NASA Carbon Emission: পৃথিবী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করার চেয়ে বেশি নির্গত করছে

Carbon Emission ছবি – উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃ কার্বন নির্গমন (NASA Carbon Emission) সম্পর্কে নাসার সর্বশেষ আবিষ্কার পৃথিবীর জন্য এক সতর্কতা সংকেত। মহাকাশ সংস্থার মতে, পৃথিবী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করার চেয়ে বেশি নির্গত করছে, যার ফলে গ্রিনহাউস গ্যাসের বায়ুমণ্ডলীয় ঘনত্ব উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। NASA এর এই আবিষ্কারটি জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য কারণ হিসাবে দেখা যেতে পারে, সেইসাথে কার্বন নিঃসরণ কমানোর জন্য জরুরি পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তার উপর আলোকপাত করেছে।

নাসার সর্বশেষ গবেষণায় যে তথ্য উঠে এসেছে তাতে পৃথিবীর মহাসাগর এবং ভূমি-ভিত্তিক বাস্তুতন্ত্র আগের চেয়ে কম কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করছে। গবেষণায় দেখা গেছে যে গত এক দশকে ভূমি এবং মহাসাগর দ্বারা শোষিত কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ ৫% হ্রাস পেয়েছে, যার ফলে গ্যাসের বায়ুমণ্ডলীয় ঘনত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। কার্বন ডাই অক্সাইডের এই বৃদ্ধি বিশ্ব উষ্ণায়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তনকে চালিত করছে, যা গ্রহের বাস্তুতন্ত্র এবং মানব সমাজের জন্য আতঙ্কের কারণ।

নাসার অরবিটিং কার্বন অবজারভেটরি-২ (OCO-2) স্যাটেলাইটের তথ্যের উপর ভিত্তি করে এই ফলাফল পাওয়া গেছে, যেটি ২০১৪ সাল থেকে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই-অক্সাইডের মাত্রা পরিমাপ করছে। এই উপগ্রহটি বিজ্ঞানীদের বিশ্বের কার্বন চক্র সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা দিয়েছে এবং কীভাবে এটি সময়ের সাথে পরিবর্তিত হচ্ছে সেই ব্যপারেও আলোকপাত করেছে ।

নাসা তার গবেষণায় দেখিয়েছে  কার্বন ডাই অক্সাইড উথপাদন বৃদ্ধি মানুষের কার্যকলাপ যেমন জীবাশ্ম জ্বালানী পোড়ানো এবং বন উজাড়ের ফলে। এই ক্রিয়াকলাপগুলি বায়ুমণ্ডলে গ্রিনহাউস গ্যাসের ঘনত্ব বৃদ্ধিতে সাহায্য করছে, যা আমাদের বিশ্ব উষ্ণায়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য দায়ী।

কার্বন নির্গমন (NASA Carbon Emission) সম্পর্কে নাসার সর্বশেষ আবিষ্কার পৃথিবীর জন্য একটি সতর্কতা সংকেত। তাই দ্রুত কার্বন নিঃসরণ কমাতে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব প্রশমিত করার জন্য সরকার এবং প্রতিটি ব্যক্তিকে এখনই দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।আগামী দিনে এই পদক্ষেপের উপর নির্ভর করছে পৃথিবীর  ভবিষ্যৎ।

বিশ্বব্যাপী কার্বন নির্গমন কমানোর অনেক উপায় রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে

পরিবহন

আমাদের বিমান ভ্রমণ হ্রাস করতে হবে। সেই সাথে বাস, ট্রেন, কারপুল বা বাইকের মত বিকল্প পরিবহন ব্যবহার উপকরণের ব্যবহারও কম করতে হবে।তার জায়গায় স্থানীয় স্তরে সাইকেলের ব্যবহার দূষণ কম করতে সাহায্য করবে।  

শক্তি

পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি ব্যবহার করুন,সেই সাথে বাড়ি, দোকান, কারখানা এবং অফিসে শক্তির অপচয় যতটা সম্ভব কম করুন।

ভূমি ব্যবস্থাপনা

নতুন বন রোপণ করতে হবে, পুরানো বন পুনরুদ্ধার সহ উন্নত ভূমি ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি ব্যবহার করতে হবে।

অন্যান্য

কম লাল মাংস খান, পুরাতন দ্রব্য গুলি পুনঃব্যবহার করতে হবে। শক্তির অপচয় কম করতে   ফ্লুরোসেন্ট বা এলইডি লাইট বাল্ব ব্যবহার করতে হবে। সেই সাথে বন উজাড় বন্ধ করা, হাইড্রোফ্লুরোকার্বন (HFCs) এর মতো সুপার দূষণকারীর ব্যবহার বন্ধ করা, পরিবহন জ্বালানী খরচ হ্রাস সহ একাধিক পদক্ষেপ দ্রুততার সঙ্গে গ্রহণ করতে হবে যাতে কার্বন নির্গমন (Carbon Emission) দ্রুত কম করা যায়।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


 সম্পাদকীয়

পশ্চিমবঙ্গের ছোট-বড় যে কোনও নির্বাচন মানেই রাজনৈতিক হিংসা । সদ্য অনুষ্ঠিত পঞ্চায়েত নির্বাচনও তার ব্যতিক্রম নয়।রাজনৈতিক হিংসা যাতে না হয় নির্বাচনে তার জন্য যাবতীয় উদ্যোগ গ্রহণ করার পরও হিংসা অব্যাহত থাকল, সারা রাজ্যজুরে ঘটল তেরোটি মৃত্যুর ঘটনা ।পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে  ঘট হিংসা রাজ্যের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া সহ নাগরিকদের ভোটাধিকার নিয়ে আমাদের সামনে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। আমাদের রাজ্যে চলতে থাকা রাজনৈতিক হিংসার পেছনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ একাধিক কারণ থাকলেও বেকারত্ব সহ দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতি এর প্রধান কারণ । দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতির কারণে বেশীরভাগ গ্রামীন এলাকার মানুষদের অর্থনৈতিক উপার্জনের সুযোগ খুব কম। বিশেষত স্বল্প শিক্ষিত সেই সব মানুষদের যারা না পায় সরকারি চাকুরি না পারে ঠিকা শ্রমিকের কাজ করতে, গ্রামীন অর্থনীতিতে বিশাল সংখ্যক মানুষ এই শ্রেনীর অন্তর্গত .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top