দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

দীপাবলির উদযাপন হচ্ছে পটকা ফাটিয়ে । ছবি- এক্স হ্যান্ডেল

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা ‘খুব খারাপ’ বিভাগে পড়ে। 

 বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে।

 ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে?

এই সব প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে উত্তরাপথের পক্ষ থেকে আমরা দিল্লীর বিভিন্ন সাধারণ মানুষ , পরিবেশবিদ ও পুলিশ কর্মীর সাথে কথা বলি। অমিত চৌহান নামে এক পরিবেশবিদের মতে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশিকা ঐচ্ছিক নয়, সেগুলি  মেনে চলা বাধ্যতামূলক। এটি বাস্তবায়ন করা পুলিশের কাজ ছিল, যা ইচ্ছা, তত্ত্বাবধান এবং চেকিংয়ের অভাবে করা যায়নি। তার মতে পুরো দিল্লিতে, যারা পটকা পোড়ায় তাদের জন্য মাত্র সাতটি চালান জারি করা হয়েছে, যা পুলিশের উদাসীনতা দেখায়। পুলিশের উচিত ছিল যারা পটকা পোড়াচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে IPC-এর ১৮৮, ১৫১ ধারা এবং বিস্ফোরক  ধারায় কেস দেওয়া।

দিল্লীর এক প্রবীন নাগরিকের মতে, পুলিশ যদি সাধারণ মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করে মানুষকে সচেতন করতে পারত এবং তাদের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে ব্যবস্থা নিতে পারত, তাহলে এমনটা হতো না।আদালতের আদেশ বাস্তবায়নে সমস্যা হচ্ছে।পুলিশ বা প্রশাসনিক সংস্থায় যারা কাজ করেন তারা সততার সঙ্গে তাদের দায়িত্ব পালন করেনি। এটা সরাসরি আদালতের আদেশের অবমাননা, যার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

তবে দিল্লীর বেশীরভাগ মানুষ সরকারের সদিচ্ছার অভাবকে এর জন্য দায়ী করেছে। তাদের মতে এমন কিছু নেই যা সরকার বাস্তবায়ন করতে পারে না। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, লন্ডন ছিল বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরগুলির মধ্যে একটি, টেমস নদী ছিল বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত নদীগুলির একটি, ঠিক আমাদের যেমন যমুনার অবস্থা। যদি লন্ডন পারে তাহলে আমরা কেন পারন না। এর জন্য দরকার রাজনীতির উপরে উঠে কাজ করার ইচ্ছা।

এর আগে আতশবাজি প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি সুপ্রিম কোর্টে যুক্তি দিয়েছিল যে দীপাবলি একটি হিন্দু উৎসব এবং এই দিনে আতশবাজি না ফাটানো একজন ব্যক্তির ধর্মের স্বাধীনতার লঙ্ঘন।সুপ্রিম কোর্ট সেই সমস্ত যুক্তি খারিজ করে দিয়ে বলে যে পটকা ফাটানো কোনও ধর্মের অভ্যন্তরীণ প্রথা নয়। যখন আতশবাজি ছিল না, তখন কি কোনও ধর্ম ছিল না?এদিকে দিল্লির পরিবেশমন্ত্রী গোপাল রাই দিল্লির দূষণের জন্য হরিয়ানা এবং উত্তরপ্রদেশ, যেখানে বিজেপি ক্ষমতায় রয়েছে, সেই সব সরকারকে দায়ী করেছেন৷

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


West Bengal Panchayet Election 2023: পশ্চিমবঙ্গ পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপির পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ

উত্তরাপথ: এ যেন অনেকটা প্রত্যাশিত ফলাফল । সদ্য সমাপ্ত পশ্চিমবঙ্গ Panchayet Election 2023 ফলাফল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) জন্য আগামী ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট হতাশাবাঞ্জক । এই নির্বাচনের আগে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব তাদের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে যে আশার বাণী শুনিয়েছিল বাস্তবে তা অশ্বডিম্ব প্রসব করল । গত বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলের পরিপ্রেক্ষিতে জঙ্গলমহল,উত্তরবঙ্গ সহ নন্দিগ্রামে যে বিশাল গেরুয়া ঝড়ের আশা করেছিল শুধুমাত্র নন্দিগ্রামে ছাড়া পুরটাই হাতছাড়া হল বিজেপির । .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top