World Food Crisis: বিশ্ব খাদ্য সংকট: প্রয়োজন দ্রুত পদক্ষেপের

সম্পাদকীয় 

২০২৩ সালের  খাদ্য সংকট সম্পর্কিত একটি গ্লোবাল রিপোর্ট (GRFC ) সামনে এসেছে । তাতে  সারা বিশ্বে তীব্র খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভোগা মানুষের সংখ্যা বেড়েছে।বর্তমানে পৃথিবীর  ৫৮টি দেশ ও অঞ্চল জুড়ে ২৫৮ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ তীব্র ক্ষুধার সম্মুখীন। বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছেন যে আমাদের কাছে ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্ব জনসংখ্যাকে খাওয়ানোর জন্য পর্যাপ্ত খাবার নাও থাকতে পারে ৷ এই সংকট জলবায়ু পরিবর্তন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, এবং দীর্ঘ মেয়াদী চাষের প্রতি অনাগ্রহ সহ বিভিন্ন কারণের ফলাফল। আগামী দিনে এটি এমন এক সমস্যা হতে চল্রছে যা নিয়ে বর্তমানে প্রতিটি দেশের সরকার থেকে বিজ্ঞানী প্রত্যেকের এই বিষয়ে আগাম পদক্ষেপ  পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত।

জলবায়ু পরিবর্তন বিশ্ব খাদ্য সংকটের অন্যতম প্রধান কারণ। পরিবর্তিত জলবায়ুতে খরা এবং বন্যা সহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক বিপর্যয় এখন সাধারন সামস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে, যা আমাদের কৃষি উৎপাদনকে ব্যাহত করছে এবং ফসলের ফলন হ্রাস করছে। উপরন্তু, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা বিশেষ করে উন্নয়নশীল দেশগুলিতে বিভিন্ন মরসুমে নির্দিষ্ট ফসল ফলানো আরও কঠিন করে তুলছে।

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা বৃদ্ধি খাদ্য সংকটের আরেকটি কারণ। ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্ব জনসংখ্যা ৯.৭ বিলিয়নে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে, যা আমাদের ইতিমধ্যেই চাপে থাকা খাদ্য ব্যবস্থায় অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করবে। আমরা যে খাদ্য উৎপাদন করি তা স্বাস্থ্যকর, পুষ্টিকর এবং দীর্ঘদিন যাতে সংরক্ষণ করা যায় তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি কম সময়ে আরও বেশি খাদ্য উৎপাদনের উপায় খুঁজে বের করতে হবে।

অ-বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষাবাদও খাদ্য সঙ্কটের একটি কারণ । চাষের সাথে যুক্ত অনেকে না জেনে বুঝে শুধুমাত্র উৎপাদন বাড়ানোর জন্য মাত্রাতিরিক্ত নিম্নমানের কীটনাশক প্রয়োগ করে চলেছেন। এই কীটনাশকের ব্যবহার যেমন মাটির পুষ্টি হ্রাস করছে সেই সাথে জীববৈচিত্র্যও হ্রাস করছে । আমাদের বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষাবাদের চর্চা প্রচার করতে হবে যা পরিবেশ রক্ষার সাথে সাথে আমাদের খাদ্য নিরাপত্তা দিতে সক্ষম হবে ।

সেই সাথে বিশ্ব খাদ্য সংকট মোকাবেলার জন্য, আমাদের অবশ্যই বেশ কিছু বহুমুখী পন্থা অবলম্বন করতে হবে যা সমস্যার মূল কারণগুলিকে সমাধান করবে। পরিবর্তিত জলবায়ুর সাথে সামঞ্জস্য রেখে এবং ফসলের ফলন উন্নত করতে নতুন, ফসল বিকাশের জন্য গবেষণা এবং উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে। এক পরিবেশ বান্ধব কৃষি পদ্ধতি চালু করতে হবে যা আমাদের খাদ্যের ঘাটতি পূরনের সাথে সাথে আমাদের ইকো সিসটেমকে উন্নত করবে ।

সেই সাথে আমাদের অবশ্যই খাদ্য বর্জ্যের সমস্যাটি মোকাবেলা করতে হবে, যা বিশ্ব খাদ্য সংকটের একটি অন্যতম কারণ। এটি অনুমান করা হয় যে বিশ্বব্যাপী উৎপাদিত সমস্ত খাদ্যের এক-তৃতীয়াংশ অপচয় হয়, যা সম্পদের একটি উল্লেখযোগ্য ক্ষতি এবং খাদ্য সংকটকে আরও বাড়িয়ে তোলে। আমাদের অবশ্যই খাদ্য বর্জ্য কমাতে পদক্ষেপ নিতে হবে, যার মধ্যে ভোক্তাদের খাদ্য অপচয় কমানোর গুরুত্ব সম্পর্কে শিক্ষিত করা এক অন্যতম পদক্ষেপ।

 বিশ্ব খাদ্য সংকট আগামী দিনে এক বড় সমস্যা হতে চলেছে যা নিয়ে খুব শীঘ্র আমাদের পদক্ষেপ নিতে হবে । সেই সাথে জলবায়ু পরিবর্তন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং অ-বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ  সহ সমস্যার মূল কারণগুলিকে আমাদের অবশ্যই সমাধান করতে হবে।গবেষণা ও উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে, সঠিক বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে  চাষাবাদের অনুশীলনের প্রচার করতে হবে এবং খাদ্যের অপচয় কমাতে হবে। শুধুমাত্র একসাথে কাজ করার মাধ্যমে আমরা নিশ্চিত করতে পারি যে আমাদের বিশ্ব জনসংখ্যাকে খাওয়ানোর জন্য আমাদের পর্যাপ্ত খাদ্য রয়েছে।  

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


রাতে ভালো ঘুমের পিছনে বিজ্ঞানের রহস্য

উত্তরাপথ: ঘুম আমাদের স্বাস্থ্যকর জীবনধারার একটি অপরিহার্য উপাদান। রাতের ভালো ঘুম হওয়া বর্তমান সময়ের একটা বড় সমস্যা। অনেকে আবার ভালো রাতের ঘুমের জন্য চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ঘুম নিয়ে গবেষণার ক্ষেত্রে বিজ্ঞান উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে।এক নতুন গবেষণায়, জাপানের সুকুবা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা  বলেছেন ঘুমের দীর্ঘস্থায়ী ও গভীরতা নির্ভর করে মস্তিস্কের কোষগুলির মধ্যে পাঠানো সংকেতের উপর। রাতে ঘুমের সময় শরীরে ঘটে যাওয়া জটিল প্রক্রিয়াগুলি সহ  রাতের বিশ্রামের কি গুরুত্ব আমাদের শরীরের উপর তা নিয়ে .....বিস্তারিত পড়ুন

Snake Robot : এবার মহাকাশে সাপ রোবট পাঠাবে NASA

উত্তরাপথ: মহাকাশ অনুসন্ধানের সীমানা আরও বিস্তৃত করতে এবং বহির্জাগতিক পরিবেশের দ্বারা সৃষ্ট চ্যালেঞ্জগুলি কাটিয়ে উঠতে NASA ক্রমাগত উদ্ভাবনী প্রযুক্তির সন্ধান করেছে। এর একটি উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ হল Snake robot বা সাপের মতো রোবট তৈরি করা যা মহাকাশে নেমে যাবতীয় অনুসন্ধানের কাজগুলি করবে এবং সেই সাথে মহাকাশে বসবাসের ক্ষেত্রে প্রতিকূল পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণ করবে। এই যুগান্তকারী সৃষ্টিতে মহাকাশ অভিযানে বিপ্লব ঘটানোর সম্ভাবনা রয়েছে, যা দূরবর্তী এবং প্রতিকূল পরিবেশে গবেষণার কাজ নিখুঁত ভাবে সম্পন্ন করতে সাহায্য করবে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top