বক্তব্যে শাসকদলের আপত্তি থাকতে পারে কিন্তু তার ক্ষমা চাওয়ার বিষয়টি এত গুরুত্বপূর্ণ ছিলনা যার জন্য লোকসভার পুরো অধিবেশন নষ্ট করা যেতে পারে। রাহুল গান্ধী যদি তার বক্তব্য কে ভুল হিসাবে মানতে প্রস্তুত না হন তবে ক্ষমতাসীন দল বা অন্য কেউ কী করতে পারে?  

ক্ষমতাসীন দল নিজেই সংসদে তোলপাড় সৃষ্টি করে সংসদ চলতে না দেওয়ার ঘটনা খুবই বিরল, কিন্তু এবার তা ঘটল। ক্ষমতাসীন দল এবং বিরোধী দল উভয়েই আসল লক্ষ্য বিভিন্ন রাজ্যে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের পাশাপাশি ২০২৪ লোকসভা নির্বাচন। তাই দেশের লোকের স্বার্থের কথা ভুলে তারা মত্ত থাকলেন আসন্ন নির্বাচনের দলীয় এজেন্ডা ঠিক করতে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


হিউম্যানয়েড রোবট ARTEMIS রেডি পরবর্তী RoboCup-এর জন্য

অনয় কিরণ মাহাতো: কেমন যেন লাগে রোবট এর কথা শুনলে। তারপরে আবার হিউম্যানয়েড, ভাবা যায়। হিউম্যানয়েড রোবট এক জটিল anthropomorphic কৃত্রিম মেশিন যা রোবোটিক্স, লোকোমোশন এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স) এই হিউম্যানয়েড রোবর্ট এর বিকাশকে ত্বরান্বিত করেছে। ১৮১০ সালে জার্মানির ফ্রেডলিচ কাউফম্যানন প্রথম তৈরি করেছিলেন এক ট্রাম্পেট সৈনিক রোবর্ট। এরপর হুমানোইড রোবর্ট তৈরি করেন আরবের একজন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার আল-যাজরি। এরপর লিওনার্দো দা ভিঞ্ছির আদলে জাপানের ওসাকা ইউনিভার্সিটির প্রোফেসর ঈশিগুর .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top