ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়া জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা রাখে

উত্তরাপথ

লরেন্স বার্কলে ন্যাশনাল ল্যাবরেটরি এবং ইউসি বার্কলে এর সহযোগিতামূলক গবেষণায় গবেষকরা একটি অভিনব ব্যাকটেরিয়া ইঞ্জিনিয়ারড করেছেন যা জ্বালানি, ওষুধ এবং রাসায়নিক উত্পাদনের সময় উত্পন্ন গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে ডিকার্বনাইজশন এর মাধ্যমে। সম্প্রতি Nature জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই আবিষ্কারটি । আর এটি “Carbene Transfer Chemistry in Biosynthesis” নামে পরিচিত । একটি অভিনব প্রতিক্রিয়ার সাথে প্রাকৃতিক এনজাইমেটিক বিক্রিয়াকে সংহত করতে ব্যাকটেরিয়াকে কাজে লাগায়। আর যা সাধারণত জীবাশ্ম জ্বালানির উপর নির্ভর করে গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে হ্রাস করার সম্ভাবনা রয়েছে।

কয়েক দশক ধরে, বিজ্ঞানীরা জ্বালানি ও রাসায়নিকের উৎপাদনে এবং ওষুধ আবিষ্কার ও সংশ্লেষণে কার্বেন বিক্রিয়া ব্যবহার করতে চেয়েছেন। কার্বনগুলি অত্যন্ত প্রতিক্রিয়াশীল কার্বন-ভিত্তিক রাসায়নিক যা বিভিন্ন ধরণের প্রতিক্রিয়াতে ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু এই কার্বিন প্রক্রিয়াগুলি শুধুমাত্র টেস্টটিউবের মাধ্যমে ছোট ব্যাচে করা যেতে পারে এবং প্রতিক্রিয়া চালানোর জন্য ব্যয়বহুল রাসায়নিক পদার্থের প্রয়োজন হয়।

নতুন গবেষণায়, গবেষকরা প্রাকৃতিক পণ্যগুলির সাথে ব্যয়বহুল রাসায়নিক বিক্রিয়াকে প্রতিস্থাপিত করেছেন যা ব্যাকটেরিয়া স্ট্রেপ্টোমাইসেসের একটি ইঞ্জিনিয়ারড স্ট্রেন দ্বারা উত্পাদিত হতে পারে। এই জৈবিক প্রক্রিয়াটি অনেক বেশি পরিবেশগতভাবে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পাদন করতে সক্ষম করে। যেহেতু ব্যাকটেরিয়া সেলুলার বিপাকের মাধ্যমে রাসায়নিক পণ্য তৈরি করতে sugar ব্যবহার করে, এই আবিষ্কার রাসায়নিক সংশ্লেষণে ব্যবহৃত বিষাক্ত দ্রাবক বা বিষাক্ত গ্যাস ছাড়াই কার্বেন রসায়ন সম্পাদন করতে সক্ষম করে।

গবেষকরা ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়াটিকে পর্যবেক্ষণ করেছেন কারণ এটি carbohydrate -কে carbene পূর্বসূরী এবং alkene সাবস্ট্রেটে বিপাকিত করে এবং রূপান্তরিত করে। ব্যাকটেরিয়াটি একটি বিবর্তিত P450 এনজাইমও তৈরি করে যা সেই রাসায়নিকগুলিকে সাইক্লোপ্রোপেন, উচ্চ-শক্তির অণু তৈরি করতে ব্যবহার করে। এই অভিনব উচ্চ-শক্তির বায়োঅ্যাকটিভ যৌগ এবং উন্নত জৈব জ্বালানীর টেকসই উৎপাদনে সম্ভাব্যভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এই আকর্ষণীয় আবিষ্কার খুব বড় স্কেলে অর্থাৎ ইন্ডাস্ট্রিয়াল স্কেলে করা সম্ভব। রাসায়নিক সংশ্লেষণের জন্য এই ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়া নিয়োগ করা কার্বন নির্গমন কমাতে একটি অবিচ্ছেদ্য ভূমিকা পালন করবে। সাম্প্রতিক G7 জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্যানেলে বলা হয়েছে 2030 সালের মধ্যে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন মারাত্মকভাবে অর্ধেকে হ্রাস করতে হলে, global warming বৃদ্ধিকে প্রাক-শিল্প স্তরের উপরে 1.5 ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমাবদ্ধ করতে হবে। যদিও এই পদ্ধতি এখনও বাণিজ্যিকীকরণের জন্য প্রস্তুত নয়।হুয়াং বলেন যে এই সম্পূর্ণরূপে সমন্বিত সিস্টেমটি বিপুল সংখ্যক কার্বেন দাতা অণু এবং অ্যালকন সাবস্ট্রেটের জন্য কল্পনা করা যেতে পারে, এটি এখনও বাণিজ্যিকীকরণের জন্য প্রস্তুত নয়।

এই কাজ বিজ্ঞানের এক নতুন দিশা দেখিয়েছে যা জৈব উৎপাদন সমাধানের জন্য অনুসন্ধান চালিয়ে যেতে অনুপ্রাণিত করবে।

বিস্তারিত জানতে দেখুনঃ Nature, 2023, 617, 403 (https://www.nature.com/articles/s41586-023-06027-2).

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


২০২৩ নির্বাচন কি সত্যি ২০২৪ এর সেমিফাইনাল ?

উত্তরাপথ: ২০২৩ নির্বাচন কি সত্যি ২০২৪ এর সেমিফাইনাল ? না  কি কংগ্রেসের কাছে আবার একটু - একটু  করে ঘুরে দাঁড়াবার প্রচেষ্টা এবং বিজেপির কাছে মোদী ম্যাজিক যে এখনও অব্যাহত সেটা প্রমান করা। বিজেপির এখন প্রচারের একমাত্র মুখ নরেন্দ্র মোদী। সদ্য সমাপ্ত কর্ণাটক নির্বাচনের পুরো প্রচার হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কেন্দ্র করে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ, বিজেপির জাতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা সহ মুখ্যমন্ত্রী বাসভরাজ বোমাই নিজেও প্রধানমন্ত্রী মোদির নামে ভোট চাইলেন। তার  উপরে, প্রধানমন্ত্রী মোদি নিজে .....বিস্তারিত পড়ুন

কতো অজানা রে

মৈত্রেয়ী চৌধুরী: ইতিহাস বিষয়ে আলোচনা করতে গেলেই আমাদের মনে যে সব সৌধের প্রসঙ্গ মনে আসে তারমধ্যে পার্লামেন্ট ভবন একটা অবশ্য দ্রষ্টব্য স্থান। বহু পর্যটক এই ভবন দেখতে যান. কিন্তু জানেন কি, এই পার্লামেন্ট ভবনের ডিজাইন কে বানিয়েছিলেন ? 10 জনকে জিজ্ঞেস করলে 9 জনই বলতে পারবেন না। যাঁরা খুব ইতিহাস নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করেন অথবা গুগুল সার্চ করে থাকেন, তাঁরা হয়তো উত্তরটা দিতে পারবেন। পার্লামেন্ট ভবনের ডিজাইন বানিয়েছিলেন বিখ্যাত ব্রিটিশ স্থপতি এডুইন লুটিয়েন। তাঁর সহকারী ছিলেন আরেক ব্রিটিশ স্থপতি হার্বার্ট বেকার। 1927 খ্রিস্টাব্দে এই ভবনটির নির্মাণ সম্পূর্ণ হয় এবং ব্রিটিশ .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়

এ যেন বহুদিন পর বিজেপির চেনা ছন্দের পতন। হিমাচল প্রদেশের পর কর্ণাটক কংগ্রেস নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে বিজেপির বিজয়রথকে থামিয়ে দিল ।২০১৮ পর থেকে লাগাতার হারতে থাকা একটি দল আবার ২০২৪ সাধারণ নির্বাচনে প্রাসঙ্গিক হয়ে গেল । ২২৪ সদস্যের কর্ণাটক বিধানসভায় সরকার গঠন করতে গেলে প্রয়োজন ১১৩টি আসন সেখানে কংগ্রেস একাই পেয়েছে ১৩৬টি আসন, বিজেপি পেয়েছে ৬৫ টি এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেবগৌড়ার জেডিএস পেয়েছে ১৯টি এবং অন্যান্য ৪ টি আসন পেয়েছে। যা গতবারের তুলনায় বিজেপির ৩৯ টি আসন কমেছে এবং কংগ্রেসের বেড়েছে ৫৭টি আসন এবং জেডিএসের কমেছে ১৮ টি আসন।   কর্ণাটকে কংগ্রেসের এই সাফল্য কি রাজ্যে কংগ্রেসের শক্তিশালী সংগঠনের ফল না কি কর্ণাটকের আগের ক্ষমতাশীল বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভ । কর্ণাটকে কংগ্রেসে অনেক বড় নেতা রয়েছে।  প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শিবকুমার দক্ষ সংগঠক। আগের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধারামাইয়ার ব্যাপক জনভিত্তি রয়েছে।  ভোটের আগে বিজেপির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জগদীশ শেট্টার এবং উপমুখ্যমন্ত্রী সাভাড়ি কংগ্রেসে যোগ দিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। অন্যদিকে বিজেপির প্রচারের সবচেয়ে বড় মুখ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। বিজেপির প্রচারে সব নেতারাই মোদীর নাম করেই ভোট চেয়েছিলেন কিন্তু শেষ রক্ষা হল না ।কর্ণাটকের বিজেপি সরকারের ব্যাপক দুর্নীতি সেই সাথে কংগ্রেসের লাগাতার প্রচার যা প্রতিষ্ঠান বিরোধিতার সুরকে আরও তীব্র করেছে। তাই শুধুমাত্র মোদী ম্যাজিকের উপর ভর করে নির্বাচন জেতা যে  আর বিজেপির পক্ষে সম্ভব নয় কর্ণাটকের জনগণ চোখে হাত দিয়ে তাই দেখিয়ে দিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

কৃষ্ণগহ্বরের "ছায়া" ও "ছবি"

ড. সায়ন বসু: ১৭৮৩ সালে ভূতত্ত্ববিদ জন মিচেল (John Michell) ‘ডার্ক স্টার’ (dark stars) শিরোনামে একটি গবেষণা নিবন্ধ প্রকাশ করেন। তার গবেষণা পত্রের বিষয়বস্তু ছিল "বিপুল পরিমাণ ভর বিশিষ্ট কোন বস্তু যার মহাকর্ষের প্রভাবে আলোক তরঙ্গ পর্যন্ত পালাতে পারে না"। এখান থেকেই মূলত কৃষ্ণগহ্বরের (Black Hole) ধারণা আসে এবং এটি নিয়ে গবেষনা ও অনুসন্ধান শুরু হয়। পরবর্তিতে অবশ্য এটি বিজ্ঞান মহলে একটি অযৌক্তিক তত্ত্ব হিসেবে বেশ অবহেলার স্বীকার হয়। আলোর মত কোন কিছু বেরিয়ে আসতে পারবে না এমন একটি তত্ত্ব বিজ্ঞানীদের কাছে বেশ অযৌক্তিক মনে হয়েছিল। তাই ধীরে ধীরে থেমে যায় কৃষ্ণগহ্বর নিয়ে গবেষনা। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top