I.N.D.I.A.জোট নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য তথাগত রায়ের

উত্তরাপথ: সম্প্রতি জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো সারা বিশ্বে স্কুলে স্মার্টফোন ব্যবহার নিষিদ্ধের আহ্বান জানিয়েছে। ইউনেস্কো জানিয়েছে, অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহারের ফলে শিক্ষার্থীদের মনোযোগে ব্যাঘাত ঘটে, সেই সঙ্গে শিক্ষাগত পারফরম্যান্স কমে যায়।মোবাইলের সামনে শিশু দীর্ঘ সময় বসে থাকার ফলে শিশুদের মানসিক স্থিতিশীলতার ওপর প্রভাব পড়ে।  I.N.D.I.A.জোট নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করলেন বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি তথা ত্রিপুরার প্রাক্তন রাজ্যপাল তথাগত রায়।তিনি  N.D.A. বিরোধী I.N.D.I.A. জোটকে একটি ‘চিরিয়া ঘর’ বলেছেন। তার কথায় “লালুর মতো একজন দোষী সাব্যস্ত চোর, সিপিআই(এম)-এর মতো একগুচ্ছ স্টালিনবাদী গণহত্যাকারী ….. মমতার মতো মোল্লা-পূজারী একনিষ্ঠ শিষ্য, একজন কেজরিওয়াল যিনি জানেন না তিনি ডান না বাম- কী চিড়িয়াখানা!”। অন্যদিকে বিরোধী শিবির ব্রিজভূশন চরণ সিং ,মনিপুর সমস্যা ,অজিত পাওয়ার সহ একাধিক ইস্যু তে বিজেপিকে আক্রমণ করছে। সরকার এবং বিরোধী পক্ষের আক্রমণ ও প্রতি-আক্রমণে একটা জিনিষ স্পষ্ট আমাদের সরকার এবং বিরোধী উভয় রাজনৈতিক দলগুলিতে বিভিন্ন ইস্যুতে বিতর্কিত ব্যক্তিদের উল্লেখযোগ্য মাত্রায় উপস্থিতি রয়েছে যা উদ্বেগের বিষয়।রাজনৈতিক দলগুলি জেনেবুঝে এই সব ব্যক্তিদের আশ্রয় দেয় ।

এটা সত্য যে N.D.A. ও I.N.D.I.A .জোট উভয় ক্ষেত্রেই অপরাধমূলক রেকর্ডের বহু সদস্য রয়েছে। এই সব বিতর্কিত লোকেদের প্রার্থী করায় রাজনৈতিক দলগুলোর সততা ও নৈতিক মান নিয়ে প্রশ্ন উঠা সত্বেও রাজনৈতিক দলগুলি এই সমস্ত সদস্যকে নির্বাচনে  প্রার্থী করে। তবে একথাও সত্য যে কোনও দলেরই সকল সদস্যের অপরাধমূলক পটভূমি নেই ,তাই রাজনৈতিক দলের সদস্য মানেই অপরাধী এই সরলীকরণ এড়ানো উচিত।

আমাদের দেশের রাজনীতিতে কোনও কোনও স্থানে  দুর্বল পার্টি কাঠামোর কারণে দলগুলি নির্বাচনে জেতার জন্য সম্পদ এবং প্রভাবসম্পন্ন ব্যক্তিদের  তাদের অপরাধমূলক ইতিহাস জানা সত্বেও তাদের নির্বাচনে পার্টির টিকিট দেয়। এই সমস্ত ব্যক্তিরা তাদের সম্পদ ,পেশী শক্তি এবং ভোটার সংঘবদ্ধকরণের ক্ষেত্রে সুবিধা কারণে বেশীরভাগ ক্ষেত্রে খুব সহজেই নির্বাচনে জয়লাভ করে । কিছু কিছু ক্ষেত্রে, ভোটাররা দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিদের শক্তিশালী নেতা হিসাবে মনে করে এবং তাদের সমস্যার প্রতিকারের আশায় এমন ব্যক্তিদের তারা নির্বাচিত করে ।

 তাছাড়া ভারতীয় আইনি ব্যবস্থা “দোষ প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত নির্দোষ” নীতির অধীনে কাজ করে। এর মানে হল যে ফৌজদারি অভিযোগ রয়েছে এমন ব্যক্তিরা যতদিন না দোষী সাব্যস্ত হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার যোগ্য। এই আইনি বিধান ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তিরাও খুব সহজেই রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করতে পারে।আবার অনেক সময় ভোটররা রাজনীতিবিদদের অপরাধমূলক রেকর্ড সম্পর্কে তেমন কিছুই জানেন না ,আমাদের দেশের বেশীরভাগ ক্ষেত্রে ভোটাররা নির্বাচনী প্রার্থী পছন্দ করার সময় অন্যান্য কারণ যেমন জাত, ধর্ম বা দলীয় সদস্যতাকে বেশী অগ্রাধিকার দেয়।

আগামী ২০২৪ সাল পর্যন্ত N.D.A. ও I.N.D.I.A.জোট নিয়ে বিতর্কিত রাজনৈতিক মন্তব্য চলতে থাকবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


জানুন ২০২৩ সালের জাতীয় শিক্ষক পুরস্কার প্রাপ্ত শিক্ষক ডঃ শীলা অসোপা'র কথা

ত্তরাপথঃ ডঃ শীলা অসোপা, সরকারি বালিকা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শ্যাম সদন, যোধপুরের অধ্যক্ষা, তিনি ১৭ বছর ধরে স্কুলের বাচ্চাদের পড়াচ্ছেন।তাঁকে শিশুদের শেখানোর নতুন পদ্ধতি উদ্ভাবন, স্কুলের অবকাঠামো শক্তিশালীকরণ এবং উদ্ভাবনের জন্য ২০২৩ সালের জাতীয় শিক্ষক পুরস্কারে পুরুস্কৃত করা হয়।  ডঃ অসোপাকে, যোধপুরে শ্যাম সদন, সরকারি বালিকা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে, ১০ মাস আগে বদলি করা হয় । সেই সময় দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত বিদ্যালয়ে মাত্র দুটি কক্ষ ছিল।মেয়েরা টিনের চালা দিয়ে তৈরি ঘরে পড়াশোনা করত।  ঘর কম থাকায় গাছের নিচেও ক্লাস হত । তার কথায় ,সেই সময়টা বাচ্চাদের পড়াশুনা নিয়ে খুব দুশ্চিন্তায় কেটেছে । এরপর টিনের চালা দিয়ে তৈরি কক্ষে কাঠের পার্টিশন দিয়ে ৬টি কক্ষ তৈরি করা হয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

ধানের সাধ ভক্ষণ : জিহুড়

ড.  নিমাইকৃষ্ণ মাহাত: আশ্বিন সংক্রান্তিতে কৃষক সমাজের মধ্যে জিহুড় পার্বণ পালিত হয়। কৃষক সাধারণের মধ্যে জিহুড় পার্বণের একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। জিহুড় অর্থাৎ আশ্বিন সংক্রান্তির সময় বহাল জমিতে লাগানো ধান বা বড়ান ধানে থোড় আসতে শুরু করে। সুতরাং ধান গাছ গর্ভাবস্থায় থাকে। মানুষের ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় নানা ধরনের আচার-সংস্কার পালন করা হয়। এই সংস্কারগুলির অন্যতম হলো " ন' মাসি " অর্থাৎ গর্ভাবস্থার নবম মাসে যে আচার -অনুষ্ঠান পালন করা হয়। এর কিছুদিন পরেই সন্তানজন্মগ্রহণ করে। মানব- সমাজের গর্ভাবস্থাজনিত এই ধরনের আচার সংস্কারের সঙ্গে ধান গাছের গর্ভাবস্থার কারণে পালনীয় অনুষ্ঠান জিহুড়ের সাদৃশ্য থাকে দেখা যায়। সেই জন্য অনেকে জিহুড় অনুষ্ঠানকে ধান গাছের 'সাধভক্ষণ'  বলে থাকেন। জিহুড়-এ ধান গাছ .....বিস্তারিত পড়ুন

আমন্ত্রণপত্রে, বর ও কনের নামের সাথে আইআইটি লেখায় বিতর্ক সোশ্যাল মাধ্যমে  

উত্তরাপথঃ বিবাহের সময়, অভিনব এবং ডিজাইনার আমন্ত্রণ কার্ডগুলি সর্বদা সকলের আলোচনায় পরিণত হয়। কিছু আমন্ত্রণ পত্র বিলাসবহুল চকোলেটের সাথে কাস্টমাইজ করে বানানো হয়,আবার কোনও কোনও ক্ষেত্রে পরিবেশের কথা মাথায় রেখে বায়োডিগ্রেডেবল কার্ডের সাথে  উপহার হিসাবে গাছ দেওয়া হয়।  সম্প্রতি, একটি পুরাতন বিবাহের আমন্ত্রণপত্র ইন্টারনেটে ভাইরাল হচ্ছে যা বর এবং কনের শিক্ষাগত যোগ্যতা গুলিকে হাইলাইট করে বানানো হয়েছে । অর্থাৎ কার্ডে বর ও কনের নামের সাথে তাদের পড়াশোনার ডিগ্রিকেও যুক্ত করা হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

মানব-চালিত রোবট ARCHAX এর সাথে দেখা করুন

উত্তরাপথঃসাম্প্রতিক বছরগুলিতে, প্রযুক্তিগত অগ্রগতি আমাদের এক ধাপে অনেকটা এগিয়ে নিয়ে এসেছে, আজ রোবটগুলি আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। স্বয়ংক্রিয় সহকারী থেকে স্ব-ড্রাইভিং গাড়ি পর্যন্ত,সর্বত্র আজ রোবটের অবাধ উপস্থিতি। ARCHAX মানব-চালিত এই রোবট  এমনই এক উদ্ভাবন যা বিজ্ঞানী এবং সাধারণ জনগণ উভয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে । অটোনোমাস রোবোটিক কম্প্যানিয়ন উইথ হিউম্যান অ্যাসিসট্যান্সের সংক্ষিপ্ত আর্ক্যাক্স, এর একটি যুগান্তকারী সৃষ্টি যা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (AI) বুদ্ধিমত্তাকে একজন মানব অপারেটরের দক্ষতা এবং সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতার সাথে একত্রিত করে তৈরি করা হয়েছে।জাপানের Tsubame Industries ARCHAX তৈরি করেছে।এটি একটি মানুষের আকারের ককপিট সহ একটি বিশাল ট্রান্সফরমার রোবট। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top