Sustainable Energy: সূর্যের আলো এবং বায়ু,থেকে বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড-ব্রেকিং বৃদ্ধি

উত্তরাপথ

ছবি সংগৃহীত

সম্প্রতি একটি রিপোর্ট সামনে এসেছে তাতে সূর্যের আলো এবং বায়ু,থেকে সারা বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড-ব্রেকিং বৃদ্ধি ১২% উৎপাদন করা সম্ভব হয়েছে। এই পুনর্নবীকরণযোগ‍্য সম্পদের ব্যবহার আমাদের অ নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহারের বিকল্পের দিকে ক্রমবর্ধমান বিশ্বব্যাপী পরিবর্তনকে প্রতিফলিত করছে।

সৌর এবং বায়ু শক্তির ব্যবহারের দ্রুত বৃদ্ধি বিভিন্ন কারণ দ্বারা চালিত হয়েছে। প্রথমত, প্রযুক্তির অগ্রগতি পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি ব্যবস্থাকে আরও দক্ষ এবং সাশ্রয়ী করে তুলেছে। সৌর প্যানেল এবং বায়ু টারবাইনগুলি এখন আগের চেয়ে আরও দক্ষতার সাথে সূর্য এবং বায়ু থেকে শক্তি উৎপাদন করতে সক্ষম, যার ফলে বিশ্বব্যাপী পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে।

অধিকন্তু, সরকার এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলি জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা এবং গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস করার জরুরি প্রয়োজনকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এর ফলে পুনর্নবীকরণযোগ্য জ্বালানি প্রকল্পের উন্নয়ন ও স্থাপনাকে উৎসাহিত করার জন্য অনুকূল নীতি ও প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশগুলি পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি উৎপাদনের জন্য একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে, যার লক্ষ্য হল জীবাশ্ম জ্বালানি-ভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনকে পুনর্নবীকরণযোগ্য বিকল্পগুলির সাথে প্রতিস্থাপন করা।

সৌর এবং বায়ু শক্তির ব্যবহারের সুবিধা শুধুমাত্র আমাদের পরিবেশগত ক্ষেত্রেই সীমাবদ্ধ নয়।এয় আমাদের অর্থনৈতিক  ক্ষেত্রকেও প্রভাবিত করে।এই সৌর প্যানেল এবং বায়ু টারবাইনগুলির স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য দক্ষ শ্রমিকের প্রয়োজন, যা পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি সেক্টরে কর্মসংস্থানের সুযোগকে উদ্দীপিত করে।

কিছু অঞ্চলে, সৌর এবং বায়ু শক্তি বিদ্যুতের সবচেয়ে সস্তা উৎস হয়ে উঠেছে, যা ঐতিহ্যগত জীবাশ্ম জ্বালানী-ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের খরচের থেকে অনেক কম। খরচের এই সাশ্রয় , উন্নত এবং উন্নয়নশীল উভয় দেশের জন্যই  প্রতিযোগিতামূলক অর্থনীতিতে সৌর এবং বায়ু শক্তি গ্রহণকে আরও প্ররোচিত করেছে,এবং একটি আকর্ষণীয় বিকল্প হিসাবে তুলে ধরেছে।

২০২২সালে বিশ্বব্যাপী সৌর ও বায়ু চালিত বিদ্যুৎ উৎপাদনে ১২% রেকর্ড বৃদ্ধিভ পেয়েছে যা একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক। এর আগে ২০০৫ সালে সৌর ও বায়ু চালিত বিদ্যুৎ উৎপাদন ৫% ছিল।কিন্তু এখনও কয়লা বিশ্বব্যাপী বিদ্যুৎ উৎপাদনে শীর্ষস্থানে থেকে গেছে। বিজ্ঞানীরা এবং ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সি বলেছে যে গ্লোবাল ওয়ার্মিং ১.৫ সেন্টিগ্রেডে সীমাবদ্ধ করার গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য এই জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার দ্রুত হ্রাস করতে হবে।সুতরাং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি এখন আর শক্তির বিকল্প উৎস নয় বরং এটি আগামী দিনে বিশ্বের ব্যবহৃত  শক্তির একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হতে চলেছে। যাইহোক, এখনও অনেক অগ্রগতি করা বাকি আছে, কারণ এর মুহূর্তে  সারা বিশ্বের লক্ষ্য এখন সবার জন্য একটি উজ্জ্বল এবং সবুজ ভবিষ্যত নিশ্চিত করা।

সেই কারণে, সরকার, ব্যবসা এবং ব্যক্তিদের সম্মিলিতভাবে পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির ব্যবহারের উপর গবেষণা ও কাঠামো উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে। সৌর এবং বায়ু শক্তির দক্ষতা এবং ক্ষমতা উন্নত করার জন্য প্রযুক্তিতে আরও অগ্রগতির প্রয়োজন। উপরন্তু, বিদ্যুত গ্রিড আধুনিকীকরণের জন্য বিনিয়োগ করা উচিত এবং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির বৃহত্তর শেয়ার একীভূত করার জন্য তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধি করা উচিত।সৌর এবং বায়ু বিদ্যুতের রেকর্ড উৎপাদন আমাদের জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমন, জীবাশ্ম জ্বালানীর উপর নির্ভরতা হ্রাস এবং আগামী প্রজন্মের জন্য একটি সুরক্ষিত ভবিষ্যৎ তৈরিতে বড় অবদান রাখবে ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


প্রাপ্তবয়স্কদের স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস সমস্যার সমাধানের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিক

উত্তরাপথঃ সারা বিশ্বের জনসংখ্যার বয়স বৃদ্ধির সাথে স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস এবং ডিমেনশিয়ার মতো নিউরোডিজেনারেটিভ রোগের প্রকোপ বাড়ছে৷ তাদের এই  সমস্যাগুলি যে কেবল তাদের একার সমস্যা তা নয় ,এটি ধীরে ধীরে পুরো পারিবারিক সমস্যার আকার নেয়।সম্প্রতি বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে পুনরুদ্ধার করার জন্য গবেষকদের মধ্যে কার্যকর কৌশল খোঁজার আগ্রহ বাড়ছে।বর্তমানে বেশীরভাগ গবেষক মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের সম্ভাব্য ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । এখন খুব স্বাভাবিকভাবেই একটি প্রশ্ন আসে প্রোবায়োটিক কি? কেনই বা গবেষকরা মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । .....বিস্তারিত পড়ুন

Karar Oi Lauh Kapat: কাজী নজরুলের এই গানকে ঘিরে  বিতর্কে এ আর রহমান

উত্তরাপথঃ বিতর্কে 'পিপ্পা' ছবির সঙ্গীত পরিচালক অস্কারজয়ী সুরকার এ আর রহমান।সম্প্রতি কবি কাজী নজরুল ইসলামের পরিবার একটি হিন্দি ছবিতে কবির জনপ্রিয় গান 'করার ঐ লৌহ কাপাত...' (Karar Oi Lauh Kapat )।কিন্তু এ আর রহমানের সঙ্গীত পরিচালনায় ওই গানটি যেভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে তাতে আপত্তি জানিয়েছে নজরুল পরিবার।বিতর্কের পর যে চুক্তির আওতায় ওই গানটি ছবিতে ব্যবহার করা হয়েছে তা প্রকাশ্যে আনার দাবি তুলেছে কবির পরিবার।'পিপ্পা' শিরোনামের হিন্দি চলচ্চিত্রটি যেখানে (Karar Oi Lauh Kapat )গানটি ব্যবহার করা হয়েছে তা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেওয়া একজন ভারতীয় সেনা সৈনিককে কেন্দ্র করে একটি সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত। ছবির সঙ্গীত পরিচালক অস্কারজয়ী সুরকার এ আর রহমান। গানের কথা ঠিক রেখেও সুর পাল্টানোর অভিযোগে ভারত ও বাংলাদেশে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।কবির পরিবারের অভিযোগ, গানটি ব্যবহারের অনুমতি দিলেও সুর পরিবর্তনের অনুমতি দেওয়া হয়নি।পরিবারের সদস্যরাও ছবিটি থেকে গানটি বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

NASA Carbon Emission: পৃথিবী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করার চেয়ে বেশি নির্গত করছে

উত্তরাপথঃ কার্বন নির্গমন (NASA Carbon Emission) সম্পর্কে নাসার সর্বশেষ আবিষ্কার পৃথিবীর জন্য এক সতর্কতা সংকেত। মহাকাশ সংস্থার মতে, পৃথিবী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করার চেয়ে বেশি নির্গত করছে, যার ফলে গ্রিনহাউস গ্যাসের বায়ুমণ্ডলীয় ঘনত্ব উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। NASA এর এই আবিষ্কারটি জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য কারণ হিসাবে দেখা যেতে পারে, সেইসাথে কার্বন নিঃসরণ কমানোর জন্য জরুরি পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তার উপর আলোকপাত করেছে।নাসার সর্বশেষ গবেষণায় যে তথ্য উঠে এসেছে তাতে পৃথিবীর মহাসাগর এবং ভূমি-ভিত্তিক বাস্তুতন্ত্র আগের চেয়ে কম কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করছে। গবেষণায় দেখা গেছে যে গত এক দশকে ভূমি এবং মহাসাগর দ্বারা শোষিত কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ ৫% হ্রাস পেয়েছে, যার ফলে গ্যাসের বায়ুমণ্ডলীয় ঘনত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top