এক প্রদীপ এর আত্মকথা

তারক নাথ নাগঃ আজ দীপাবলি অর্থাৎ বাঙালি দের কালীপুজো। আলোর রোশনাই এর উৎসব। সমস্ত কালো অন্ধকারকে মুছে ফেলে নতুন সূর্যের আলো তে আলোকিত হওয়ার উৎসব। তাই আজ সকাল থেকেই ছোট্ট প্রদীপ টি বেশ উৎসাহিত এবং আনন্দিত। সারাদিন সে আপন মনে ভেবে চলেছে আজ সন্ধ্যে হলেই সে এক সুন্দর দায়িত্ব পালনে নেমে পড়বে। সমস্ত অন্ধকার কে মুছে ফেলে সে সকল কে আলো দেবে। কিন্তু পরক্ষনেই তার মনে এক গভীর চিন্তার রেখা দাগ কেটে চলে যায়, আপন মনে ভাবতে থাকে সে তো নিজে থেকে আলো দিতে পারবে না। যতক্ষণ না তাকে কে কেউ তেল সলতে দিয়ে সাজিয়ে না দেয়। সে ভাবতে থাকে এ কেমন অদৃষ্টের খেলা। নিজে থেকে ভালো কাজ করতে চাইলেও অপরের উপর নির্ভরশীল হতে হয়। সে নিজেই মনে মনে বলতে থাকে “হে ঈশ্বর এ তোমার কেমন লীলা”। আবার ভাবতে থাকে এসব ভেবে লাভ নেই। নিশ্চয় তাকে আজ কেউ সলতে নামের অলঙ্কার দিয়ে সাজিয়ে দেবে। তেল দিয়ে তাতে প্রাণের সঞ্চার ঘটাবে। এই সব ভাবতে ভাবতে কখন সে ঘুমিয়ে পড়ে। হঠাৎ ঘুম ভেঙে যায় এক জোরালো শব্দে। সবার হৈ হুল্লোর এ। সূর্য কখন যেনো অস্তাচলে গেছে। চারদিকে অন্ধকার নেমে এসেছে। এই তো তার জ্বলে ওঠার সময়। কিন্তু কাউকে তো দেখতে পাচ্ছে না সে। অবশেষে তার মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হওয়ার সময় এলো। ইশ্বর যেনো তার দিকে চোখ মেলে তাকালেন। কেউ এসে তাকে কোলে তুলে নিয়ে গেলো গান শোনাতে শোনাতে। তারপর সে সাজলো। সমস্ত প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে তার হৃদয় বিদীর্ণ করে বেরিয়ে এলো অগ্নিশিখা। যা দিয়ে সে দুর করতে চেয়েছে সমস্ত অন্ধকার কে। হাসি ফুটলো তার মুখে, হঠাৎ সে দেখলো। আশেপাশের সবই তার আলোয় আলোকিত, কিন্তু সে তার নিজের তলদেশ দেখে বুঝতে পারে পুরো অন্ধকার। আলোর বিন্দু মাত্র ছটাও নেই। দুঃখে, বেদনায় সেই ছোট্ট প্রদীপের মন ভারাক্রান্ত হয়ে পড়ে। সে ভেবে পায়না, যে বাসনা নিয়ে সমস্ত পৃথিবী বাসীর দুঃখ কষ্টের অন্ধকার এর অবসান ঘটিয়ে নতুন আলোয় আলোকিত করার পণ করেছে। অথচ সে নিজের জীবনের অন্ধকার দুর করতে ব্যর্থ।
সে বলতে থাকে “হে ঈশ্বর এ তোমার কেমন বিচার”।
ঠিক তখন ই আরেক অন্য প্রদীপ তার কাছে এসে হাতে হাত রেখে বলে দুঃখ করোনা বন্ধু আমি আছি তোমার পাশে, তুমি যেমন ভাবে অন্যকে আলোকিত করো, তোমার জীবন কে আমি আলোকিত করবো, সারা জীবনে যতই ঝড় ঝাপটা আসুক, ছেড়ে যাব না কখনো, দুজনের মুখে হাসি ফুটে, নতুন জীবন শুরু করে।

হঠাৎ ভোর হয়, দুই প্রদীপ এর ই তেল শেষ হয়ে যায়, তারা নিভে যায়। আবার অন্ধকারে চারিদিক ঢাকা পড়ে যায়। সাথে সাথে তাদের একসাথে জীবন কাটানোর প্রতিশ্রুতি ও এক গভীর অন্ধকারে বিলীন হয়ে যায়।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষও আমি

ড. জীবনকুমার সরকার: ৭ এপ্রিল ২০২৩ প্রয়াত হলেন যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষ। তাঁর প্রয়াণে দেশ ভারাক্রান্ত। যুক্তিবাদীরা চরম মর্মাহত। আমিও। তাঁর সঙ্গে কীভাবে জড়িয়েছিলাম সে এক ইতিহাস। ১৯৯৪ সালে মাধ্যমিক পাস করে গাজোল হাইস্কুলে সবে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছি। নতুন বইয়ের মধ্যে ডুবে আছি। আর নিয়মিত ক্লাস করছি। এইভাবে পুজোর ছুটি এসে যায়। পুজোর ছুটির আগের দিন অর্থাৎ যেদিন স্কুল হয়ে এক মাসের জন্য বন্ধ থাকবে স্কুল, সেইদিন আমি আর রাজেন লাইব্রেরীতে যাই। রাজেন আমার ছাত্রজীবনের সেরা বন্ধু। দুজনে কী বই নেবো, কী ধরনের বই নিয়ে .....বিস্তারিত পড়ুন

কার্বন নিঃসরণ দ্রুত শেষ করার জন্য G7 ঐক্যমত

উত্তরাপথ: বিশ্বের সাতটি ধনী দেশের শক্তি ও পরিবেশ মন্ত্রীরা সম্প্রতি  জ্বালানি এবং পরিবেশগত ইস্যুতে উত্তর জাপানের শহর সাপোরোতে বৈঠক করেন।  G-7 বৈঠকে জড়ো হওয়া বিভিন্ন দেশের আধিকারিকরা তাদের প্রতিশ্রুতির রূপরেখা দিয়ে একটি কমিউনিক জারি করেছে। বৈঠকে বর্তমান সঞ্চিত জ্বালানি সংকট এবং ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নকে সমান গুরুত্ব দিয়ে, আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে নেট-জিরো গ্রিনহাউস গ্যাস (GHG) নির্গমনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। সমস্ত নেতারা দক্ষ, সাশ্রয়ী মূল্যের এবং দূষণ মুক্ত শক্তির উৎস সন্ধানের গুরুত্বকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এর আগেও .....বিস্তারিত পড়ুন

পশ্চিমবঙ্গে 'দ্য কেরালা স্টোরি'সিনেমাটির ভাগ্য সুপ্রিম কোর্টের হাতে

উত্তরাপথ: 'দ্য কেরালা স্টোরি' সিনেমাটি পশ্চিমবঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ায় সিনেমাটির সিনেমার নির্মাতারা বাংলার নিষেধাজ্ঞাকে সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন। তাদের দাবী ছিল নিষেধাজ্ঞার ফলে প্রতিদিন তাদের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে । নির্মাতাদের আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্ট আজ 'দ্য কেরালা স্টোরি' সিনেমাটি পশ্চিমবঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ার পিছনে যুক্তি জানতে চেয়েছে । প্রধান বিচারপতির একটি বেঞ্চ পর্যবেক্ষণ করেছে, যখন এটি কোনও সমস্যা ছাড়াই সারা দেশে চলছে।পশ্চিমবঙ্গের সিনেমাটি কেন নিষিদ্ধ করা উচিত? এটি একই রকম জনসংখ্যার সংমিশ্রণ রয়েছে এম .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top