পশ্চিমবঙ্গে দুর্গাপূজা নিছক মজা এবং উল্লাস নয়, এটি বাংলার অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে দুর্গাপূজা ‘র প্রস্তুতি পর্ব ।ছবি – মৈত্রেয়ী চৌধুরী

মৈত্রেয়ী চৌধুরীঃ দুর্গাপূজা, শুধুমাত্র মজা এবং উল্লাস নয়, পশ্চিমবঙ্গে দুর্গাপূজা মানে এক বিশাল অর্থনৈতিক লেনদেন। দুর্গাপূজা পশ্চিমবঙ্গে উদযাপিত সবচেয়ে বড় উৎসব, এটি পশ্চিমবঙ্গের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় ঐতিহ্যের প্রতীক। এই ধর্মীয় ও সামাজিক দিকগুলির বাইরে, দুর্গাপূজা পশ্চিমবঙ্গের অর্থনৈতিক বৃদ্ধিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

গত বছরের এক তথ্যে প্রকাশ সারা রাজ্যে ৪০,০০০ টিরও বেশি দুর্গাপূজা ক্লাব রয়েছে । রাজ্যে উৎসবের প্রস্তুতি শুরু হয় তিন-চার মাস আগে থেকে। দুর্গাপূজার এই প্রস্তুতির সাথে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে যুক্ত থাকে কমপক্ষে দুই-তিন লক্ষ লোক যা রাজ্যের অর্থনীতিতে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

দুর্গাপূজার সময় রাজ্যে ভারত সহ  বিদেশ থেকে এক বিশাল  সংখ্যক পর্যটকের আগমন ঘটে।উৎসবকে কেন্দ্র করে বিস্তৃত সজ্জা, শৈল্পিক ভাস্কর্য এবং বিশাল শোভাযাত্রা পর্যটকদের আকর্ষণ করে ।পর্যটকদের এই বিশাল আগমন পশ্চিমবঙ্গের পর্যটন শিল্পকে উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করে।সেইসাথে হোটেল, গেস্টহাউস, রেস্তোরাঁ এবং পরিবহন পরিষেবাগুলিরও  চাহিদা বৃদ্ধি পায়,যা রাজ্যের রাজস্ব বৃদ্ধি সহ কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করে।

দুর্গাপূজা তার জটিল কারুকাজ করা মূর্তি এবং শৈল্পিক সজ্জার জন্য পরিচিত। উৎসবটি মৃৎশিল্পী, ভাস্কর, চিত্রশিল্পী এবং মণ্ডপ কারিগরদের তাদের দক্ষতা এবং কারুকার্য প্রদর্শনের জন্য একটি উপযুক্ত ক্ষেত্র প্রদান করে। প্রতিমা্র বিভিন্ন সাজসজ্জার সামগ্রীর চাহিদা এই  সময় তুঙ্গে থাকে । শোলা শিল্পের সাথে যুক্ত কারিগরদের জন্য এই সময় এক বিরাট বাজার তৈরি হয়, যা স্থানীয় শিল্পী এবং কারুশিল্পের সাথে যুক্ত ব্যক্তিদের এক উল্লেখযোগ্য কর্ম সংস্থান তৈরি করে। সারা বছর ধুকতে থাকা এই ক্ষেত্রটি উৎসবের মরসুমে সারা বছরের ক্ষতি পূর্ণ করে লাভের মুখ দেখে, যা রাজ্যের অর্থনীতিতে একটি উল্লেখযোগ্য উন্নতি প্রদান করে।

দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে লোকেরা প্রচুর নতুন জামাকাপড় এবং আনুষাঙ্গিক কেনাকাটায় লিপ্ত হয়। টেক্সটাইল এবং ফ্যাশন শিল্প এই সময় চাহিদা বৃদ্ধির সাক্ষী কারণ ব্যক্তিরা শাড়ি, কুর্তা-পাজামা এবং আনুষাঙ্গিক সহ ঐতিহ্যবাহী পোশাক ক্রয় করে। স্থানীয় তাঁতি, দর্জি এবং ডিজাইনারদের ব্যবসা এই সময় উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বৃদ্ধি পায়,যা বস্ত্র খাতে অর্থনৈতিক বৃদ্ধির দিকে পরিচালিত করে।

খাদ্য পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপূজা উদযাপনের একটি অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। রাস্তার খাবারের বিক্রেতা, রেস্তোরাঁ এবং মিষ্টির দোকানগুলির বাইরে এই সময় লম্বা লাইন দেখা যায়। রসগোল্লা এবং সন্দেশের মতো ঐতিহ্যবাহী বাঙালি খাবারের চাহিদা এই সময় বেশি হয়। খাদ্য ও আতিথেয়তা শিল্পও এই সময় চাহিদা বৃদ্ধির সাক্ষী, যা রাজ্যের সামগ্রিক বৃদ্ধিতে অবদান রাখে।

পশ্চিমবঙ্গে দুর্গাপূজা হল সবচেয়ে চিত্তাকর্ষক এবং উদ্ভাবনী প্যান্ডেল (সজ্জিত অস্থায়ী কাঠামো) তৈরি করার জন্য বিখ্যাত। এখানে বিভিন্ন পূজা কমিটির মধ্যে এই নিয়ে তীব্র প্রতিযোগিতার একটি আনন্দময় পরিবেশ তৈরি হয়। এই সময় বিজ্ঞাপন এবং বিপণন সংস্থাগুলি এই প্যান্ডেলগুলির প্রচার এবং দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করার জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দুর্গাপূজা এই সংস্থাগুলির জন্য তাদের সৃজনশীলতা এবং দক্ষতা প্রদর্শনের একটি উল্লেখযোগ্য সুযোগ প্রদান করে, যার ফলে তাদের এই সময় ব্যবসা এবং আয় বৃদ্ধি পায়।

দুর্গাপূজার অর্থনৈতিক প্রভাব নির্দিষ্ট শিল্পের বাইরেও বহু দূর বিস্তৃত। এটি বিপুল সংখ্যক লোকের জন্য অস্থায়ী কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করে। প্রতিমা তৈরি এবং প্যান্ডেল নির্মাণের সাথে জড়িত কারিগর এবং শ্রমিক থেকে শুরু করে অনুষ্ঠান সংগঠক, নিরাপত্তা কর্মী এবং পরিষেবা কর্মী, পুরোহিত, ঢাকি, প্রতিমা পরিবহনের সাথে জড়িত শ্রমিক এবং ‘ভোগ’ এবং খাবারের ব্যবস্থার সাথে যুক্ত ক্ষেত্র সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে,এবং অনেকের জন্য এটি সারা বছরের আয়ের এক উল্লেখযোগ্য উৎস ।

পশ্চিমবঙ্গের অর্থনীতিতে দুর্গাপূজার প্রভাব যথেষ্ট । সেই সাথে দুর্গাপূজার অর্থনৈতিক বৃদ্ধি রাষ্ট্রীয় অর্থনীতিতেও উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে।আমাদের দেশের অর্থনীতিতে দুর্গাপূজার প্রভাব ব্রাজিলের অর্থনীতিতে রিও ডি জেনিরো কার্নিভাল এবং জাপানে চেরি ব্লসম উৎসবের অবদানের সমান বা বেশি। ইউনেস্কোর স্বীকৃতি এই পুজাকে আরও বিশ্বজনীন করে তুলেছে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


সেলফির উচ্চ রেটিং কি আপনাকে আরওপাতলা হতে উৎসাহিত করছে ?

উত্তরাপথঃ সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে সেলফি তোলা এবং নিজেকে পাতলা হিসাবে দেখানোর মধ্যে একটি সম্পর্ক থাকতে পারে। যুক্তরাজ্যের ইয়র্ক সেন্ট জন ইউনিভার্সিটির রুথ নাইট এবং ইউনিভার্সিটি অফ ইয়র্কের ক্যাথরিন প্রেস্টন সম্প্রতি PLOS ONE জার্নালে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছেন।সেখানে সেলফির উচ্চ রেটিং এবং আমাদের শরীরের গঠনের মধ্যে যোগসূত্র খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে।    বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়ায় সেলফি হল এক জনপ্রিয় ছবি দেওয়ার ধরন। যিনি সেলফি তোলেন তিনি ক্যামেরাকে তাদের শরীর থেকে দূরে রেখে নিজেই নিজের ছবি তোলে। আগের গবেষণায় বলা হয়েছে সেলফিগুলি দেখার ফলে ছবির বিষয়গুলি সম্পর্কে দর্শকদের সিদ্ধান্ত প্রভাবিত হতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Electoral Bond এর গোপনীয়তা সরিয়ে রাজনৈতিক দলগুলিকে, জানাতে হবে প্রাপ্ত অনুদানের পরিমাণ

উত্তরাপথঃ বুধবার, নির্বাচনী বন্ড (Electoral Bond)প্রকল্পের আইনি বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে আবেদনের শুনানি হয়। শীর্ষ আদালত তার মন্তব্যে বলেছে, 'নির্বাচনী বন্ডগুলি রাজনৈতিক দলগুলিকে বেনামী অর্থ প্রদান করে, কারণ তাদের কেনাকাটা সম্পর্কিত রেকর্ডগুলি স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার কাছে উপলব্ধ যা শুধুমাত্র তদন্তকারী সংস্থাগুলি অ্যাক্সেস করতে পারে৷ এর আগে নির্বাচনী বন্ড’ (Electoral Bond) সংক্রান্ত মামলায় সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) কেন্দ্র দাবি করেছিল, রাজনৈতিক দলগুলির আয়ের উৎস জানার অধিকার নেই জনতার।এবার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তৎপর হল নির্বাচন কমিশন (Election Commission of India)।বুধবার বিকেল ৫টার মধ্যে যাবতীয় হিসেব জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে কমিশনের তরফে।নির্বাচনী বন্ডের (Electoral Bond)মামলায় কেন্দ্রের আর্জি সত্বেও সুপ্রিম কোর্ট রাজনৈতিক দলগুলিকে আয়ের উৎস জানাতে বলেছিল। আদলত নির্দেশ দিয়েছিল, গত ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোন রাজনৈতিক দল কত অনুদান মিলেছে, সেই তথ্য বন্ধ খামে জানাতে হবে।এর আগেও নির্বাচনী বন্ডের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে একাধিক মামলা হয়েছে শীর্ষ আদালতে। মামলাকারীরা অভিযোগ করেছিলেন, রাজনৈতিক দলগুলি এই নির্বাচনী বন্ডের মাধ্যমে অবৈধ অর্থ বিদেশ থেকে পেতে পারে এর ফলে গণতন্ত্র ধ্বংস হবে। যদিও কোনও রাজনৈতিক দলই এই দাবি মানতে চায়নি। ৩ অক্টোবর মামলার শুনানিতে প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ নির্দেশ দেয়, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সব তথ্য দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। এই রায়ের পরেই তৎপর হল কমিশন। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে। আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। .....বিস্তারিত পড়ুন

সহযাত্রী

দীপা - আর তো এগারো বছর আটমাস বারোদিন চাকরি , তাই না ? অংশু - বাপরে বরাবরই তোমার স্মৃতিশক্তি প্রবল , এতোটা মনে আছে ? দীপা- ঘোরো টো টো করে আর কটা বছর , আফটার রিটায়ার্ড মেন্ট কি করবে ? অংশু - ফার্ম হাউস ,গাছপালা পশুপাখি নিয়ে থাকবো। দীপা- বাঃ উন্নতি হয়েছে। যে অংশুবাবু কখনও একটা ফুলের চারা লাগায়নি সে কিনা ফার্ম হাউস করবে … অংশু - সময়ের সাথে সব বদলায় ম্যাডাম , আচ্ছা তোমার কনুইয়ের নীচে সেই পোড়া দাগটা দেখি তো গেছে কিনা … দীপা- তুমি অনেক রোগা হয়ে গেছো , তা ওজন কত শুনি ? অংশু - সত্তর বাহাত্তর হবে বোধহয় মাপিনি, দীপা - তা কেনো মাপবে ? একটা অগোছালো মানুষ। অংশু - যাক বাবা তাও অপদার্থ শব্দ টা বলোনি। দীপা - ভাবোনা ডিভোর্স হয়েছে বলে সে অধিকার নেই। সমাজ বিজ্ঞানের অধ্যাপক হয়েও আসলে সমাজটাই শেখোনি , আর কি শিখেছো বলো, ঐ ছেলে পড়ানো , সেমিনার আর লেখালেখি। তা ধন্যবাদ তোমার রূপালী ঠৌট উপন্যাস এবছর একাডেমি পেলো , দারুণ লেখো তুমি, আগের চেয়ে অনেক ধার। অংশু- বাঃ তুমি পড়েছো ? দীপা- সব পড়েছি , তোমার রিসেন্ট উপন্যাসের নায়িকা মেঘনা টি কে ? মানে কার আড়ালে কাকে লিখেছো ? অংশু - এও কি বাংলা সাহিত্যের অধ্যাপিকাকে বলে দিতে হবে ? দীপা- বারোটা বছর সময়ের শাসনে অনেক বদলালেও আমি বোধহয় সেই বড্ড সেকেলেই রয়ে গেলাম। অংশু - একা একাই কাটিয়ে দিলে বারো বছর। দীপা- একই প্রশ্ন আমিও করতে পারি। অংশু - আচ্ছা দীপা আজ না হয় শেষবারের মতো বলি, আমার মধ্যে কি ছিলো না বলোতো ? কেনো পারোনি এই বাউন্ডুলে ভবঘুরে মানুষটার সাথে চিরকালের ঘর বাঁধতে ? আমি কি ভালোবাসতে জানি না ? .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top