MIT এর আন্ডারওয়াটার নেটওয়ার্কিং সিস্টেম তথ্য ট্রান্সমিশনে এক বিপ্লব

উত্তরাপথঃ একটি যুগান্তকারী উন্নয়নে, ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির (MIT) গবেষকরা আন্ডারওয়াটার নেটওয়ার্কিং এর জন্য প্রাথমিক ভাবে একটি অতি-নিম্ন-শক্তির সিস্টেম তৈরি করেছেন, যা জলের নিচে প্রায় এক  কিলোমিটার-স্কেল পর্যন্ত দূরত্ব জুড়ে সংকেত প্রেরণ করতে পারে। এই উদ্ভাবনী ব্যবস্থায় জলের নিচের তথ্য ট্রান্সমিশনে বিপ্লব ঘটানোর সম্ভাবনা রয়েছে।

ঐতিহ্যবাহী রেডিও তরঙ্গের সীমাবদ্ধতার কারণে জলের নিচে যোগাযোগ সবসময়ই একটি চ্যালেঞ্জিং কাজ,এবং এক্ষেত্রে যোগাযোগের পরিসর খুবই সীমিত।সম্প্রতি, MIT টিম দ্বারা বিকশিত আন্ডারওয়াটার নেটওয়ার্কিং এর প্রযুক্তি এই সীমাবদ্ধতাগুলি অতিক্রম করার সাথে সাথে জলের নীচে যোগাযোগের একটি নির্ভরযোগ্য এবং দক্ষ মাধ্যম হবে বলে আশা করা যায়।

এই নতুন সিস্টেমটি জলের নিচে ডেটা প্রেরণ করার জন্য শব্দ এবং অপটিক্যাল যোগাযোগ কৌশলগুলির সংমিশ্রণের উপর নির্ভর করে। শব্দ সংকেত দূর-পাল্লার যোগাযোগের জন্য ব্যবহার করা হয়, কারণ শব্দ তরঙ্গ রেডিও তরঙ্গের তুলনায় জলে অনেক বেশি দূরে যেতে পারে। অন্যদিকে, অপটিক্যাল সংকেত স্বল্প-পরিসরের যোগাযোগের জন্য ব্যবহার করা হয়, কারণ আলো অনেক বেশি গতিতে ডেটা প্রেরণ করতে পারে।

আন্ডারওয়াটার ব্যাকস্ক্যাটার শব্দ তরঙ্গ প্রযুক্তি বিশেষায়িত ট্রান্সসিভার দিয়ে সজ্জিত জলের নিচের সেন্সরগুলির একটি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে যা শব্দ এবং অপটিক্যাল সংকেত পাঠাতে এবং গ্রহণ করতে পারে। এই ট্রান্সসিভারগুলি অত্যন্ত দক্ষ ভাবে কাজ করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে, যার ফলে প্রেরিত সংকেতগুলি ডেটা বা গুণমানের উল্লেখযোগ্য ক্ষতি ছাড়াই দীর্ঘ দূরত্ব ভ্রমণ করতে পারে।

আন্ডারওয়াটার ব্যাকস্ক্যাটার সংকেতগুলির অন্যতম প্রধান সুবিধা হল উচ্চ ডেটা ট্রান্সমিশন হার অর্জন করার ক্ষমতা। ঐতিহ্যবাহী ব্যাটারি চালিত প্রযুক্তিতে জলের নিচের ডেটা স্থানান্তর ব্যবস্থা প্রায়ই ধীরগতির গতিতে হয় , কিন্তু এই নতুন প্রযুক্তিতে স্থলজ নেটওয়ার্কের সাথে তুলনীয় হারে ডেটা প্রেরণ করার সম্ভাবনা রয়েছে। এই অগ্রগতি জলের নিচে গবেষণা, পর্যবেক্ষণ এবং অনুসন্ধানের ক্ষমতাকে ব্যাপকভাবে বাড়িয়ে তুলতে পারে।

আন্ডারওয়াটার ব্যাকস্ক্যাটার সংকেত সিস্টেমটি অত্যন্ত অভিযোজিত এবং মাপযোগ্য হয়ে কাজের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। এটি সহজেই বিদ্যমান জলের নিচের অবকাঠামোর সাথে একত্রিত হতে পারে, যেমন জলের নিচের যানবাহন বা  সেন্সর নেটওয়ার্ক, যা এর ব্যবহারকে আরও বিস্তৃত এবং বহুমুখী করে তোলে। এই প্রযুক্তিটি সামুদ্রিক জীববিজ্ঞান, সমুদ্রবিদ্যা, উপকূলীয় হারিকেনের পূর্বাভাস এবং স্থানীয় আবহাওয়া পরিবর্তন এমনকি সামরিক অপারেশন সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যেতে পারে।

আন্ডারওয়াটার ব্যাকস্ক্যাটার সংকেতগুলির সম্ভাব্য অ্যাপ্লিকেশনগুলি বিশাল। উদাহরণস্বরূপ, বিজ্ঞানীরা এই প্রযুক্তিটিকে সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্রের রিয়েল-টাইম ডেটা সংগ্রহ করতে ব্যবহার করতে পারে।এটি ব্যবহার করে বিজ্ঞানীরা আরও দক্ষ ভাবে জলের নিচে অনুসন্ধান করতে পারবে, এটি গবেষকদের সমুদ্রের নীচে দুর্গম এলাকায় অন্বেষণ করতে সাহায্য করবে। এছাড়াও, আন্ডারওয়াটার ব্যাকস্ক্যাটার সংকেতগুলি জলের নীচে নজরদারি এবং সুরক্ষাকে ব্যাপকভাবে উন্নত করতে পারবে, যা সামরিক এবং প্রতিরক্ষা উদ্দেশ্যে যোগাযোগের একটি নির্ভরযোগ্য উপায় প্রদান করবে।

Sutro: Adam Zewe, Device offers long-distance, low-power underwater communication. MIT News, 2023, September 6.

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


পশ্চিমবঙ্গে 'দ্য কেরালা স্টোরি'সিনেমাটির ভাগ্য সুপ্রিম কোর্টের হাতে

উত্তরাপথ: 'দ্য কেরালা স্টোরি' সিনেমাটি পশ্চিমবঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ায় সিনেমাটির সিনেমার নির্মাতারা বাংলার নিষেধাজ্ঞাকে সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন। তাদের দাবী ছিল নিষেধাজ্ঞার ফলে প্রতিদিন তাদের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে । নির্মাতাদের আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্ট আজ 'দ্য কেরালা স্টোরি' সিনেমাটি পশ্চিমবঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ার পিছনে যুক্তি জানতে চেয়েছে । প্রধান বিচারপতির একটি বেঞ্চ পর্যবেক্ষণ করেছে, যখন এটি কোনও সমস্যা ছাড়াই সারা দেশে চলছে।পশ্চিমবঙ্গের সিনেমাটি কেন নিষিদ্ধ করা উচিত? এটি একই রকম জনসংখ্যার সংমিশ্রণ রয়েছে এম .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top