এখনও বলিউডে সঙ্গীতে নম্বর ওয়ান অরিজিৎ

উত্তরাপথ

ছবি সৌজন্য:অরিজিৎ সিং ফেসবুক

সারা দেশে ছড়িয়ে রয়েছে অরিজিৎ সিং এর ভক্ত। এবার তিনিই কাঠগড়ায় গায়িকা অনুরাধা পাড়োয়ালের। গায়িকার মন্তব্য, অরিজিতের রিমেক গান শুনে তিনি এতটাই ‘আতঙ্কিত’ হয়ে পড়েন যে কেঁদে ফেলেন। অরিজিতের কোন গান নিয়ে এ হেন মন্তব্য করেছেন গায়িকা? ‘দয়াবান’ ছবির ‘আজ ফির তুম পে’ গানটি গেয়েছিলেন অনুরাধা। সেই গানটিই কিছু বছর আগে নতুন মেজাজে গান অরিজিৎ। তাঁর গলার মাদকতায় মজেছিলেন দর্শক। নতুন এই ভার্সনও সকলেরই মনে ধরেছিল। তবে অনুরাধা ব্যতিক্রম। তিনি বলেন, “একজন আমায় ওই সুপারডুপার হিট গানটি পাঠিয়েছিল। আমায় সে জানায় এই গানটি নাকি বর্তমানেও বেশ হিট হয়েছে। আমি শুনি। আর শুনেই কেঁদে ফেলি। সঙ্গে সঙ্গে ইউটিউবে গিয়ে নিজের গাওয়া গানটা শুনতে হয়। এক বার নয় একাধিক বার শুনি সেই গান। তারপর শান্তি পাই।”প্রসঙ্গত উল্লেখ্য অরিজিৎএর গান কেসারিয়া সম্প্রতি রেকর্ড গড়েছেন । স্পটিফাইয়ের  প্ল্যাটফর্মে সবচেয়ে বেশি ঘণ্টা শুনেছেন শ্রোতারা।

এর আগে এক অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে সলমানের ডাকের কিছুটা পরে মঞ্চে পৌঁছান অরিজিৎ। পরনে ক্যাজুয়াল সাধারণ পোশাক, চুল এলোমেলো, মুখে ক্লান্তির ছাপ। অরিজিৎকে দেখে সলমান মঞ্চে বলেন, ‘তুমি ঘুমাচ্ছিলে?’ অরিজিৎ খুব স্বাভাবিকভাবেই মজা করে বলেন, ‘আপনারা এমন অনুষ্ঠান করছেন যে ঘুম পেয়ে গেছে । অরিজিতের এই কথাতেই চটেছিলেন সলমান। তারপর থেকে বলিউডের কোনও ছবিতেই আর গান গাইতে দেখা যায়নি অরিজিৎকে। কিন্তু তাতে আক্ষরিক অর্থে কিছু যায় আসে না অরিজিতের। কারণ শাহরুখ থেকে রণবীর বলিউডের প্রথম সারির সব অভিনেতার লিপে গান গেয়েছেন অরিজিৎ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


সালাদ খাওয়া'র সেরা সময়: খাবার আগে না পরে?

উত্তরাপথঃ আজকাল অনেক ডাইয়েটিশিয়ান সুস্থ থাকতে খাবারে বিশেষ করে সালাদ অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দেন।  কারণ এতে অনেক ধরনের শাকসবজি, ডাল এবং ফল রয়েছে, যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য বিশেষভাবে উপকারি। কিন্তু সালাদ খাওয়ার সেরা সময় কখন তা নিয়ে মানুষ খুব বিভ্রান্তিতে পড়ে, খাবার পরে না আগে খাবে বুঝতে পারে না।কেউ কেউ যুক্তি দেন যে খাবারের আগে সালাদ খাওয়া হজমে সহায়তা করে এবং  বিভিন্ন স্বাস্থ্যগত উপকারিতা প্রদান করে,আবার আরেক দল বিশ্বাস করে যে খাবারের পরে এটি খাওয়া আরও উপকারী। আসুন উভয় দৃষ্টিভঙ্গি অন্বেষণ করি এবং প্রতিটি পদ্ধতির সম্ভাব্য সুবিধাগুলি বিবেচনা করি। খাবার আগে সালাদ খাওয়া: খাবারের আগে সালাদ খাওয়া ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে। শাকসবজির উচ্চ ফাইবার সামগ্রী এবং জলের উপাদান পূর্ণতার অনুভূতি তৈরি করতে পারে, যা মূল কোর্সের সময় ক্যালোরি গ্রহণকে হ্রাস করতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

টাইপ 2 ডায়াবেটিসে সময়ে খাবার খাওয়া, ক্যালোরি গণনার চেয়ে বেশি কার্যকর

উত্তরাপথঃ টাইপ 2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে একটি সাধারণ লক্ষ্য হল ওজন কমানো , অতিরিক্ত ওজন এবং স্থূলতার সাথে টাইপ 2 ডায়াবেটিসের অবস্থার দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে।এই বিপাকীয় ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য কোন ডায়েটিং কৌশলটি সবচেয়ে ভাল কাজ করে তা স্পষ্ট নয়।েতবে টাইপ 2 ডায়াবেটিস রোগীদের একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে অধ্যয়নের অংশগ্রহণকারীরা যারা দুপুর থেকে রাত ৮ টার মধ্যে খাবার খাওয়া শেষ করেছে তারা, যারা ক্যালোরি গণনা করে তাদের সামগ্রিক ক্যালোরি গ্রহণ কমিয়েছেন তাদের .....বিস্তারিত পড়ুন

রাজা মহম্মদ ও সি সেল মিউজিয়াম

প্রিয়াঙ্কা দত্তঃ রাজা মহম্মদ, এমন একজন মানুষের নাম, যার ব্যাক্তিগত ইচ্ছার কাছে হেরে যায় সব বাধা। ইচ্ছার চেয়ে বলা ভালো নেশা। সামুদ্রিক প্রাণীদের খোল সংগ্রহের নেশা। যা তাঁকে ছোটবেলা থেকেই ছুটিয়ে নিয়ে বেরিয়েছে প্রায় তিরিশ বছর ধরে। আর সেই দীর্ঘ পথের শেষে , তিনি সম্পূর্ন ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন এশিয়ার বৃহত্তম ও পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ব্যাক্তিগত সংগ্রহশালা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত সি সেল মিউজিয়ামটি বর্তমানে চেন্নাইয়ের মহাবলিপূরম মন্দিরের সন্নিকটে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট। রাজা মহম্মদ ছোট্ট বেলা থেকেই  সমুদ্র তট থেকে সংগ্রহ করতেন বিভিন্ন সামুদ্রিক প্রাণীর দেহাংশ। কুড্ডালোর থেকে রামেশ্বরম এর সমুদ্রতট, সেখান থেকে জাপান, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপিন্স প্রভৃতি দেশে গিয়েছেন ব্যাক্তিগত উদ্যোগে। সংগ্রহ করেছেন অসাধারণ সব সামুদ্রিক .....বিস্তারিত পড়ুন

ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো ও বিশ্ব মঞ্চে ভারতের লোকনৃত্য

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতোঃ আমাদের চারিদিকে বিশ্ব দ্রুত বিকশিত হচ্ছে,পরিবর্তিত হচ্ছে শিল্প সাধনার প্রকৃতি। এই পরিবর্তিত শিল্প সাধনার যুগে আমাদের সেই সমস্ত ব্যক্তিদের স্বীকৃতি দেওয়া এবং সম্মান করা অপরিহার্য যারা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও প্রচারে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। এমনই একজন উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব হলেন ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো। নেপাল মাহাতো, যার ছৌনৃত্যের জগতে  দেশে ও বিদেশে অতুলনীয় অবদান তাকে ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান ‘পদ্মশ্রী´এনে দিয়েছে। নেপাল মাহতোর জন্ম ১৭ জুন ১৯৫৪ সালে পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলার বরাবাজার থানার আদাবনা নামে একটি ছোট গ্রামে। তার পিতা স্বর্গীয় নগেন্দ্রনাথ মাহাতো ও মাতা তুষ্ট মাহাতো। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top