সম্পাদকীয় – Educated Unemployment আমাদের প্রায় চার ট্রিলিয়ন অর্থনীতির সমস্যা

এটি এমন একটা সময় যে সময়ে ভারতের অর্থনীতি ৩.৭৩২ ট্রিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে ,ভারত পৃথিবীর চতুর্থ দেশ যারা সবচেয়ে কম খরচে সফল ভাবে মঙ্গল অভিযান করেছে। তাই আমরা ভারতীয়রা বিশ্ব মঞ্চে ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বগুরু হওয়ার লক্ষ্যে নিজেদের সাফল্য নিয়ে গর্ব করতে ব্যস্ত। এই সময় দুটি গুরুত্বপূর্ণ পরিসংখ্যান সামনে এসেছে । ২০২৩ সালে আমাদের সাক্ষরতার হার ৭৭.৭০ শতাংশ এবং এই একই বছরের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত ২৫ বছরের কম বয়সী শিক্ষিত যুবকদের মধ্যে বেকারত্বের (Educated unemployment )হার ৪২ শতাংশের বেশি। প্রসঙ্গত শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা যা ১৯৫১ সালে ২.৪ লাখ ছিল, ১৯৬১ সালে ৫.৯ লাখ, ১৯৭১ সালে ৩২.৮ লাখ, ১৯৮১ সালে ১ কোটি ১০ ​​লাখ এবং ১৯৯১ সালে প্রায় ১ কোটি ৬০ লাখে উন্নীত হয়। ২০০৪ – ২০০৫ সালের তুলনায় ২০১৭ – ১৮ সালে এই ক্ষেত্রে গ্রাফটি নিচে নেমে এসেছে। ২০০৪-০৫ সালে শিক্ষিত মহিলাদের মধ্যে বেকারত্বের হার ছিল ১৫.২ শতাংশ, যা ১০১৭-১৮ সালে বেড়ে ১৭.৩ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। একইভাবে, শহরগুলিতে শিক্ষিত পুরুষদের মধ্যে বেকারত্বের হারও ২০১১-১২ সালে ৩.৫ – ৪.৪ শতাংশ থেকে ২০১৭ – ১৮ সালে ১০.৫ শতাংশে পৌঁছেছে ।

এই প্রতিবেদনগুলি একসঙ্গে দেখলে চোখের সামনে একটি চিত্র ভেসে ওঠে যে, আমাদের দেশে শিক্ষিতদের মধ্যে বেকারত্বের (Educated unemployment) সমস্যা দিন দিন ভয়াবহ আকার ধারণ করছে।বেকারত্বের এই গুরুতর রূপ অর্থনৈতিক মন্দার লক্ষণ এবং সরকারের জন্য একটি বড় রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জ যার দায় কেন্দ্র বা রাজ্য কোনও সরকার নিজেদের উপর স্বীকার করেন না ।তারা নির্বাচনের বৈতরণী পার হওয়ার জন্য দরিদ্র জনগণকে মাসে ৫০০/১০০০ টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেবে, নূন্যতম দামে রেশন, গ্যাস সিলিন্ডার, চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়ার কথা বলবেন এমনকি বিনামূল্যে মোবাইল ও ল্যাপটপ দেওয়ার কথা বলবেন কিন্তু শিক্ষিত যুবক- যুবতীদের চাকুরির ব্যবস্থা করবে না।আবার যদি কোথাও চাকুরির পরীক্ষাও হয় তাহলে অধিকাংশ ক্ষেত্রে তার প্রশ্নপত্র পরীক্ষার আগেই প্রকাশিত হয়ে যায়, অথবা চাকুরির পরীক্ষা হয়ে গেলেও তার নিয়োগ হয় না কারন অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নিয়োগের আগেই আদালতের স্থগিতাদেশ চলে আসে। সরকারি চাকুরীর ক্ষেত্রে এই প্রতিবন্ধকতাগুলি ইচ্ছাকৃতভাবে করা হয় না ঘটনা প্রবাহের ফলে হয় তা নিয়ে বিতর্ক হতেই পারে।   

আমাদের দেশে শিক্ষিত শ্রেণীর মধ্যে দুই ধরনের বেকারত্ব দেখা যায়। দৃশ্যমান বেকারত্ব এবং অদৃশ্য বেকারত্ব। দৃশ্যমান বেকারত্বের ক্ষেত্রে, একজন শিক্ষিত ব্যক্তি সম্পূর্ণ বেকার, আবার অদৃশ্য বেকারত্বে, ব্যক্তি তার শিক্ষাগত যোগ্যতার নিরিখে স্থায়ীভাবে নিম্ন স্তরের চাকরি গ্রহণ করে এবং তার সামর্থ্য অনুযায়ী চাকরির জন্য চেষ্টা চালিয়ে যায়। ভারতে উভয় ধরনের বেকারত্বের পরিমাণ বিশাল।

ভারতে শিক্ষিতদের মধ্যে বেকারত্বের (Educated unemployment) প্রধান কারন আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা্র ব্যবসামুখী না হওয়া, হীনমন্যতা নিয়ে শ্রমসাধ্য কাজ দেখা, চাহিদা ও যোগানের মধ্যে ভারসাম্য না থাকা, শিল্প ও অফিসে স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রপাতি ও কম্পিউটারের ব্যবহার বৃদ্ধি হওয়া এবং আত্মকর্মসংস্থানের প্রবণতা না থাকা। আমাদের দেশের শিক্ষিত বেকারত্বের সমস্যার অবসান ঘটাতে হলে আমাদের প্রশাসনিক ব্যবস্থায় বেশী সংখ্যায় শিক্ষিত লোকেদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে এবং সরকারি ক্ষেত্রে আরও বেশী কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে, শিক্ষাকে ব্যবসামুখী করতে হবে, চাহিদা ও যোগানের সমন্বয় ঘটাতে হবে এবং আত্মকর্মসংস্থানের প্রসার ঘটাতে হবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


আবার জেগে উঠবে চন্দ্রযান-৩-এর বিক্রম ল্যান্ডার,আশাবাদী ISRO

উত্তরাপথঃ চন্দ্রযান-৩-এর বিক্রম ল্যান্ডার বর্তমানে চাঁদে ঘুমিয়ে পড়েছে। অন্ধকার চাঁদে বিক্রম ল্যান্ডার দেখতে কেমন?  এটি জানতে চন্দ্রযান-২ অরবিটার পাঠানো হয়েছিল।চন্দ্রযান-২ অরবিটার বিক্রম ল্যান্ডারের একটি ছবি তোলেন।ISRO সেই ছবিটি প্রকাশ করেছে, যা রাতে চন্দ্রযান-3 ল্যান্ডার দেখায়।ISRO টুইট করে জানায় রোভার প্রজ্ঞানের পরে, এখন ল্যান্ডার বিক্রমও ঘুমিয়ে পড়েছে। ISRO প্রধান এস সোমনাথ এর আগে বলেছিলেন যে চন্দ্র মিশনের রোভার এবং ল্যান্ডার চান্দ্র রাতে নিষ্ক্রিয় করা হবে।  তারা ১৪ দিন পরে আবার সক্রিয় হয়ে উঠবে বলে আশা করা হচ্ছে যখন সেখানে ভোর হবে। 23 আগস্ট চাঁদের দক্ষিণ পৃষ্ঠে অবতরণের পরে, ল্যান্ডার বিক্রম এবং রোভার প্রজ্ঞান উভয় ডিভাইস তাদের কাজ খুব ভাল .....বিস্তারিত পড়ুন

রাজা মহম্মদ ও সি সেল মিউজিয়াম

প্রিয়াঙ্কা দত্তঃ রাজা মহম্মদ, এমন একজন মানুষের নাম, যার ব্যাক্তিগত ইচ্ছার কাছে হেরে যায় সব বাধা। ইচ্ছার চেয়ে বলা ভালো নেশা। সামুদ্রিক প্রাণীদের খোল সংগ্রহের নেশা। যা তাঁকে ছোটবেলা থেকেই ছুটিয়ে নিয়ে বেরিয়েছে প্রায় তিরিশ বছর ধরে। আর সেই দীর্ঘ পথের শেষে , তিনি সম্পূর্ন ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন এশিয়ার বৃহত্তম ও পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ব্যাক্তিগত সংগ্রহশালা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত সি সেল মিউজিয়ামটি বর্তমানে চেন্নাইয়ের মহাবলিপূরম মন্দিরের সন্নিকটে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট। রাজা মহম্মদ ছোট্ট বেলা থেকেই  সমুদ্র তট থেকে সংগ্রহ করতেন বিভিন্ন সামুদ্রিক প্রাণীর দেহাংশ। কুড্ডালোর থেকে রামেশ্বরম এর সমুদ্রতট, সেখান থেকে জাপান, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপিন্স প্রভৃতি দেশে গিয়েছেন ব্যাক্তিগত উদ্যোগে। সংগ্রহ করেছেন অসাধারণ সব সামুদ্রিক .....বিস্তারিত পড়ুন

ধানের সাধ ভক্ষণ : জিহুড়

ড.  নিমাইকৃষ্ণ মাহাত: আশ্বিন সংক্রান্তিতে কৃষক সমাজের মধ্যে জিহুড় পার্বণ পালিত হয়। কৃষক সাধারণের মধ্যে জিহুড় পার্বণের একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। জিহুড় অর্থাৎ আশ্বিন সংক্রান্তির সময় বহাল জমিতে লাগানো ধান বা বড়ান ধানে থোড় আসতে শুরু করে। সুতরাং ধান গাছ গর্ভাবস্থায় থাকে। মানুষের ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় নানা ধরনের আচার-সংস্কার পালন করা হয়। এই সংস্কারগুলির অন্যতম হলো " ন' মাসি " অর্থাৎ গর্ভাবস্থার নবম মাসে যে আচার -অনুষ্ঠান পালন করা হয়। এর কিছুদিন পরেই সন্তানজন্মগ্রহণ করে। মানব- সমাজের গর্ভাবস্থাজনিত এই ধরনের আচার সংস্কারের সঙ্গে ধান গাছের গর্ভাবস্থার কারণে পালনীয় অনুষ্ঠান জিহুড়ের সাদৃশ্য থাকে দেখা যায়। সেই জন্য অনেকে জিহুড় অনুষ্ঠানকে ধান গাছের 'সাধভক্ষণ'  বলে থাকেন। জিহুড়-এ ধান গাছ .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়

বিশ্ব উস্নায়ন এবং তাকে কেন্দ্র করে জলবায়ু পরিবর্তন একবিংশ শতাব্দীর অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। এটি  ধীরে ধীরে একাধিক উপায়ে মানব সমাজকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করছে এবং অদূর ভবিষ্যতে এটি প্রায় অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।ইতিমধ্যে এটি আমাদের পরিবেশ, অর্থনীতি এবং আমাদের জীবন যাত্রার উপর ব্যাপক ভাবে প্রভাব দেখাতে শুরু করেছে ।সদ্য হয়ে যাওয়া হিমাচল প্রদেশের বন্যা আমাদের সামনে বেশ কিছু প্রশ্ন তুলে দিল । এবছর হিমাচল প্রদেশে বর্ষাকালে রেকর্ড পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয়েছে ,যা বিগত কয়েক বছরের তুলনায় বহু গুণ বেশী।  ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, হিমাচল প্রদেশে ১ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত গড় বৃষ্টিপাত হয়েছে ২৪৯.৬ মিমি যা স্বাভাবিক গড় ৭৬.৬ মিমি থেকে প্রায় ৭০% বেশী .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top