জাপানের নারা কারাগারটি প্রিমিয়ার রিসোর্ট কোম্পানি দ্বারা বিলাসবহুল হোটেলে পরিণত হবে

জাপানের নারা কারাগারটি একটি বিলাসবহুল হোটেলে (Luxury hotel) রূপান্তরিত হতে চলেছে, ছবি – এক্স হ্যান্ডেল

উত্তরাপথঃ একটি অনন্য এবং অপ্রত্যাশিত উন্নয়নে, জাপানের নারা শহরের প্রাক্তন নারা কারাগারটি (Nara Prison,Japan) একটি বিলাসবহুল হোটেলে (Luxury hotel) রূপান্তরিত হতে চলেছে, যা দেশের প্রধান রিসর্ট কোম্পানি হোশিনো রিসোর্ট (Hoshino Resorts) দ্বারা পরিচালিত হবে। খবরে প্রকাশ এই কারাগারটি ২০২৬ সালে বিলাসবহুল হোটেল হিসাবে পুনর্জন্ম পাবে ।এই উদ্ভাবনী প্রকল্পের লক্ষ্য হল ১৯০৮ সালে নির্মিত ঐতিহাসিক ভবনটিকে পুনরুজ্জীবিত করা,এর সাংস্কৃতিক তাৎপর্য রক্ষা করা এবং অতিথিদের জন্য একটি নতুন এবং চিত্তাকর্ষক অভিজ্ঞতা প্রদান করা।

প্রাক্তন নারা কারাগারটি মেইজি সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত পাঁচটি প্রধান কারাগারের মধ্যে একটি, যা চিবা, নাগাসাকি, কাগোশিমা এবং কানাজাওয়াতে ছিল। সুযোগ-সুবিধা ও অন্যান্য কারণে নারা কারাগারটি ২০১৭ সালে বন্ধ হয়ে যায়। সেই সময় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল যে প্রাক্তন কারাগারটিকে একটি হোটেলে পরিণত করা হবে, যেখানে সম্পত্তির মালিকানা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে থাকবে এবং ব্যবস্থাপনার অধিকারগুলি বেসরকারী খাতে বিক্রি করা হবে।

 Hoshinoya-এর অধীনে তৈরি হওয়া এই নতুন হোটেলটিতে ৪৮টি গেস্ট রুম এবং প্রায় ১০,০০০ বর্গ মিটারের মোট ফ্লোর স্পেস থাকবে। রুমের ভাড়া এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। হোশিনো রিসোর্টের সভাপতি ইয়োশিহারু হোশিনো বলেছেন, “হোটেলটি একটি কারাগারের পরিমণ্ডল ধরে রেখে বিলাসবহুল ভাবে তৈরি করা হবে, যা একটি স্বতন্ত্র পরিবেশ তৈরি করবে।”আশা করা যাচ্ছে আগামীতে এই হোটেল অতিথিদের সত্যিই একটি স্মরণীয় থাকার অভিজ্ঞতা দেবে।

কারাগারটিকে একটি বিলাসবহুল হোটেলে রূপান্তর করা বেশ কয়েকটি অনন্য সুযোগ তৈরি করবে। বিল্ডিংয়ের স্থাপত্য এবং বিন্যাস সৃজনশীলভাবে পুনরুদ্ধার করে, প্রাক্তন কক্ষগুলিকে আড়ম্বরপূর্ণ এবং আরামদায়ক গেস্ট রুমে রূপান্তরিত করা হবে। গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক বৈশিষ্ট্য যেমন কারাগারের দেয়াল,যা ভবনের স্বাতন্ত্র্যসূচক চরিত্রের বৈশিষ্ট্য সেগুলিকে সংরক্ষণের জন্য সাবধানে নির্মাণ কাজ করা হবে।হোশিনো রিসোর্টস বলেছে যে ১০০ বছরেরও বেশি ইতিহাসের একটি কারাগারকে হোটেলে রূপান্তর করা তার ঐতিহ্যের মূল্য রক্ষার ক্ষেত্রে একটি চ্যালেঞ্জ হতে পারে,তবে তারা এটিকে “নারার পর্যটনকে উন্নত করার” সুযোগ হিসেবেও দেখছেন।

নারা, যা অষ্টম শতাব্দীতে জাপানের রাজধানী ছিল। এই স্থানটি  হরিণের জন্য পরিচিত । হরিণগুলি এখানে রাস্তায় এবং পার্কে ঘুরে বেড়ায়।এখানকার তোদাইজি মন্দির এবং কাসুগা তাইশাতে ব্রোঞ্জ বুদ্ধের মূর্তি পর্যটকদের আকর্ষণ।

বিলাসবহুল হোটেলের এই প্রকল্পটি শুধুমাত্র অতিথিদের জন্য একটি ব্যতিক্রমী অভিজ্ঞতাই দেবেনা বরং স্থানীয় অর্থনীতি এবং সম্প্রদায়ের জন্যও অবদান রাখবে। কারাগারটিকে একটি বিলাসবহুল হোটেলে রূপান্তরিত করা হলে নতুন কাজের সুযোগ তৈরি হবে। এটি পর্যটক এবং দর্শনার্থীদেরও এই এলাকায় আকৃষ্ট করবে, স্থানীয় ব্যবসাকে বাড়িয়ে তুলবে এবং অর্থনৈতিক বৃদ্ধিকে উদ্দীপিত করবে।

উপরন্তু, আশেপাশের মাঠ, যা একবার ব্যায়ামের আঙিনা হিসাবে ব্যবহৃত হয়, সুন্দর ল্যান্ডস্কেপ বাগানে রূপান্তরিত হতে পারে, অতিথিদের বিশ্রাম এবং বিশ্রামের জন্য শান্ত স্থান প্রদান করে। হোটেলটি অনন্য সুযোগ-সুবিধাগুলিও অন্তর্ভুক্ত করতে পারে, যেমন একটি জাদুঘর বা প্রদর্শনী স্থান, যেখানে দর্শক কারাগারের ইতিহাস এবং সাংস্কৃতিক তাত্পর্য সম্পর্কে জানতে পারে।

এই প্রকল্পটি শুধুমাত্র অতিথিদের জন্য একটি ব্যতিক্রমী অভিজ্ঞতাই দেয় না বরং স্থানীয় অর্থনীতি এবং সম্প্রদায়ের জন্যও অবদান রাখে। কারাগারটিকে একটি বিলাসবহুল হোটেলে রূপান্তরিত করা হলে নতুন কাজের সুযোগ তৈরি হবে, সংস্কার প্রক্রিয়া এবং হোটেলটির চলমান কার্যক্রম উভয় ক্ষেত্রেই। এটি পর্যটক এবং দর্শনার্থীদেরও এই এলাকায় আকৃষ্ট করবে, স্থানীয় ব্যবসাকে বাড়িয়ে তুলবে এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে উদ্দীপিত করবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Free Gift in Politics: ভারতের নির্বাচন ও ফ্রি গিফট সংস্কৃতি

উত্তরাপথঃ ফ্রি গিফট (Free gift in politics)এর রাজনীতি সম্প্রতি ভারতের নির্বাচনী রাজনীতিতে একটি বিশিষ্ট ভূমিকা পালন করছে। বিনামূল্যে কোটি কোটি জনগণকে উপহার প্রদান যা রাজকোষের উপর অতিরিক্ত বোঝা ফেলবে এই সত্যটি জানা সত্ত্বেও, রাজনৈতিক দলগুলি ভোটারদের আকৃষ্ট করার জন্য ফ্রি গিফট (Free gift in politics) দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনের দৌড়ে একে অপরের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।এক সময় প্রয়াত তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী জে জয়ললিতা বিনামূল্যে শাড়ি, প্রেসার কুকার, ওয়াশিং মেশিন, টেলিভিশন সেট ইত্যাদির প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোটের আগে যে বিনামূল্যের সংস্কৃতি শুরু করেছিলেন তা পরবর্তী কালে অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলি দ্রুত অনুসরণ করেছিল। এরপর ২০১৫ সালে আম আদমি পার্টি নেতৃত্ব দিল্লির ভোটারদের কাছে বিনামূল্যে বিদ্যুৎ, জল, বাস ভ্রমণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে জয়লাভ করেছিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে। আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। .....বিস্তারিত পড়ুন

সহযাত্রী

দীপা - আর তো এগারো বছর আটমাস বারোদিন চাকরি , তাই না ? অংশু - বাপরে বরাবরই তোমার স্মৃতিশক্তি প্রবল , এতোটা মনে আছে ? দীপা- ঘোরো টো টো করে আর কটা বছর , আফটার রিটায়ার্ড মেন্ট কি করবে ? অংশু - ফার্ম হাউস ,গাছপালা পশুপাখি নিয়ে থাকবো। দীপা- বাঃ উন্নতি হয়েছে। যে অংশুবাবু কখনও একটা ফুলের চারা লাগায়নি সে কিনা ফার্ম হাউস করবে … অংশু - সময়ের সাথে সব বদলায় ম্যাডাম , আচ্ছা তোমার কনুইয়ের নীচে সেই পোড়া দাগটা দেখি তো গেছে কিনা … দীপা- তুমি অনেক রোগা হয়ে গেছো , তা ওজন কত শুনি ? অংশু - সত্তর বাহাত্তর হবে বোধহয় মাপিনি, দীপা - তা কেনো মাপবে ? একটা অগোছালো মানুষ। অংশু - যাক বাবা তাও অপদার্থ শব্দ টা বলোনি। দীপা - ভাবোনা ডিভোর্স হয়েছে বলে সে অধিকার নেই। সমাজ বিজ্ঞানের অধ্যাপক হয়েও আসলে সমাজটাই শেখোনি , আর কি শিখেছো বলো, ঐ ছেলে পড়ানো , সেমিনার আর লেখালেখি। তা ধন্যবাদ তোমার রূপালী ঠৌট উপন্যাস এবছর একাডেমি পেলো , দারুণ লেখো তুমি, আগের চেয়ে অনেক ধার। অংশু- বাঃ তুমি পড়েছো ? দীপা- সব পড়েছি , তোমার রিসেন্ট উপন্যাসের নায়িকা মেঘনা টি কে ? মানে কার আড়ালে কাকে লিখেছো ? অংশু - এও কি বাংলা সাহিত্যের অধ্যাপিকাকে বলে দিতে হবে ? দীপা- বারোটা বছর সময়ের শাসনে অনেক বদলালেও আমি বোধহয় সেই বড্ড সেকেলেই রয়ে গেলাম। অংশু - একা একাই কাটিয়ে দিলে বারো বছর। দীপা- একই প্রশ্ন আমিও করতে পারি। অংশু - আচ্ছা দীপা আজ না হয় শেষবারের মতো বলি, আমার মধ্যে কি ছিলো না বলোতো ? কেনো পারোনি এই বাউন্ডুলে ভবঘুরে মানুষটার সাথে চিরকালের ঘর বাঁধতে ? আমি কি ভালোবাসতে জানি না ? .....বিস্তারিত পড়ুন

Roop Kishor Soni: একটি আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য তুলে ধরেছেন

উত্তরাপথঃ রাজস্থান মানেই ওজনদার রূপার গহনা ,আর তার উপর কারুকাজ। প্রচলিত এই ধারনা ভেঙ্গে আজ রূপোর গহনাকে আধুনিকতার সাথে শিল্পের এক অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটিয়েছেন যে ব্যক্তি তিনি হলেন রূপ কিশোরী সোনী(Roop Kishor Soni)।তিনি ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কাছ থেকে তার অসাধারণ শিল্প কর্মের জন্য জাতীয় পুরুস্কার পান। রাজস্থানের জয়সলমেরের শহরের এই শিল্পী ৩.৮ গ্রাম ওজনের ০.৯ সেমি চওড়া রৌপ্য আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য খোদাই করেছেন।এই ছোট রূপার আংটিতে শিল্পী তাজমহল, সিডনি অপেরা হাউস, স্ট্যাচু অফ লিবার্টি, চীনের গ্রেট ওয়াল, আইফেল টাওয়ার, বিগ বেন, পিসার হেলানো টাওয়ার এবং মিশরীয় পিরামিডের চিত্র এক সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন।এছাড়াও তিনি আরও দুটি পৃথক ডিজাইনের অত্যাশ্চর্য আংটি  তৈরি করেছেন।৮.৬ গ্রাম ওজনের একটি রিংয়ে তিনি সূর্যাস্তের সময় ভারতীয় উট সাফারি সহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন ভারতীয় বিশেষত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন,এবং অন্যটিতে বিভিন্ন হিন্দু দেব-দেবী ছবি এবং মন্দির খোদাই করেছিলেন। শিল্পী বলেছেন যে তিনি তার বাবার কাছ থেকে তার শৈল্পিক দক্ষতা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন। সেই সাথে তিনি বলেন "আমার বাবাও একজন জাতীয় পুরুস্কার প্রাপ্ত শিল্পী ছিলেন। তিনি আমাকে শিল্পের এই দক্ষতা শিখিয়েছিলেন কারণ তিনি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের ফর্মটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন।" .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top