সম্পাদকীয়  

জলবায়ুর পরিবর্তন কতটা কমানো যায় তাঁর বিরুদ্ধে লড়াই  

বর্তমানে গ্লোবাল ওয়ার্মিং এমন এক পর্যায়ে পৌঁছেছে যেখানে কীভাবে এটি বন্ধ করা যায়, সেই প্রশ্ন অবান্তর বরং এটিকে কিভাবে কতটা কমানো যায় তা নিয়ে চিন্তা ভাবনা এখন বিশ্বময়। ২৮ ফেব্রুয়ারী প্রকাশিত সর্বশেষ ষষ্ঠ মূল্যায়ন প্রতিবেদনে (AR6), জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত জাতিসংঘের আন্তঃসরকার প্যানেল (IPCC) সারা বিশ্বকে সতর্ক করেছে যে ইতিমধ্যেই ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, যদি কিছু আগামীতে উপযুক্ত কোনও পদক্ষেপ  গ্রহণ না করা হয় তাহলে আমরা খুব দ্রুত এক চরম সংকটের সম্মুখীন হব।  IPCC বর্তমানে জলবায়ু পরিবর্তনের বিজ্ঞানের উপর কাজ করছে, যা AR6 সংশ্লেষণ রিপোর্ট নামে পরিচিত। এই AR6 রিপোর্ট এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে বিশ্ব উষ্ণায়নের উপর মানুষের কার্যকলাপের প্রভাব সম্পর্কে কোন সন্দেহ নেই এবং অনুমান করা হচ্ছে যে আগামী ২০৪০ সাল নাগাদ, বৈশ্বিক তাপমাত্রা প্রাক-শিল্প বিপ্লবের স্তরের চেয়ে ১.৫ ডিগ্রি বেড়ে যাবে। সেই সাথে উন্নয়নশীল দেশগুলিকে তাদের কয়লার ব্যবহার বন্ধ করার উপর জোর দেওয়া হয়েছে । জার্মানি সহ কয়েকটি দেশ যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে। জাপান তার জাতীয় স্বার্থের চেয়ে বৈশ্বিক উষ্ণতা মোকাবেলাকে অগ্রাধিকার দিয়েছে এবং ক্লিন কয়লা প্রযুক্তি ব্যবহারের উপর গুরুত্ব দিয়েছে। এই ক্লিন কয়লা প্রযুক্তিটি চীন ও ভারতের মতো প্রধান কয়লা ব্যবহারকারী দেশগুলি গ্রহন করলে উল্লেখযোগ্যভাবে নির্গমন কমাতে পারে।

অন্যদিকে আমাদের দেশের সরকার জাতীয় সৌর মিশন, জাতীয় জল মিশন, হিমালয়ান ইকোসিস্টেমকে টিকিয়ে রাখার জন্য জাতীয় মিশন সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহন করেছিল ২০০৮ সালে । কিন্তু তারপরও বিশ্বঊস্নায়ন ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ, অর্থনীতি এবং সমাজকে প্রভাবিত করছে। তাপপ্রবাহ, বন্যা, বর্ষা এবং ক্রমহ্রাসমান ভূগর্ভস্থ জলের ভাণ্ডার আমাদের  চরম চ্যালেঞ্জযার মুখোমুখি দাঁর করিয়েছে। তীব্র তাপপ্রবাহ আমাদের  স্বাস্থ্য এবং জিডিপিকে প্রভাবিত করেছে । বন্যায় ভারতের ২৬.৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতি হয়েছে, এই ক্ষয়ক্ষতি তার জিডিপি-র প্রায় ০.৫% ছাড়িয়ে গেছে।গবেষকরা অনুমান করছেন ভারতে জলবায়ু-সম্পর্কিত ক্ষয়ক্ষতি আগামী ৫০ বছরে মোট US$৩৫ ট্রিলিয়নের বেশী হতে পারে। জলবায়ু পরিবরতনের এর প্রভাব সবচেয়ে বেশী আমাদের স্বাস্থ্য ও কৃষিক্ষেত্রকে করবে ।ভারত ইতিমধ্যে স্থানীয় বায়ু দূষণের স্বাস্থ্যগতপ্রভাবের সাথে লড়াই করছে যা ভারতের জিডিপি-তে US$৩৬ বিলিয়নের বার্ষিক ক্ষতির কারণ । মানব ক্রিয়াকলাপ থেকে ক্রমবর্ধমান নির্গমন দেখে ভারত ক্রমাগতভাবে বিশ্বব্যাপী বায়ু মানের মূল্যায়নে সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে৷ 

এখন প্রশ্ন জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় ভারত কী করছে?ভারত রেল ব্যবস্থাকে সবুজ করা, একক-ব্যবহারের প্লাস্টিক হ্রাস করাএবং পরিষ্কার রান্নার জ্বালানী উৎপাদন করা সহ বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে যা ২০২২ IPCCরিপোর্ট অনুসারে , অন্যান্য প্রধান বিশ্বঅর্থনীতির তুলনায় ভারতের মাথাপিছু কম কার্বন নির্গমন হয়। কিন্তু ভারতের মত উন্নয়নশীল দেশের জন্য এটি যথেষ্ট নয় । সরকারকে দ্রুত অ-জীবাশ্ম জ্বালানী শক্তির ব্যবহারের উপর জোর দিতে হবে সেই সাথে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য নাগরিক-কেন্দ্রিক কর্মসূচি  গ্রহন করতে হবে এবং প্রয়োজনে বিচার ব্যবস্থাকেও এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


PAN-Aadhar link: কেন্দ্র সরকার ১১.৫ কোটি প্যান কার্ডকে নিষ্ক্রিয় করেছে

উত্তরাপথ : আধারের সাথে প্যান কার্ড লিঙ্ক (PAN-Aadhar link)করার সময়সীমা শেষ হওয়ার পরে কেন্দ্রীয় সরকার ১১.৫ কোটি প্যান কার্ড নিষ্ক্রিয় করেছে৷ আপনি যদি এখনও প্যান কার্ডের সাথে আধার কার্ড লিঙ্ক না করে থাকেন, তাহলে আপনি সরকারের এই কঠোর পদক্ষেপের আওতায় এসেছেন। আপনি যদি আপনার আধার কার্ডকে প্যানের সাথে লিঙ্ক করতে চান তবে আপনি জরিমানা দিয়ে এটি সক্রিয় করতে পারেন। কেন্দ্র সরকার ১১.৫ কোটি প্যান কার্ডকে আধারের সাথে লিঙ্ক না করার কারণে নিষ্ক্রিয় করেছে। একটি আরটিআই-এর জবাবে, সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ডাইরেক্ট ট্যাক্সেস জানিয়েছে যে আধার কার্ডের সাথে প্যান কার্ড লিঙ্ক (PAN-Aadhar link) করার সময়সীমা ৩০ জুন শেষ হয়েছে। যারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আধার কার্ড এবং প্যান কার্ড লিঙ্ক করেননি তাদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। দেশে ৭০ কোটি প্যান কার্ড বর্তমানে ভারতে প্যান কার্ডের সংখ্যা ৭০.২ কোটিতে পৌঁছেছে। এর মধ্যে প্রায় ৫৭.২৫ কোটি মানুষ আধারের সাথে প্যান কার্ড লিঙ্ক করেছেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

বিশ্বকাপ ২০২৩: পাকিস্তানকে হারিয়ে Afghanistan এ ঈদের মতো পরিস্থিতি

আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০২৩-এর ২২ তম ম্যাচে আফগানিস্তান পাকিস্তানকে বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করেছে। সেই ম্যাচে পাকিস্তানকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করে আফগানিস্তান। এই প্রথম ওয়ানডেতে পাকিস্তানকে হারাল আফগানিস্তান আর এই পাকিস্তানকে হারিয়ে আফগানিস্থানে(Afghanistan)এখন ঈদের মতো পরিস্থিতি।এক আফগানিস্থানি সমর্থকের মতে এটি ছিল আমাদের ইতিহাসের একটি বিরল মুহূর্ত যখন পুরো জাতি খুশি ছিল এবং নিজেদের মত করে তারা তাদের এই খুশী উদযাপন করেছেন। এক্স হ্যান্ডেলে এক সমর্থকের মতে, সেদিন উদযাপন ছিল, পার্টি ছিল। এটি ছিল আমাদের ইতিহাসের একটি বিরল মুহূর্ত যখন পুরো জাতি খুশি ছিল এছাড়াও, এটি ছিল ২০২৩ বিশ্বকাপের তৃতীয় বড় আপসেট । টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাবর আজমের দল। প্রথমে ব্যাট করে পাকিস্তান দল ২৮২ রান করে। জবাবে আফগানিস্তান দল ২৮৩ রান তাড়া করে ৪৯ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্য অর্জন করে। এই ম্যাচে হারের পর বেশ ক্ষুব্ধ দেখাচ্ছিল অধিনায়ক বাবর আজমকে। ম্যাচ-পরবর্তী উপস্থাপনার সময়, তিনি দলের ত্রুটিগুলি তালিকাভুক্ত করেছিলেন এবং পরাজয়ের জন্য নিজেদের দায়ী করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Vijay Stambh : চিতোরগড় দুর্গে বিজয় স্তম্ভ হিন্দু – মুসলিম সহাবস্থানের প্রতীক

উত্তরাপথঃ খ্রিস্টীয় ৭ম শতাব্দীতে মৌর্য রাজবংশ কর্তৃক স্থাপিত চিতোরগড় দুর্গ সাহস ও আত্মত্যাগের প্রতীক হিসেবে আজও দাঁড়িয়ে আছে। এই দুর্গ তার বিশাল কাঠামো, রাজপ্রাসাদ, একাধিক  সুদৃশ্য মন্দির সহ সুন্দর জলাশয়ের জন্য বিখ্যাত।৭০০-একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত, এই দুর্গটিতে প্রায় ৬৫টি ঐতিহাসিক স্থাপত্য নিদর্শন রয়েছে যা রাজপুত এবং ইসলামিক স্থাপত্য শৈলীর সূক্ষ্মতার প্রমান দেয়। বিজয় স্তম্ভ (Vijay Stambh)) হল এই দুর্গে অবস্থিত,সবচেয়ে মনোমুগ্ধকর কাঠামো।এই আশ্চর্য-অনুপ্রেরণামূলক স্তম্ভটি কেবল তার উচ্চতার জন্য বিখ্যাত নয়,এটি রাজপুতদের অদম্য সাহস এবং অধ্যবসায়ের গল্পও বলে যা চিতোরগড় দুর্গেরই সমার্থক হয়ে উঠেছে।বিজয় স্তম্ভ (Vijay Stambh), নাম থেকে বোঝা যায়, বিজয়ের প্রতীক।  প্রাচীনকালে যে কোনো যুদ্ধ অভিযানের সাফল্যের পর সেই বিজয়কে স্মরণীয় করে রাখতে রাজারা মন্দির, স্তূপ, স্মৃতিস্তম্ভ ও স্তম্ভ নির্মাণ করতেন।  ৯ তলা এই বিজয় স্তম্ভটি ১৯৪০ থেকে ১৪৪৮ সালের মধ্যে মহারানা কুম্ভ দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে। আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top