World Food Crisis: বিশ্ব খাদ্য সংকট: প্রয়োজন দ্রুত পদক্ষেপের

সম্পাদকীয় 

২০২৩ সালের  খাদ্য সংকট সম্পর্কিত একটি গ্লোবাল রিপোর্ট (GRFC ) সামনে এসেছে । তাতে  সারা বিশ্বে তীব্র খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভোগা মানুষের সংখ্যা বেড়েছে।বর্তমানে পৃথিবীর  ৫৮টি দেশ ও অঞ্চল জুড়ে ২৫৮ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ তীব্র ক্ষুধার সম্মুখীন। বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছেন যে আমাদের কাছে ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্ব জনসংখ্যাকে খাওয়ানোর জন্য পর্যাপ্ত খাবার নাও থাকতে পারে ৷ এই সংকট জলবায়ু পরিবর্তন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, এবং দীর্ঘ মেয়াদী চাষের প্রতি অনাগ্রহ সহ বিভিন্ন কারণের ফলাফল। আগামী দিনে এটি এমন এক সমস্যা হতে চল্রছে যা নিয়ে বর্তমানে প্রতিটি দেশের সরকার থেকে বিজ্ঞানী প্রত্যেকের এই বিষয়ে আগাম পদক্ষেপ  পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত।

জলবায়ু পরিবর্তন বিশ্ব খাদ্য সংকটের অন্যতম প্রধান কারণ। পরিবর্তিত জলবায়ুতে খরা এবং বন্যা সহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক বিপর্যয় এখন সাধারন সামস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে, যা আমাদের কৃষি উৎপাদনকে ব্যাহত করছে এবং ফসলের ফলন হ্রাস করছে। উপরন্তু, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা বিশেষ করে উন্নয়নশীল দেশগুলিতে বিভিন্ন মরসুমে নির্দিষ্ট ফসল ফলানো আরও কঠিন করে তুলছে।

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা বৃদ্ধি খাদ্য সংকটের আরেকটি কারণ। ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্ব জনসংখ্যা ৯.৭ বিলিয়নে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে, যা আমাদের ইতিমধ্যেই চাপে থাকা খাদ্য ব্যবস্থায় অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করবে। আমরা যে খাদ্য উৎপাদন করি তা স্বাস্থ্যকর, পুষ্টিকর এবং দীর্ঘদিন যাতে সংরক্ষণ করা যায় তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি কম সময়ে আরও বেশি খাদ্য উৎপাদনের উপায় খুঁজে বের করতে হবে।

অ-বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষাবাদও খাদ্য সঙ্কটের একটি কারণ । চাষের সাথে যুক্ত অনেকে না জেনে বুঝে শুধুমাত্র উৎপাদন বাড়ানোর জন্য মাত্রাতিরিক্ত নিম্নমানের কীটনাশক প্রয়োগ করে চলেছেন। এই কীটনাশকের ব্যবহার যেমন মাটির পুষ্টি হ্রাস করছে সেই সাথে জীববৈচিত্র্যও হ্রাস করছে । আমাদের বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষাবাদের চর্চা প্রচার করতে হবে যা পরিবেশ রক্ষার সাথে সাথে আমাদের খাদ্য নিরাপত্তা দিতে সক্ষম হবে ।

সেই সাথে বিশ্ব খাদ্য সংকট মোকাবেলার জন্য, আমাদের অবশ্যই বেশ কিছু বহুমুখী পন্থা অবলম্বন করতে হবে যা সমস্যার মূল কারণগুলিকে সমাধান করবে। পরিবর্তিত জলবায়ুর সাথে সামঞ্জস্য রেখে এবং ফসলের ফলন উন্নত করতে নতুন, ফসল বিকাশের জন্য গবেষণা এবং উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে। এক পরিবেশ বান্ধব কৃষি পদ্ধতি চালু করতে হবে যা আমাদের খাদ্যের ঘাটতি পূরনের সাথে সাথে আমাদের ইকো সিসটেমকে উন্নত করবে ।

সেই সাথে আমাদের অবশ্যই খাদ্য বর্জ্যের সমস্যাটি মোকাবেলা করতে হবে, যা বিশ্ব খাদ্য সংকটের একটি অন্যতম কারণ। এটি অনুমান করা হয় যে বিশ্বব্যাপী উৎপাদিত সমস্ত খাদ্যের এক-তৃতীয়াংশ অপচয় হয়, যা সম্পদের একটি উল্লেখযোগ্য ক্ষতি এবং খাদ্য সংকটকে আরও বাড়িয়ে তোলে। আমাদের অবশ্যই খাদ্য বর্জ্য কমাতে পদক্ষেপ নিতে হবে, যার মধ্যে ভোক্তাদের খাদ্য অপচয় কমানোর গুরুত্ব সম্পর্কে শিক্ষিত করা এক অন্যতম পদক্ষেপ।

 বিশ্ব খাদ্য সংকট আগামী দিনে এক বড় সমস্যা হতে চলেছে যা নিয়ে খুব শীঘ্র আমাদের পদক্ষেপ নিতে হবে । সেই সাথে জলবায়ু পরিবর্তন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং অ-বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ  সহ সমস্যার মূল কারণগুলিকে আমাদের অবশ্যই সমাধান করতে হবে।গবেষণা ও উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে, সঠিক বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে  চাষাবাদের অনুশীলনের প্রচার করতে হবে এবং খাদ্যের অপচয় কমাতে হবে। শুধুমাত্র একসাথে কাজ করার মাধ্যমে আমরা নিশ্চিত করতে পারি যে আমাদের বিশ্ব জনসংখ্যাকে খাওয়ানোর জন্য আমাদের পর্যাপ্ত খাদ্য রয়েছে।  

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Bandna Festival: ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল পাঁচ দিন বাঁদনার আমেজে মশগুল থাকে

বলরাম মাহাতোঃ চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী কার্তিক অমাবস্যার আগের দিন থেকে মোট পাঁচ দিন ব্যাপী বাঁদনার(Bandna Festival) আমেজে মশগুল থাকে ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। অবশ্য, পরবের শুভ সূচনা হয় তারও কয়েকদিন আগে। আদিবাসী সম্প্রদায়ের সামাজিক শাসন ব্যবস্থার চূড়ামণি হিসাবে গাঁয়ের মাহাতো, লায়া, দেহরি কিম্বা বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি নির্ধারণ করেন- ৩, ৫, ৭ বা ৯ ক’দিন ধরে গবাদি পশুর শিং-এ তেল মাখাবে গৃহস্বামী! রুখামাটির দেশের লোকেরা কোনোকালেই মাছের তেলে মাছ ভাজা তত্ত্বের অনুসারী নয়। তাই তারা গোরুর শিং-এ অন্য তেলের পরিবর্তে কচড়া তেল মাখানোয় বিশ্বাসী। কারণ কচড়া তেল প্রস্তুত করতে গোধনকে খাটাতে হয় না যে! কচড়া তেলের অপ্রতুলতার কারণে বর্তমানে সরষের তেল ব্যবহৃত হলেও, কচড়া তেলের ধারণাটি যে কৃষিজীবী মানুষের গবাদি পশুর প্রতি প্রেমের দ্যোতক, তা বলাই বাহুল্য! এভাবেই রাঢ বঙ্গে গোবর নিকানো উঠোনে হাজির হয়- ঘাওয়া, অমাবস্যা, গরইয়া, বুঢ়ি বাঁদনা ও গুঁড়ি বাঁদনার উৎসবমুখর দিনগুলি। পঞ্চদিবসে তেল দেওয়া, গঠ পূজা, কাঁচি দুয়ারি, জাগান, গহাইল পূজা, চুমান, চউক পুরা, নিমছান, গোরু খুঁটা, কাঁটা কাঢ়া প্রভৃতি ১১টি প্রধান পর্ব সহ মোট ১৬টি লোকাচারের মাধ্যমে উদযাপিত হয় বাঁদনা পরব(Bandna Festival )। .....বিস্তারিত পড়ুন

বিশ্বকাপ ২০২৩: পাকিস্তানকে হারিয়ে Afghanistan এ ঈদের মতো পরিস্থিতি

আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০২৩-এর ২২ তম ম্যাচে আফগানিস্তান পাকিস্তানকে বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করেছে। সেই ম্যাচে পাকিস্তানকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করে আফগানিস্তান। এই প্রথম ওয়ানডেতে পাকিস্তানকে হারাল আফগানিস্তান আর এই পাকিস্তানকে হারিয়ে আফগানিস্থানে(Afghanistan)এখন ঈদের মতো পরিস্থিতি।এক আফগানিস্থানি সমর্থকের মতে এটি ছিল আমাদের ইতিহাসের একটি বিরল মুহূর্ত যখন পুরো জাতি খুশি ছিল এবং নিজেদের মত করে তারা তাদের এই খুশী উদযাপন করেছেন। এক্স হ্যান্ডেলে এক সমর্থকের মতে, সেদিন উদযাপন ছিল, পার্টি ছিল। এটি ছিল আমাদের ইতিহাসের একটি বিরল মুহূর্ত যখন পুরো জাতি খুশি ছিল এছাড়াও, এটি ছিল ২০২৩ বিশ্বকাপের তৃতীয় বড় আপসেট । টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাবর আজমের দল। প্রথমে ব্যাট করে পাকিস্তান দল ২৮২ রান করে। জবাবে আফগানিস্তান দল ২৮৩ রান তাড়া করে ৪৯ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্য অর্জন করে। এই ম্যাচে হারের পর বেশ ক্ষুব্ধ দেখাচ্ছিল অধিনায়ক বাবর আজমকে। ম্যাচ-পরবর্তী উপস্থাপনার সময়, তিনি দলের ত্রুটিগুলি তালিকাভুক্ত করেছিলেন এবং পরাজয়ের জন্য নিজেদের দায়ী করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

ওজন হ্রাস (weight loss) মস্তিষ্কের বার্ধক্যের লক্ষণগুলিকে ধীর করে

উত্তরাপথঃ এপ্রিলে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, শাকসবজি, সামুদ্রিক খাবার এবং গোটা শস্য সমৃদ্ধ একটি ভূমধ্যসাগরীয় খাদ্য খাওয়া - এমনকি শুধুমাত্র খাদ্যের নির্দেশিকা অনুসরণ করে   ওজন হ্রাস (weight loss)মস্তিষ্কের বার্ধক্যের লক্ষণগুলিকে ধীর করে বলে মনে করা হয়।সাম্প্রতি ডিউক ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিনের বিজ্ঞানীদের দ্বারা পরিচালিত, একটি  গবেষণায় দেখা গেছে যে ওজন হ্রাস মস্তিষ্কে বার্ধক্য প্রক্রিয়াকে ৯ মাস পর্যন্ত ধীর করে (aging process) দিতে পারে। গবেষণায় ৬০ থেকে ৭৮ বছর বয়সের মধ্যে ৪৭ জন অংশগ্রহণকারীকে জড়িত করা হয়েছিল, যাদের প্রত্যেকেরই ওজন বেশি বা স্থূল ছিল এবং তাদের অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যগ্রহণ  ছিল। তাদের এলোমেলোভাবে একটি ক্যালোরি-সীমাবদ্ধ গ্রুপ বা একটি নিয়ন্ত্রণ গ্রুপে বরাদ্দ করা হয়েছিল।ক্যালোরি-সীমাবদ্ধতা গোষ্ঠীর সদস্যদের একটি খাদ্য পরিকল্পনা অনুসরণ করে, যার লক্ষ্য ছিল তাদের আনুমানিক প্রয়োজনের চেয়ে ১০ – ১৫% কম ক্যালোরি গ্রহণ করা। অন্যদিকে, নিয়ন্ত্রণ গ্রুপ তাদের খাদ্য পরিবর্তন করেনি .....বিস্তারিত পড়ুন

সেলফির উচ্চ রেটিং কি আপনাকে আরওপাতলা হতে উৎসাহিত করছে ?

উত্তরাপথঃ সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে সেলফি তোলা এবং নিজেকে পাতলা হিসাবে দেখানোর মধ্যে একটি সম্পর্ক থাকতে পারে। যুক্তরাজ্যের ইয়র্ক সেন্ট জন ইউনিভার্সিটির রুথ নাইট এবং ইউনিভার্সিটি অফ ইয়র্কের ক্যাথরিন প্রেস্টন সম্প্রতি PLOS ONE জার্নালে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছেন।সেখানে সেলফির উচ্চ রেটিং এবং আমাদের শরীরের গঠনের মধ্যে যোগসূত্র খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে।    বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়ায় সেলফি হল এক জনপ্রিয় ছবি দেওয়ার ধরন। যিনি সেলফি তোলেন তিনি ক্যামেরাকে তাদের শরীর থেকে দূরে রেখে নিজেই নিজের ছবি তোলে। আগের গবেষণায় বলা হয়েছে সেলফিগুলি দেখার ফলে ছবির বিষয়গুলি সম্পর্কে দর্শকদের সিদ্ধান্ত প্রভাবিত হতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top