জিপিএস অনুসরণ করতে গিয়ে সাগরে গাড়ি নামিয়ে দিলেন মহিলা

জিপিএস প্রযুক্তি ছবি – উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃ ধরুন আপনি কোথাও যাবেন অথচ রাস্তা চেনেন না ,এই সমস্যা বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে কমবেশি সকলের।এই সময়ে আমাদের অনেকেই কাজের জন্য নতুন নতুন জায়গায় হামেশায় যেতে হয়। সেই সময় আমাদের একমাত্র ভরসা জিপিএস।সম্প্রতি জিপিএস নির্দেশ অনুযায়ী গাড়ি চালানোর সময় এমন এক উদ্ভট ঘটনা ঘটল দুই মহিলা পর্যটকের সাথে। তারা জিপিএস অনুসরণ করতে গিয়ে সাগরে গাড়ি নামিয়ে দিলেন। এই ভিডিও এখন ভাইরাল হচ্ছে,তবে ভিডিওতে জায়গা স্পষ্ট নয়।   

পর্যটকরা একটি ট্যুর কোম্পানী খোঁজার চেষ্টা করছিলেন এবং জিপিএস নির্দেশনা অনুসরণ করছিলেন এরপর তারা একটি ভুল বাঁক নিয়ে সাগরে গাড়ি নামিয়ে দেন। একজন প্রত্যক্ষদর্শীর শেয়ার করা ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে যে লোকেরা সমুদ্রে ঝাঁপ দিচ্ছে এবং দুই পর্যটককে উদ্ধার করার চেষ্টা করছে।সৌভাগ্যক্রমে, গাড়িটি সাগরে তলিয়ে যাওয়ার আগেই উভয় পর্যটককে গাড়ির জানালা দিয়ে টেনে বের করা হয়।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত একজন ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারী ক্রিস্টি হাচিনসন পুরো ভিডিওটি রেকর্ড করেছেন যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলেছে।  ভিডিওটি শেয়ার করে, ক্রিস্টি লিখেছেন, “আমি সেখানে বসে বৃষ্টি থেকে আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করছিলাম, এবং তারপর আমি দেখতে পেলাম একটি গাড়ি সরাসরি আমাদের নৌকার পাশ দিয়ে বেশ দ্রুত গতিতে বন্দরের মধ্যে চলে গেল।

ভিডিওটি জিপিএস নির্দেশের ব্যবহার নিয়ে সামাজিকভাবে বিতর্ক শুরু করেছে ৷এই বিষয়ে আমরা এক প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ সোমনাথ সরকারের সাথে কথা বলি, তার বক্তব্য, জিপিএস প্রযুক্তি সব সময় ১০০ শতাংশ সঠিক ভাবা  ভুল এটিও কখনও কখনও ভুল-ত্রুটি অনুভব করতে পারে যার ফলে রাস্তার ভুল ইঙ্গিত হতে পারে। জিপিএস সর্বদা সঠিক তথ্য না দিতে পারার একাধিক বিভিন্ন কারণ রয়েছে।যেমন-

১। লম্বা দালান, টানেল, ঘন বন, এমনকি আবহাওয়ার অবস্থা যেমন ভারী বৃষ্টি বা তুষার জিপিএস সংকেতগুলিতে হস্তক্ষেপ করতে পারে, যার ফলে অবস্থান ট্র্যাকিংয়ে ভুল হতে পারে।

২। জিপিএস রিসিভার তার অবস্থান সঠিকভাবে নির্ধারণ করতে একাধিক উপগ্রহের সংকেতের উপর নির্ভর করে। রিসিভার যদি পর্যাপ্ত উপগ্রহ থেকে সংকেত গ্রহণ করতে না পারে বা যদি উপগ্রহগুলি একটি সর্বোত্তম অবস্থানে না থাকে, তাহলে এটি পজিশনিং ত্রুটির কারণ হতে পারে।

৩। GPS ডিভাইসগুলি পূর্ব-লোড করা মানচিত্র বা অনলাইন মানচিত্র ব্যবহার করে। এই মানচিত্রগুলি সর্বদা আপ টু ডেট নাও হতে পারে বা ভুল রাস্তার নাম, অনুপস্থিত রাস্তা বা পুরানো তথ্যের মতো ত্রুটি থাকতে পারে।

৪। জিপিএস ডিভাইস বা অ্যাপে মাঝে মাঝে সফ্টওয়্যার বাগ বা হার্ডওয়্যার ত্রুটি থাকতে পারে যা তাদের সঠিকতাকে প্রভাবিত করতে পারে। আপনার কাছে সর্বশেষ সংশোধন এবং উন্নতি আছে তা নিশ্চিত করতে আপনার GPS ডিভাইস বা অ্যাপ আপডেট রাখা অপরিহার্য।

যেহেতু আমাদের এই ব্যস্ততার জিপিএস এর ব্যবহার অপরিহার্য তাই এই সমস্যাগুলি কমাতে, নিম্নলিখিতগুলির প্রতি আমাদের লক্ষ্য রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

১। আপনি যে সঠিক পথে আছেন তা নিশ্চিত করতে অন্যান্য নেভিগেশন সরঞ্জাম যেমন রাস্তার চিহ্ন, ল্যান্ডমার্ক বা কাগজের মানচিত্র সহ ক্রস-রেফারেন্স জিপিএস ডেটা ব্যবহার করুন।

২। আপনার GPS ডিভাইস বা অ্যাপটিকে সাম্প্রতিক মানচিত্র এবং সফ্টওয়্যার আপডেটের সাথে আপ টু ডেট রাখুন বাগ ফিক্স  করুন  নির্ভুল তথ্য পেতে ৷

সমস্ত সতর্কতা নেওয়ার পরও মনে রাখবেন যে জিপিএস প্রযুক্তি সর্বদা ১০০% সঠিক হবে না , মাঝে মাঝে ত্রুটি ঘটতে পারে। যারা নিত্যদিন জিপিএস ব্যবহার করে এই অভিজ্ঞতা কমবেশি তাদের সবার আছে। তাই এটিকে একটি সহায়ক টুল হিসাবে ব্যবহার করুন তবে কোথাও যাবার সময় সর্বদা সতর্কতা এবং সাধারণ জ্ঞান প্রয়োগ করুন।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Bandna Festival: ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল পাঁচ দিন বাঁদনার আমেজে মশগুল থাকে

বলরাম মাহাতোঃ চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী কার্তিক অমাবস্যার আগের দিন থেকে মোট পাঁচ দিন ব্যাপী বাঁদনার(Bandna Festival) আমেজে মশগুল থাকে ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। অবশ্য, পরবের শুভ সূচনা হয় তারও কয়েকদিন আগে। আদিবাসী সম্প্রদায়ের সামাজিক শাসন ব্যবস্থার চূড়ামণি হিসাবে গাঁয়ের মাহাতো, লায়া, দেহরি কিম্বা বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি নির্ধারণ করেন- ৩, ৫, ৭ বা ৯ ক’দিন ধরে গবাদি পশুর শিং-এ তেল মাখাবে গৃহস্বামী! রুখামাটির দেশের লোকেরা কোনোকালেই মাছের তেলে মাছ ভাজা তত্ত্বের অনুসারী নয়। তাই তারা গোরুর শিং-এ অন্য তেলের পরিবর্তে কচড়া তেল মাখানোয় বিশ্বাসী। কারণ কচড়া তেল প্রস্তুত করতে গোধনকে খাটাতে হয় না যে! কচড়া তেলের অপ্রতুলতার কারণে বর্তমানে সরষের তেল ব্যবহৃত হলেও, কচড়া তেলের ধারণাটি যে কৃষিজীবী মানুষের গবাদি পশুর প্রতি প্রেমের দ্যোতক, তা বলাই বাহুল্য! এভাবেই রাঢ বঙ্গে গোবর নিকানো উঠোনে হাজির হয়- ঘাওয়া, অমাবস্যা, গরইয়া, বুঢ়ি বাঁদনা ও গুঁড়ি বাঁদনার উৎসবমুখর দিনগুলি। পঞ্চদিবসে তেল দেওয়া, গঠ পূজা, কাঁচি দুয়ারি, জাগান, গহাইল পূজা, চুমান, চউক পুরা, নিমছান, গোরু খুঁটা, কাঁটা কাঢ়া প্রভৃতি ১১টি প্রধান পর্ব সহ মোট ১৬টি লোকাচারের মাধ্যমে উদযাপিত হয় বাঁদনা পরব(Bandna Festival )। .....বিস্তারিত পড়ুন

প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে একটি নতুন দ্বীপের জন্ম হয়েছে

উত্তরাপথঃ হঠাৎ করেই একটি নতুন দ্বীপের জন্ম হয়েছে।২০২৩ এর ৩০ অক্টোবর  প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে একটি মৃত আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত একটি নতুন দ্বীপের জন্ম দিয়েছে। বিস্ফোরণের পর জাপানের ওগাসাওয়ারা দ্বীপ চেইনের কাছে বিশাল বিশাল পাথরের টুকরো দেখা গেছে। এ বিষয়ে জাপানি গবেষক বলেন, গত মাসে প্রশান্ত মহাসাগর জলের নিচে আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণের পর টোকিও থেকে প্রায় ১২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে ইওটো দ্বীপের কাছে একটি ছোট নতুন দ্বীপের উদ্ভব হয়েছে।টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকম্প গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ফুকাশি মায়েনো জানিয়েছেন যে নতুন দ্বীপ, এখনও যার নাম নেই প্রশান্ত মহাসাগরের ইওটো দ্বীপ থেকে ১ কিলোমিটার দূরে ১০০ মিটার ব্যাসের একটি পাথুরে দ্বীপে একটি phreatomagmatic বিস্ফোরণ ঘটেছে। টোকিও থেকে প্রায় ১২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে বিস্ফোরণটি দেখা গেছে। ভূপৃষ্ঠের নীচে জলের সাথে লাল গরম ম্যাগমা সংঘর্ষের কারণে প্রতি কয়েক মিনিটে বিস্ফোরণ ঘটে।গত ২১ অক্টোবর, ২০২৩-এ অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়েছিল, যা আগে ইও জিমা নামে পরিচিত ছিল এবং এটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অন্যতম রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের স্থান ছিল। প্রায় ১০ দিন ধরে অগ্ন্যুৎপাত চলার পর, আগ্নেয়গিরির উপাদান অগভীর সমুদ্রতলের উপর জমা হয় এবং প্রায় ১৬০ ফুট পর্যন্ত উচ্চতায় বড় বড় পাথরের আকারে সমুদ্র পৃষ্ঠের উপরে উঠে আসে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Side effects of vitamin: ভিটামিনের আধিক্য আপনার জন্য ক্ষতিকর হতে পারে

উত্তরাপথঃ ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা আমরা সবাই নিশ্চয়ই ছোটবেলা থেকে শুনে আসছি যে সুস্থ থাকতে হলে শরীরে প্রয়োজনীয় সব ভিটামিন থাকা খুবই জরুরি।  ভিটামিন আমাদের সুস্থ করার পাশাপাশি আমাদের সমগ্র শরীরের বিকাশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  যাইহোক, এটি অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া আমাদের জন্য ক্ষতিকারকও হতে পারে।  আসুন জেনে নিই অতিরিক্ত ভিটামিন গ্রহণের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া (Side effects of vitamin)সুস্থ থাকার জন্য শরীরে সব ধরনের পুষ্টি থাকা খুবই জরুরি।  এ কারণেই বয়স্ক থেকে শুরু করে চিকিৎসক, সবাই আমাদেরকে সুষম ও পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন।  সমস্ত পুষ্টি উপাদান আমাদের শরীরকে বিভিন্ন উপায়ে সুস্থ করে তোলে।  এর মধ্যে ভিটামিন একটি, যা আমাদের সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। .....বিস্তারিত পড়ুন

দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top