হিরোশিমা দিবস: পারমাণবিক অস্ত্রকে না বলার দিন

হিরোশিমা দিবস পালন ,জাপান। ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

গার্গী আগরঅয়ালা মাহাতোঃ ৬ আগস্ট, ১৯৪৫-এ,সারা বিশ্ব প্রথম পারমাণবিক যুদ্ধের বিধ্বংসী প্রভাব প্রত্যক্ষ করেছিল । সেইদিন জাপানের হিরোশিমা শহরটি পারমাণবিক বোমা দ্বারা ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল।প্রতি বছর হিরোশিমা দিবস নামে পরিচিত এই দিনটিতে পরমাণু যুদ্ধের ভয়াবহতা এবং বৈশ্বিক শান্তির জন্য জরুরী পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তা স্মরণ করার একটি দিন।এই দুঃখজনক ঘটনার ৭৮তম বর্ষ আবার আমাদের সেই বিভীষিকাময় ইতিহাসকে বিশ্ববাসীকে পরমাণু যুদ্ধের ভয়াবহতা স্মরণ করাল।

দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধ ১৯৩৯ থেকে ১৯৪৫ পর্যন্ত ৬ বছর ধরে চলেছিল । এই যুদ্ধকে অন্তিম পরিণতি দেবার জন্য আমেরিকা জাপানের উপর পরমাণু আক্রমণের সিদ্ধান্ত নেয়। আমেরিকা প্রথম জাপানের কিয়োটো শহরকে চিহ্নিত করে পরমাণু হামলার জন্য ।কিন্তু প্রাচীন ঐতিহ্য মণ্ডিত এই শহরে অনেকগুলো প্রধান ইউনিভার্সিটি ,  বড় শিল্প ,২০০০ বৌদ্ধ মন্দির এবং বহু ঐতিহাসিক নিদর্শন থাকায় কিয়োটোর বদলে আমেরিকা হিরোশিমায় পরমাণু আক্রমণের সিদ্ধান্ত নেয়।

১৯৪৫সালের ৬ আগস্ট সকাল ৮.১৫ মিনিটে, মার্কিন বি-২৯ বোমারু বিমান এনোলা গে হিরোশিমায় “লিটল বয়” নামক পারমাণবিক বোমা ফেলে। বিস্ফোরণ তাৎক্ষণিকভাবে আনুমানিক ১৪০,০০০ লোককে হত্যা করেছিল, পরবর্তী বছরগুলিতে হিরোশিমাবাসীকে গুরুতর আঘাত এবং বিকিরণ-সম্পর্কিত অসুস্থতায় ভুগতে হয়েছিল।  যে সময় হিরোশিমা শহরে বোম ফেলা হয়েছিল সেই সময় শহরের তাপমাত্রা চার লাখ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছেছিল। ধ্বংস এবং মানুষের দুর্ভোগের একটি ভুতুড়ে উত্তরাধিকার রেখে শহরটিকে ধ্বংস করা হয়েছিল পারমাণবিক বোমা ফেলে।আজও হিরোশিমায় গেলে পরমাণু যুদ্ধের সেই ভয়ঙ্কর ধ্বংসাবশেষের চিহ্ন দেখতে পাওয়া যাবে।  

হিরোশিমা, জাপান । ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

হিরোশিমায় পারমাণবিক বোমা দ্বারা সৃষ্ট ধ্বংসযজ্ঞ বিশ্ববাসীর চেতনার উপর গভীর প্রভাব ফেলেছিল। বিশ্ব পারমাণবিক অস্ত্রের অপরিমেয় ধ্বংসাত্মক শক্তি প্রত্যক্ষ করেছে, যা  বিশ্ববাসীকে একটি সম্মিলিত উপলব্ধির দিকে পরিচালিত করেছে যে এই ধরনের অস্ত্র মানবতার অস্তিত্বের জন্য হুমকি। হিরোশিমার ট্র্যাজেডি পারমাণবিক যুদ্ধ প্রতিরোধের জন্য বিশ্বব্যাপী আন্দোলনের একটি ক্ষেত্র হয়ে ওঠে।

হিরোশিমা এবং পরবর্তীতে নাগাসাকিতে ৯ আগস্ট, ১৯৪৫-এ আবার আমেরিকার দ্বারা পরমাণু হামলা হয়, পরপর দুটি হামলার পর জাপান আত্মসমর্পণ করে, কার্যকরভাবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। এই দুই শহরে সংঘটিত নৃশংসতা পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে আন্তর্জাতিক আলোচনাকে উদ্বুদ্ধ করেছিল। এটি অবশেষে ১৯৬৮সালে বিশ্বকে পারমাণবিক অস্ত্রের অপ্রসারণ সংক্রান্ত চুক্তি (NPT) তৈরির দিকে উদ্বুদ্ধ করে, যার লক্ষ্য ছিল পারমাণবিক অস্ত্রের বিস্তার রোধ করা এবং নিরস্ত্রীকরণের প্রচার করা।

হিরোশিমা দিবস ৭৮ বছর পরও আমাদের পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত বিশ্ব গড়ে তোলার জরুরি প্রয়োজনীতার কথা স্মরণ করায়। এই দিনটি বিশ্ববাসীকে  শান্তি ও পারমানবিক অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণে উৎসাহিত করে।সেইসাথে ক্ষতিগ্রস্থদের স্মরণ করে এবং পারমাণবিক যুদ্ধের পরিণতি স্মরণ করার মাধ্যমে, আমরা ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ এবং আরও শান্তিপূর্ণ বিশ্ব তৈরি করার চেষ্টা করতে উৎসাহিত করে। সেই সাথে এই দিনটি উদযাপনের একটি অপরিহার্য দিক হল বিশ্বে শান্তি প্রচার করা। যুদ্ধের ধ্বংসাত্মক পরিণতি চিন্তা করে এবং শান্তিপূর্ণ সংঘাত সমাধানের গুরুত্ব সম্পর্কে তরুণ প্রজন্মকে শিক্ষিত করা, একটি প্রজন্মকে গড়ে তোলা  যারা সক্রিয়ভাবে সহিংসতাহীন বিশ্ব নির্মাণের জন্য কাজ করবে ।

হিরোশিমা, জাপান ।ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

যদিও পারমাণবিক অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণ প্রচেষ্টায় উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে, কিন্তু এখনও অনেক কাজ করা বাকি আছে। বিশ্বব্যাপী হাজার হাজার পারমাণবিক অস্ত্রের অস্তিত্ব বিশ্বের নিরাপত্তার জন্য মারাত্মক হুমকি স্বরূপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। হিরোশিমা দিবসে, আমাদের অবশ্যই সারা বিশ্ব থেকে পারমাণবিক অস্ত্রের সম্পূর্ণ নির্মূলের চেষ্টা করতে হবে এবং শান্তিপূর্ণভাবে দ্বন্দ্ব সমাধানের উপায় হিসাবে সংলাপ ও কূটনীতিকে উৎসাহিত করতে হবে।

সারা বিশ্ব এই কালোদিনটিতে, হিরোশিমা বোমা হামলায় নিহতদের স্মরণ করে এবং সম্মান করে।কিভাবে এই দিনটিতে হিরোশিমাবাসীর  জীবন দুঃখজনকভাবে শেষ হয়েছিল, এবং তাদের মধ্যে যারা জীবিত ছিলেন তাদের জীবনের বাকিদিনগুলি কি নিদারুন দুঃখকষ্টের মধ্য দিয়ে পরিণতির দিকে গিয়েছিল। হিরোশিমা দিবস স্মরণের মাধ্যমে, আমরা তাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করি এবং একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্বের প্রতি আমাদের দায়িত্ব পুনরায় স্মরণ করি।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


মণিপুরের সামগ্রিক উন্নয়ন বর্তমান সমস্যার সমাধান হতে পারে

উত্তরাপথ: মণিপুরের মেইতি সম্প্রদায় তফসিলি উপজাতির তালিকায় তাদের অন্তর্ভুক্তির দাবি অব্যাহত রাখবে এবংআন্দোলন তীব্রতর করবে বলে খবর। অন্যদিকে ট্রাইবাল সলিডারিটি মার্চ, কিছু পাহাড়ি উপজাতির একটি তড়িঘড়ি তৈরি করা ছাতা সংগঠন,তারা মেইতি সম্প্রদায়ের দাবির বিরোধিতা করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তাই পরিস্থিতি আরও অস্থির হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।অন্যদিকে আরেকটি সূত্র বলছে মণিপুরের পরিস্থিতি আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে। যদিও এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনাবাহিনীর সহায়তা নিচ্ছে রাজ্য সরকার।  কিন্তু এ ধরনের স্পর্শকাতর বিষয়ে দীর্ঘ .....বিস্তারিত পড়ুন

শালডিহা কলেজের ছাত্রীদের জন্য বিশেষ সার্টিফিকেট কোর্স

উত্তরাপথঃ বাঁকুড়া জেলার শালডিহা কলেজের রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডঃ সমীর কুমার মণ্ডল এর উদ্যোগে এবং Mahindra Group - এর Mahindra Pride Classroom ও Naandi Foundation -এর যৌথ উদ্দগ্যে শুধু মাত্র ছাত্রীদের জন্য ৭ দিনের (৪০ ঘন্টা) একটি সার্টিফিকেট course -এর আয়োজন করা হয়েছিল। বিভিন্ন রকম স্কিল নিয়ে বিশদে শিক্ষা দেওয়া হয়েছিল। যার মধ্যে হল communication skill, soft skill, life skill, presentaion skill ও interview skill ইত্যাদি। Mohindra Educator -এর ভূমিকাই আসেন সরোজ রাই। তিনি মনে করেন, এই জাতীয় প্রশিক্ষণ শালডিহার মতো প্রান্তিক কলেজের মেয়েরা খুবই উপকৃত হবে। কলেজ কর্তৃপক্ষ আশা করে ভবিষ্যতে মাহিন্দ্রা গ্রুপ এই কলেজে ক্যাম্পাসিং এর .....বিস্তারিত পড়ুন

বেতন, মাসে ৩০,০০০ আর সম্পত্তির মালিকানা ৭ কোটির বেশী

উত্তরাপথ: এ এক দুর্নীতির অনন্য নজির যা পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিবিদদের দুর্নীতি কে লজ্জায় ফেলবে । দুর্নীতির এই অভিযোগটি উঠেছে মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ হেমা মীনার বিরুদ্ধে।মধ্যপ্রদেশের সরকারি কর্মকর্তা দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের পর হেমা মীনা প্রচার মাধ্যমের নজরে আসে । এখন প্রশ্ন কে এই হেমা মীনা ? মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের চুক্তির ভিত্তিতে নিয়োজিত সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ যিনি মাসে ৩০,০০০ টাকা আয় করেন । দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে তার বাড়ি থেকে সাতটি বিলাসবহুল গাড়ি, ২০,০০০ বর্গফুট .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top