হিরোশিমা দিবস: পারমাণবিক অস্ত্রকে না বলার দিন

হিরোশিমা দিবস পালন ,জাপান। ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

গার্গী আগরঅয়ালা মাহাতোঃ ৬ আগস্ট, ১৯৪৫-এ,সারা বিশ্ব প্রথম পারমাণবিক যুদ্ধের বিধ্বংসী প্রভাব প্রত্যক্ষ করেছিল । সেইদিন জাপানের হিরোশিমা শহরটি পারমাণবিক বোমা দ্বারা ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল।প্রতি বছর হিরোশিমা দিবস নামে পরিচিত এই দিনটিতে পরমাণু যুদ্ধের ভয়াবহতা এবং বৈশ্বিক শান্তির জন্য জরুরী পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তা স্মরণ করার একটি দিন।এই দুঃখজনক ঘটনার ৭৮তম বর্ষ আবার আমাদের সেই বিভীষিকাময় ইতিহাসকে বিশ্ববাসীকে পরমাণু যুদ্ধের ভয়াবহতা স্মরণ করাল।

দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধ ১৯৩৯ থেকে ১৯৪৫ পর্যন্ত ৬ বছর ধরে চলেছিল । এই যুদ্ধকে অন্তিম পরিণতি দেবার জন্য আমেরিকা জাপানের উপর পরমাণু আক্রমণের সিদ্ধান্ত নেয়। আমেরিকা প্রথম জাপানের কিয়োটো শহরকে চিহ্নিত করে পরমাণু হামলার জন্য ।কিন্তু প্রাচীন ঐতিহ্য মণ্ডিত এই শহরে অনেকগুলো প্রধান ইউনিভার্সিটি ,  বড় শিল্প ,২০০০ বৌদ্ধ মন্দির এবং বহু ঐতিহাসিক নিদর্শন থাকায় কিয়োটোর বদলে আমেরিকা হিরোশিমায় পরমাণু আক্রমণের সিদ্ধান্ত নেয়।

১৯৪৫সালের ৬ আগস্ট সকাল ৮.১৫ মিনিটে, মার্কিন বি-২৯ বোমারু বিমান এনোলা গে হিরোশিমায় “লিটল বয়” নামক পারমাণবিক বোমা ফেলে। বিস্ফোরণ তাৎক্ষণিকভাবে আনুমানিক ১৪০,০০০ লোককে হত্যা করেছিল, পরবর্তী বছরগুলিতে হিরোশিমাবাসীকে গুরুতর আঘাত এবং বিকিরণ-সম্পর্কিত অসুস্থতায় ভুগতে হয়েছিল।  যে সময় হিরোশিমা শহরে বোম ফেলা হয়েছিল সেই সময় শহরের তাপমাত্রা চার লাখ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছেছিল। ধ্বংস এবং মানুষের দুর্ভোগের একটি ভুতুড়ে উত্তরাধিকার রেখে শহরটিকে ধ্বংস করা হয়েছিল পারমাণবিক বোমা ফেলে।আজও হিরোশিমায় গেলে পরমাণু যুদ্ধের সেই ভয়ঙ্কর ধ্বংসাবশেষের চিহ্ন দেখতে পাওয়া যাবে।  

হিরোশিমা, জাপান । ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

হিরোশিমায় পারমাণবিক বোমা দ্বারা সৃষ্ট ধ্বংসযজ্ঞ বিশ্ববাসীর চেতনার উপর গভীর প্রভাব ফেলেছিল। বিশ্ব পারমাণবিক অস্ত্রের অপরিমেয় ধ্বংসাত্মক শক্তি প্রত্যক্ষ করেছে, যা  বিশ্ববাসীকে একটি সম্মিলিত উপলব্ধির দিকে পরিচালিত করেছে যে এই ধরনের অস্ত্র মানবতার অস্তিত্বের জন্য হুমকি। হিরোশিমার ট্র্যাজেডি পারমাণবিক যুদ্ধ প্রতিরোধের জন্য বিশ্বব্যাপী আন্দোলনের একটি ক্ষেত্র হয়ে ওঠে।

হিরোশিমা এবং পরবর্তীতে নাগাসাকিতে ৯ আগস্ট, ১৯৪৫-এ আবার আমেরিকার দ্বারা পরমাণু হামলা হয়, পরপর দুটি হামলার পর জাপান আত্মসমর্পণ করে, কার্যকরভাবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। এই দুই শহরে সংঘটিত নৃশংসতা পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে আন্তর্জাতিক আলোচনাকে উদ্বুদ্ধ করেছিল। এটি অবশেষে ১৯৬৮সালে বিশ্বকে পারমাণবিক অস্ত্রের অপ্রসারণ সংক্রান্ত চুক্তি (NPT) তৈরির দিকে উদ্বুদ্ধ করে, যার লক্ষ্য ছিল পারমাণবিক অস্ত্রের বিস্তার রোধ করা এবং নিরস্ত্রীকরণের প্রচার করা।

হিরোশিমা দিবস ৭৮ বছর পরও আমাদের পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত বিশ্ব গড়ে তোলার জরুরি প্রয়োজনীতার কথা স্মরণ করায়। এই দিনটি বিশ্ববাসীকে  শান্তি ও পারমানবিক অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণে উৎসাহিত করে।সেইসাথে ক্ষতিগ্রস্থদের স্মরণ করে এবং পারমাণবিক যুদ্ধের পরিণতি স্মরণ করার মাধ্যমে, আমরা ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ এবং আরও শান্তিপূর্ণ বিশ্ব তৈরি করার চেষ্টা করতে উৎসাহিত করে। সেই সাথে এই দিনটি উদযাপনের একটি অপরিহার্য দিক হল বিশ্বে শান্তি প্রচার করা। যুদ্ধের ধ্বংসাত্মক পরিণতি চিন্তা করে এবং শান্তিপূর্ণ সংঘাত সমাধানের গুরুত্ব সম্পর্কে তরুণ প্রজন্মকে শিক্ষিত করা, একটি প্রজন্মকে গড়ে তোলা  যারা সক্রিয়ভাবে সহিংসতাহীন বিশ্ব নির্মাণের জন্য কাজ করবে ।

হিরোশিমা, জাপান ।ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

যদিও পারমাণবিক অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণ প্রচেষ্টায় উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে, কিন্তু এখনও অনেক কাজ করা বাকি আছে। বিশ্বব্যাপী হাজার হাজার পারমাণবিক অস্ত্রের অস্তিত্ব বিশ্বের নিরাপত্তার জন্য মারাত্মক হুমকি স্বরূপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। হিরোশিমা দিবসে, আমাদের অবশ্যই সারা বিশ্ব থেকে পারমাণবিক অস্ত্রের সম্পূর্ণ নির্মূলের চেষ্টা করতে হবে এবং শান্তিপূর্ণভাবে দ্বন্দ্ব সমাধানের উপায় হিসাবে সংলাপ ও কূটনীতিকে উৎসাহিত করতে হবে।

সারা বিশ্ব এই কালোদিনটিতে, হিরোশিমা বোমা হামলায় নিহতদের স্মরণ করে এবং সম্মান করে।কিভাবে এই দিনটিতে হিরোশিমাবাসীর  জীবন দুঃখজনকভাবে শেষ হয়েছিল, এবং তাদের মধ্যে যারা জীবিত ছিলেন তাদের জীবনের বাকিদিনগুলি কি নিদারুন দুঃখকষ্টের মধ্য দিয়ে পরিণতির দিকে গিয়েছিল। হিরোশিমা দিবস স্মরণের মাধ্যমে, আমরা তাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করি এবং একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্বের প্রতি আমাদের দায়িত্ব পুনরায় স্মরণ করি।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

Roop Kishor Soni: একটি আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য তুলে ধরেছেন

উত্তরাপথঃ রাজস্থান মানেই ওজনদার রূপার গহনা ,আর তার উপর কারুকাজ। প্রচলিত এই ধারনা ভেঙ্গে আজ রূপোর গহনাকে আধুনিকতার সাথে শিল্পের এক অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটিয়েছেন যে ব্যক্তি তিনি হলেন রূপ কিশোরী সোনী(Roop Kishor Soni)।তিনি ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কাছ থেকে তার অসাধারণ শিল্প কর্মের জন্য জাতীয় পুরুস্কার পান। রাজস্থানের জয়সলমেরের শহরের এই শিল্পী ৩.৮ গ্রাম ওজনের ০.৯ সেমি চওড়া রৌপ্য আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য খোদাই করেছেন।এই ছোট রূপার আংটিতে শিল্পী তাজমহল, সিডনি অপেরা হাউস, স্ট্যাচু অফ লিবার্টি, চীনের গ্রেট ওয়াল, আইফেল টাওয়ার, বিগ বেন, পিসার হেলানো টাওয়ার এবং মিশরীয় পিরামিডের চিত্র এক সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন।এছাড়াও তিনি আরও দুটি পৃথক ডিজাইনের অত্যাশ্চর্য আংটি  তৈরি করেছেন।৮.৬ গ্রাম ওজনের একটি রিংয়ে তিনি সূর্যাস্তের সময় ভারতীয় উট সাফারি সহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন ভারতীয় বিশেষত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন,এবং অন্যটিতে বিভিন্ন হিন্দু দেব-দেবী ছবি এবং মন্দির খোদাই করেছিলেন। শিল্পী বলেছেন যে তিনি তার বাবার কাছ থেকে তার শৈল্পিক দক্ষতা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন। সেই সাথে তিনি বলেন "আমার বাবাও একজন জাতীয় পুরুস্কার প্রাপ্ত শিল্পী ছিলেন। তিনি আমাকে শিল্পের এই দক্ষতা শিখিয়েছিলেন কারণ তিনি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের ফর্মটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন।" .....বিস্তারিত পড়ুন

Vijay Stambh : চিতোরগড় দুর্গে বিজয় স্তম্ভ হিন্দু – মুসলিম সহাবস্থানের প্রতীক

উত্তরাপথঃ খ্রিস্টীয় ৭ম শতাব্দীতে মৌর্য রাজবংশ কর্তৃক স্থাপিত চিতোরগড় দুর্গ সাহস ও আত্মত্যাগের প্রতীক হিসেবে আজও দাঁড়িয়ে আছে। এই দুর্গ তার বিশাল কাঠামো, রাজপ্রাসাদ, একাধিক  সুদৃশ্য মন্দির সহ সুন্দর জলাশয়ের জন্য বিখ্যাত।৭০০-একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত, এই দুর্গটিতে প্রায় ৬৫টি ঐতিহাসিক স্থাপত্য নিদর্শন রয়েছে যা রাজপুত এবং ইসলামিক স্থাপত্য শৈলীর সূক্ষ্মতার প্রমান দেয়। বিজয় স্তম্ভ (Vijay Stambh)) হল এই দুর্গে অবস্থিত,সবচেয়ে মনোমুগ্ধকর কাঠামো।এই আশ্চর্য-অনুপ্রেরণামূলক স্তম্ভটি কেবল তার উচ্চতার জন্য বিখ্যাত নয়,এটি রাজপুতদের অদম্য সাহস এবং অধ্যবসায়ের গল্পও বলে যা চিতোরগড় দুর্গেরই সমার্থক হয়ে উঠেছে।বিজয় স্তম্ভ (Vijay Stambh), নাম থেকে বোঝা যায়, বিজয়ের প্রতীক।  প্রাচীনকালে যে কোনো যুদ্ধ অভিযানের সাফল্যের পর সেই বিজয়কে স্মরণীয় করে রাখতে রাজারা মন্দির, স্তূপ, স্মৃতিস্তম্ভ ও স্তম্ভ নির্মাণ করতেন।  ৯ তলা এই বিজয় স্তম্ভটি ১৯৪০ থেকে ১৪৪৮ সালের মধ্যে মহারানা কুম্ভ দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

Fried rice syndrome: আগের দিনের রান্না করা ভাত খেলে হতে পারে এই বিশেষ অসুখটি

উত্তরাপথঃ আপনার কি বাসী ভাত বা পান্তা খাওয়ার অভ্যেস আছে? সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম (Fried rice syndrome) নিয়ে আমরা প্রায়ই অবশিষ্ট খাবার গরম করে আবার খাই। কিন্তু জানেন কি এই অভ্যাস আপনাকে অসুস্থ করে তুলতে পারে। অনেক সময় পর আগের রান্না করা  ভাত খাওয়ার ফলে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হয়। কেউ কেউ মনে করেন যে খাবার পুনরায় গরম করলে এতে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মারা যায়, কিন্তু তা নয়। যে খাবারেই স্টার্চ থাকে না কেন, এতে উপস্থিত টক্সিন তাপ প্রতিরোধী। অর্থাৎ খাবার গরম করার পরও ব্যাকটেরিয়া নষ্ট হয় না। ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম নামে এই সমস্যা সম্পর্কিত একটি অবস্থা রয়েছে। আজ আমরা এই ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম অবস্থার লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব। ভাত রান্না করার পর, যখন অবশিষ্ট ভাত কয়েক ঘন্টা বা সারারাত ঘরের তাপমাত্রায় রেখে দেওয়া হয় এবং তাতে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে শুরু করে, তখন এই অবস্থার নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top