ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়া জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা রাখে

উত্তরাপথ

লরেন্স বার্কলে ন্যাশনাল ল্যাবরেটরি এবং ইউসি বার্কলে এর সহযোগিতামূলক গবেষণায় গবেষকরা একটি অভিনব ব্যাকটেরিয়া ইঞ্জিনিয়ারড করেছেন যা জ্বালানি, ওষুধ এবং রাসায়নিক উত্পাদনের সময় উত্পন্ন গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে ডিকার্বনাইজশন এর মাধ্যমে। সম্প্রতি Nature জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই আবিষ্কারটি । আর এটি “Carbene Transfer Chemistry in Biosynthesis” নামে পরিচিত । একটি অভিনব প্রতিক্রিয়ার সাথে প্রাকৃতিক এনজাইমেটিক বিক্রিয়াকে সংহত করতে ব্যাকটেরিয়াকে কাজে লাগায়। আর যা সাধারণত জীবাশ্ম জ্বালানির উপর নির্ভর করে গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে হ্রাস করার সম্ভাবনা রয়েছে।

কয়েক দশক ধরে, বিজ্ঞানীরা জ্বালানি ও রাসায়নিকের উৎপাদনে এবং ওষুধ আবিষ্কার ও সংশ্লেষণে কার্বেন বিক্রিয়া ব্যবহার করতে চেয়েছেন। কার্বনগুলি অত্যন্ত প্রতিক্রিয়াশীল কার্বন-ভিত্তিক রাসায়নিক যা বিভিন্ন ধরণের প্রতিক্রিয়াতে ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু এই কার্বিন প্রক্রিয়াগুলি শুধুমাত্র টেস্টটিউবের মাধ্যমে ছোট ব্যাচে করা যেতে পারে এবং প্রতিক্রিয়া চালানোর জন্য ব্যয়বহুল রাসায়নিক পদার্থের প্রয়োজন হয়।

নতুন গবেষণায়, গবেষকরা প্রাকৃতিক পণ্যগুলির সাথে ব্যয়বহুল রাসায়নিক বিক্রিয়াকে প্রতিস্থাপিত করেছেন যা ব্যাকটেরিয়া স্ট্রেপ্টোমাইসেসের একটি ইঞ্জিনিয়ারড স্ট্রেন দ্বারা উত্পাদিত হতে পারে। এই জৈবিক প্রক্রিয়াটি অনেক বেশি পরিবেশগতভাবে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পাদন করতে সক্ষম করে। যেহেতু ব্যাকটেরিয়া সেলুলার বিপাকের মাধ্যমে রাসায়নিক পণ্য তৈরি করতে sugar ব্যবহার করে, এই আবিষ্কার রাসায়নিক সংশ্লেষণে ব্যবহৃত বিষাক্ত দ্রাবক বা বিষাক্ত গ্যাস ছাড়াই কার্বেন রসায়ন সম্পাদন করতে সক্ষম করে।

গবেষকরা ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়াটিকে পর্যবেক্ষণ করেছেন কারণ এটি carbohydrate -কে carbene পূর্বসূরী এবং alkene সাবস্ট্রেটে বিপাকিত করে এবং রূপান্তরিত করে। ব্যাকটেরিয়াটি একটি বিবর্তিত P450 এনজাইমও তৈরি করে যা সেই রাসায়নিকগুলিকে সাইক্লোপ্রোপেন, উচ্চ-শক্তির অণু তৈরি করতে ব্যবহার করে। এই অভিনব উচ্চ-শক্তির বায়োঅ্যাকটিভ যৌগ এবং উন্নত জৈব জ্বালানীর টেকসই উৎপাদনে সম্ভাব্যভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এই আকর্ষণীয় আবিষ্কার খুব বড় স্কেলে অর্থাৎ ইন্ডাস্ট্রিয়াল স্কেলে করা সম্ভব। রাসায়নিক সংশ্লেষণের জন্য এই ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়া নিয়োগ করা কার্বন নির্গমন কমাতে একটি অবিচ্ছেদ্য ভূমিকা পালন করবে। সাম্প্রতিক G7 জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্যানেলে বলা হয়েছে 2030 সালের মধ্যে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন মারাত্মকভাবে অর্ধেকে হ্রাস করতে হলে, global warming বৃদ্ধিকে প্রাক-শিল্প স্তরের উপরে 1.5 ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমাবদ্ধ করতে হবে। যদিও এই পদ্ধতি এখনও বাণিজ্যিকীকরণের জন্য প্রস্তুত নয়।হুয়াং বলেন যে এই সম্পূর্ণরূপে সমন্বিত সিস্টেমটি বিপুল সংখ্যক কার্বেন দাতা অণু এবং অ্যালকন সাবস্ট্রেটের জন্য কল্পনা করা যেতে পারে, এটি এখনও বাণিজ্যিকীকরণের জন্য প্রস্তুত নয়।

এই কাজ বিজ্ঞানের এক নতুন দিশা দেখিয়েছে যা জৈব উৎপাদন সমাধানের জন্য অনুসন্ধান চালিয়ে যেতে অনুপ্রাণিত করবে।

বিস্তারিত জানতে দেখুনঃ Nature, 2023, 617, 403 (https://www.nature.com/articles/s41586-023-06027-2).

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ধানের সাধ ভক্ষণ : জিহুড়

ড.  নিমাইকৃষ্ণ মাহাত: আশ্বিন সংক্রান্তিতে কৃষক সমাজের মধ্যে জিহুড় পার্বণ পালিত হয়। কৃষক সাধারণের মধ্যে জিহুড় পার্বণের একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। জিহুড় অর্থাৎ আশ্বিন সংক্রান্তির সময় বহাল জমিতে লাগানো ধান বা বড়ান ধানে থোড় আসতে শুরু করে। সুতরাং ধান গাছ গর্ভাবস্থায় থাকে। মানুষের ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় নানা ধরনের আচার-সংস্কার পালন করা হয়। এই সংস্কারগুলির অন্যতম হলো " ন' মাসি " অর্থাৎ গর্ভাবস্থার নবম মাসে যে আচার -অনুষ্ঠান পালন করা হয়। এর কিছুদিন পরেই সন্তানজন্মগ্রহণ করে। মানব- সমাজের গর্ভাবস্থাজনিত এই ধরনের আচার সংস্কারের সঙ্গে ধান গাছের গর্ভাবস্থার কারণে পালনীয় অনুষ্ঠান জিহুড়ের সাদৃশ্য থাকে দেখা যায়। সেই জন্য অনেকে জিহুড় অনুষ্ঠানকে ধান গাছের 'সাধভক্ষণ'  বলে থাকেন। জিহুড়-এ ধান গাছ .....বিস্তারিত পড়ুন

রেলওয়ে ইউনিয়নের নতুন সূচনা, গান গেয়ে মানসিক চাপ দূর করছেন রেলের কর্মচারীরা

উত্তরাপথঃ আপনি যদি সরকারি বা বেসরকারি চাকরি করেন, তাহলে এই খবর আপনাকে স্বস্তি দেবে।কারণ ভারতীয় রেলওয়ের বৃহত্তম শ্রমিক সংগঠন অল ইন্ডিয়া রেলওয়েম্যানস ফেডারেশন (এআইআরএফ) এবং নর্থ ওয়েস্টার্ন রেলওয়ে এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন কর্মক্ষেত্রে কর্মীদের উপর ক্রমবর্ধমান চাপ কমাতে এক অনন্য উদ্যোগ শুরু করেছে।তারা তাদের কর্মীদের গান গেয়ে তাদের মানসিক চাপ দূর করতে পরামর্শ দিচ্ছে।    এআইআরএফ-এর সাধারণ সম্পাদক শিব গোপাল মিশ্র এবং কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মুকেশ মাথুরের নির্দেশে, জয়পুর এবং অন্যান্য শহরের কর্মচারীরা একটি মাঠে জড়ো হয় এবং সেখানে তারা গান গায় এবং আন্তাক্ষিরি খেলে। .....বিস্তারিত পড়ুন

রবি কিরণে “আদিত্য”

ড. সায়ন বসুঃ বীর "বিক্রমে" চাঁদের মাটিতে পা রাখার পর এবার ভারতীয় মহাকাশ গবেষণাকেন্দ্র (ISRO)-এর লক্ষ্য সূর্য | আমাদের ৮টি গ্রহ (প্লুটো এখন বামন গ্রহের তালিকায়) যাকে কেন্দ্র করে ঘুরছে সেই সূর্যের দিকে পাড়ি দিয়েছে "আদিত্য" ২রা সেপ্টেম্বর| চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণের ১০ দিনের মাথায় আদিত্যকে সূর্যের উদ্দেশ্যে পাঠিয়ে দিয়ে ISRO বাকি বিশ্বের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রগুলির কাছে যে একটি শক্তিশালী বার্তা পৌঁছে দিতে পেরেছে তা বলাই বাহুল্য| আদিত্য মিশনের সূচনা ২০০৮ সালের জানুয়ারী মাসে মহাকাশ বিজ্ঞান সম্পর্কিত একটি উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে|প্রাথমিকভাবে ঠিক করা হয় যে একটি ছোট এবং কম ওজনের (৪০০ কেজি) কৃত্রিম উপগ্রহকে low Earth orbit (LEO ;লিও) যে কক্ষপথের উচ্চতা ১,২০০ কিলোমিটারের থেকে কম সেখানে পাঠানো হবে এবং তার কাজ হবে সূর্যের একদম যে বাইরের স্তর যাকে আমরা সৌর-করোনা বলি তার সম্বন্ধে তথ্য পাঠানো। .....বিস্তারিত পড়ুন

জানুন ২০২৩ সালের জাতীয় শিক্ষক পুরস্কার প্রাপ্ত শিক্ষক ডঃ শীলা অসোপা'র কথা

ত্তরাপথঃ ডঃ শীলা অসোপা, সরকারি বালিকা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শ্যাম সদন, যোধপুরের অধ্যক্ষা, তিনি ১৭ বছর ধরে স্কুলের বাচ্চাদের পড়াচ্ছেন।তাঁকে শিশুদের শেখানোর নতুন পদ্ধতি উদ্ভাবন, স্কুলের অবকাঠামো শক্তিশালীকরণ এবং উদ্ভাবনের জন্য ২০২৩ সালের জাতীয় শিক্ষক পুরস্কারে পুরুস্কৃত করা হয়।  ডঃ অসোপাকে, যোধপুরে শ্যাম সদন, সরকারি বালিকা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে, ১০ মাস আগে বদলি করা হয় । সেই সময় দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত বিদ্যালয়ে মাত্র দুটি কক্ষ ছিল।মেয়েরা টিনের চালা দিয়ে তৈরি ঘরে পড়াশোনা করত।  ঘর কম থাকায় গাছের নিচেও ক্লাস হত । তার কথায় ,সেই সময়টা বাচ্চাদের পড়াশুনা নিয়ে খুব দুশ্চিন্তায় কেটেছে । এরপর টিনের চালা দিয়ে তৈরি কক্ষে কাঠের পার্টিশন দিয়ে ৬টি কক্ষ তৈরি করা হয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top