G20 বৈঠকের আগে বাঁদরের উৎপাত নিয়ে চিন্তায় মোদী সরকার

উত্তরাপথঃ আগামী ৯ সেপ্টেম্বর দিল্লিতে বসতে চলেছে G20 শীর্ষ সম্মেলন চলবে ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। । সম্মেলনকে কেন্দ্র চলছে জোর প্রস্তুতির কাজ। কড়া নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হচ্ছে রাজধানীকে। তার মধ্যে শঙ্কা দেখা দিয়েছে ‘বানর’-এর উৎপাতকে ঘিরে। সমস্যা মোকাবিলায় নেওয়া হয়েছে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা।দিল্লি প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে যে দেশ-বিদেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের কনভয় যাবার সময় বানরের দল উৎপাত করতে পারে ।  

 দ্রুত সমস্যা সমাধানে অভিনব পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে প্রশাসনের তরফে। দিল্লির যে সমস্ত এলাকায় বানরের উপদ্রব বেশি বা গাছে বসবাস করে, সেই সব অঞ্চলে বা গাছের সামনে রাখা হয়েছে ল্যাঙ্গুরের কাটআউট। বনবিভাগের সহায়তায় কাটআউটগুলি লাগানো হয়েছে। এতে বানরের উপদ্রব রোধ করা সম্ভব হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ল্যাঙ্গুরের কাটআউটগুলি যাতে ক্ষতি না হয়, সেদিকেই রাখা হয়েছে নজর। কোনও কাটআউট নষ্ট হলে সঙ্গে সঙ্গে যাতে প্রতিস্থাপন করা যায়, সে ব্যাপারেও রাখা হয়েছে বিকল্প ব্যবস্থা। দিল্লি বনবিভাগের একজন উচ্চপদস্থ আধিকারিক একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সর্দার প্যাটেল মার্গ বরাবর সেন্ট্রাল রিজের সীমানায় ল্যাঙ্গুরের কাটআউটগুলি স্থাপন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এগুলি নিয়মিত সরানো হবে যাতে বানররা মনে করে যে আসল ল্যাঙ্গুর আশেপাশে রয়েছে। দিল্লির মিউনিসিপ্যাল কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান সতীশ উপাধ্যায় জানিয়েছেন, বানরের উৎপাত রুখতে প্রাথমিকভাবে এই ধরনের কৌশল গ্রহণ করা হয়েছে। এটি সফল হলে, আগামী দিনে রাজধানীর অন্যান্য এলাকাতেও কাটআউটের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।

এর আগে উত্তরপ্রদেশের রাজধানী লখনউ-তে বানরের উপদ্রবে রাশ টানতে ল্যাঙ্গুরের কাটআউট ব্যবহার করা হয়েছিল। তাতে পাওয়া গিয়েছিল আশানুরূপ ফল। সেই অভিজ্ঞতা থেকে এবার G20 সম্মেলনের জন্য বানরের উপদ্রব রুখতে ল্যাঙ্গুরের কাটআউটের সাহায্য নেওয়া হল।

শুধু কাটআউট নয়, ল্যাঙ্গুরের মতো ডাকতে পারে এমন বেশ কয়েকজন কর্মীকে সম্মেলনের দিনগুলিতে নিয়োগ করা হবে বলে জানিয়েছে দিল্লি মিউনিসিপ্যাল কাউন্সিল। ৩০ থেকে ৪০ জনকে নিয়োগ করা হবে। যে সমস্ত এলাকায় বানরের উপদ্রব বেশি, সেখানেই নিয়োগ করা হবে তাদের।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


সম্পাদকীয়

এ যেন বহুদিন পর বিজেপির চেনা ছন্দের পতন। হিমাচল প্রদেশের পর কর্ণাটক কংগ্রেস নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে বিজেপির বিজয়রথকে থামিয়ে দিল ।২০১৮ পর থেকে লাগাতার হারতে থাকা একটি দল আবার ২০২৪ সাধারণ নির্বাচনে প্রাসঙ্গিক হয়ে গেল । ২২৪ সদস্যের কর্ণাটক বিধানসভায় সরকার গঠন করতে গেলে প্রয়োজন ১১৩টি আসন সেখানে কংগ্রেস একাই পেয়েছে ১৩৬টি আসন, বিজেপি পেয়েছে ৬৫ টি এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেবগৌড়ার জেডিএস পেয়েছে ১৯টি এবং অন্যান্য ৪ টি আসন পেয়েছে। যা গতবারের তুলনায় বিজেপির ৩৯ টি আসন কমেছে এবং কংগ্রেসের বেড়েছে ৫৭টি আসন এবং জেডিএসের কমেছে ১৮ টি আসন।   কর্ণাটকে কংগ্রেসের এই সাফল্য কি রাজ্যে কংগ্রেসের শক্তিশালী সংগঠনের ফল না কি কর্ণাটকের আগের ক্ষমতাশীল বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভ । কর্ণাটকে কংগ্রেসে অনেক বড় নেতা রয়েছে।  প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শিবকুমার দক্ষ সংগঠক। আগের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধারামাইয়ার ব্যাপক জনভিত্তি রয়েছে।  ভোটের আগে বিজেপির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জগদীশ শেট্টার এবং উপমুখ্যমন্ত্রী সাভাড়ি কংগ্রেসে যোগ দিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। অন্যদিকে বিজেপির প্রচারের সবচেয়ে বড় মুখ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। বিজেপির প্রচারে সব নেতারাই মোদীর নাম করেই ভোট চেয়েছিলেন কিন্তু শেষ রক্ষা হল না ।কর্ণাটকের বিজেপি সরকারের ব্যাপক দুর্নীতি সেই সাথে কংগ্রেসের লাগাতার প্রচার যা প্রতিষ্ঠান বিরোধিতার সুরকে আরও তীব্র করেছে। তাই শুধুমাত্র মোদী ম্যাজিকের উপর ভর করে নির্বাচন জেতা যে  আর বিজেপির পক্ষে সম্ভব নয় কর্ণাটকের জনগণ চোখে হাত দিয়ে তাই দেখিয়ে দিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top