সম্পাদকীয়

 বিশ্ব উস্নায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তন

  বিশ্ব উস্নায়ন এবং তাকে কেন্দ্র করে জলবায়ু পরিবর্তন একবিংশ শতাব্দীর অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। এটি  ধীরে ধীরে একাধিক উপায়ে মানব সমাজকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করছে এবং অদূর ভবিষ্যতে এটি প্রায় অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।ইতিমধ্যে এটি আমাদের পরিবেশ, অর্থনীতি এবং আমাদের জীবন যাত্রার উপর ব্যাপক ভাবে প্রভাব দেখাতে শুরু করেছে ।

সদ্য হয়ে যাওয়া হিমাচল প্রদেশের বন্যা আমাদের সামনে বেশ কিছু প্রশ্ন তুলে দিল । এবছর হিমাচল প্রদেশে বর্ষাকালে রেকর্ড পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয়েছে ,যা বিগত কয়েক বছরের তুলনায় বহু গুণ বেশী।  ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, হিমাচল প্রদেশে ১ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত গড় বৃষ্টিপাত হয়েছে ২৪৯.৬ মিমি যা স্বাভাবিক গড় ৭৬.৬ মিমি থেকে প্রায় ৭০% বেশী । ক্লাইমেট চেঞ্জ সেন্টার কাউন্সিল অফ এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি হিমাচল প্রদেশের প্রিন্সিপাল সায়েন্টিস্ট এস এস রনধাওয়া বলেন, অত্যধিক তাপ এবং বৃষ্টিপাত, এগুলো সবই জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব।  এবার মার্চে হিমাচলে প্রচণ্ড গরম ছিল, এই গরমের কারণে তুষার খুব দ্রুত গলে যায় তাই এবছর হিমাচলে রেকর্ড সংখ্যক বৃষ্টিপাতের ঘটনা ঘটেছে ,যা বিগত কয়েক বছরের তুলনায় বহু গুণ বেশী ।

বিজ্ঞানীরা জলবায়ু পরিবর্তনকে এর সবচেয়ে বড় কারণ হিসেবে মনে করেন।একটানা ভারি বর্ষণের কারণে হিমাচল প্রদেশে বন্যায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।  ২৯ শে জুন হিমাচলে বর্ষা প্রবেশের পর থেকে ২৪৪ জন মারা গেছে, ৫৪৩ টি ঘরবাড়ি এবং ৪৬৬টি গোয়ালঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।  অনেক জায়গায় রাস্তা বিলীন হয়ে গেছে।  এখন পর্যন্ত মোট ১২১৫ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

 এক সপ্তাহের,ভারী বর্ষণ রাজ্যে এমন বিপর্যয় সৃষ্টি করেছিল যে ভূমিধস এবং বন্যার প্রায় ২০০টি ঘটনা ঘটেছে।প্রাথমিক ভাবে যে তথ্য পাওয়া গেছে তাতে মারা গেছেন ৩৯ জন।  ১১৩টি ঘরবাড়ি ও ১৬৯ টি গোয়ালঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।  এক সপ্তাহে ৫০০ কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হয়েছে বলে অনুমান করা হচ্ছে।তবে হিমাচল প্রদেশে এই ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির কারণ হিসাবে বিজ্ঞানীরা বেশ কিছু কারণকে চিহ্নিত করেছেন।

তাদের মতে, রাজ্যটির অপরিকল্পিত অবকাঠামোগত  উন্নয়ন  রাজ্যটির ক্ষেত্রে বিভিন্ন নতুন সমস্যার জন্ম দিয়েছে।রাজ্যে অনেক নতুন মহাসড়ক তৈরি করা হয়েছে, পুরানো মাটির ঘরগুলিকে কংক্রিটের বাড়িতে আপগ্রেড করা হয়েছে, নতুন হোটেল তৈরি হয়েছে এবং সেখানে অবৈধ নির্মাণ হয়েছে এবং সেই সাথে নদীতীর দখলও হয়েছে, যা রাজ্যটিতে বন্যার সম্ভাবনাকে আরও বহুগুণ বাড়িযে দিয়েছে।

পরিবেশবিদদের মতে বছরের পর বছর ধরে নদীর তলদেশে ক্রমাগত নির্মাণ একটি বড় উদ্বেগের বিষয় এবং সরকারের অসদাচরণকে উন্মোচিত করে। নদীর তলদেশ দখল শুধুমাত্র এলাকাটিতে প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রবণতাই বৃদ্ধি করেনি বরং এটিতে ধ্বংসের তীব্রতাও বাড়িয়ে দিয়েছে। কুল্লু, মানালি এবং মান্ডিতে আমরা দেখেছি যে নদীর তলদেশে নির্মাণকাজ নদীর স্বাভাবিক গতিপথ এবং জলপ্রবাহকে বাধাগ্রস্ত করছে। এবারের এই আকস্মিক বন্যা এই নির্মাণগুলিকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে । 

পরিবেশবিদ অশ্বানি শর্মা পাহাড়ে উচ্ছৃঙ্খল এবং অবৈজ্ঞানিক নির্মাণ অনুশীলন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।তার মতে “সাম্প্রতিক বন্যার সময়, আমরা দেখেছি বন্যার জলের সাথে  নির্মাণ সামগ্রীর যথেষ্ট উপস্থিতি ছিল। নির্মাণ সামগ্রীর এই স্রোত ক্ষতির পরিমাণকে উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়িয়ে তুলেছিল। রাজ্য সরকার সহ কেন্দ্রীয় সরকারের এই ব্যাপারে  পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পুনর্মূল্যায়ন করা এবং প্রবিধান প্রণয়ন করা প্রয়োজন।“

বর্তমানে জলবায়ুর পরিবর্তন বিশ্বব্যাপী  যা মানুষ সহ অন্যান্য জীবজন্তুর জন্য এক উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জের সৃষ্টি করেছে । জলবায়ুর পরিবর্তনকে কেন্দ্র করে প্রাকৃতিক ধ্বংসলীলা আমাদের পরিবেশ, অর্থনীতি এবং জীবনযাত্রাকে প্রভাবিত করছে। সমষ্টিগত পদক্ষেপ, আন্তর্জাতিক সহযোগিতা, নীতিগত হস্তক্ষেপ, দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা এবং শিক্ষার ব্যাপক প্রসার জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবগুলিকে প্রশমিত করতে পারে। সেইসাথে  এটি একটি সুরক্ষিত ভবিষ্যত গড়ে তোলার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একসাথে কাজ করার মাধ্যমে, আমরা একটি  স্থিতিস্থাপক, ন্যায়সঙ্গত এবং জলবায়ু-সচেতন সমাজ গড়ে তুলতে সক্ষম হব ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


West Bengal Panchayet Election 2023: পশ্চিমবঙ্গ পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপির পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ

উত্তরাপথ: এ যেন অনেকটা প্রত্যাশিত ফলাফল । সদ্য সমাপ্ত পশ্চিমবঙ্গ Panchayet Election 2023 ফলাফল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) জন্য আগামী ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট হতাশাবাঞ্জক । এই নির্বাচনের আগে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব তাদের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে যে আশার বাণী শুনিয়েছিল বাস্তবে তা অশ্বডিম্ব প্রসব করল । গত বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলের পরিপ্রেক্ষিতে জঙ্গলমহল,উত্তরবঙ্গ সহ নন্দিগ্রামে যে বিশাল গেরুয়া ঝড়ের আশা করেছিল শুধুমাত্র নন্দিগ্রামে ছাড়া পুরটাই হাতছাড়া হল বিজেপির । .....বিস্তারিত পড়ুন

 সম্পাদকীয়

পশ্চিমবঙ্গের ছোট-বড় যে কোনও নির্বাচন মানেই রাজনৈতিক হিংসা । সদ্য অনুষ্ঠিত পঞ্চায়েত নির্বাচনও তার ব্যতিক্রম নয়।রাজনৈতিক হিংসা যাতে না হয় নির্বাচনে তার জন্য যাবতীয় উদ্যোগ গ্রহণ করার পরও হিংসা অব্যাহত থাকল, সারা রাজ্যজুরে ঘটল তেরোটি মৃত্যুর ঘটনা ।পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে  ঘট হিংসা রাজ্যের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া সহ নাগরিকদের ভোটাধিকার নিয়ে আমাদের সামনে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। আমাদের রাজ্যে চলতে থাকা রাজনৈতিক হিংসার পেছনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ একাধিক কারণ থাকলেও বেকারত্ব সহ দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতি এর প্রধান কারণ । দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতির কারণে বেশীরভাগ গ্রামীন এলাকার মানুষদের অর্থনৈতিক উপার্জনের সুযোগ খুব কম। বিশেষত স্বল্প শিক্ষিত সেই সব মানুষদের যারা না পায় সরকারি চাকুরি না পারে ঠিকা শ্রমিকের কাজ করতে, গ্রামীন অর্থনীতিতে বিশাল সংখ্যক মানুষ এই শ্রেনীর অন্তর্গত .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top