Sustainable Energy: সূর্যের আলো এবং বায়ু,থেকে বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড-ব্রেকিং বৃদ্ধি

উত্তরাপথ

ছবি সংগৃহীত

সম্প্রতি একটি রিপোর্ট সামনে এসেছে তাতে সূর্যের আলো এবং বায়ু,থেকে সারা বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড-ব্রেকিং বৃদ্ধি ১২% উৎপাদন করা সম্ভব হয়েছে। এই পুনর্নবীকরণযোগ‍্য সম্পদের ব্যবহার আমাদের অ নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহারের বিকল্পের দিকে ক্রমবর্ধমান বিশ্বব্যাপী পরিবর্তনকে প্রতিফলিত করছে।

সৌর এবং বায়ু শক্তির ব্যবহারের দ্রুত বৃদ্ধি বিভিন্ন কারণ দ্বারা চালিত হয়েছে। প্রথমত, প্রযুক্তির অগ্রগতি পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি ব্যবস্থাকে আরও দক্ষ এবং সাশ্রয়ী করে তুলেছে। সৌর প্যানেল এবং বায়ু টারবাইনগুলি এখন আগের চেয়ে আরও দক্ষতার সাথে সূর্য এবং বায়ু থেকে শক্তি উৎপাদন করতে সক্ষম, যার ফলে বিশ্বব্যাপী পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে।

অধিকন্তু, সরকার এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলি জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা এবং গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস করার জরুরি প্রয়োজনকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এর ফলে পুনর্নবীকরণযোগ্য জ্বালানি প্রকল্পের উন্নয়ন ও স্থাপনাকে উৎসাহিত করার জন্য অনুকূল নীতি ও প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশগুলি পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি উৎপাদনের জন্য একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে, যার লক্ষ্য হল জীবাশ্ম জ্বালানি-ভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনকে পুনর্নবীকরণযোগ্য বিকল্পগুলির সাথে প্রতিস্থাপন করা।

সৌর এবং বায়ু শক্তির ব্যবহারের সুবিধা শুধুমাত্র আমাদের পরিবেশগত ক্ষেত্রেই সীমাবদ্ধ নয়।এয় আমাদের অর্থনৈতিক  ক্ষেত্রকেও প্রভাবিত করে।এই সৌর প্যানেল এবং বায়ু টারবাইনগুলির স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য দক্ষ শ্রমিকের প্রয়োজন, যা পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি সেক্টরে কর্মসংস্থানের সুযোগকে উদ্দীপিত করে।

কিছু অঞ্চলে, সৌর এবং বায়ু শক্তি বিদ্যুতের সবচেয়ে সস্তা উৎস হয়ে উঠেছে, যা ঐতিহ্যগত জীবাশ্ম জ্বালানী-ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের খরচের থেকে অনেক কম। খরচের এই সাশ্রয় , উন্নত এবং উন্নয়নশীল উভয় দেশের জন্যই  প্রতিযোগিতামূলক অর্থনীতিতে সৌর এবং বায়ু শক্তি গ্রহণকে আরও প্ররোচিত করেছে,এবং একটি আকর্ষণীয় বিকল্প হিসাবে তুলে ধরেছে।

২০২২সালে বিশ্বব্যাপী সৌর ও বায়ু চালিত বিদ্যুৎ উৎপাদনে ১২% রেকর্ড বৃদ্ধিভ পেয়েছে যা একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক। এর আগে ২০০৫ সালে সৌর ও বায়ু চালিত বিদ্যুৎ উৎপাদন ৫% ছিল।কিন্তু এখনও কয়লা বিশ্বব্যাপী বিদ্যুৎ উৎপাদনে শীর্ষস্থানে থেকে গেছে। বিজ্ঞানীরা এবং ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সি বলেছে যে গ্লোবাল ওয়ার্মিং ১.৫ সেন্টিগ্রেডে সীমাবদ্ধ করার গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য এই জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার দ্রুত হ্রাস করতে হবে।সুতরাং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি এখন আর শক্তির বিকল্প উৎস নয় বরং এটি আগামী দিনে বিশ্বের ব্যবহৃত  শক্তির একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হতে চলেছে। যাইহোক, এখনও অনেক অগ্রগতি করা বাকি আছে, কারণ এর মুহূর্তে  সারা বিশ্বের লক্ষ্য এখন সবার জন্য একটি উজ্জ্বল এবং সবুজ ভবিষ্যত নিশ্চিত করা।

সেই কারণে, সরকার, ব্যবসা এবং ব্যক্তিদের সম্মিলিতভাবে পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির ব্যবহারের উপর গবেষণা ও কাঠামো উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে। সৌর এবং বায়ু শক্তির দক্ষতা এবং ক্ষমতা উন্নত করার জন্য প্রযুক্তিতে আরও অগ্রগতির প্রয়োজন। উপরন্তু, বিদ্যুত গ্রিড আধুনিকীকরণের জন্য বিনিয়োগ করা উচিত এবং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির বৃহত্তর শেয়ার একীভূত করার জন্য তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধি করা উচিত।সৌর এবং বায়ু বিদ্যুতের রেকর্ড উৎপাদন আমাদের জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমন, জীবাশ্ম জ্বালানীর উপর নির্ভরতা হ্রাস এবং আগামী প্রজন্মের জন্য একটি সুরক্ষিত ভবিষ্যৎ তৈরিতে বড় অবদান রাখবে ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ধানের সাধ ভক্ষণ : জিহুড়

ড.  নিমাইকৃষ্ণ মাহাত: আশ্বিন সংক্রান্তিতে কৃষক সমাজের মধ্যে জিহুড় পার্বণ পালিত হয়। কৃষক সাধারণের মধ্যে জিহুড় পার্বণের একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। জিহুড় অর্থাৎ আশ্বিন সংক্রান্তির সময় বহাল জমিতে লাগানো ধান বা বড়ান ধানে থোড় আসতে শুরু করে। সুতরাং ধান গাছ গর্ভাবস্থায় থাকে। মানুষের ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় নানা ধরনের আচার-সংস্কার পালন করা হয়। এই সংস্কারগুলির অন্যতম হলো " ন' মাসি " অর্থাৎ গর্ভাবস্থার নবম মাসে যে আচার -অনুষ্ঠান পালন করা হয়। এর কিছুদিন পরেই সন্তানজন্মগ্রহণ করে। মানব- সমাজের গর্ভাবস্থাজনিত এই ধরনের আচার সংস্কারের সঙ্গে ধান গাছের গর্ভাবস্থার কারণে পালনীয় অনুষ্ঠান জিহুড়ের সাদৃশ্য থাকে দেখা যায়। সেই জন্য অনেকে জিহুড় অনুষ্ঠানকে ধান গাছের 'সাধভক্ষণ'  বলে থাকেন। জিহুড়-এ ধান গাছ .....বিস্তারিত পড়ুন

রবি কিরণে “আদিত্য”

ড. সায়ন বসুঃ বীর "বিক্রমে" চাঁদের মাটিতে পা রাখার পর এবার ভারতীয় মহাকাশ গবেষণাকেন্দ্র (ISRO)-এর লক্ষ্য সূর্য | আমাদের ৮টি গ্রহ (প্লুটো এখন বামন গ্রহের তালিকায়) যাকে কেন্দ্র করে ঘুরছে সেই সূর্যের দিকে পাড়ি দিয়েছে "আদিত্য" ২রা সেপ্টেম্বর| চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণের ১০ দিনের মাথায় আদিত্যকে সূর্যের উদ্দেশ্যে পাঠিয়ে দিয়ে ISRO বাকি বিশ্বের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রগুলির কাছে যে একটি শক্তিশালী বার্তা পৌঁছে দিতে পেরেছে তা বলাই বাহুল্য| আদিত্য মিশনের সূচনা ২০০৮ সালের জানুয়ারী মাসে মহাকাশ বিজ্ঞান সম্পর্কিত একটি উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে|প্রাথমিকভাবে ঠিক করা হয় যে একটি ছোট এবং কম ওজনের (৪০০ কেজি) কৃত্রিম উপগ্রহকে low Earth orbit (LEO ;লিও) যে কক্ষপথের উচ্চতা ১,২০০ কিলোমিটারের থেকে কম সেখানে পাঠানো হবে এবং তার কাজ হবে সূর্যের একদম যে বাইরের স্তর যাকে আমরা সৌর-করোনা বলি তার সম্বন্ধে তথ্য পাঠানো। .....বিস্তারিত পড়ুন

বিশ্ব মানবতার আলোয় যৌবনের পূজারী নজরুল

অসীম পাঠকঃ জীবনের প্রয়োজনে যুগের পরিবর্তন যেমন সত্য তেমনি যুগের প্রয়োজনে জীবনের আবির্ভাব অমোঘ। এই বাস্তব সত্যটিকে আরও গভীর ভাবে উপলব্ধি করার কাল এসেছে। তারই অভ্যাস অনুরণিত হচ্ছে দিকে দিকে। সর্বত্র আলোড়ন উঠেছে বিদ্রোহী কবির জীবন দর্শন নিয়ে , তাঁর আগুন ঝরা কবিতা নিয়ে। সর্বহারার কবি নজরুল ইসলাম। যারা বঞ্চিত অবহেলিত , নিপীড়ন আর শোষণের জ্বালা যাদের বুকে ধিকি ধিকি জ্বলে বুকেই জুড়িয়ে যাচ্ছিল দাহ, তাদের মূক বেদনার ভাষা দিয়েছিলেন নজরুল।পদদলিত পরাধীন জাতির বুকে স্বাধীনতার তৃষ্ণা জাগিয়েই তিনি শান্ত থাকেননি , দেশের সমাজের বুক থেকে মানুষে মানুষে বিভেদ ব্যাবধান দূর করবার ব্রত ও গ্রহন করেছিলেন। তিনিই প্রথম কবি যিনি সমাজের সমাজপতি দের ছলনার .....বিস্তারিত পড়ুন

শারদোৎসবের প্রস্তুতি শুরু কলকাতা পুরসভা এবং বন্দর কতৃপক্ষের

উত্তরাপথঃ শারদোৎসবের প্রস্তুতি শুরু প্রশাসনের, প্রতিমা বিসর্জনে এ বার বিশেষ বন্দোবস্ত করছে কলকাতা পুরসভা।এ বছর ২১ অক্টোবর দুর্গা পুজা শুরু এবং ২৪ অক্টোবর বিজয়া দশমী। বিজয়া দশমীর পর আরও দু’দিন প্রতিমা বিসর্জন করা যাবে বলে প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে। তাই সেই প্রতিমা বিসর্জন পর্ব মসৃণ করতে কলকাতা বন্দর এবং পুরসভা কর্তৃপক্ষ বেশ কিছু পদক্ষেপ নিতে চলেছে। সোমবার কলকাতা পুরসভায় প্রাক্‌-পুজোর বৈঠকে পুরসভার বিভিন্ন বিভাগের আধিকারিকদের পাশাপাশি, ছিলেন কলকাতা পুলিশ, সিইএসসি-সহ একাধিক সরকারি দফতরের আধিকারিকেরা। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top