‘চেঞ্জেজ‘ বাংলা ফ্লিম ইন্ডাস্ট্রির এক নতূন সূচনা

উত্তরাপথ

এবার কি বাংলা ফ্লিম ইন্ডাস্ট্রির সুদিন আসতে চলেছে? দক্ষিণ ভারতের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির পরে কি বাংলা ফ্লিম ইন্ডাস্ট্রি প্যান ইন্ডিয়ার সিনেমা প্রেমীদের মনে জায়গা নিতে চলেছে। বাংলা সিনেমা ‘চেঞ্জেজে’র হাত ধরে নতূন অধ্যায়ের সূচনা করতে চলেছে ।  চেঞ্জেজে মুখ্য ভূমিকায় রয়েছে বাঙালি সুপারস্টার জিৎ।  তিনি তাঁর এই নতূন ছবি সম্পর্কে  টুইটারে লিখেছেন, “আমরা ঘোষণা করতে পেরে আনন্দিত যে  #CHENGIZ হবে প্রথম বাংলা চলচ্চিত্র যেটি একই সাথে হিন্দিতে  মুক্তি পাবে।”

 এর আগেও বহু বাংলা ছবি একসাথে গোটা দেশে মুক্তি পেয়েছে। এমনকী কিছুদিন আগে মুক্তি পাওয়া দেব- মিঠুনের ‘প্রজাপতি’ কিংবা প্রসূন চট্টোপাধ্যায়ের ‘দোস্তজী’ ভাল ব্যবসা করেছে বাংলার বাইরেও। সেক্ষেত্রে প্রশ্ন উঠছে, তাহলে জিৎ-এর ছবির বিশেষত্ব কি?এই ছবির মূল বিষয় হল একইদিনে  দুই ভাষাতেই মুক্তি পাবে ‘চেঙ্গিজ’। যা এর আগে কোনও বাংলা ছবির ক্ষেত্রে হয়নি।

১৯৭০ থেকে ১৯৯০ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত কলকাতায় যে আন্ডারওয়ার্ল্ডের দাপট দেখা যেত সে গল্পই এখানে উঠে উঠবে ‘চেঙ্গিজ’-র পর্দায়।কলকাতা শহরের চারপাশকে কেন্দ্র করেই তৈরি হয়েছে  এই পিরিয়ড ফিল্ম। ছবির সেট তৈরি হয়েছিল নয়ের দশককে কেন্দ্র করে। এই ছবিতে প্রথমবার জুটিতে অভিনয় করছেন জিৎ ও সুস্মিতা চট্টোপাধ্যায়। এছাড়াও অন্যতম প্রধান কেন্দ্রীয় চরিত্রে রয়েছেন শতাফ ফিগার ও রোহিত বোস রায়। এই ছবির সিনেমাটোগ্রাফির দায়িত্ব সামলেছেন মানস গঙ্গোপাধ্যায় এবং শিল্প নির্দেশনা আনন্দ আঢ্যর।  জিতের ছবি মানেই একরাশ আশা থাকে দর্শকদের। তবে এই ছবি সকলের মনে কতটা জায়গা করে নিতে পারবে  এবং সেই সাথে বক্স অফিসে কেমন সাফল্য পাবে  ,তা সময়ই বলবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়া জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা রাখে

উত্তরাপথ: লরেন্স বার্কলে ন্যাশনাল ল্যাবরেটরি এবং ইউসি বার্কলে এর সহযোগিতামূলক গবেষণায় গবেষকরা একটি অভিনব ব্যাকটেরিয়া ইঞ্জিনিয়ারড করেছেন যা জ্বালানি, ওষুধ এবং রাসায়নিক উত্পাদনের সময় উত্পন্ন গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে ডিকার্বনাইজশন এর মাধ্যমে। সম্প্রতি Nature জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই আবিষ্কারটি । আর এটি "Carbene Transfer Chemistry in Biosynthesis" নামে পরিচিত । একটি অভিনব প্রতিক্রিয়ার সাথে প্রাকৃতিক এনজাইমেটিক বিক্রিয়াকে সংহত করতে ব্যাকটেরিয়াকে কাজে লাগায়। আর যা সাধারণত জীবাশ্ম .....বিস্তারিত পড়ুন

কার্বন নিঃসরণ দ্রুত শেষ করার জন্য G7 ঐক্যমত

উত্তরাপথ: বিশ্বের সাতটি ধনী দেশের শক্তি ও পরিবেশ মন্ত্রীরা সম্প্রতি  জ্বালানি এবং পরিবেশগত ইস্যুতে উত্তর জাপানের শহর সাপোরোতে বৈঠক করেন।  G-7 বৈঠকে জড়ো হওয়া বিভিন্ন দেশের আধিকারিকরা তাদের প্রতিশ্রুতির রূপরেখা দিয়ে একটি কমিউনিক জারি করেছে। বৈঠকে বর্তমান সঞ্চিত জ্বালানি সংকট এবং ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নকে সমান গুরুত্ব দিয়ে, আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে নেট-জিরো গ্রিনহাউস গ্যাস (GHG) নির্গমনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। সমস্ত নেতারা দক্ষ, সাশ্রয়ী মূল্যের এবং দূষণ মুক্ত শক্তির উৎস সন্ধানের গুরুত্বকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এর আগেও .....বিস্তারিত পড়ুন

স্বপ্নপূরণ না হলেও জ্যাভিলিনে সোনা জিতলেন নীরজ

উত্তরাপথ: দোহায় ডায়মন্ড লিগে জ্যাভিলিনে সোনা জিতলেন নীরজ চোপড়া কিন্তু তার জ্যাবলিনে ৯০ মিটার দূরত্ব অতিক্রম করার স্বপ্নপূরণ হল না । দোহায় তার জ্যাভিলিন থামল ৮৮.৬৭ মিটার দূরত্ব অতিক্রম করে। গতবছরও এই লিগে প্রথম পদক জিতেছিলেন নীরজ। দোহার সুহেম বিন হামাদ স্টেডিয়ামে প্রথমবার জ্যাভলিন ছুড়েই চমক দেন নীরজ। প্রথমবারেই তার জ্যাভলিন চলে যায় ৮৮.৬৭ মিটার। ২০২২ সালে জুরিখের ডায়মন্ড লিগে সফলতা হয়েছিলেন নীরজ এবং টোকিও অলিম্পিকে সোনা জিতেছিলেন তিনি। তার লক্ষ্য ছিল ৯০ মিটারের গণ্ডি পেরনোর কিন্তুসেই লক্ষ্য .....বিস্তারিত পড়ুন

কৃষ্ণগহ্বরের "ছায়া" ও "ছবি"

ড. সায়ন বসু: ১৭৮৩ সালে ভূতত্ত্ববিদ জন মিচেল (John Michell) ‘ডার্ক স্টার’ (dark stars) শিরোনামে একটি গবেষণা নিবন্ধ প্রকাশ করেন। তার গবেষণা পত্রের বিষয়বস্তু ছিল "বিপুল পরিমাণ ভর বিশিষ্ট কোন বস্তু যার মহাকর্ষের প্রভাবে আলোক তরঙ্গ পর্যন্ত পালাতে পারে না"। এখান থেকেই মূলত কৃষ্ণগহ্বরের (Black Hole) ধারণা আসে এবং এটি নিয়ে গবেষনা ও অনুসন্ধান শুরু হয়। পরবর্তিতে অবশ্য এটি বিজ্ঞান মহলে একটি অযৌক্তিক তত্ত্ব হিসেবে বেশ অবহেলার স্বীকার হয়। আলোর মত কোন কিছু বেরিয়ে আসতে পারবে না এমন একটি তত্ত্ব বিজ্ঞানীদের কাছে বেশ অযৌক্তিক মনে হয়েছিল। তাই ধীরে ধীরে থেমে যায় কৃষ্ণগহ্বর নিয়ে গবেষনা। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top