NASA’s DART মিশন, পৃথিবীকে গ্রহানুর সংঘর্ষ থেকে রক্ষা করার এক পদক্ষেপ

উত্তরাপথ: পৃথিবীর সাথে একটি গ্রহাণুর সংঘর্ষের সম্ভাবনা দীর্ঘকাল ধরে বিজ্ঞানী এবং মহাকাশ সংস্থাগুলির জন্য উদ্বেগের বিষয়। এই সম্ভাব্য বিপদ মোকাবেলার জন্য, NASA (ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন) DART মিশন (ডাবল অ্যাস্টেরয়েড রিডাইরেকশন টেস্ট) নামে একটি যুগান্তকারী মিশন তৈরী করেছিল । DART মিশনের প্রাথমিক উদ্দেশ্য ছিল গ্রহাণু বিক্ষেপণ কৌশলগুলির কার্যকারিতা পরীক্ষা করা এবং প্রদর্শন করা। বিশেষত, NASA তার একটি মহাকাশযানের সাথে ইছা করে একটি গ্রহানুর সংঘর্ষ করে । এটি করার মাধ্যমে, , NASA বুঝতে চেষ্টা করছে  কিভাবে কাছাকাছি-আর্থ অবজেক্ট (NEOs) দ্বারা সৃষ্ট হুমকি প্রশমিত করা যায়।

 ক্যালিফোর্নিয়ার ভ্যানডেনবার্গ স্পেস ফোর্স বেস থেকে স্পেসএক্স ফ্যালকন ৯ রকেটে ২০২১সালের ২৪ নভেম্বরে DART মহাকাশযানটি উতখেপ্ন করা হয় ।মহাকাশযানটি বাইনারি গ্রহাণু সিস্টেম ডিডাইমোসে ভ্রমণ করবে, যা একটি বড় গ্রহাণু (ডিডাইমোস এ) এবং একটি ছোট চাঁদ (ডিডাইমোস বি) নিয়ে গঠিত।

DART মহাকাশযানটি প্রায় ৬ কিলোমিটার প্রতি সেকেন্ডে (প্রায় ৩.৭মাইল প্রতি সেকেন্ড) গতিতে ২৬ সেপ্টেম্বর গ্রহানুর সাথে সংঘর্ষ করে। এই ধাক্কায় গ্রহানুর গতিপথ সফল ভাবে পরিবর্তন করা সম্ভব হয়েছে বলে পৃথিবী ভিত্তিক টেলিস্কপ গুলির বিশ্লেষণে ধরা পড়েছে। হাবল (Hubble Space Telescope) টেলিস্কপে সংঘর্ষের পর বিভিন্ন আকৃতির প্রায় ৩৪টি টুকরোর সন্ধান পাওয়া গেছে।

 সংঘর্ষের পরের প্রভাবগুলি মূল্যায়ন করতে এবং অতিরিক্ত ডেটা সংগ্রহ করতে হেরা নামে একটি ইউরোপীয় স্পেস এজেন্সি (ESA) মহাকাশযান ২০২৬ সালে Didymos পরিদর্শন করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

DART মিশন সম্ভাব্য গ্রহাণুর পতনের  বিরুদ্ধে পৃথবীর প্রতিরক্ষার জন্য উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ। একটি ছোট গ্রহাণুর গতিপথ পরিবর্তন করার ক্ষমতা প্রদর্শনের মাধ্যমে, এই মিশনটি বিচ্যুতি কৌশল সম্পর্কে আমাদের বোধগম্যতা বাড়াবে এবং পৃথিবীকে NEO থেকে রক্ষা করার জন্য ভবিষ্যত কৌশল বিকশিত করবে।

DART মহাকাশযান বিস্ফোরক বা পারমাণবিক ডিভাইস ব্যবহার করার পরিবর্তে গ্রহাণুর সাথে সংঘর্ষে গতিশীল প্রভাবক পদ্ধতি ব্যবহার করে।একটি গৌণ উদ্দেশ্য হিসাবে, DART মিশন LICIA (গ্রহাণুর ইমেজিংয়ের জন্য হালকা ইতালীয় কিউবস্যাট) নামক একটি ছোট কিউবস্যাট স্থাপন করবে। LICIA প্রভাবের ছবি ধারণ করবে এবং বিশ্লেষণের জন্য মূল্যবান তথ্য প্রদান করবে।

NASA এর DART মিশন সম্ভাব্য গ্রহাণুর প্রভাব থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করার জন্য আমাদের প্রচেষ্টায় একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপের প্রতিনিধিত্ব করে। গতিশীল প্রভাবক কৌশল পরীক্ষা করে, মিশনের লক্ষ্য হল গ্রহাণুর প্রতিরক্ষার সম্ভাব্যতা প্রদর্শন করা এবং গ্রহের প্রতিরক্ষা কৌশল সম্পর্কে আমাদের জ্ঞান প্রসারিত করা। DART মিশনের সফল সম্পাদন ভবিষ্যতের মিশন এবং প্রযুক্তির জন্য পথ প্রশস্ত করবে, এবং আমরা শেষ পর্যন্ত আমাদের গ্রহকে গ্রহাণুর হুমকি থেকে রক্ষা করতে সমর্থ হব।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


World Children's Day: সত্যিই কি ‘বিশ্ব শিশু দিবস´পালনের কোনও যৌক্তিকতা আছে ?

প্রীতি গুপ্তাঃ হাতে গোনা আর মাত্র কয়েকটি দিন তারপর ১৪ নভেম্বর আমাদের দেশ সহ সারা বিশ্বজুড়ে  পালন করা হবে ‘বিশ্ব শিশু দিবস´(World Children's Day)।এই দিনটি শিশুদের মঙ্গলের জন্য, তাদের ভবিষ্যতের জন্য একটি অনুকূল বিশ্ব তৈরি করার প্রচেষ্টার একটি দিন।কিন্তু প্রশ্ন,সত্যি কি হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ করে সারা বিশ্ব জুড়ে শিশু দিবস পালন করার কোনও যৌক্তিকতা আছে? আদৌ কি এর কোনও লাভ আমরা আমাদের প্রান্তিক স্তরের শিশুদের কাছে পৌঁছে দিতে পেরেছি ? সম্প্রতি কাজের প্রয়োজনে রাজস্থানের উদয়পুর শহরে আসা। আমরা সবাই জানি উদয়পুর বিখ্যাত তার হ্রদের কারণে । এখানকার স্থানীয় থেকে পর্যটক সকলেই এই সুন্দর হ্রদগুলির আকর্ষণে বারবার ছুঁটে যায়। ‘ফতে সাহেব লেক’ রাজস্থানের উদয়পুরের এক বিখ্যাত পর্যটক স্থল।এখানে বহু মানুষ সকাল- বিকেল এই লেকের চার ধারে হাঁটাহাঁটি করতে বেরিয়ে পড়ে। সেভাবেই দুই দিন আগে বিকেলে হঠাৎ করে বেরিয়ে পড়লাম ‘ফতে সাহেব লেকের ধারে হাঁটার উদ্দেশ্য নিয়ে। হাঁটার মাঝখানে হঠাৎ করে একটি বাচ্চাছেলে আওয়াজ করে ডাকছে ,বললাম কিছু বলবি? সে বলল একটু দাঁড়াতে। ও ছুটে গিয়ে হাতে করে কয়েকটি বেলুন নিয়ে এসে হাজির । সে বারবার বেলুন কেনার অনুরোধ জানাতে লাগল। হাতে অন্য কাজের চাপ নেই অনেকটা অবসর সময় তাই আমি অনেকটা সাংবাদিক সুলভ মন নিয়ে বললাম ঠিক আছে আমি তোর বেলুন নেব ,কিন্তু তার আগে আমি  তোকে যা বলব তার তার ঠিক ঠিক উত্তর দিতে হবে। সে খুশী খুশী রাজি হয়ে গেল । .....বিস্তারিত পড়ুন

ওজন হ্রাস (weight loss) মস্তিষ্কের বার্ধক্যের লক্ষণগুলিকে ধীর করে

উত্তরাপথঃ এপ্রিলে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, শাকসবজি, সামুদ্রিক খাবার এবং গোটা শস্য সমৃদ্ধ একটি ভূমধ্যসাগরীয় খাদ্য খাওয়া - এমনকি শুধুমাত্র খাদ্যের নির্দেশিকা অনুসরণ করে   ওজন হ্রাস (weight loss)মস্তিষ্কের বার্ধক্যের লক্ষণগুলিকে ধীর করে বলে মনে করা হয়।সাম্প্রতি ডিউক ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিনের বিজ্ঞানীদের দ্বারা পরিচালিত, একটি  গবেষণায় দেখা গেছে যে ওজন হ্রাস মস্তিষ্কে বার্ধক্য প্রক্রিয়াকে ৯ মাস পর্যন্ত ধীর করে (aging process) দিতে পারে। গবেষণায় ৬০ থেকে ৭৮ বছর বয়সের মধ্যে ৪৭ জন অংশগ্রহণকারীকে জড়িত করা হয়েছিল, যাদের প্রত্যেকেরই ওজন বেশি বা স্থূল ছিল এবং তাদের অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যগ্রহণ  ছিল। তাদের এলোমেলোভাবে একটি ক্যালোরি-সীমাবদ্ধ গ্রুপ বা একটি নিয়ন্ত্রণ গ্রুপে বরাদ্দ করা হয়েছিল।ক্যালোরি-সীমাবদ্ধতা গোষ্ঠীর সদস্যদের একটি খাদ্য পরিকল্পনা অনুসরণ করে, যার লক্ষ্য ছিল তাদের আনুমানিক প্রয়োজনের চেয়ে ১০ – ১৫% কম ক্যালোরি গ্রহণ করা। অন্যদিকে, নিয়ন্ত্রণ গ্রুপ তাদের খাদ্য পরিবর্তন করেনি .....বিস্তারিত পড়ুন

দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

Side effects of vitamin: ভিটামিনের আধিক্য আপনার জন্য ক্ষতিকর হতে পারে

উত্তরাপথঃ ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা আমরা সবাই নিশ্চয়ই ছোটবেলা থেকে শুনে আসছি যে সুস্থ থাকতে হলে শরীরে প্রয়োজনীয় সব ভিটামিন থাকা খুবই জরুরি।  ভিটামিন আমাদের সুস্থ করার পাশাপাশি আমাদের সমগ্র শরীরের বিকাশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  যাইহোক, এটি অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া আমাদের জন্য ক্ষতিকারকও হতে পারে।  আসুন জেনে নিই অতিরিক্ত ভিটামিন গ্রহণের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া (Side effects of vitamin)সুস্থ থাকার জন্য শরীরে সব ধরনের পুষ্টি থাকা খুবই জরুরি।  এ কারণেই বয়স্ক থেকে শুরু করে চিকিৎসক, সবাই আমাদেরকে সুষম ও পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন।  সমস্ত পুষ্টি উপাদান আমাদের শরীরকে বিভিন্ন উপায়ে সুস্থ করে তোলে।  এর মধ্যে ভিটামিন একটি, যা আমাদের সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top