তৃতীয় পাতা


সরকারি প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষাগুলিকে কি দুর্নীতি মুক্ত করা সম্ভব?  

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতোঃ প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষাগুলির মাধ্যমে সরকারি চাকরিতে নিয়োগকে কেন্দ্র করে ভুরি ভুরি অভিযোগ প্রায় সমস্ত রাজ্য সরকারগুলির বিরুদ্ধে। গত ১৭ ও ১৮ তারিখে উত্তরপ্রদেশে পুলিশ নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল হওয়ায় আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে।  পঞ্চাশ লাখের বেশি তরুণ-তরুণী এই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিল।এই অবস্থায় হতাশাগ্রস্ত যুবকদের, সিস্টেমকে অভিশাপ দেওয়া আর আফসোস করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই।আমাদের দেশে সরকারি চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে পরীক্ষা বাতিলের এর আগেও বহু উদাহরণ রয়েছে। ২০২২ সালে রাজস্থানের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা পেপার ফাঁসের পর বাতিল হয়ে যায়। ২০২৩ সালের মার্চ মাসে তেলেঙ্গানা স্টেট পাবলিক সার্ভিস কমিশন (টিএসপিএসসি)পেপার ফাঁসের কারণে সহকারী প্রকৌশলী, পৌর সহকারী প্রকৌশলী, টেকনিক্যাল অফিসার এবং বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে জুনিয়র টেকনিক্যাল অফিসার পদের নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল করে দিয়েছিলেন।পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রেও সরকারি শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে বহু অভিযোগ রয়েছে।যদি সরকারি চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় বা টাকা নিয়ে নিয়োগে কারচুপি করা হয়, তাহলে সেই প্রার্থীরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হন যারা নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণের চেষ্টা করছেন সততার সাহায্যে বা মেধার ভিত্তিতে। .....বিস্তারিত পড়ুন

 দলত্যাগ বিরোধী আইনের প্রাসঙ্গিকতা

উত্তরাপথঃ সদ্য সমাপ্ত রাজ্যসভা নির্বাচনে, বিশেষ করে উত্তরপ্রদেশ, হিমাচল প্রদেশ এবং কর্ণাটকে বিধায়করা যেভাবে দলীয় নির্দেশকে অমান্য করে নিজেদের অন্তরাত্মার টানে দলের বিরুদ্ধে ভোট দিলেন তাতে  আবারও রাজনীতিবিদদের দলীয় আনুগত্য এবং দলত্যাগ বিরোধী আইনের প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। দলত্যাগ বিরোধী আইন, ১৯৮৫সালে ভারতীয় সংবিধানের ৫২ তম সংশোধনীর মাধ্যমে প্রবর্তিত হয়েছিল, যার উদ্দেশ্য ছিল বিধায়কদের ব্যক্তিগত লাভের জন্য দল বদল করার অভ্যাস রোধ করা। আইনটি নির্বাচিত প্রতিনিধিদের অন্য রাজনৈতিক দলে যোগদান করতে নিষেধ করে এবং যদি তারা তা করে তবে তাদের নির্দিষ্ট সদস্যপদ অযোগ্য ঘোষণা করা যেতে পারে।যদিও দলত্যাগ বিরোধী আইনটি রাজনৈতিক ব্যবস্থায় দলীয় আনুগত্য এবং স্থিতিশীলতাকে উন্নত করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছিল। কিন্তু বাস্তবে, রাজনৈতিক দলগুলি তাদের সদস্যদের মধ্যে ভিন্নমতকে দমিয়ে রাখার জন্য এবং নির্বাচিত প্রতিনিধিদের বিবেক অনুযায়ী ভোট দেওয়ার স্বাধীনতা সীমিত করার জন্য আইনটি ব্যবহার করে।আবার এর একটি ভিন্নমত হল রাজনৈতিক দলগুলি এই আইনটির মাধ্যমে তাদের দলীয় অনুশাসন বজায় রাখে। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়- বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনৈতিক শক্তি হওয়ার লক্ষ্যে কি আমরা আরও দেওলিয়া হয়ে যাচ্ছি?

অর্থনীতির দ্রুত বৃদ্ধি এবং বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনৈতিক শক্তি হওয়ার দাবির মধ্যে বাস্তবতা হলো, গত বারো-তেরো বছরে মানুষের গৃহস্থালির ব্যয় দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে।  পরিসংখ্যান ও কর্মসূচী বাস্তবায়ন মন্ত্রকের সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুসারে গৃহস্থালীর খরচ , শহরাঞ্চলে মাথাপিছু ২০১১ – ১২ সালে যেখানে ২,৬৩০ টাকা ছিল সেটি বেড়ে ২০২২ -২৩ সালে ৬,৪৫৯ টাকায় দাঁড়িয়েছে ,অর্থাৎ দ্বিগুণেরও বেশি হয়েছে ৷  একইভাবে, গ্রামীণ এলাকায় এই খরচ ১,৪৩০ টাকা থেকে বেড়ে ৩,৭৭৩ টাকা হয়েছে। এটি দেখায় যে খাদ্যবহির্ভূত ক্ষেত্রে ব্যয় বেড়েছে, যেখানে খাদ্যশস্যের ব্যয় আগের তুলনায় কমেছে।  ফল, সবজি, দুধ, মাছ, ভোজ্যতেল ইত্যাদির ব্যয় বেড়েছে।  একইভাবে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিনোদন, পোশাক ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্য খাতে ব্যয় বেড়েছে।  এর একটি কারণ বলা হয় যে, কোভিডের সময় মানুষ শহর থেকে গ্রামে ফিরে গেছে এবং কৃষি খাতের সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার কারণে ওই খাতের গড় খরচ বেড়েছে।  কিন্তু একই যুক্তি শহুরে ব্যয় বৃদ্ধির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়।  এই পরিসংখ্যানে দারিদ্র্যের হার পাঁচ শতাংশ কমেছে বলেও দাবি করা হয়েছে । রিপোর্টে প্রায় তেইশ কোটি মানুষ দারিদ্র্য সীমা থেকে থেকে বেরিয়ে এসেছে বলে খবর।কিন্তু এত কিছুর মধ্যে এটাও একটা সত্য যে মাথাপিছু আয়ে উল্লেখযোগ্য কোনো বৃদ্ধি হয়নি। .....বিস্তারিত পড়ুন

ভ্যালেন্টাইন্স ডে এবং গ্যালেন্টাইন্স ডে ভালোবাসার উদযাপনের এই দুইটি দিনের শুরু কিভাবে ?

প্রীতি গুপ্তাঃ প্রেম একটি সর্বজনীন অনুভূতি যা কোন সীমানা বা সীমাবদ্ধতা জানে না। সময়ের সাথে সাথে, মানুষ একে অপরের প্রতি তাদের স্নেহ ও ভালবাসা প্রকাশ করার জন্য অসংখ্য উপায় খুঁজে পেয়েছে। এই ধরনের উদযাপনের দুটি উল্লেখযোগ্য উদাহরণ হল ভ্যালেন্টাইন্স ডে (Valentine's Day) এবং গ্যালেন্টাইন্স ডে (Galentine's Day )। এই দুইটি দিন অনেক মানুষের জীবনে তাৎপর্যপূর্ণ গুরুত্ব রাখে এবং এটি বিশ্বব্যাপী উদযাপিত হয়। কিন্তু আপনি কি কখনো ভেবে দেখেছেন কিভাবে এই ভালবাসার দিন দুইটির উদ্ভব? আজ আমরা এই দুটি দিনের উদযাপনের ইতিহাসকে নিয়ে আলোচনা করব  এবং কেন তারা আমাদের হৃদয়কে মুগ্ধ করে চলেছে সেটিও আমরা খুঁজে বের করার চেষ্টা করব। ১৪ ফেব্রুয়ারী ভ্যালেন্টাইনস ডে (Valentine's Day) হল প্রেম এবং রোম্যান্সের উৎসবের একটি দিন। এই দিনে লোকেরা তাদের বয়ফ্রেন্ড বা বান্ধবী বা সঙ্গীকে উপহার এবং বার্তা পাঠায়। দম্পতিরা এই দিনে তাদের প্রেম এবং স্নেহের স্মৃতিচারণ করে। ভ্যালেন্টাইনস ডে-র উৎপত্তি ৩য় শতাব্দীতে প্রাচীন রোমে বলে জানা যায়।তবে কবে থেকে ভ্যালেন্টাইনস ডে-র উৎপত্তি সেই সম্পর্কে একাধিক গল্প প্রচলিত রয়েছে , তবে সবচেয়ে জনপ্রিয় গল্পটি ভ্যালেন্টাইন নামে একজন খ্রিস্টান সাধুকে ঘিরে রয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

কেন্দ্রের নতুন আইন কি প্রশ্নপত্র ফাঁস সমস্যার মোকাবিলা করতে পারবে?

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতোঃ আপনি কি জানেন আমাদের দেশে বর্তমানে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সমস্যাটা কতটা গুরুতর?  এটি শুধু পরীক্ষা পদ্ধতি বা এর সাথে জড়িত পুরো সিস্টেমের ত্রুটি নয়, এটি একটি বড় ইস্যু যা লাখ লাখ তরুণের স্বপ্নকে চুরমার করে দিচ্ছে। কিন্তু আজও এই সমস্যা কাটিয়ে ওঠা আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না।প্রশ্নপত্র ফাঁস এর এই সমস্যা মাধ্যমিক স্তর থেকে শুরু করে সরকারি চাকরি সর্বত্র রয়েছে। আমাদের লাখ লাখ তরুণের কাছে সরকারি চাকরি কোনো স্বপ্নের চেয়ে কম নয়।  কয়েক মাস পরিশ্রমের পর একটি সরকারি চাকরির পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ আসে  তাদের জীবনে,যা বদলে দিতে পারে তাদের জীবন। কিন্তু প্রশ্নপত্র ফাঁসের কারণে তাদের দীর্ঘ দিনের পরিশ্রম জলে যাচ্ছে। সম্প্রতি আমাদের রাজ্যে দশম শ্রেণির বোর্ড পরীক্ষায় বাংলা ও ইংরেজির পর ইতিহাসের প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। প্রশ্নপত্রের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।খবরে প্রকাশ তিনজন প্রার্থীকে পুরো পরীক্ষার জন্য অযোগ্য ঘোষণা করা হয়েছে এবং দুই দিনে ১৪ জন প্রার্থীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।এর আগে গত ২৮ জানুয়ারি, ঝাড়খণ্ড স্টাফ সিলেকশন কমিশন দ্বারা পরিচালিত সম্মিলিত স্নাতক স্তরের পরীক্ষার তৃতীয় পত্র ফাঁস হয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  ভারতরত্ন ও রাজনৈতিক সমীকরণ

ভারতরত্ন ,ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার, বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী অবদান রেখেছেন এমন ব্যক্তিদের স্বীকৃতি দেওয়ার ক্ষেত্রে এই পুরষ্কার অত্যন্ত তাৎপর্য বহন করে।ভারতীয় রাজনীতির বিভিন্ন দিকগুলির মতো, ভারতরত্নকে ঘিরে বাছাই প্রক্রিয়া এবং বিতর্কগুলি প্রায়শই বিতর্কের জন্ম দিয়েছে এবং এর নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপন হয়েছে বার বার।এবারের অর্থাৎ ২০২৪ সালের ভারতরত্ন পুরষ্কার বিতর্কের উদ্ধে নয়। বিরোধীদের বক্তব্য, কিছু জায়গায় এর মাধ্যমে সরকার বদল হচ্ছে আবার কিছু জায়গায় বিজেপি নতুন দল পাচ্ছে।তাহলে কি ২০২৪ সালের নির্বাচনও কি ভারতরত্নকে ঘিরে আবেগ ও শ্রদ্ধার নামে হবে ?১৯৫৪ সালে শুরু হওয়া, ভারতরত্ন পুরস্কার প্রাথমিকভাবে শিল্প, সাহিত্য, বিজ্ঞান এবং জনসেবার ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী কৃতিত্বকে সম্মান জানানোর উদ্দেশ্যে ছিল। এরপর মানব প্রচেষ্টার যেকোনো ক্ষেত্রে অবদানকে স্বীকৃতি জানানোর জন্য পুরস্কারের পরিধি প্রসারিত হয়েছে। পুরস্কারটি ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্বারা প্রদান করা হয় এবং এটি জাতীয় স্বীকৃতি এবং গর্বের প্রতীক হিসাবে বিবেচিত হয়।ভারতরত্ন পুরস্কারের জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়া প্রায়ই রাজনৈতিক প্রভাব এবং বিতর্কের বিষয় হয়ে রয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

২০২৪ কি গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় বছর হতে চলেছে ?

উত্তরাপথঃ ২০২৪ কি গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় বছর হতে চলেছে ?এটি মানব ইতিহাসের একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক হতে চলেছে। এই বছর চার বিলিয়নেরও বেশি মানুষ ৪০টিরও বেশি দেশে নির্বাচনে অংশ নেবে যা বিশ্বের জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি । যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, রাশিয়া, পাকিস্তান, তাইওয়ান, মেক্সিকো এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে (বাংলাদেশে সদ্য শেষ হয়েছে ২০২৪ এর নির্বাচন)। নির্বাচনের এই ব্যস্ত ক্যালেন্ডারে ইউরোপীয় ইউনিয়নও নির্বাচনে অংশ নেবে।আধুনিক বিশ্বে জনগণকে শাসন করার জন্য প্রভাবশালী সাংগঠনিক নীতি হিসাবে গণতন্ত্রের  কথা বলা হলেও ভালো করে বিবেচনা করলে দেখা যাবে গণতন্ত্র অনেক ক্ষেত্রেই ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের জন্য ভারতীয় রাজনীতিতে একটি শব্দ বার বার উঠে আসছে তা হল ‘হিন্দুত্ব’। এই একটি শব্দ যাকে প্রায় জাতীয়তাবাদের সমর্থক শব্দ হিসাবে প্রচার করা হচ্ছে। হিন্দুত্ব, একটি আদর্শ হিসাবে, ২০ শতকের গোড়ার দিকে আবির্ভূত হয় এবং রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস) এবং এর রাজনৈতিক শাখা ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ও  শিবসেনার  মতো সংগঠনগুলির প্রচেষ্টার মাধ্যমে ‘হিন্দুত্ব’ ভারতীয় রাজনীতিতে প্রধান্য লাভ করে। .....বিস্তারিত পড়ুন

12 3 4 5 6 7 8
Scroll to Top