জিপিএস অনুসরণ করতে গিয়ে সাগরে গাড়ি নামিয়ে দিলেন মহিলা

জিপিএস প্রযুক্তি ছবি – উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃ ধরুন আপনি কোথাও যাবেন অথচ রাস্তা চেনেন না ,এই সমস্যা বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে কমবেশি সকলের।এই সময়ে আমাদের অনেকেই কাজের জন্য নতুন নতুন জায়গায় হামেশায় যেতে হয়। সেই সময় আমাদের একমাত্র ভরসা জিপিএস।সম্প্রতি জিপিএস নির্দেশ অনুযায়ী গাড়ি চালানোর সময় এমন এক উদ্ভট ঘটনা ঘটল দুই মহিলা পর্যটকের সাথে। তারা জিপিএস অনুসরণ করতে গিয়ে সাগরে গাড়ি নামিয়ে দিলেন। এই ভিডিও এখন ভাইরাল হচ্ছে,তবে ভিডিওতে জায়গা স্পষ্ট নয়।   

পর্যটকরা একটি ট্যুর কোম্পানী খোঁজার চেষ্টা করছিলেন এবং জিপিএস নির্দেশনা অনুসরণ করছিলেন এরপর তারা একটি ভুল বাঁক নিয়ে সাগরে গাড়ি নামিয়ে দেন। একজন প্রত্যক্ষদর্শীর শেয়ার করা ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে যে লোকেরা সমুদ্রে ঝাঁপ দিচ্ছে এবং দুই পর্যটককে উদ্ধার করার চেষ্টা করছে।সৌভাগ্যক্রমে, গাড়িটি সাগরে তলিয়ে যাওয়ার আগেই উভয় পর্যটককে গাড়ির জানালা দিয়ে টেনে বের করা হয়।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত একজন ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারী ক্রিস্টি হাচিনসন পুরো ভিডিওটি রেকর্ড করেছেন যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলেছে।  ভিডিওটি শেয়ার করে, ক্রিস্টি লিখেছেন, “আমি সেখানে বসে বৃষ্টি থেকে আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করছিলাম, এবং তারপর আমি দেখতে পেলাম একটি গাড়ি সরাসরি আমাদের নৌকার পাশ দিয়ে বেশ দ্রুত গতিতে বন্দরের মধ্যে চলে গেল।

ভিডিওটি জিপিএস নির্দেশের ব্যবহার নিয়ে সামাজিকভাবে বিতর্ক শুরু করেছে ৷এই বিষয়ে আমরা এক প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ সোমনাথ সরকারের সাথে কথা বলি, তার বক্তব্য, জিপিএস প্রযুক্তি সব সময় ১০০ শতাংশ সঠিক ভাবা  ভুল এটিও কখনও কখনও ভুল-ত্রুটি অনুভব করতে পারে যার ফলে রাস্তার ভুল ইঙ্গিত হতে পারে। জিপিএস সর্বদা সঠিক তথ্য না দিতে পারার একাধিক বিভিন্ন কারণ রয়েছে।যেমন-

১। লম্বা দালান, টানেল, ঘন বন, এমনকি আবহাওয়ার অবস্থা যেমন ভারী বৃষ্টি বা তুষার জিপিএস সংকেতগুলিতে হস্তক্ষেপ করতে পারে, যার ফলে অবস্থান ট্র্যাকিংয়ে ভুল হতে পারে।

২। জিপিএস রিসিভার তার অবস্থান সঠিকভাবে নির্ধারণ করতে একাধিক উপগ্রহের সংকেতের উপর নির্ভর করে। রিসিভার যদি পর্যাপ্ত উপগ্রহ থেকে সংকেত গ্রহণ করতে না পারে বা যদি উপগ্রহগুলি একটি সর্বোত্তম অবস্থানে না থাকে, তাহলে এটি পজিশনিং ত্রুটির কারণ হতে পারে।

৩। GPS ডিভাইসগুলি পূর্ব-লোড করা মানচিত্র বা অনলাইন মানচিত্র ব্যবহার করে। এই মানচিত্রগুলি সর্বদা আপ টু ডেট নাও হতে পারে বা ভুল রাস্তার নাম, অনুপস্থিত রাস্তা বা পুরানো তথ্যের মতো ত্রুটি থাকতে পারে।

৪। জিপিএস ডিভাইস বা অ্যাপে মাঝে মাঝে সফ্টওয়্যার বাগ বা হার্ডওয়্যার ত্রুটি থাকতে পারে যা তাদের সঠিকতাকে প্রভাবিত করতে পারে। আপনার কাছে সর্বশেষ সংশোধন এবং উন্নতি আছে তা নিশ্চিত করতে আপনার GPS ডিভাইস বা অ্যাপ আপডেট রাখা অপরিহার্য।

যেহেতু আমাদের এই ব্যস্ততার জিপিএস এর ব্যবহার অপরিহার্য তাই এই সমস্যাগুলি কমাতে, নিম্নলিখিতগুলির প্রতি আমাদের লক্ষ্য রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

১। আপনি যে সঠিক পথে আছেন তা নিশ্চিত করতে অন্যান্য নেভিগেশন সরঞ্জাম যেমন রাস্তার চিহ্ন, ল্যান্ডমার্ক বা কাগজের মানচিত্র সহ ক্রস-রেফারেন্স জিপিএস ডেটা ব্যবহার করুন।

২। আপনার GPS ডিভাইস বা অ্যাপটিকে সাম্প্রতিক মানচিত্র এবং সফ্টওয়্যার আপডেটের সাথে আপ টু ডেট রাখুন বাগ ফিক্স  করুন  নির্ভুল তথ্য পেতে ৷

সমস্ত সতর্কতা নেওয়ার পরও মনে রাখবেন যে জিপিএস প্রযুক্তি সর্বদা ১০০% সঠিক হবে না , মাঝে মাঝে ত্রুটি ঘটতে পারে। যারা নিত্যদিন জিপিএস ব্যবহার করে এই অভিজ্ঞতা কমবেশি তাদের সবার আছে। তাই এটিকে একটি সহায়ক টুল হিসাবে ব্যবহার করুন তবে কোথাও যাবার সময় সর্বদা সতর্কতা এবং সাধারণ জ্ঞান প্রয়োগ করুন।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ভোরের শুকতারা

অনসূয়া পাঠকঃ বাস ছাড়তে তখনো কিছুটা সময় বাকি ছিলো, আমি মা বাবার সাথে বাসের ভেতরে জানালার দিকের সিটটায় বসে আছি। এমন সময় দেখি আমাদের পাশের সিটে বসে একজন রবীন্দ্রনাথের সঞ্জয়িতা পড়ছেন, বইটাকে দেখে আমার চোখের সামনে একটা সোনালী ফ্রেমের চশমা পরা মুখ ভেসে উঠলো, চন্দন স্যারের মুখ। বছর পাঁচেক আগের কথা, আমার বাবা তখন জঙ্গলমহল মেদিনীপুরের আমলাশুলির পোষ্টমাষ্টার। দু কিমি দূরেই আমার পিসীমার বাড়ি। ওখানেই আমার হাইস্কুলে পড়াশোনা শুরু। আর যে স্যার আমার মননে সদা জাগরুক , বাংলা সাহিত্যের বটবৃক্ষ বলা যায় যাকে , আমার গল্প যাঁকে নিয়ে সেই চন্দন স্যারকে ওখানেই পাওয়া। ফর্সা গায়ের রঙ, মাথায় ক়াঁচা পাকা চুল , সরু গোঁফ চোখে সোনালী ফ্রেমের চশমা, .....বিস্তারিত পড়ুন

ধানের সাধ ভক্ষণ : জিহুড়

ড.  নিমাইকৃষ্ণ মাহাত: আশ্বিন সংক্রান্তিতে কৃষক সমাজের মধ্যে জিহুড় পার্বণ পালিত হয়। কৃষক সাধারণের মধ্যে জিহুড় পার্বণের একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। জিহুড় অর্থাৎ আশ্বিন সংক্রান্তির সময় বহাল জমিতে লাগানো ধান বা বড়ান ধানে থোড় আসতে শুরু করে। সুতরাং ধান গাছ গর্ভাবস্থায় থাকে। মানুষের ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় নানা ধরনের আচার-সংস্কার পালন করা হয়। এই সংস্কারগুলির অন্যতম হলো " ন' মাসি " অর্থাৎ গর্ভাবস্থার নবম মাসে যে আচার -অনুষ্ঠান পালন করা হয়। এর কিছুদিন পরেই সন্তানজন্মগ্রহণ করে। মানব- সমাজের গর্ভাবস্থাজনিত এই ধরনের আচার সংস্কারের সঙ্গে ধান গাছের গর্ভাবস্থার কারণে পালনীয় অনুষ্ঠান জিহুড়ের সাদৃশ্য থাকে দেখা যায়। সেই জন্য অনেকে জিহুড় অনুষ্ঠানকে ধান গাছের 'সাধভক্ষণ'  বলে থাকেন। জিহুড়-এ ধান গাছ .....বিস্তারিত পড়ুন

মহারানী পদ্মাবতী এবং জোহরের ঐতিহ্য: সাহস ও আত্মত্যাগের এক গল্প

উত্তরাপথঃ ভারতের ইতিহাসে, এমন অনেক গল্প রয়েছে যা সময়কে অতিক্রম করে আমাদের সম্মিলিত চেতনায় এক অমোঘ চিহ্ন রেখে যায়। তেমনই একটি গল্প মহারানী পদ্মাবতী ও জোহরের ঐতিহ্য। সাহস, সম্মান এবং ত্যাগের এই গল্প প্রজন্মের পর প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করেছে এবং আমাদের কল্পনাকে মুগ্ধ করে চলেছে।ভারতীয় ইতিহাসের পাতায় অত্যন্ত সুন্দরী ও সাহসী মহারানী পদ্মাবতী'র উল্লেখ আছে।  রানী পদ্মাবতী রানী পদ্মিনী নামেও পরিচিত।  রানী পদ্মাবতীর পিতা ছিলেন সিংহল প্রদেশের (শ্রীলঙ্কা) রাজা গন্ধর্বসেন।ইতিহাসে রানী পদ্মিনী তার ব্যতিক্রমী সৌন্দর্য, বুদ্ধিমত্তা এবং বীরত্বের জন্য পরিচিত হলেও, তিনি করুণা এবং শক্তির প্রতীক হিসেবেও পরিচিত ছিলেন। দিল্লির শক্তিশালী শাসক আলাউদ্দিন খিলজি তার অতুলনীয় সৌন্দর্যের কথা শুনে তাকে অধিকার করার সংকল্প করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম, প্রভাব রাজ্যেও

উত্তরাপথঃ বাংলাদেশ ও ইলিশ এই দুটি নাম একে অপরের পরিপূরক মনে হলেও বাস্তব কিন্তু বলছে অন্য কথা। সূত্র মাধ্যমে পাওয়া খবরে জানা যাচ্ছে  প্রকৃতির অপার দান হলেও শিকার থেকে শুরু করে বাজারজাত হওয়া পর্যন্ত ব্যয় বৃদ্ধির কারণেই বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম। এর সঙ্গে মধ্যস্বত্বভোগীদের লাভের অঙ্ক যোগ হয়ে তা চলে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।পরিস্থিতি এমন যে গরিব তো দূর থাক মধ্যবিত্তের পাতেও এখন আর জুটছে না ইলিশ। বুধবার বরিশালের পাইকারি বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয় ৬০ হাজার টাকা মন দরে। ৪২ কেজিতে মন হিসাবে প্রতি কেজির দাম পড়ে প্রায় সাড়ে ১৪শ টাকা। খুচরা বাজারে গিয়ে যা বিক্রি হয় ১৬ থেকে ১৮শ টাকা। যে কারণে জাতীয় এই মাছ এখন শুধু বিত্তশালীদের খাদ্যে পরিণত হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top